Amar Desh’s Hindu Problem

amar-desh

Recently we had an internal debate on the merits and demerits of Amar Desh as a newspaper. My argument was that it’s news/editorial policy had a noticeable anti-Hindu stance to it.


Asked to gather evidence to support this, I did so unscientifically.
I went to google.com and searched the word হিন্দু  for 3 newspaper sites – Amar Desh, Prothom Alo and Amader Shomoy.

The last two were for comparison in case it was my extra-thin PC skin that was to blame for taking offence at Amar Desh’s bucolic Bangali attitude towards minorities. The exact search terms in google were:

হিন্দু site:www.prothom-alo.com
হিন্দু site:www.amardeshonline.com
হিন্দু site:www.amadershomoy2.com
I only went up to page 4 for each. Results:
Amader Shomoy turned out gibberish. Lots of the same stories over and over. Plus, unrepeatable occurrences in the comments section. Tabloid at its best.
Prothom Alo gave me stories concerning arson on Hindu homes (a depressing number of these), hindu marriage bill act, ICT witness statements on how Hindu villages were pointed out to Pakistani army by Rajakars etc.
Amar Desh gave me 3 instances of “Hindu man insults Islam” type stories since last October. Now this is the sort of news that started off a riot in Ramu only a few months back, so I have to wonder at the motivation of a newspaper that runs this sort of story.
In addition, I also came across one that reported on the return of a Muslim girl who had been kidnapped by a Hindu man. This to me seems like a needless, gratuitous use of religious identity to report a crime
It reminded me of British tabloids at their worst. Every year there are instances of child abuse in the UK. But last year, disproportionate media attention was focussed on one particular case. Why? Because the victim was White and the accused were of Pakistani descent. Did their identity make them more of a criminal, make their crime more loathsome than if a White person had done it? It appeared so. Even Jack Straw weighed in from Westminster, asking “the community” to keep these men in line. Yes, a crime committed by Britons of all races had suddenly become a “community” problem!
Similarly I have to ask Amar Desh why they need to report on the religious identity of the kidnapper. Would the kidnapping have been any more acceptable to us as a nation if it had been a Muslim man? A crime is a crime no matter who commits it, and yet – Amar Desh needs to add in that it was a Hindu man. Why? What purpose does it achieve? Am I better informed as a reader about the motives of the criminal? Or am I supposed to draw some conclusion about the Hindu community?
None of which is to say that Amar Desh did not cover the recent spate attacks against the Hindu community – they did. They also covered Hindu marriage bill act, Hindu community leaders sending congratulations to Khaleda Zia, etc.
So what does this mean? Will I stop reading/linking to Amar Desh? I think it is highly unlikely for the time being because then I would lose coverage of the government’s failures which other media outlets – and by that I mean Daily Star and Prothom Alo – have steadfastly refused to cover.
We have media failure on a large scale. The communally neutral outlets like DS/PA have taken such a partisan approach to reporting the news that readers need to go to a communally-tainted outlet like Amar Desh to get the whole picture.

27 comments

  1. খুব-ই নায্য প্রশ্ন। আসলে লেখাটা পড়তে পড়তে ৯/১১ এর কথা মনে পরে গেল। কি ভাবে তখন মিডিয়া পাগল হয়ে উঠেছিল টুইন টাওয়ার এর ভাঙ্গন নিয়ে। নিঃসন্দেহে তা ছিল ইতিহাসের অনেক ঘৃন্যতম ঘটনার একটি। কিন্তু এক যুগেরও বেশি সময় ধরে যে যুদ্ধ মধ্য-প্রাচ্যে চলছে, পেলাস্তিন-এ যে হত্যাযজ্ঞ ঘটছে তার ছাপ ঠিক সেই ভাবে আমরা মিডিয়াতে পাই না। “অন্যকরণের” রাজনীতি কিছু বিশেষ সহিংসতাকে যেমন বৈধতা দিয়ে তার ভয়াবহতাকে খাটো করে দেখে (আমারদেশ যেমনটা দিচ্ছে হিন্দু জনগোষ্ঠির প্রতি ঘটে যাওয়া সহিংসতাকে), আবার তেমনি কিছু সহিংসতাকে বিশেষ আঙ্গিক দেয় (যেমন হিন্দু পুরুষ এর দ্বারা মুসলিম মেয়ের অপহরণ). সহিংসতাকে সকল সময়, সকল দেশে, সকল প্রতিষ্ঠানে বোধ করি পাঠ করা হয় “সেল্ফ” আর “অন্য” এর বিভাজন এর ওপর দাড়িয়ে। আর সেকারণেই প্রথম আলো, The Daily Star এর বেতিক্রম নয়।

  2. Amar Desh publishes those news which other media like to hide. It has an inordinary point of view in it’s editorial. Though unlikly anti-government.

    What I can suggest for u, however, is to read recent articles by Shanjib chowdhury in Amar Desh.

    • I am sure there is sensible, interesting writing in Amar Desh. But that does not mean that it does not publish anti-Hindu propaganda pieces disguised as news.

  3. Huh! Not satisfied with the Allied propaganda, the neutral parties decided to give Joseph Goebbles a chance. Surely, he runs a few death camps in Poland, but because the “neutrals” are so incapable of getting the whole picture on their own they must balance the scale by listening to him.

  4. @aanmona, this pox on both your houses gets us nowhere though. In certain circumstances, there is a criminal and a victim. By eroding their credibility in this way, PA/DS is blurring the criminality rather than pointing it out.

