Shahbagh: Islam vs. Liberation War fyasad: Where do we stand, where do we want to go.

Image © Syed Latif Hossain

Image © Syed Latif Hossain

We must keep the Shahbag movement outside of the fyasad of belief-vs.-atheism. We have to keep it free of political parties. We have to convert the war cry of revenge into the awakening cry of resistance. We have to keep the door open for all people to join us. In front is a long and difficult path. Shaking the country for ten days is possible, but to change the country takes years. Our voices are now liberated with the promise of trying war criminals and a relief from a religiously fascist society. This cannot be ignored. The resounding “no” to traditional political parties and their practitioners cannot become “yes” ever again. It’s time to change the rules of the game.

Shahbag: Islam vs. Liberation War fyasad:
Where do we stand, where do we want to go.

By Faruk Wasif
[Translated from Bengali]

A killing and the deep politics around Shahbag

The first shock came on the twelfth day of the Shahbag movement. The complex issues and risks that surround this cyclonic movement came to light through the sad and tragic loss of life. Thus there is a need to understand this. The questions that the investigating inspector asks are: Who killed blogger Rajib Haider? What was their motive? But from Shahbag the questions are political: Just when the movement was to move into the next phase of action why was he so brutally murdered? What was the purpose? And by whom?  What does the daily Amar Desh achieve by presenting Rajib as the leader of atheists in this movement? What kind of plan do they want to actualize? They want to splinter the unity of the movement by falsely showing that atheist are leading this movement, which is not true at all. People of all walk of life that wants justice for genocide against the liberation war of Bangladesh in 1971. For this purpose they had successfully delivered a Trojan horse into the very heart of the movement launched from Shahbag Square near Dhaka University. They are trying to stigmatize the spirit of the movement by depicting it as anti-islam, which is utterly wrong. We have to be aware of this trap, if not this will lead to the war of the atheists vs. Jamat-e-Islam which will lead to the fight of religion against liberation, then a violent effort to save the war criminals that will bring a third power into play???

This is why they want this movement to become violent. That is why they will not falter when it comes to murdering more people and creating terror. By doing this the Shahbag movement will be put to rest at Shahbag. The rest of the country will then be hearing the chants of anti-liberation forces. This is very important that, these very forces, which opposed the birth of Bangladesh, and till very recently which bear the name of Pakistan in their party name, for the very first time in 42 years were able to rally other Islamists behind them. This is alarming for democracy, for Bangladeshi version of liberal Islam and for socio-political stability too. The victims of this political play will be Jahanara’s children of 1971 and the spirit of Shahbag. And off course non-violent and liberal tradition of Islam of Bangladesh too will be victim.

Creating and enforcing terror is a fascist tactic. Jamayat Islam and their friends are master of art of terror. Remember this is not 1971. When a political issue turns into a military issue the public enemy survives. The people will survive through rallying at the mass movement, organizing a transformation and executing plans to socially boycott-resist-desist all people and organizations that are associated with the public enemy. The main factor is the state. We, today, have a state, legislation and law enforcing agencies. The government is bound to keep to its promise when it comes to power with popular vote for trying the war criminal.

Just when the government could not decide which way to go and how to fulfill its promise we have hit the streets to bring them back to track. The people are now the leader to show the government and the state their way back to the straight path. If that path is abandoned and the state falls in the trap laid by the killers to actualize a civil war then mass murderers will hit the streets. On the other hand the emotional youth behind the Shahbag movement will be destroyed much like National Socialist party (JSD) cadres in post ’71 years. Due to JSD’s failure and whimsical nature it was easy for military rule to come in and take over regain their control. This is how anti-revolutionists are trying to trap the children of revolution and that there will be no one left to protest. The country will suffer a setback in progress by 10 years.

The skilled hunter kills two birds with one stone

Firstly, Shahbag is the center of youthful energy projecting a spirit of the promise for a better tomorrow. Any scandal or shame associated with the movement will bring it to its knees along with the country. It belittles the effort of the masses that have gathered for a better tomorrow. If any set back happened that will frustrate the new generation of revolutionists. So beware of those who are malicious instigators. Look at the past and learn from it. They are masters at killing many birds with one stone. Be vigilant!

Secondly whether Rajib was an atheist or a non-atheist/believer does have an impact on this movement. Relegious fascist are pulling us into their field of religious bigotry, we will win if we stand firm in the realm of secular politics. What is even more important to acknowledge is the method used to kill him? It echoes the methods used by Al-Badr the brutal killers of 1971. This was the way novelist Humayun Azad, blogger Asif Mohiuddin (was stabbed though) even journalist couple Shagor-Runi was murdered. Whichever hand deals the murderous blow it cannot be the hand of Islam. The need to prove this is imperative for the followers of Islam. Islam did not take the responsibility for genocide in 1971, rather believers of every faith stood for peoples right. So why should it be responsible for Rajib’s murder? Whosoever justifies this murder is in the name of Islam is Islam’s enemy, Bangladesh’s enemy and the enemy of the Youth’s upsurge. Unfortunately the daily Amar Desh is justifying this gruesome murder and continously instigating violence.

