Faruk Wasif: Turkey & Global Youth Rebellion

Gezi Protester shows "Ataturk" tattoo  © Barak Su
Gezi Protester shows “Ataturk” tattoo © Barak Su

Turkey’s youth rebellion: The birth of a young Turkey and new leadership
by Faruk Wasif, translated from Bengali original in Prothom Alo by Nayma Qayum for AlalODulal.org

When a society turns into a minefield, one can never tell which misstep will cause an explosion. A democracy that reduces citizens to mere voters, placed in front of the TV to watch the government’s antics, creates an underlying landscape of rebellion. Erdogan’s government did not keep track of this. They thought that they had developed Turkey; but the people saw their rights disappearing. The Government thought this rebellion insignificant, just a few youngsters who resisted the demolishing of a park. But the police’s brutality unleashed a movement. The world started to witness yet another youth rebellion. After Cairo, Tunis, Wall street London, Paris, Madrid, Tel Aviv, Manila, Delhi, Dhaka, Stockholm, this global public agitation came to Istanbul, and breathed upon the neck of their government.

Weakened fabric rips at the slightest tug. When citizens are distanced from the state, a slight tug can wreak havoc. These events are a warning from the Turkish people to their government. But the rebellion has not yet attempted to oust their leaders. Thus, Taksim Square cannot be compared to Tahrir square. Rather, the movement shares greater similarities with Occupy Wall Street. It is too early to call this the Turkish Spring.
Istanbul’s city government started destroying Gezi Park to build a shopping mall. State power almost always looks down on the people’s strength. So, the government viewed this youth agitation against commercialization of a public space, as a small law and order issue. From 28th May to date, thousands of young people have been protesting against the Turkish government. They are breaking laws to continue their aggregation-protests. They have attacked the office of the PM, and crated blockades throughout the country.

The Turkish protests are allowing the world to witness the country’s deep maladies. The oppression underlying a country applauded as a centrist Islamic Republic with a neoliberal economic model has now been revealed.

© AFP
© AFP

Turkey’s Islamic government was practicing a combined politics of Islamic nationalism and destructive capitalism. The combined pressure had started to destroy solidarity, and perceptions of cultural tolerance. It affected how young people went about their lives, and how men and women interacted with each other. The Turkish protests are part the global insurgence shaking up the existing system. It once again proves that a few courageous people speaking the language of the majority can create a fire from a spark.

So, at first glance it appears that the disagreement is about the existence of a park. But this is a rebellion of Turkish society against the state. Until the 6th of June, two people have had died, non-government sources put the number at six. Thousands have been hurt. But Turkey’s allies, Europe and the US government, have been as quiet as they have been vocal about Syria or Iran. The irony is that the majority of Turkish youth has not respected this Islamicization of law and culture, and has not supported the Erdogan government’s self-benefitting development practices.

Water vaporizes when heated, people’s frustrations, too, explode into full blown rebellion. A Turkish newspaper braved the title: PM Erdogan, you are not the al-Powerful.” This reflects the placard of the protestors, which read, “PM you are not the King, but a servant of the people.”

© Barak Su
© Barak Su

Erdogan has been elected by a massive number of votes. Despite being a three-time PM, he has not established democracy. US-ally Erdogan has used the same language to course out his own citizens that the US president uses against foreign rebellions. In his eyes, the protestors are looters and terrorists. It is ironic, that the young people make the same allegations against the government. Understanding the situations’ complexity, President Abdullah Gul was the first to come to his senses. He apologized for the brutality of the Home Ministry and the Police. He also acknowledged the movement’s justification, and its democratic underpinnings.

Turkey’s centrist Islamic party is a close friend of US and Israel in the region. The AKP government has worked closely with the US on Iraq, Iran, and Syria. AKP leader Erdogan has focused both on internal and international matters – he was ready to play games on both sides.

On the one hand, peace accords with Kurd rebels, paving the way for NATO intervention in Syria, and on the other, transforming the government from Parliamentary to a Presidential system were the two primary items on his agenda. His attraction to a Presidential system comes from his desire to stay in power. His term ends in 2015. Turkey’s constitution does not permit any leader from pursuing four terms in office as PM. Therefore, his plan involved electing himself President after transitioning to a Presidential system. Turkey’s secular opposition and small Islamic parties were against Erdogan’s struggle for power. They have also supported this youth rebellion. But Syria should be the happiest. Turkey was a weapon for the US, France and Britain in sending aid to Syrian rebels.