    @Dipen, I don’t know whether you are deliberately trying to invoke Godwin’s Law, but I’ll engage.

    Your analogy is problematic. Propaganda might be how you win the war, but we are trying to win the peace in Bangladesh. Mahmudur Rahman has been accused of many things, but running concentration camps is not one of them. His paper has a problematic attitude towards Hindus which I have pointed out. This ends up legitimising violence against Hindus, which I have also acknowledged.

    Overstating the case does not help it. We are not trying to find some mythical “balance”, but to get the whole picture. We are Alal o Dulal, not Netaji Bose!

  5. Today Amar Desh published a very interesting report on Awami League leader Suranjit Sengupta blocking government grant for a female orphanage after his demand for 3 crore taka bribe was declined. It may be termed as anti Hindu stance of AD. But AD did similar investigative reporting about Sajib Wazed Joy, Ex CJ Khairul Haque, Judge Shamsuddin Manik etc.

    Amar Desh is very right wing, Islamic indoctrinated, no doubt. But sometimes I feel some of their stance against Awami League or some of the stance to cover up omissions in Prothom Alo etc makes them sound more anti Hindu than they are.

    Just look at this Prothom Alo report.

    http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-01-28/news/324726

    A teacher of Shahid Anwar Girls high School is relieved of his duties after he was found guilty of indecent behaviors with a student. In the whole report, there is no mention of the name of the teacher. The psychology that drives Amar Desh is that Amar Desh feels if this teacher was a Maolana, or Islamic teacher, Prothom would have mentioned it with high profile. But because the teacher is Hindu, Prothom Alo even refrained from mentioning the name. Similarly Prothom Alo totally blacked out the news of Porimal joydhar of Viqarunnessa school for a long week until it became a national news and PA had no way to vanish the news any more. Sometimes Amar desh tries to compensate for this sort of news treatment of nations’ leading newspaper ( owning 70% of total readership). And these compensations attempts give Amar desh a highly visible communal flavor.

    • I have no problem with them covering any story that mainstream media does not cover. If they just left it at the name that would have been fine. But in the stories I saw they tend to emphasise a perpetrators religion if Hindu.

      I am totally for coverage of suranjit senguptas corruption charges and misdemeanors. I have said so on the blog before.

      Have you seen AD describe judge manik as the Muslim judge manik?

      • This is the news on Suranjit Sengupta.
        I am not contesting the perception that Amar Desh is communal. I am trying to understand what drives Amar Desh to be communal or more broadly how apparent progressive secular overreach leads to sufferings of minority communities. I would recommend broaden your research scope to compare pre and post 2009 Amar Desh coverage. Was Amar Desh as communal when the perception that ” Dari Tupi is under attack” was not as acute among right-wing populace?
        I do not condone what Amar Desh does and do not share the rationale of Amar desh. But it is important to understand what makes them click. We all know that Amar Desh is the symptom, not the cause. There is constituency that is ripe for this sort of hate mongering by Amar Desh.

        An Amar Desh reader will say that if it was a Maolana or Huzur type caught molesting his student, Prothom Alo will highlight the identity of the molester as a Maolana or Huzur. Their complain is that when it is a teacher from Minority community, Prothom Alo will totally black out the news ( PA, to their credit, may say that they are doing this to prevent communal hatred and tension). When government persecution gets worse, this complaints turn into grievances and pushes a part of the population adopt an openly communal attitude. This people would not have been as communal.

        The worst part is that as a result of all these the whole minority community gets victimized.

      • And where does the perception that ‘dari-tupi is under attack’ come from? I would be very interested to know if there is any empirical study of this ‘dari-tupi under threat’ phenomenon.

        Here is another perception — since the current submissive-to-India government has come to power, our borders have become extremely dangerous and BSF is killing unarmed Bangladeshis like birds. But this perception is totally at odds with the fact that border killing has actually diminished significantly under the current government. 120 people were killed by BSF in 2006 — was there much protest of the BNP government’s submissive policy?

        Just like the border killing issue, this ‘dari tupi under threat’ is also likely to be a self-perpetuating myth among some folks. These people are convinced that when AL comes to power, the country is sold to India, Hindus become too powerful, and Islam and all its symbols are under attack. And Amar Desh fuels that perception.

        It’s not ‘secular overreach’ (whatever that means) that’s the problem here. It’s Mahmudur Rahman’s need to prove his recycled two nation theory.

        And the tragedy is that this bigoted, communal reporting crowds out manifold corruption and abuse of power of the current government. If we end up with another AL term, Mahmudur Rahman and Amar Desh will bear a significant responsibility.

      • If we end up with another AL term, then that responsibility, be it credit or blame, lie with the people of Bangladesh.

      • Rumi bhai, without getting into an argument about whether the perception of ‘dari topi in danger’ is accurate or not, lets assume that this perception is the reality. Even then, why does Amar Desh need to spread hatred of minorities to combat this dari-topi-is-evil perception? Are Hindus as a group responsible for this?

        The point I tried to make in the post is that it is possible to do good, investigative journalism and keep the government on it’s toes without demonising an entire community. New Age does it, but of course does not reach the Bangla mass market.

        Anyway, I will leave it at that, because I know you are personally very much against any sort of communalism. Secondly, it is starting to look like Amar Desh might become the next victim of Bangladesh’s press censors, and I don’t want to add fuel to that fire.