In 1971 newspapers that supported Al-Badr also misled people by saying people who wanted freedom from Pakistan were atheists, communists and traitors. The result of which, as we know, are the unresolved deaths of 3 million people and the rape of some hundreds of thousands of women. They forced razakars to murder their brothers. In 2013 Amar Desh is pushing many religious minded young men and women to change their understanding and set them on a path of destruction. It’s calling them to stand against ‘traitors and the enemies of Islam’. Despite the price Bangladesh has had to pay no other enemy of Islam has been able to do as much damage as Jamat has. Will Muslim youths again ride the wave of emotion rather than rationale and intelligence?

Which law allows the murder of an atheist to be justified? In many Christian-majority countries there are anti-blasphemy laws. Islam does not condone blasphemy neither does it condone the murder of who has been blasphemous. The Roman Church is known to have killed many priests accused of blasphemy. Bruno was burned to death.

Historically such incidences are fewer when we look at Muslim nations in the middle ages. While Europe was languishing in the dark ages it was the Muslims who sought to initiate the first globalization. They brought about the Greek-Arab reawakening. Philosophers and scientists of that time claim to be Muslims. So saying we also should remember that though Lalon and Tagore were not Sharia followers, they were not atheists either. They recognized the need for ultimate dominance and control through fear and terror of the mullahs much like the priests/purohits of leading temples. So who are these men who issues fatwa for killing atheist? Are they became Pope or caliph of Islam? Against these types of misdeeds fourth caliph of Islam Imam Ali wrote to his subordinate:
”develop in your heart the feeling of love for your people and let it be the source of kindliness and blessing to them. Do not behave with them like a barbarian, and do not appropriate to yourself that which belongs to them. Remember that the citizens of the state are of two categories. They are either your brethren in religion or your brethren in kind. They are subject to infirmities and liable to commit mistakes. Some indeed do commit mistakes. But forgive them even as you would like God to forgive you. Bear in mind that you are placed over them, even as I am placed over you. And then there is God even above him who has given you the position of a Governor in order that you may look after those under you and to be sufficient unto them. And you will be judged by what you do for them.” http://paulsarmstrong.com/articles/caliph-ali-letter-to-malik-ashtar/

The question is not Islam vs. liberation war

Rajib is known for having written posts that deliberately provoke. But let us stop for a moment and recognize him, not for what he has done, but for his rights as a human being in a democratic scenario. If we do not recognize his rights then we dehumanize ourselves and become bloodthirsty savages. Belief is entirely an individual’s right but to ensure that individual and diverse beliefs are respected and protected is the responsibility of the state. We do not want a secular state which excludes or ignores the presence of religion rather we want a state that includes and respects all religions with the right to practice it and not stood as enemy of any religious group. The state must acknowledge the existence of all religious beliefs, practices and practitioners, at the same time it should act as a mundane apparatus of citizen’s affairs.

An atheist is welcome to his belief of non-belief. It is within ones rights to practice it and patronize it but to abuse another religion, to deliberately hurt its practitioners in the name of that patronization is a sign of malicious intent. Rajib cannot be held responsible for destroying any material/physical goods. His problem was behavioral. So he cannot be tried in accordance of criminal law. Yet knowingly Amar Desh instigating/justifying his death? They stated that whoever killed him would be undertaking a great duty!!! Amar Desh is actively promoting fascism itself while accusing others of it. There is an internal war going on within the BNP camp as many of its workers, leaders and journalists wish to join the movement at Shahbag. The BNP-Jamat clique wants to stop this break-away group and has raised the alarm bells calling for a civil war. BNP or Amar Desh is not here to fight against fascism. For those who wish to represent Islam as a progressive and positive religion, to stop the steady encroachment of India, the West’s’ war of dominance and the wave of growing Islam-phobia of some sections of West one has to leave such political parties and gather to form a center stage of uncompromised honesty and courage. People always remember a traitor even if they forget who the patriotic hero is. It seems that they are willing to be labeled the traitor Mirjafor (who took side of lord Clive in 1757) in order to cash in on the current situation so as to materialize and establish its presence. They should be aware though that people never forgive a traitor.

The imagined conflict between Islam and spirit of the War of Liberation

History has witnessed the progress of Islam because in the region where it originated, their leaders were forward thinking and patronized the arts and philosophy. Islam was presented as a religion that did not need a medium to communicate with God/Allah, unlike the Roman Church that heavily depended on using fear tactics to keep tight control on its believers as to who could communicate with God. Islam, as a result, liberated many oppressed nations of Asia and Africa.

All sections of people must learn to be tolerant. Some debate can be go on in the sphere of culture; some fight must be fought in the stage of politics. Islam and Bengali identy can coexist peacefully. We must create a Buffer zone of culture for debate and develop. Russian Historian V. V. Bartold once wrote that, not for the lack of Science or technology, rather those strong Islamic empires collapsed by loosing their cultural leadership. They dried out internally by losing the power of communication between people and concepts. The power of culture is the biggest power of all. The Jamati politics have been failed to acquire the essence of history, culture and philosophy of Bangladesh. On the contrary we need to uphold the possibilities of culture and democratic nature of resistance. If those two can be maintained our rise is obvious.

There are some who are very capable to shade their anti-people activity by the musk of liberation war. The rise of Shahbag proved that they have only the musk; the spirit of liberation resides there where it should be, in the hearts of people. Another group however exists who use secularism and the memory of liberation war as a shell, not a shield, who profess to be pro-liberation but this movement has proven that it is just a shell. They betrayed people many times. Not only the BNP the so-called pro-liberation Awami League also rescued war criminals and their party for political several times. The spirit is where it has always been, in people’s resistance. Shahbag has stood strong against the various ploys employed to derail the movement by the shell-carriers. There is no difference between the principles of Islam and the liberation war. You can be an atheist, a believer, a vegetarian, etcetera and yet still fight for freedom.