Erdogan is a supporter of Turkey’s new conservative capitalists. His primary opposition did not stem from Syria’s Assad or Lebanon’s Hezbollah, but rather, the Turkish people. During the Egyptian rebellion, he had said to Hosni Mubarak, “Mubarak should listen to the people.” He also said something similar to Assad. Now, Turkey’s own people are screaming “Government, are you listening?” It is time for Erdogan to listen to his people.

© occupygezipics.tumblr.com
© occupygezipics.tumblr.com

Rebellions in different countries have one thing in common. They don’t have any representation from existing political forces or organized classes. From Tahrir to Turkey, Dhaka to Wall Street – a new class has started to emerge. Who are these people? They are the Precariat. They are the ordinary young citizens, like you and me. In each instance, they form the majority. Where hopelessness, economic insecurities, and inhumane politics have plagued society, these are the people who have learnt to quickly organize, with the help of their new found education, and social media. They have been angered by job insecurities, uncertain futures, and social divisions. And from Tahrir to Taksim, they are the key actor in today’s rebellions. Some social scientists have called them a dangerous class. But the bigger problem occurs when the Precariat and Proletariat stand side by side. The working class has now started to get involved in Turkey’s rebellion. Twenty two contemporary left-leaning trade unions have legitimized the protests by joining with their 24 lakh members. So, if Erdogan wants to stay in power he has to step back.

Although US-Europe-Asia’s youth movements have the youth element in common, one difference is striking. With the exception of Occupy Wall Street, the western movements have consisted of minority Muslim immigrants, and Arab-Turkish movements have drawn majority Muslims. Secular Mubaraks and Islamic Erdogans have become the minority. In country after country, this movement of the majority may usher in a new era, where democracy will truly belong to the people. But only the future can tell what outcomes the Precariat’s historical role will bring.

© Adem Altan
© Adem Altan

তুরস্কের যুববিক্ষোভ
তরুণ তুর্কি ও নতুন নায়কের আবির্ভাব

ফারুক ওয়াসিফ | তারিখ: ০৭-০৬-২০১৩

শ্রমিকদের সমর্থন তুরস্কের যুববিদ্রোহকে গণভিত্তি দিয়েছে

শ্রমিকদের সমর্থন তুরস্কের যুববিদ্রোহকে গণভিত্তি দিয়েছে

কোনো সমাজ যখন মাইনফিল্ড হয়ে ওঠে, তখন কখন কোথায় পা দিলে বিস্ফোরণ ঘটবে, তা জানার উপায় থাকে না। যখন গণতন্ত্র মানে জনগণকে নিছক ভোটার বানিয়ে সরকারের যাবতীয় কীর্তিকারখানা দেখার জন্য টেলিভিশনের সামনে বসিয়ে রাখা, তখন তলেতলে তল্লাটে তৈরি হয় বিদ্রোহের পটভূমি। তুরস্কের এরদোয়ান সরকার এত সবের খোঁজ রাখেনি। তারা ভেবেছিল, ‘উন্নয়ন’ করছে; কিন্তু সাধারণ মানুষ দেখেছে, তারা অধিকার হারাচ্ছে। পার্কের গাছ কাটার বিরুদ্ধে অল্পকিছু তরুণের ‘না’কে প্রশাসন পুতুপুতু প্রতিবাদ ভেবেছিল; ভেবেছিল মিনমিনে পরিবেশবাদ। কিন্তু পুলিশ লেলিয়ে দিতেই ‘ছিল একটা রুমাল হয়ে গেল বিড়াল’। বিড়ালটা অচিরেই বাঘের বেশে দেশময় তর্জন-গর্জন শুরু করল। বিশ্ব দেখতে পেল আরেকটি যুববিদ্রোহ। কায়রো, তিউনিস, ওয়াল স্ট্রিট, লন্ডন, প্যারিস, মাদ্রিদ, তেল আবিব, ম্যানিলা, দিল্লি, ঢাকা, স্টকহোমের পর বৈশ্বিক গণবিক্ষোভের মিছিল ইস্তাম্বুলে এসে গরম শ্বাস ফেলল একেবারে সরকারের ঘাড়ের ওপর।

কাপড়ের বয়ন দুর্বল হয়ে গেলে সামান্য টানেও তা ফেঁসে যেতে পারে। সরকারের সঙ্গে জনগণের দূরত্ব বেড়ে গেলে সামান্য ঘটনা থেকেও তুলকালাম ঘটতে পারে। কারণ যা-ই হোক, তুর্কিরা তাদের সরকারকে চরম হুঁশিয়ারি দিতে চাইছে। এই আন্দোলন এখনো সরকার পতনের দিকে ছোটেনি। তাই তুরস্কের তাকসিম চত্বরের বিক্ষোভকে তাহরির চত্বরের সঙ্গে তুলনা করা যাবে না; বরং এর মিল অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলনের সঙ্গে। তুর্কি বসন্ত বলার সময়ও তাই আসেনি।