      • Here is a facebook status by AKM Wahiduzzaman, a jatiyatabadi online activist and JCD leader from the early 1990s:

        Akm Wahiduzzaman
        March 30 via mobile.
        তখন সম্ভবত ক্লাস ফোর-ফাইভে পড়ি, একদিন আমার বাবা অফিস থেকে ফিরে আমাদের ডেকে বললেন, ‘বাজারে একটা নতুন গালি এসেছে, ওটা যেন আমার বাসয় না ঢোকে’। আমি আর আমার ছোট বোন বেশ আগ্রহ নিয়ে গালিটা কী তা জানতে চাইলাম। বাবা বললেন, ‘তাহলে তো সেটা বাসায় ঢুকেই গেল’।

        ইদানিং বাজারে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর মত একটা নতুন ইস্যু এসেছে। এটা যেন আমাদের দেশে না ঢুকতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। অনেকেই পার্শ্ববর্তী দেশের মুসলমান হত্যা নিয়ে খবর শেয়ার করছেন। এটা করার আগে হিসাব করেন যে, নিজের দেশে গত একমাসে কতজন মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমণ করে একবার সেই হত্যাযজ্ঞকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। এখন আবার মিয়ানমারের ঘটনাকে উপলক্ষ্য করে বৌদ্ধদের ওপর হামলা করে যেন গতকালের হত্যাযজ্ঞকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা না করা হয়, সেই বিষয়ে সতর্ক থাকুন। নিজের প্রতিবেশী সংখ্যালঘুর ওপর হামলাকারীদের প্রতিহত করুন, হামলার দৃশ্য ভিডিও করুন বা ছবি তুলে রাখুন এবং হামলাকারীদের ব্যক্তিগত পরিচয় সবাইকে জানিয়ে দিন।

        It is very much possible to do investigative journalism, be strongly critical of AL, and be a hardcore BNP supporter, without spreading communal venom and use the ‘dari tupi under threat’ line. And it is possible to explain Amar Desh’s communalism as communalism, pure and simple, without resorting to ‘secular overreach’ analysis.

      • How we say “dari tupi are not in danger”. It is saying ” that skinny guy is not hungry” – because I am not hungry. Unless you are a dari tupi – you cannot say Dari tupi don’t feel they are in danger. Then how do I then say that Dari Tupis feel they are in danger, unless I am dari tupi? Because Amar Desh in 2013 and Daily Inqilab to some extent are the voices of dari tupi. Reading these news outfits gives me the idea about the perception.

        Even then, why does Amar Desh need to spread hatred of minorities to combat this dari-topi-is-evil perception? Are Hindus as a group responsible for this?

        Who you are asking this question? Me?

        The point I tried to make in the post is that it is possible to do good, investigative journalism and keep the government on it’s toes without demonising an entire community.

        Who you are debating this issue with? Did I ever say anything that suggest I might not believe in this?

        “good, investigative journalism and keep the government on it’s toes” and religious hate mongering are not mutually exclusive things. I think Amar Desh is doing both.

        Vai, I do not know whether I am cmommunal or not. Keeping non-communal is a life long “shadhona”/ endeavour. There are very few people in this planet who are really non-communal. I’ll try to my best to remain – but again, it is very difficult task – and I’ll continue my shadhona for that endevour. Communalism not necessarily mean to include religious bigotry only. There are many sort of communalism, ethnic communalism, religious communalism, linguistic communalism, partisan communalism – ethnic and religious being the worst types of communalism IMHO.

      • Amar Desh has a vested interest in proving that dari-tupi is in danger. They want to hype up every possible story and angle to prove that dari-tupi is in danger. Ditto for Inqilab. To use that as the sole basis for one’s analysis is like using Dick Cheney as the expert source in an analysis of neo-con agenda.

      • … and MR’s career. Just as there is a readership for PA version, there is a readership for AD version. Probably more for AD version now, as being in opposition strengthens, and being in power fattens.

      • Really it does? By doing all these where AD editor sees himself in next BNP govt ( if there ever is one)? Will BNP comfortable giving him a leadership or powerful ministerial job? I seriously doubt. There is also NO doubt that AD editor knows that. Or AD editor is dreaming of a Khelafat under the leadership of Allama Shafi in Bangladesh of which he will be the minister of virtue and religious integrity?

        If career was his point here, he would have been as pragmatic as he was during his stint as BOI chief. All what AD is doing is reaction to ideological grievances – and AD is a mirror reflection of the picture in the ground.

      • I think Mahmud Sahib sees himself as a future prime minister or president in a government that adheres to his version of nationalism.

  6. It’s only Amar Desh where you are seeing some good reporting on “manifold corruption and abuse of power of the current government…” . If you want to crowd out your thought process with “anti Hindu” reporting of Amar Desh instead of focusing on quiet a few very good investigative reporting on government corruption, the problem may also lie with you.
    Again, Amar Desh is a symptom, not the cause.

    • Indeed. The problem may also be with this blog that it is talking about the ‘symptom’ and not the real problem of secular overreach.

  7. Where does the perception of this threat come from? From the top. Do you know what will happen if this threat is not acknowledged and addressed? মসজিদের ভিতরে উলুদ্ধ্বনি. Call my political opponent তিলকওয়ালী to show your revulsion and that is ok. Get my name wrong in that same speech, and I will publicly humiliate you – learn your lesson everyone.