It’s equal to mass murder when the belief and struggling spirit of hundreds of thousands of people is insulted just because of a few atheists. Those who choose to use religion to scare people into being its followers probably think themselves above that same religion. Atheists suffer the same malaise. Then what is the difference between those who use religion to terrorize and those who insult the religion itself? We must stand vigilant of them and stop all efforts to derail and distract. Politics brings people together using peoples’ faith, belief in progress and logic. Religion hater and rajakars both use the same weapon: hate. Their belief or lacks of it are both blind and extreme. Just as the hate for atheists is secular so is the hate atheists have for religion. With all due respect for Rajib Haider we must also learn from this.

There are many believers who have fought for freedom before and are here even today. We have had leaders that were free thinkers, believed in progress and yet were believers of their respective religions. Non-secular leaders such as Emperor Asoka, Mughal King Akbar and Mahatma Gandhi were believers. Similarly Rabindranath Tagore, Maulana Bhashani, Maulana Abul Kalam Azad and Sheikh Mujibur Rahman were believers too. To bring change to society one must possess the ability to be adept at social administration and possess the vigilance to nip evil forces at the bud. Whimsically removing a religion from a society never does it any good. The argument is never ending as to which kind of society is the better one. That is why politics was invented. Atheism does not add value to such politics of freethinking and morality.

Age of Resistance

We must keep the Shahbag movement outside of the fyasad of belief-vs.-atheism. We have to keep it free of corrupt and undemocratic political parties. We have to convert the war cry of revenge into the awakening cry of resistance. Yes, if this is not the age of revolutions, this is the age of resistance, and the youth of Arab, youth of Europe and America, PRECARIAT youth of everywhere are resisting the anti-people power through people’s power.

We have to keep the door open for all people to join us. In front is a long and difficult path. Shaking the country for ten days is possible, but to change the country takes years. Our voices are now liberated with the promise of trying war criminals and a relief from a religiously fascist society. This cannot be ignored. The resounding “no” to traditional political parties and their practitioners cannot become “yes” ever again. It’s time to change the rules of the game. People have changed and politics must follow. Shahbag will give birth to new leaders who will lead the masses to something beautiful, courageous and humanistic. We refuse to sit down anymore; we should act collectively and peacefully. This is the last message of Tariqul Islam Shanto as he chanted the slogans till he passed away.

Everyone must build a resistance in words and deeds, in person and in collective. It is our duty. We came here by erasing the path of retreat. We have no leader so every face in the rally is a leader. We do not have an Imam, Shohid Jononi (Mother of martyre Jahanara Imam is our Imam. We must not give up the fight. Don’t waste your breath before the final battle is here or else Shahbag will be taken away from the people. In his historic speech of 7 th March (1971) Sheikh Mujib said “You all know everything and understand it too.” People have begun to learn and understand the deep politics. People have begun to think collectively, we must keep the pace, keep the unity and earn confidence of both the Islam and freedom loving people of Bangladesh. We must uphold that essentially there is no clash between them and the idea of Bangladesh.

Victory for the people, victory for Bangladesh

Faruk Wasif is Assistant Editor, Prothom Alo Dhaka, and an active participant of the Shahbag Movement.
শাহবাগ: ইসলাম বনাম মুক্তিযুদ্ধ ফ্যাসাদ: কোথায় দাঁড়িয়ে আছি, কোথায় যেতে চাই

by Faruk Wasif

রাজীব কেন খুন হলো?

আন্দোলনের বার দিনের মাথায় প্রথম ধাক্কাটি আসে রাজীব হায়দারকে হত্যার মাধ্যমে। আন্দোলনের ঘূর্ণিপাকের তাবত জটিলতা ও ঝুঁকি এই মর্মান্তিক আত্মদানের মধ্যে দিয়ে প্রকাশিত হয়েছে। একে তাই বুঝে দেখা দরকার। ব্লগার রাজীব হায়দারের খুনী কারা? তাদের মোটিফ কী ছিল? ইত্যাদি প্রশ্নগুলো দারোগার। কিন্তু আন্দোলনের দিক থেকে প্রশ্নটা রাজনৈতিক। যেমন: যে মুহূর্তে আন্দোলন পরের ধাপে যাবার চিন্তা করছিল, তখনই নৃশংস হত্যাকাণ্ডটি ঘটালো হলো কেন? কী উদ্দেশ্যে? কাদের দিয়ে? রাজীবকে আন্দোলনের নেতা বানিয়ে শাহবাগ নাস্তিকদের দখলে বলে প্রচার করে আমার দেশ পত্রিকাটি কোন নকশা বাস্তবায়ন করতে চায়? তারা শাহবাগের সার্বজনীন ঐক্যের মধ্যে ফাটল ধরিয়ে নাস্তিক বনাম জামাত> নাস্তিকের মুক্তিযুদ্ধ বনাম জামাতের ইসলাম> মুক্তিযুদ্ধ বনাম ইসলামের লড়াই = যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার নৈরাজ্য=তৃতীয় শক্তির আগমন???