গেজি পার্ক ধ্বংস করে শপিং মল বানাতে নেমেছিল ইস্তাম্বুলের নগর কর্তৃপক্ষ। রাষ্ট্রক্ষমতা জনশক্তিকে সর্বদাই খাটো করে দেখে। তাই জনচত্বরের বাণিজ্যিকায়নের বিরুদ্ধে অল্পসংখ্যক তরুণ-তরুণীর বিক্ষোভকে তারা ভেবেছিল আইনশৃঙ্খলা সমস্যা। কিন্তু যেই দমনের দণ্ড জনতার পিঠে পড়ল, সেই সোনার কাঠির সঙ্গে রুপার কাঠির ঠোকাঠুকিতে ঘুমন্ত জনপুঞ্জ জেগে উঠল। গত ২৮ মে থেকে এখন পর্যন্ত লাখ লাখ তরুণ তুর্কি সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে যাচ্ছে। তারা আইন ভঙ্গ করে সমাবেশ-অবরোধ চালিয়ে যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর আক্রান্ত হয়েছে; দেশময় চলছে অবরোধ।

তুর্কিদের এই প্রতিবাদে সে দেশের গভীর ব্যাধির খবরও দিচ্ছে। যে তুরস্ক ‘মধ্যপন্থী ইসলামি রাজনীতি’ আর নব্য উদারনৈতিক অর্থনীতির মডেল হিসেবে বাহবা পাচ্ছিল, যুববিদ্রোহে তার জারিজুরি ফাঁস হয়ে গেল।
তুরস্কের ইসলামপন্থী সরকার একদিকে ধ্বংসাত্মক পুঁজিবাদের সঙ্গে ধর্মাশ্রিত জাতীয়তাবাদের মিশেলের রাজনীতি চালাচ্ছিল। এই দুইয়ের চাপে স্বাধীন সামাজিক সংহতি ও সাংস্কৃতিক সহনশীলতার চেতনা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিল। তরুণদের চালচলন, নারী-পুরুষের মেলামেশার ওপর হস্তক্ষেপ হচ্ছিল। যে বৈশ্বিক প্রতিবাদমালা বিদ্যমান ব্যবস্থার ভিত কাঁপাচ্ছে, তুরস্কের প্রতিবাদ তারই অংশ। আবারও প্রমাণিত হলো, অল্পসংখ্যক সাহসীরা অধিকাংশের মনের ভাষাকে প্রকাশ করতে পারলে ছোট্ট স্ফুলিঙ্গই দাবানাল লাগিয়ে দিতে পারে।

তাই ওপর থেকে যাকে মনে হচ্ছে একটি পার্কের অস্তিত্ব নিয়ে বিবাদ, তা আসলে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তুর্কি সমাজেরই বিদ্রোহ। এই বিদ্রোহে ৬ জুন পর্যন্ত সরকারি ভাষ্যে দুজন আর বেসরকারি সূত্রে অন্তত সাতজনের মৃত্যু ঘটেছে। আহত হয়েছে হাজার হাজার। অথচ তুরস্কের মিত্র ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের সরকারগুলো ততটাই নীরব, যতটা সরব তারা সিরিয়া বা ইরানের বেলায়। পরিহাস এখানেই, তুরস্কের অধিকাংশ তরুণ যেমন আইন ও সংস্কৃতির ইসলামীকরণ সমর্থন করেনি, তেমনি মানতে পারেনি এরদোয়ান সরকারের মুনাফামুখী উন্নয়ন। একদিকে নাগরিক স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ, অন্যদিকে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে জনগণের স্বার্থ জলাঞ্জলি দেওয়ায়ও তারা অসন্তুষ্ট ছিল। পানি যেমন গরম হতে হতে একপর্যায়ে বাষ্প হয়, জনমনের হতাশাও তেমনি একটা পর্যায়ে মৃদু ফোঁসফাঁস থেকে প্রকাশ্য বিদ্রোহে ফেটে পড়ে। এ রকম অবস্থাতেই তুরস্কের একটি পত্রিকা সাহস করে শিরোনাম লেখে: প্রধানমন্ত্রী এরদোয়ান আপনি সর্বশক্তিমান নন। এই শিরোনাম যেন রাজপথের বিক্ষোভকারীদের প্ল্যাকার্ডেরই অনুবাদ, যেখানে লেখা ছিল, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনি রাজা নন, জনগণের সেবক’।