    An analysis of this chain of command – of clear signals sent on what is and what is not acceptable in public discourse – gets us closer to the cause of bad behavior by people with power, and is perhaps a more meaningful analysis than that of “secular overreach” (whatever that means) as a / the contributing factor.

  8. There is a broader, darker underbelly in Bangladesh’s politics, particularly BNP’s politics, that needs to be confronted squarely. I have once heard Anwar Hossain Manju put it this way — Manju wears pant-shirt, doesn’t pray or fast, and no one cares, but AL-ers from Amir Hossain Amu to the village level leader wears pajama-panjabi, often has dari-tupi, and is often panch-waqt namazi, and yet faces criticism of ‘Islam in danger’, why?

    Manju’s answer, and I agree with him, is this — it’s not Islam, it’s the Hindus, it’s not religion, it’s communalism. Going all the way back to the 1950s, when AML dropped Muslim from its name and became AL, a section of Bengali Muslims became suspicious of Hindu influence on the party. Anti-AL politicians of our era have benefitted from this Hindu-phobia. As the major alternative to AL, BNP has benefited from this anti-Hindu feeling too.

    That anti-Hindu feeling has historical roots, and may even have been justified back in the early 20th century — separate debate, and not for this thread. But in independent Bangladesh, this sort of communalism should have no place. And anyone who supports BNP/Zia, or is perceived to support BNP/Zia, has an added responsibility to confront this communalism head on. Not with ifs and buts and hand wringing way of ‘we are not really that bad’, but an honest and sincere ‘communalism has no place in our politics, yes, we benefitted from it in the past, or we failed to fight it in the past, but it has no place in our politics’. AKM Wahiduzzaman, quoted above, does precisely that. And as an admirer of Zia’s politics, I am with Wahid.

    Mahmudur Rahman patently doesn’t. Rather, he wants to instigate the Hindu-phobia. I leave it to other BNP/Zia supporters, perceived or real, to decide for themselves what they should do.

  9. কি ভাবে স্বাধীনতাবিরোধী মিডিয়া গুলো হিন্দু বিদ্বেষ উসকে দিচ্ছে?

    ২৮ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার রায়ে জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষণার পর থেকেই হিন্দুদের উপর হামলা হচ্ছে। ২৪ দিনে দেশের ৩২টি জেলায় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা হয়েছে। ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৩ মার্চ পর্যন্ত এসব হামলায় অন্তত ৩১৯টি মন্দির, বাড়ি, দোকানে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এগুলোর মধ্যে দোকান ১৫২টি, বাড়ি ৯৬টি ও মন্দির ৭১টি। এরপর আরও অনেক জায়গাতে হামলা হয়েছে।