এজন্যই তারা চায় আন্দোলন সহিংস হয়ে উঠুক। তার জন্য আরো হত্যা আরো সহিংসতা তারা ঘটাতে পিছপা হবে না। এভাবে আন্দোলনের ভাবমূর্তি ধ্বংস করে শাহবাগকে শাহবাগেই আটকে ফেলাও যাবে, বাকি দেশটায় চলবে ইসলাম রার জিগির। রাজনীতির এই খেলার শিকার হবে শাহবাগের চেতনা আর জাহানারার সন্তানেরা।

সহিংসতা জামাতি পদ্ধতি। আর এটা একাত্তর সাল নয়। রাজনৈতিক সমস্যাকে সামরিক সমস্যায় পরিণত করতে পারলে গণশত্র“রা বাঁচে। আর আমরা বাঁচব গণআন্দোলন, গণজাগরণ এবং সামাজিক বয়কট-বর্জন-প্রতিরোধের কর্মসূচিতে। মূল ফ্যাক্টরটা হলো রাষ্ট্র। আমাদের এখন রাষ্ট্র আছে, আইন আছে, বাহিনী আছে। সরকারও মুক্তিযুদ্ধের পে থাকায় পাবলিকলি প্রতিশ্র“তিবদ্ধ। সেই আশ্বাসে যখনই ভেজাল বা আপস দেখা দিয়েছিল বলেই তো সরকারকে সঠিক পথ দেখাতে আমরা রাজপথে নেমেছিলাম। জনগণই এখানে নেতা হয়ে সরকার ও রাষ্ট্রকে সঠিক পথ দেখিয়ে দিয়েছে। সেই পথ ছেড়ে হত্যাকারীদের উস্কানিতে গৃহযুদ্ধ বাধানোয় পা ফেললে ডামাডোলের মধ্যে গণহত্যাকারীরা দলেবলে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবে। অন্যদিকে হঠকারী পথে গিয়ে তারুণ্যের শ্রেষ্ঠ অংশটি ধ্বংস হবে_একাত্তরের পরের জাসদের মতো। জাসদের ব্যর্থতা ও হঠকারিতার জন্যই সামরিক শাসন কায়েম হওয়ার পথ সুগম হয়েছিল। বিপ্লব প্রতিবিপ্লবীদের খপ্পরে পড়ে এভাবে তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের গ্রাস করে। প্রতিবাদের কেউ আর তখন থাকবে না। দেশ পিছিয়ে যাবে আরো বিশটি বছর।

এক ঢিলে বহুপাখী মারার ওস্তাদ শিকারি

শাহবাগ নতুন বাংলাদেশের প্রাণভোমরা, আগামির স্বপ্ন। এই প্রাণভোমরায় কলঙ্ক লাগলে বা তা আহত হলে বাংলাদেশও কলঙ্কিত হবে, মুষড়ে পড়বে। হতাশা গ্রাস করবে নতুন সহস্রাব্দের জাগ্রত তারুণ্যকে। সুতরাং উস্কানিদাতাদের বিষয়ে হুশিয়ার। অতীত থেকে শিক্ষা নিন, তারা এক ঢিলে বহুপাখী মারতে ওস্তাদ। তাই হুশিয়ার!

দ্বিতীয়ত, ব্লগার রাজীব হায়দার নাস্তিক ছিলেন কি আস্তিক ছিলেন, সেটা অবশ্যই বড় কথা। তার থেকেও বড় কথা, তাঁকে হত্যার ধরনটা আলবদর সংস্কৃতি। এভাবেই তো হুমায়ূন আজাদ,  আসিফ মহিউদ্দীন এমনকি সাগর-রুনীকেও হত্যা করা হয়েছিল। (আমরা প্রকাশের পরপরই পাকসারজমিনসাদবাদ উপন্যাসের সমালোচনা করেছিলাম এর রগরগে ধর্মবিরোধিতার জন্য, আবার আমরাই তাঁর ওপর হামলার পরদিন থেকে মুক্তচিন্তা রা হুমায়ূন আজ মঞ্চ গঠন করে বিরাট ছাত্রযুব আন্দোলন গঠন করেছিলাম) চাপাতির কোপ যে হাতই দিক, তা ইসলামের নয়, এটা প্রমাণের দায়িত্ব মুমিনদেরই বেশি। একাত্তরের গণহত্যার দায় যেমন ইসলামের নয়, রাজীব হত্যার দায়ও তেমনি ইসলাম কেন নেবে? যে ইসলামের নামে এই হত্যাকে জায়েজ করবে, সে ইসলামেরও শত্রু, বাংলাদেশেরও শত্রু, নবজাগরণেরও শত্রু। কিন্তু ‘আমার দেশ’ গং ইসলামের নামেই এই জঘন্য বর্বরতাকে জায়েজ করে চলেছে।

একাত্তর সালে আলবদরের সমর্থক পত্রিকাগুলোও এধরনের মীরজাফরীই করেছিল। তারা মুক্তিযোদ্ধাদের নাস্তিক, কমিউনিস্ট, দেশদ্রোহী ইত্যাদি বলে জনগণকে প্রতারণা করেছিল। তার শিকার হয়েছিল তিরিশ লাখ নিরীহ মানুষ, কয়েক লাখ নারী হয়েছিল ধর্ষণের শিকার। রাজাকার বাহিনীর অজস্র সাধারণ সদস্যকে তারা ভ্রাতৃহত্যায় ঠেলে দিয়েছিল। এই ২০১৩ সালে আমার দেশ পরিষ্কারভাবে ইসলামমনা তরুণ-তরুণীদের আত্মঘাতী পথেই ঠেলে দিচ্ছে। বলছে দেশদ্রোহী হতে, জাতির বিপক্ষে দাঁড়াতে এবং আবারো একাত্তরের মতো ইসলামের সর্বনাশ করতে। জামাতের কারণে ইসলামকে বাংলাদেশে যত মূল্য দিতে হয়েছে, তত তি ইসলামের কোনো শত্রু করতে পারেনি। মুসলিম যুবকেরা কি আবারো বুদ্ধির বদলে আবেগের জোয়ারে ভাসবেন?