এরদোয়ান বিপুল ভোটে নির্বাচিত, পর পর তিনবার প্রধানমন্ত্রী হলেও গণতন্ত্রের ভাষা রপ্ত করতে পারেননি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিদেশি বিদ্রোহীদের যে ভাষায় গালি দেন, মার্কিন মিত্র এরদোয়ান সেই ভাষা ব্যবহার করেন নিজ দেশের নাগরিকদের প্রতি। তাঁর চোখে প্রতিবাদীরা ‘লুটেরা’, ‘সন্ত্রাসী’, ‘বিদেশিদের চর’। পরিহাস হলো, তরুণেরাও তাঁর সরকারকে ঠিক একই অভিযোগে অভিযুক্ত করছে। অবস্থা বেগতিক দেখে প্রথম হুঁশ ফিরেছে প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ গুলের। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও পুলিশি নির্মমতার জন্য ক্ষমা তো চেয়েছেনই, পাশাপাশি পার্ক রক্ষার আন্দোলনের যৌক্তিকতা ও গণতান্ত্রিকতা স্বীকার করে নিয়েছেন।

তুরস্কের মধ্যপন্থী ইসলামি দল ওই অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ মিত্র। ইরাকের স্বাধীনতা আন্দোলন, ইরানের জেদ আর সিরিয়ার বিরুদ্ধে ন্যাটো তথা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে একেপি সরকার। একেপি নেতা এরদোয়ান অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক—দুই দিক থেকেই বড় চাল দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছিলেন। একদিকে কুর্দি বিদ্রোহীদের সঙ্গে শান্তিচুক্তি করে ন্যাটোর সিরিয়া আগ্রাসনের মাঠ তৈরি, অন্যদিকে শাসনব্যবস্থাকে সংসদীয় পদ্ধতি থেকে প্রেসিডেনশিয়াল পদ্ধতিতে রূপান্তরের জন্য সংবিধান সংস্কার ছিল তাঁর প্রধান দুই এজেন্ডা। প্রেসিডেনশিয়াল পদ্ধতির প্রতি তাঁর আকর্ষণের কারণ ক্ষমতায় থেকে যাওয়ার ইচ্ছা। ২০১৫ সালে সরকারের মেয়াদ শেষ হবে। তুরস্কের সংবিধানে কারও জন্য চতুর্থবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ নেই। সুতরাং প্রেসিডেনশিয়াল পদ্ধতিতে গিয়ে নিজেকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত করাই ছিল তাঁর পরিকল্পনা। তুরস্কের সেক্যুলার প্রধানবিরোধী দলসহ বামপন্থী ও ইসলামি ছোট দলগুলো এরদোয়ানের যুদ্ধ আর ক্ষমতার সাধ—দুটোরই বিরুদ্ধে ছিল। যুববিদ্রোহে তাই তারাও দলেবলে নেমে পড়েছে। তবে সবচেয়ে খুশি হওয়ার কথা সিরিয়ার। সিরীয় বিদ্রোহীদের হাতে সাহায্য পৌঁছানোয় যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ব্রিটেনের হাতিয়ার ছিল তুরস্ক। মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতেও তুরস্ক উসমানিয়া সাম্রাজ্যের সময়কার দাপট ফিরে পেতে আগ্রহী। এরদোয়ান তুরস্কের এই নব্য পুঁজিবাদী রক্ষণশীল শাসকদেরই নেতা ও প্রতিনিধি। সিরিয়ার আসাদ বা লেবাননের হিজবুল্লাহ নয়, এই পথে বাধা হয়ে দাঁড়াল স্বয়ং তাঁর দেশের মানুষ। মিসরীয় বিপ্লবের সময় হোসনি মোবারককে উদ্দেশ করে তিনি বলেছিলেন, ‘মোবারকের উচিত জনগণের কথা শোনা।’ আসাদের বিরুদ্ধেও বর্ষণ করেছিলেন একই ধরনের বাণী। কর্মফল ছাড়া আর কী, তুরস্কের জনগণই এখন রাজপথে চিৎকার করে বলছে, ‘শুনতে পাচ্ছ সরকার, আমাদের কথা শুনতে পাচ্ছ?’ এরদোয়ানের সময় এসেছে নিজের জনগণের কথা শোনার।