    সাঈদীর রায় ঘোষণার কিছুদিন আগে থেকেই নিবন্ধ ও প্রতিবেদনের মাধ্যমে জামাত-শিবির সমর্থিত পত্রিকাগুলোতে উস্কানীমূলক প্রারোচনা দেয়া হতে থাকে । যেমন, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকায় বলা হয়, “শাহবাগ স্কয়ারে বাম-রাম ও কমিউনিস্টদের মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। তথাকথিত যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির নাটক মঞ্চস্থ করার আড়ালে মূলত ইসলামের দুশমনেরা দেশ থেকে ইসলাম নির্মূলের হুঙ্কার দিচ্ছে। ” ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ প্রকাশিত একই পত্রিকায় আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী বলেন, “বর্তমানে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন এবং চিহ্নিত নাস্তিকরা যেভাবে একের পর এক ইসলামের বিরুদ্ধে বিষোদ্গারমূলক আঘাত হানার প্রয়াস এবং দাড়ি-টুপীধারী পুরুষ ও পর্দানশীন নারীদের উপর হামলা চালানোর মত বর্বরতা ও দুঃসাহস দেখাচ্ছে, তাতে কোন মুসলমানই উদ্বিগ্ন না হয়ে পারেনা। তিনি সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে মুসলমানদেরকে এক কালিমার ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন।”
    ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩ জামায়াতে ইসলামীর মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম প্রত্রিকায় জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান বলেন, “এটা এখন দিবালোকের মত স্পষ্ট যে, আমাদের ধর্ম স্বাতন্ত্র্য, স্বাধীনতার বিরুদ্ধে আল্লাহর দুশমনরা প্রকাশ্যে মাঠে নেমেছে। বিশ্বব্যাপী মুসলিম সভ্যতার বিরুদ্ধে ইহুদি ও ব্রাহ্মণ্যবাদী এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই শাহবাগে প্রজেক্ট চালু করা হয়েছে।” সংগ্রাম পত্রিকার ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ সংখ্যায় বিবিসির বংলা বিভাগের প্রাক্তন প্রধান সিরাজুর রহমান বলেন, “এ দেশে প্রধানমন্ত্রী আল্লাহর শুকরিয়া আদায়ের কথা ভাবতে পারেন না। ফসল ভালো হলে তিনি ‘মা-দুর্গার’ প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।” একই পত্রিকাটির ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩ এর সম্পাদকীয় তে বলা হয়েছে, “আবার নারী-পুরুষ একই সাথে, একই কাতারে নামাজ পড়েছে। আবার হিন্দুরাও নাকি নামাজে অংশগ্রহণ করেছে।” একইভাবে, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ সংখ্যায় চরমোনাইপীর ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মো: ফয়জুল করিমের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, “দেশের ২৭টি জেলার প্রশাসক হিন্দু, ২০০ ওসি হিন্দু, সচিবালয়সহ সর্বক্ষেত্রে হিন্দুদের প্রমোশন দিয়ে পুরস্কৃত করা হচ্ছে। আর প্রকৃত মুসলমান আমলা ও কর্মকর্তারা হচ্ছেন ওএসডি বা চাকরিচ্যুত।”
    দৈনিক আমার দেশের ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ সংখ্যায় সম্পাদক মাহমুদুর রহমান লিখেছেন, “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক … সংখ্যালঘু শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আমার দেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। … ভারতীয় কায়দায় প্রদীপ প্রজ্বলন : গতকাল সমাবেশের পঞ্চম দিনে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর উপস্থিতিতে ভারতীয় হিন্দুদের রীতিতে প্রদীপ প্রজ্বলন করা হয়।” আমার দেশের ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ প্রকাশিত আরেকটি নিবন্ধে মাহমুদুর রহমান, সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামালকে সুলতানা কামাল চক্রবর্তী নামে অভিহিত করেন। একইভাবে গোলাম আযমও ১৪ আগষ্ট, ১৯৭১ সালে এক অনুষ্ঠানে মুজিবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদকে শ্রী তাজউদ্দীন নামে উল্লেখ মুক্তিযু্দ্ধের সাম্প্রদায়িক রূপ দিতে চেষ্ট করেছিলেন।
    এই মাহমুদুর রহমান এর আগে ‘সাংস্কৃতিক আগ্রাসন রুখতে ইতিহাস জানা দরকার’ শিরোনামে লেখাতে লিখেছে, “বাংলাদেশের মানুষের ভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিচয় মুছে দেয়ার লক্ষ্যে এদেশের ক্ষমতাসীন মহল শরত্চন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মতো করেই বাঙালি এবং মুসলমানকে পরস্পরের প্রতিপক্ষ রূপে দাঁড় করানোর সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। শাহবাগে সার্বক্ষণিক স্লোগান, ‘আমি কে তুমি কে, বাঙালি বাঙালি’, প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের কণ্ঠে বাংলাদেশের পরিবর্তে বাংলার গুণকীর্তন, সংসদে বাংলা ও বাঙালির বন্দনা, মিডিয়ায় বাঙালিত্ব প্রচারণার আড়ালে পশ্চিমবঙ্গের হিন্দু সংস্কৃতির জয়গান—এগুলো বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়।”
    ভারতের ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’র ফেব্রুয়ারি ২৬ তারিখে “প্রোটেস্টারস অ্যাট শাহবাগ ইন বাংলাদেশ ব্যাকড বাই ইন্ডিয়া” শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল। প্রতিবেদনটির কিছু শব্দ বিকৃত করে, উস্কানিমূলক শব্দ ব্যবহার করে পরদিন বুধবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি সংখ্যার ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল “ভারতের মদতে শাহবাগ আন্দোলন: ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’র প্রতিবেদন”।

    এখানে অবশ্যই উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’র প্রতিবেদনটির শিরোনাম নিয়েও যথেষ্ট বিভ্রান্তির অবকাশ আছে। প্রতিবেদনটির শিরোনাম হতে পারত ‘‘ইন্ডিয়া সাপোর্টস শাহবাগ প্রোটেস্ট’’। তাহলে হয়তো ‘আমার দেশ’ রং মাখিয়ে সাম্প্রদায়িক প্ররোচনা দেওয়ার সুযোগ পেত না।

    ‘আমার দেশ’-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,
    “শাহবাগ আন্দোলন ভারতের মদতপুষ্ট বলে জানিয়েছে দেশটির সর্বাধিক প্রচারিত ইংরেজি দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া।… প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ব্যস্ততম শাহবাগ মোড়ের আন্দোলনকারীদের প্রতি প্রতিবেশি ভারতের জোরালো মদত রয়েছে। মদতের প্রমাণ হিসেবে প্রতিবেদনে ভারতের অন্যতম দুজন নীতিনির্ধারকের বক্তব্যকে উদ্ধৃত করা হয়েছে। এদের একজন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেনন এবং অন্যজন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সালমান খুরশীদ।”

    অথচ, ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় শিবশঙ্কর মেননের বক্তব্যের বাংলা অনূদিত ভাষ্যে কোথায় ‘মদত’ দেওয়ার কখা উল্লেখ করা হয়নি। যেমন, ‘আমার দেশ’-এর অনূদিত ভাষ্যে বলা হয়েছে, “শিবশঙ্কর মেনন শুক্রবার বলেছেন, ‘বাংলাদেশি মুক্তমনা তরুণরা শাহবাগে বিক্ষোভ করছে। তারা উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক মৌলিক মূল্যবোধকে সমর্থন দিচ্ছে।”
    একইভাবে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সালমান খুরশীদের বক্তব্যের অনুবাদে ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় ‘সংহতি’, ‘জোরালো অনুভূতি’ ইত্যাদি শব্দগুলো ব্যাবহার করা হয়েছে।
    অর্থাৎ উভয় ক্ষেত্রেই আমার দেশের অনূদিত ভাষ্যে ‘মদতের’ পরিবর্তে সমর্থন ও সংহতি কথাটি ব্যবহার করা হয়েছে।