নাস্তিক হলেও একজনকে খুন করা জায়েজ হয় কীভাবে? কোন আইনে? অনেক খ্রিস্টান দেশে ব্লাসফেমি আইন আছে, ইসলাম ব্লাসফেমি যেমন সমর্থন করে না, তেমনি ব্লাসফেমাস কাজের জন্য কারো জীবন নেওয়াও সমর্থন করে না। রোমান চার্চ অনেক ভিন্নমতাবলম্বী পাদ্রিকে হত্যা করেছিল নাস্তিকতার বদনাম দিয়ে, ব্রুনোকে তারা পুড়িয়ে মেরেছিল। মধ্যযুগের মুসলমান দেশগুলোতে এরকম ঘটনা অনেক কম। ইউরোপ যখন অন্ধকারে তখন তারাই নেতৃত্ব দিয়েছিল প্রথম বিশ্বায়নের। ঘটাচ্ছিল গ্রিক-আরব দর্শনের মিলিত পুনর্জাগরণ। সেসময়ের যুক্তিবাদী মুতাজিলারা নিজেদের মুসলিমই বলতেন। লালন বা কবীরও কিন্তু নাস্তিক ছিলেন না, আবার প্রচলিত শরিয়াবাদীও তারা হননি। তাঁরা বুঝেছিলেন, মোল্লাতন্ত্র পুরোহিততন্ত্রের মতোই কায়েমি স্বার্থের পাহারাদার।

তর্কটা আস্তিকতা নাস্তিকতার বা ইসলাম বনাম মুক্তিযুদ্ধের নয়

রাজীব হায়দার উস্কানিমূলক পোস্ট লিখতেন, এটা অস্বীকার করার কিছু নাই। কিন্তু তার কাজকে নয়, তার জীবনের অধিকারকে স্বীকার করতে হবে। তা অস্বীকার করলে মানুষ হিসেবে আমরা রক্তপিপাসু হয়ে যাব, অসভ্য হয়ে যাব। বিশ্বাস যার যার, কিন্তু সবার বিশ্বাসের সমমর্যাদা নিশ্চিতের দায়িত্বটা রাষ্ট্রের। আমরা ধর্মহীন সেক্যুলারিজম চাই না, আমরা চাই ধর্মসাপেক্ষ সেক্যুলারিজম। ধর্মবিশ্বাসী বিভিন্ন সম্প্রদায় সমাজে আছে, তা রাষ্ট্র স্বীকার করবে, যেমন তাকে স্বীকার করতে হবে যে, দেশ এক কিন্তু জাতি আছে অনেক। ইসলামের মদিনা সনদে এবং মহানবীর বিদায় হজ্বের নির্দেশনার সঙ্গে এই ধর্মসাপে সেক্যুলারিজমের কোনো মৌলিক বিরোধ নেই। দূরত্ব কিছু আছে, তার কারণ মধ্যেখানে পার হয়েছে দেড় হাজার বছর এবং আমাদের দেশ ও সমাজটা বেদুইন আরব বণিকের নয়, এটা কৃষক-কারিগরের বাংলাদেশ।

নাস্তিকেরটাও একজাতীয় বিশ্বাস, সেই বিশ্বাস তিনি লালনপালন করুন অসুবিধা নাই। কিন্তু নাস্তিকতার নামে অপরের বিশ্বাসকে আঘাত করা হিংসাত্মক মনোভাব। রাজীব হায়দার তো কারো জানমালের ক্ষতি করেননি। তাঁর সমস্যাটা দেওয়ানী, অর্থাত আচরণমূলক। সুতরাং ফৌজদারি শাস্তি তাঁর জন্য বৈধ না। তারপরও আমার দেশ পত্রিকা জেনেশুনে নাস্তিক বদনাম দিয়ে প্রকারান্তরে আন্দোলনকারীদের খুনের আহ্বান জানালো। তারা এমনভাবে যুক্তি দেয় যেন খুনী এক মহান দায়িত্ব পালন করেছে!!! (এই পত্রিকার সম্পাদক ফুলবাড়ীতে এশিয়া এনার্জিকে ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন বলে সেখানকার জনগণ তাকে নিষিদ্ধ করেছে। পাবনায় নিজামীর সংসদীয় এলাকায় টাটার কারখানা বসানোর ব্যবস্থাও করে ফেলেছিলেন তিনি। করতে গেলে পাবনাবাসীও তাঁকে এবং নিজামীকে আরো আগেই নিষিদ্ধ করে দিতেন সন্দেহ নাই।) তিনি ফ্যাসিবাদ বিরোধিতার নামে যা করছেন, তা-ই বরং ফ্যাসিবাদের জন্য খাল কাটছে। গৃহযুদ্ধ কোথাও শুরু হয়ে থাকে, সেটা বিএনপি শিবিরে। তাদের দলের অনেক নেতাকর্মী ও সাংবাদিক বুদ্ধিজীবী শাহবাগে সামিল হতে চায়। এই ঘরের লড়াই ঠেকাতে বিএনপি-জামাত ধারা দেশে গৃহযুদ্ধ গৃহযুদ্ধ আওয়াজ তুলছে। ফ্যাসিবাদ বিরোধী লড়াইয়ে আমার দেশ বা বিএনপি কোনো সহায়ক নয়। যারা সত্যিকারভাবে ইসলামকে রা করতে চান, পাশ্চাত্যের সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ, ইসলাম বিদ্বেষের ঢল এবং ভারতীয় সম্প্রসারণবাদ ঠেকাতে চান, তাঁদের উচিত এদেও সঙ্গ ত্যাগ করে স্বচ্ছ, সৎ ও আপোসহীন মঞ্চে সমবেত হওয়া। কায়েমি স্বার্থের লাঠিয়াল বা মুখপত্র হয়ে মীরজাফরের খেতাব তাঁরা নেবেন কেনয় বাংলার মানুষ সিরাজকে ভুলতে পারে, মীরজাফরদেও কখনো ক্ষমা করে না।

ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মধ্যে বিরোধ কাল্পনিক

পারস্য ও তুর্কি খলিফারা পৃষ্ঠপোষকতা করতেন শিল্প-সাহিত্য ও দর্শনের। উপমহাদেশের মানবিক জাগরণের নায়ক সুফি-দরবেশরাও মোল্লাতন্ত্র মানতেন না। কারণ, ইসলাম খ্রিস্টান ধর্মের রোমান চার্চতন্ত্রেও মতো কোনো পুরোহিত/মোল্লাতন্ত্র সমর্থন করে না। মানুষ ও আল্লার মধ্যে কোনো বেহেশতি ঠিকাদারের জরুরত অস্বীকার করেছিল বলেই ইসলাম দ্রুত ছড়াতে পেরেছিল এবং মুক্ত করেছিল এশিয়া-আফ্রিকার অনেক মানুষকে।

এত কিছুর পরেও মুসলমান সাম্রাজ্য কেন ইউরোপের কাছে হেরে গেল? এটা ইতিহাসের এক বিরাট প্রশ্ন। বিশিষ্ট রুশ ইতিহাসবিদ ভি ভি বারটোল্ড অক্সফোর্ড মুসলমান কালচার বইয়ে বলেন, ‘বিজ্ঞান বা প্রযুক্তির ঘাটতির জন্য নয়, বরং এই শক্তিশালী সাম্রাজ্যগুলো চুপসে গিয়েছিল সাংস্কৃতিক নেতৃত্ব হারিয়ে ফেলার মাধ্যমে। মানুষে মানুষে যোগাযোগ এবং সমাজে চিন্তার বিস্তারের ক্ষমতা খুইয়ে তারা ভেতর থেকে শুকিয়ে মরছিল।’ এই শুকিয়ে মরার কাজের নেতৃত্ব দিয়েছিল রক্ষণশীল জঙ্গি মোল্লাতন্ত্র। পরিহাস হলো, যে সামরিকতন্ত্রের ভরসায় তারা বাঁচতে চেয়েছিল, ইউরোপীয় আগ্রাসনের মুখে প্রমাণ হলো তা কাজের নয়। সংস্কৃতির শক্তিই বড় শক্তি। বাংলাদেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও দর্শন থেকে সেই রস আহরণ করায় জামাতি চক্র ব্যর্থ। বিপরীতে আমাদের লালন করতে হবে সংস্কৃতির সম্ভাবনাকে, প্রতিরোধের গণতান্ত্রিকতাকে। এই দুই ঠিক থাকলে যুদ্ধে, রাজনীতিতে ও অর্থনীতিতে আমাদেও পুনরুজ্জীবন অবশ্যম্ভাবী।

সুতরাং স্বাধীনতার সংগ্রামীদের যারা ইসলামের শত্রু ঘোষণা করে হত্যার বৈধতা দিয়েছিল, এ প্রজন্মের সংগ্রামীদেরও তারা সেই অস্ত্রে বধ করতে চাইছে। আত্মরক্ষার জন্য ইসলামকে ঢাল করছে। ইসলাম একাত্তরে যেমন এখনো তেমন প্রকৃত বিশ্বাসীদের মনে শান্তির নূর হয়ে আছে। আরেকপ আছে, যারা নিজেদের যাবতীয় কুকীর্তি মুক্তিযুদ্ধের খোলসে ঢাকতে ওস্তাদ। শাহবাগ জাগরণ প্রমাণ করেছে, তাদের কেবল খোলসটাই আছে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যেখানে থাকার সেখানেই আছে। জনগণের চেতনায় ও শপথে তা সুরতি আছে বলেই শাহবাগ জাগরণ বিচারের নামে টালবাহানার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিল। বিভিন্ন অপশক্তিও বিভিন্ন ধরনের চাল ভেস্তে দিয়েছিল শাহবাগ। মুক্তিযুদ্ধকে আবার বেহাত করতে খোলসপও নতুন খেলা সাজাচ্ছে। জঙ্গি জুজু দেখিয়ে নিজেদের দল ভারি করতে, ভোটব্যাংক ভরাতে তারা মাঠদখল করে আছে।