    বাংলা ভাষায় ‘মদত’ শব্দটি মূলত নঞর্থক ও ‘সমর্থন’ শব্দটি ধনাত্নক অর্থে ব্যাবহার করা হয়। ‘মদত’ শব্দটি সচরাচর সমর্থনের সমার্থক হিসেবে ব্যবহার হতে দেখা যায় না।
    তাহলে ‘আমার দেশ-এর প্রতিবদনটিতে ’সমর্থন’ ও ’সংহতি’ শব্দ দুটোর বদলে ‘মদত’ শব্দটি কেন ব্যবহার করা হল? এর মূল লক্ষ্য হচ্ছে, শাহবাগ আন্দোলন ভারতের পৃষ্ঠপোষকতায় হয়েছে এ ধারণা প্রচার করে বাংলাদেশের জনগোষ্ঠীর একটি অংশের ভারতবিদ্বেষী মনোভাবকে উসকিয়ে দিয়ে আন্দোলনটিকে নসাৎ করা।

    এর আগেও আমার দেশ হিন্দুদের বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালায়। ২০১২ সাল। ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের ফতেপুর হাইস্কুলে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সৈয়দ আবুল মনসুর আহমদ রচিত ‘হুযুর কেবলা’ প্রবন্ধের নাট্যরূপ মঞ্চায়ন হয়।

    এ ঘটনার দুদিন পর ওই নাটকে মহানবী (সা.) সম্পর্কে কটুক্তি করা হয়েছে মর্মে স্থানীয় ‘দৈনিক দৃষ্টিপাত’ পত্রিকায় ‘কালিগঞ্জে নাটকের মাধ্যমে মহানবীকে (সা.) অসম্মান-তৌহিদী জনতার প্রতিরোধে ভণ্ডল’ শিরোনামে একটি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

    এর ফলে কয়েকদিন ধরে কালিগঞ্জে ১৫টি হিন্দু এবং মুসলমান বাড়িতে হামলা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

    এ নিয়ে তখন একটা পোস্ট দিয়েছিলাম ব্লগে

    http://www.amarblog.com/lonelyhuman/posts/145768

    ১১ এপ্রিল বুধবার সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার স্বাক্ষরিত এক আদেশে পত্রিকাটির প্রকাশনা বাতিল করা হয়।

    ছাপাখানা ও প্রকাশনা (ঘোষণা ও নিবন্ধনকরণ) আইন ১৯৭৩-এর ২০(ঙ) (১)(২)(৩) উপধারা মতে ‘দৈনিক দৃষ্টিপাত’ পত্রিকাটি বন্ধের আদেশ দেন সাতক্ষীরা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।

    দৈনিক দৃষ্টিপাত পত্রিকায় রিপোর্টের সত্যতা যাচাইয়ে ৪ এপ্রিল ৮টি কারণ উল্লেখ করে পত্রিকাটির সম্পাদককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয় এবং ৩ দিনের মধ্যে এর জবাব দিতে বলা হয়।

    পত্রিকাটির সম্পাদক জিএম নূর ইসলাম নোটিশের জবাব দিলেও প্রকাশিত রিপোর্টের সপক্ষে কোনো যুক্তিযুক্ত কারণ উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হন।

    কিন্তু সাম্প্রদায়িক বিএনপি জামায়াতের মুখপত্র দৈনিক আমার দেশ, দৈনিক সংগ্রাম আর দৈনিক নয়া দিগন্ত এই জামায়াতের দালাল পত্রিকা দৈনিক দৃষ্টিপাতকে সমর্থন করে রিপোর্ট প্রকাশ করে।

    http://www.amardeshonline.com/pages/details/2012/04/18/141494

    http://www.dailynayadiganta.com/details/47807

    http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=83101

    সাম্প্রদায়িক দৈনিক আমার দেশ এই ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের http://www.amardeshonline.com/pages/details/2012/04/06/139724 করা বিক্ষোভকে “সাতক্ষীরায় নির্যাতনের প্রতিবাদ : শাহবাগে সড়ক অবরোধ করে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছাত্রদের তাণ্ডব” শিরোনামে উস্কানিমূলক রিপোর্ট প্রকাশ করে।

    http://www.amardeshonline.com/pages/details/2012/04/06/139724

    অথচ ঐদিন কোন গাড়ি ভাঙচুরও করেনি শিক্ষার্থীরা।

    স্বৈরাচারী এরশাদও একইভাবে পতনের অন্তিম মুহুর্তে্, ১৯৯০ সালের অক্টোবরে, মওলানা মান্নানের পত্রিকা দৈনিক ইনকিলাবকে ব্যবহার করে স্বৈরচারবিরোধী গণতান্ত্রিক আন্দোলন নসাৎ করার চেষ্টা করেছিল। ১৯৯০ এ অক্টোবরের ৩১ তারিখের দৈনিক ইনকিলাবে প্রকাশিত বাবরি মসজিদ ধ্বংস-সংক্রান্ত মিথ্যা সংবাদের ওপর ভিত্তি করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় স্থানগুলোতে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ঢাকেশ্বরী মন্দিরসহ সারাদেশের হিন্দু উপাসনালয়গুলোতে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটাপাট করা হয়।

    জনগণের প্রতিরোধে যদিও হামলাকারীরা পালিয়ে যায়, হামলায় মদতদানকারী দৈনিক ইনকিলাব ও তার অবৈধ মালিক ডা. আলীম চৌধুরীর হত্যায় সহায়তাকারী মওলানা মান্নানকে কখনও এজন্য জবাবদিহি করতে অথবা শাস্তি পেতে হয়নি। শুধুমাত্র ইনকিলাবের নিবন্ধন সাময়িকভাবে (১৭ দিনের জন্য) বাতিল করা হয়েছিল।

    এ দায়মুক্তির ফলশ্রুতিতে, নব্বই-উত্তর বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায় ও প্রগতিবাদী জনগণের ওপর একের পর এক আঘাত আসতে থাকে। ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর ভারতের বাবরি মসজিদ ভাঙার পর, দেশব্যাপী হিন্দু সমাজের ওপর যে বর্বর ও ভয়াবহ নির্যাতন নেমে আসে- তা ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি মিলিটারি ও তাদের দোসরদের হত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন ও লুণ্ঠনের বিভীষিকার কথাই মনে করিয়ে দেয়।

    বিএনপি-জামায়াত শাসনামলে, ২০০১ সালে নির্বাচন-উত্তর যে খুন ও ধর্ষণ হয়েছিল তা যে কোনো গণতান্ত্রিক সমাজে নজিরবিহীন। নির্বাচন-উত্তর হামলার পর বহু হিন্দু পরিবারকে প্রাণের মায়া নিয়ে বসতভিটা ছেড়ে, দেশান্তরী হতে হয়েছিল। জামায়াত-বিএনপির ক্যাডারদের হাতে সম্ভ্রমহানি হওয়া পূর্ণিমাকে বহুদিন পালিয়ে থাকতে হয়েছিল প্রাণের মায়ায়।

    আর এ সকল উস্কানীমূলক বক্তব্যেরই পরিণতি হচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যদের উপর একের পর এক হামলা যা অনেক হিন্দুকে নিরাপত্তার কারণে বসতবাড়ী ছেড়ে, শাঁখা-সিদুঁর ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান পরিহার করে নিজেদের ধর্মীয় স্বত্তা বর্জন করতে বাধ্য করছে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি মিলিটারিরা একইভাবে বাঙালি পুরুষদের মুসলমানিত্ব প্রমাণ দিতে বাধ্য করতো।
    কিন্তু, স্বাধীনতার ৪২ বছর পরও যখন অমুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যদের ১৯৭১ সালের মতো প্রাণের মায়ায় স্বাতন্ত্র বিসর্জন দিতে হয়, তখন মনে হয় এ কেমন স্বাধীনতা এ কেমন স্বাধীন দেশ!

  10. গত কিছুদিন থেকে অনলাইনে বাংলাদেশের প্রশাসনে হিন্দু অফিসারদের নামের লিস্ট বানিয়ে প্রচার করা হচ্ছে যে হিন্দু রা প্রশাসন দখল করে নিল…….

    এর পিছনে উসকানি দিচ্ছে বিএনপি জামায়াতের মুখপত্র দৈনিক আমার দেশ।

    সিরাজুল ইসলাম নামধারী এই নরপশু গত ২২ নভেম্বর ২০১৩ তে দৈনিক আমার দেশে লিখে

    //বাংলাদেশের প্রশাসনে হিন্দু কর্মকর্তার সংখ্যা খুবই দৃষ্টিকটুভাবে অনানুপাতিক।
    কিছুকাল আগে একটা হিসেবে দেখেছিলাম, ৬৪ জেলার মধ্যে ৪২টিতেই ডেপুটি কমিশনার (প্রধান প্রশাসক) হিন্দু। আরও কিছু হিসেব এ রকম : সচিবালয়ে ৩ জন সচিব, ৩৪ জন অতিরিক্ত সচিব, ১৩১ জন যুগ্ম সচিব এবং ১২৫ জন উপসচিব এখন হিন্দু। ৫৩ জন সিনিয়র সহকারী সচিব, ৯৬ জন সহকারী সচিব এবং ৪ জন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারও অমুসলিম। বাংলাদেশে নির্বাচন সংক্রান্ত যাবতীয় দায়িত্ব পালন করে থাকেন এসব কর্মকর্তা। নির্বাচনে প্রকৃত ভোট গণনা করা হবে, না আগ থাকতেই ভরাট করা বিকল্প ব্যালট বাক্সগুলো গণনার জন্য হাজির করা হবে, অথবা অন্য কোনোভাবে কারচুপি হবে কিনা সবই নির্ভর করছে এসব কর্মকর্তার ওপর। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর পদে আসীন থাকলে নির্বাচনের দায়িত্বে নিযুক্ত এসব কর্মকর্তা তার নির্দেশ পেলে কারচুপি করবেন না বলে বিশ্বাস করা কঠিন। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিরোধী ১৮ দলের জোট এবং বাংলাদেশের ৯০ শতাংশ মানুষ সে জন্যই শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব বলে মনে করে না।//

    বিস্তারিত এখানেঃ

    http://www.amardeshonline.com/pages/details/2013/11/22/225350#.Uv19QPmSzD4

    বাংলাদেশের হিন্দুদের নিজের মিত্র বুঝে নেওয়া উচিত। আওয়ামী লীগ আপনাদের ব্যবহার করছে কিন্তু বিএনপি জামায়াত কখনই চায় না আপনারা এই দেশে থাকুন। তারা আরব ইসলামি সাম্রাজ্যবাদ চালু করতে চায়। তার প্রমাণ দৈনিক আমার দেশ।