আমরা ইসলাম ও মুক্তিসংগ্রামের মধ্যে কোনো বিরোধ দেখি না। ইসলাম ও মুক্তি একসঙ্গে লড়েছে একাত্তরে। এখনো লড়বে। বাতিল তরিকা আগের মতোই তামাদি হয়ে যাবে। নাস্তিকতার সঙ্গে এই আন্দোলনের চেতনার কোনো সম্পর্ক নেই। কেউ নাস্তিক বা আস্তিক, নিরামিষাশী, ক্রিকেটপ্রেমী ইত্যাদি হয়েও মুক্তিকামী হতে দোষ নাই।

নাস্তিক গুটিকয় মানুষের জন্য লাখো-কোটি জনতার বিশ্বাসকে অবমাননা করা বিশ্বাসের গণহত্যার সামিল। মুক্তিযুদ্ধ বনাম ইসলামের ফ্যাসাদ তুলে জনগণকে বিভক্ত করতে চায়, তারা নিজেদের ধর্মের চাইতে বড় মনে করে। নাস্তিকেরও একই বাতিক। তাহলে এইসব ধর্মব্যবসায়ীর সাথে নাস্তিকদের তফাতটা কোথায়? এদের চিনেন নিন, রুখে দিন। প্রকৃত বিপ্লবী আরশে তীর ছোড়ে না, সমাজের শত্রুদের চেনানোর চিন্তা ছড়ায়, রাজনীতির মাধ্যমে মানুষে মানুষে বন্ধন গড়ে। তার অস্ত্র মানুষে আস্থা, পরিবর্তনে বিশ্বাস আর যুক্তির আলো। নাস্তিক আর রাজাকারের অস্ত্র ঘৃণা। তাদের বিশ্বাস বা অবিশ্বাস দুটোই কিন্তু অন্ধ ও মৌলবাদী। তারা জনগণের কাতারে নামে না। বরং বলে, দ্যাখো আমি কত সেরা আমি কত জানি, আমাকেই মানো আমাকেই ভক্তি করো। নাস্তিকতাও একধরনের ধর্ম। নাস্তিককে ঘৃণা যেমন সাম্প্রদায়িকতা, নাস্তিকদের ধর্মঘৃণাও তেমনি সাম্প্রদায়িকতা। রাজীব হায়দারের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেও এই উপলব্ধি আমাদের অর্জন করতে হবে।

ধর্মের ভেতরেও মুক্তিবাদী ছিলেন অনেক এবং আছেন। শহীদ তিতুমীর, মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাসী ছিলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামী ছিলেন। ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ তিন অসাস্প্রদায়িক সম্রাট অশোক, সম্রাট আকবর আর মহাত্মা গান্ধি ধর্মবিশ্বাসী ছিলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও মাওলানা আজাদ এবং মাওলানা ভাসানী এবং শেখ মুজিব বিশ্বাসীই ছিলেন। সমাজ পরিবর্তনের জন্য জরুরি হলো সামাজিক কুশাসন আর অপশক্তিকে উতখাতের জ্ঞান। ধর্ম উতখাতের হঠকারি কর্মসূচিতে সমাজের কোনো মংগল হয় না। সমাজ বদলালেই নতুন মানুষ হবে, আরশ কাঁপানো বক্তৃতা দিয়ে কিছুই বদলায় না। আরশের তাতে তি হয় না, বরং সমাজে ধর্ম গেল ধর্ম গেল বলে অনেক ভাল মানুষকেও ভুল শিবিরে ঠেলে দেওয়া হয়।

ধর্মও সমাজকে বদলাতে চেষ্টা করে। কোন ধরনের সমাজ মানুষের জন্য ভাল, তা নিয়ে দুই পক্ষে তর্ক ও সংগ্রাম হবে। রাজনীতির সৃষ্টি তো তার জন্যই। নাস্তিকতা রাজনীতির পথে, চিন্তা ও নৈতিকতার বিকাশের পথে কাজ করে না। কেবল ‘নাই ‘নাই’ বলে কাজ হয় না। বলতে হবে, মানুষ আছে, ইতিহাস আছে, মানুষের ন্যায়বোধ আছে, যুক্তি আছে। সংগ্রামী মানুষ, সত মানুষ, উন্নত মানুষ ধর্মও তৈরি করেছে। সভ্যতার ইতিহাস তো ধর্মেরও ইতিহাস। ধর্মে ধর্মে হানাহানিও তো কম হয় নি।

প্রতিরোধপর্ব

শাহবাগ আন্দোলনকে আস্তিকতা-নাস্তিকতার ফ্যাসাদের বাইরে রেখে, দলীয়করণের খপ্পর মুক্ত হয়ে, সহিংসতার রণধ্বনিকে প্রতিরোধের জাগরণধ্বনিতে পরিণত করেই এগিয়ে যেতে হবে। সকল মানুষের অংশগ্রহণের সুযোগ খোলা রাখতে হবে। সামনে দীর্ঘ কঠিন পথ। দশদিনে দেশ কাঁপানো যায়, কিন্তু দেশ বদলের জন্য লাগে অনেক বছর সময়। যুদ্ধাপরাধী ও ধর্মীয় ফ্যাসিবাদ মুক্ত নতুন বাংলাদেশের পে যে ঐকমত্য জনগণের সকল স্তরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, তাকে আর কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। প্রচলিত রাজনীতির প্রতি যে ‘না’ শাহবাগে উচ্চারিত হয়েছে, তাকেও আর ‘হ্যাঁ’ করানো যাবে না। মানুষ বদলাচ্ছে, রাজনীতিকেও বদলাতে হবে। আশার সমান না হোক, কাছাকাছি হতে হবে তাদের। পুরনো চিন্তা ও পুরনো নেতৃত্ব যতই আজ শাহবাগকে পেছনে টেনে রাখুন, সময় আর পেছনে ফিরবে না। তারা হবে নতুন দিনের নেতা, পুরনোর লাগাম ছিঁড়ে এমন কিছু করবে যা অভিনব, সুন্দর, সাহসী ও মানবিক। বাংলাদেশ আর বসে থাকতে রাজি নয়। তরিকুল ইসলাম শান্ত স্লোগান দিতে দিতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সেটা জানিয়ে গেছেন।