    ২০১৪ সালে আবার এই চরম হিন্দু বিদ্বেষী দৈনিক লিখেঃ ‘বাংলাদেশের হিন্দুরা কি সুবিধাবঞ্চিত, নাকি সর্বাধিক সুবিধাপ্রাপ্ত’ এই শিরোনামে লেখা। সেখানে তারা কেচ্ছা কাহিনী দিয়ে প্রমাণ করতে চায়, বাংলাদেশের হিন্দুরা সবকিছু দখল করে নিচ্ছে।

    কি ভাষা দেখুন। রুচি হচ্ছে না আমার।
    এখানে দেখুনঃ http://www.amardeshonline.com/pages/details/2014/06/12/246523#.VasSYqSqqko

    কিন্তু কৌশলে কত % হিন্দু অফিসার তা এড়িয়ে গিয়ে টোটাল নামের লিস্ট নিয়ে মাঠ গরম করার চেস্টা চলছে

    পরে জানা গেল যে ৫৮১২ জন অফিসারের মধ্যে, ৪৭৮ জন হিন্দু (~৮%), —
    বাংলাদেশের হিন্দু পপুলেশনের % ও প্রায় ৮%

    আর হিন্দু হলেও সমস্যা কোথায়? উনারা তো বিসিএস দিয়ে পাশ করে এসেছেন……

    “১৯৯২-৯৩ সনের দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে মোট ১৩ জন হিন্দু সম্প্রদায়ের ছেলে/মেয়ে প্রথম স্হান অধিকার করে… কিন্তু ‘প্রথা’ অনুযায়ী এদের মধ্যে থেকে একজন কে ও, আবার বলছি- একজনকে ও, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয় নাই!!!!!!!! এর মধ্যে চার জন এখন আমেরিকার রির্সাচ ওয়ান লেভেলের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসাবে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন………।”

    ১০ মার্চ ২০১৪ জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বেগম ইসমাত আরা সাদেক সংসদকে জানিয়েছেন, বর্তমানে জনপ্রশাসনে উপ-সচিব থেকে সচিব পদে মোট ২ হাজার ৬০৩ জন কর্মকর্তা রয়েছেন। এসব পদের ২৬৫ জন কর্মকর্তা বর্তমানে ওএসডি। আর উপ-সচিব থেকে সচিব পদের কর্মকর্তাদের মধ্যে মুসলমান ২ হাজার ২৯১, হিন্দু ২৯২, খ্রিস্টান ৬ এবং বৌদ্ধ ধর্মের রয়েছেন ১৪ জন। গতকাল রবিবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে কুড়িগ্রাম-৩ আসনের জাতীয় পার্টির (জাপা) এমপি এ কে এম মাইদুল ইসলামের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব তথ্য জানান।
    ( সূত্রঃ http://goo.gl/flg0Ax )

    আপনারাই হিসাব করুন এখন কত শতাংশ হিন্দু?

    আর পুরো তালিকা দেখিঃ

    বর্তমানে সচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা: 3 out of Total: 72
    http://www.mopa.gov.bd/pmis/Forms/seclist.php
    বর্তমানে অতিরিক্ত সচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা 34 out of Total : 239
    Click This Link
    বর্তমানে যুগ্ম সচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা: 131 out of Total : 1017
    Click This Link
    বর্তমানে উপসচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা: 125 out of Total : 1316
    http://www.mopa.gov.bd/pmis/Forms/dslist.php
    বর্তমানে সিনিয়র সহকারি সচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা: 53 Out of Total : 1441
    Click This Link
    বর্তমানে সহকারি সচিবদের মধ্যে হিন্দু তালিকা: 96 out of Total : 1049
    Click This Link
    বিভাগীয় কমিশনার পদে হিন্দু তালিকা: 0 out of total : 7
    Click This Link
    অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার পদে হিন্দু তালিকা: 4 out of total : 18
    Click This Link
    উপবিভাগীয় কমিশননার পদে হিন্দু তালিকা: 7 out of total : 64
    http://www.mopa.gov.bd/pmis/Forms/dclist.php
    অতিরিক্ত উপবিভাগীয় কমিশনার পদে হিন্দু: 11 out of total : 188
    http://www.mopa.gov.bd/pmis/Forms/adclist.php
    উপজেলা নির্বাহি অফিসার পদে হিন্দু তালিকা: 14 out of Total : 401
    http://www.mopa.gov.bd/pmis/Forms/unolist.php

    আমরা জানি ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম ৫ জনের ৪ জনই হিন্দু। ২০১৫ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় প্রথম একজন হিন্দু।

    এখানে পড়ুনঃ http://goo.gl/258PPk

    ২০১৫ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল প্রথম পেশাগত পরীক্ষায় প্রথম এবং দ্বিতীয় দুইজনই হিন্দু।

    এখানে পড়ুনঃ http://goo.gl/3gVTJN

    বাংলাদেশের হিন্দুরা মেধা দিয়ে চান্স পায়। ভারতের মুসলিমরা কোটা সুবিধা পায়। বাংলাদেশের হিন্দুরা তা পায় না।

    অথচ এগুলো আড়াল করে বিএনপি জামাত এবং তাদের মতাদর্শীরা হিন্দু গণহত্যার ইন্দন দিচ্ছে এইসব করে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s