চিন্তায় ও কাজে প্রতিরোধপর্ব সফল করার দায়িত্ব সকলের। আমাদের নেতা নেই, মিছিলের প্রতিটি মুখই তাই নেতা। আমাদের ইমাম নাই, জননী জাহানারাই আমাদের ইমাম। প্রথম অর্জনকে রক্ষা করে জাগ্রত জনতার গতিসূত্র বুঝে দ্বিতীয় অর্জনের পথ রচনা করুন। নিজের চারপাশে ঘুরে ঘুরে দম শেষ করার মানে হয় না। আসল সংগ্রামের আগে দম হারালে মাঠ অন্যের দখলে তো যাবেই, মাঠই খেয়ে ফেলবে ফসল। সাতই মার্চের ভাষণে শেখ মুজিব তিনি বলেছিলেন, ‘আপনারা সবই জানেন এবং বুঝেন’। মানুষ জানছে ও বুঝতে শুরু করেছে, এটাই ভরসা। জয় বাংলা।

(এটা নিতান্তই একজন অংশগ্রহণকারী হিসেবে আমার ব্যক্তিগত মত। এর দায় সম্পূর্ণই আমার।)

4 thoughts on “Shahbagh: Islam vs. Liberation War fyasad: Where do we stand, where do we want to go.

  1. Shahbagh bloggers and their followers made demand for death sentence instead of proper justice. That is dictating judgment regardless of legal process and procedure. If one get death sentence from a proper judicial process I don’t see issue but tribunal has been anything but proper. From what David Bergman documented pain fully says lot about kangaroo court charactitics of the tribunal that both Awami League regime and some people from blogging community and outside the country interfered.

    Key defense witness being abducted from court premise, prosecution lie has been admitted as truth by the tribunal, are among other things.

    Furthermore, this Shahbagh bloggers and their followers moved their demand from “war crime” tribunal to banning Jamaat to banning Islamic party to attack on business, media and even publicly traded Islami bank which has no connection to politics or party. From close look at Shahbagh it is clear “war crime” has been used as pretext to direct attack against political opponents, media, newspaper and even bank. Not to mention attack on Islam and Islamic values.

    Just today Shahbagh bloggers and their followers threaten to attack and destroy Daily Amardesh.
    One has to wonder, beyond glorification of Shahbagh, when and whom would dare to point out that fascist nature of their demand and activities are hurting their cause (if there was a real noble one) more than Jamaat can ever do.

  2. With respect to the first paragraph I don’t think it will be possble to achieve this. You can only bring important, positive and lasting change by joining main political parties and bringing reforms through new and inspiring leaders with moral courage, truth and jutice. I think the current movement cannot be changed into what you would like as it is too much mixed up with and supported by Awami League and have become embroiled, without intention most likely, in this ‘fyasad of belief-vs.-atheism’ polarisation issue. If the movement or elements of the movement start to move away from the Awami League agenda then they will send in the Chattro League to destroy the movement.

  3. I find it incredible that Shahbag people are complaining about other side not playing fair. Did they expect that they will corner a vicious enemy like Jamat into a wall and they will not fight back? Its a question of survival for them. They will fight with every weapon they can muster. It should have clear right at the beginning that they will try to deploy their heaviest artillery, Islam and religious sentiment, as soon as the the opportunity presented themselves. Starting a fight and expecting the other side will not hit back is the height of naivete.

    Shahbag movement started with a very precise demand, hanging convicted criminals like Kader Mollah. Be it retributive or restorative Justice, a major portion of Bangladeshis in and out of country supported that because they just had enough of the unfinished business of ’71 haunting us at every turn. I suspect that even many adherents of political Islam also supported this demand because they want their politics free of the taint of ’71. But buoyed by their unexpected success the Shahbag leaders expanded their range into banning politics based on religion, an idea that is anathema to a large part of the country and also highly questionable in a democratic society. Rather than develop a civil movement to ostracize financial organizations of Jamat, they went for the quick and easy demand of government action. Ban this and ban that became their new rallying cry.

    The way things are going, this may turn out to be yet another partisan fight. That will be a tragedy because we had a rare opportunity where a large part of the country united to achieve something concrete.

  4. “Yet knowingly Amar Desh called for his death? They stated that whoever killed him would be undertaking a great duty!!! He is actively promoting fascism himself while accusing others of it”

    Where has exactly Amar Desh called for Rajib’s death? Faruk Wasif, please provide a link to the statement of its editor Mahmudur Rahman or any other responsible staff. I will highly appreciate it

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s