দেশে দেশে বিদ্রোহ বিপ্লবের মিলের জায়গা একটাই যে, প্রচলিত রাজনৈতিক শক্তি বা সংগঠিত শ্রেণীগুলোর নেতৃত্ব সবখানেই অনুপস্থিত। তাহরির থেকে তুরস্ক, ঢাকা থেকে ওয়াল স্ট্রিট—সবখানেই নতুন এক শ্রেণীর আবির্ভাব দেখা যাচ্ছে। এদের বলা হচ্ছে প্রিক্যারিয়েত। সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের কালে যেমন দেখা গিয়েছিল প্রলেতারিয়েতের উত্থান। এখন তেমনি সাড়া জাগাচ্ছে এই প্রিক্যারিয়েত। এরা কারা? এরা হচ্ছে আমার-আপনার মতো সাধারণ যুবজনতা। বিশ্বের দেশে দেশে জনসংখ্যাগত দিক থেকে এরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। যখন সমাজে হতাশা, অর্থনীতিতে অনিশ্চয়তা, রাজনীতিতে অমানবিকতা, তখন নতুন পাওয়া শিক্ষা ও ফেসবুক-টুইটারের মাধ্যমে এরা দ্রুতই জমায়েত হওয়া শিখছে। অস্থায়ী চাকরি, অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ এবং সামাজিক বিচ্ছিন্নতা তাদের মধ্যে যে ক্রোধ তৈরি করে, বৈরী সরকারের বিরুদ্ধে সেটাই তারা উগরে দেয়। এরাই তাহরির থেকে তাকসিম স্কয়ারে ঘটায় গণবিদ্রোহ। বিপ্লবের আকালে প্রিক্যারিয়েতই আজকের নায়ক। কোনো কোনো সমাজবিজ্ঞানী একে বলছেন বিপজ্জনক শ্রেণী। তবে বড় ওলটপালট তখনই ঘটে, যখন প্রিক্যারিয়েতের পাশে এসে দাঁড়ায় প্রলেতারিয়েত। তুর্কি বিদ্রোহে শ্রমিক প্রলেতারিয়েতও জড়িয়ে পড়েছে। সম্প্রতি বামপন্থী ২২টি শ্রমিক সংগঠনের ২৪ লাখ সদস্যও দেশব্যাপী ধর্মঘট ডাকায় যুববিদ্রোহ আরও গণভিত্তি পেল। সুতরাং এরদোয়ানকে ক্ষমতা টেকাতে হলে পিছু হঠতেই হবে।

ইউরোপ-আমেরিকার যুববিদ্রোহের সঙ্গে এশিয়ার বিদ্রোহগুলো যুববৈশিষ্ট্যে এক হলেও একটি পার্থক্য খুব চোখে পড়ে। অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলন বাদ দিলে পশ্চিমা দেশে বিদ্রোহ করছে সংখ্যালঘু মুসলিম অভিবাসীরা, আর আরব ও তুর্কি বিদ্রোহে জড়িত হয়ে পড়ছে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমরা। সেক্যুলার মোবারক বা ইসলামপন্থী এরদোয়ান দিনের শেষে সংখ্যালঘু হয়ে যাচ্ছেন। দেশে দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠের এই উত্থান হয়তো বিশ্বব্যাপী গণতন্ত্রকে জনগণের হাতে নেওয়ার নতুন এক যুগেরই বার্তা বহন করছে। এসবই মহড়া, ভবিষ্যতে দেখা যাবে প্রিক্যারিয়েতের ঐতিহাসিক ভূমিকার সত্যিকার মঞ্চায়ন।

6 comments

  1. The US is watching the map of global rebellion closely–perhaps which precariat they choose to applaud often depends on whether the proleteriat is sufficiently harmless standing next to them… 🙂 From public spaces to social media, the fight of the majority through ‘public’ and ‘social’ spaces has become threatening enough to require brute repression. We are entering an ‘extramundane’ legal era, where the state’s facades will disintegrate and the tenacity of the precariat and proleteriat will be tested…

  2. This article is so wide of the mark that I don’t even know where to begin. All it demonstrates is that the far left projects its own views everything and is willing to cooperate with the far right against its common enemy. The usual platitudes about rebellion against “neo-liberalism” and “capitalism” only shows how the far left is willing to deceive itself.

    In reality the majority of the protestors are right wing Kemalist (augmented by even further right elements like Grey Wolves supporters) nationalists who are upset that the state is no longer a dictatorship that caters exclusively to them. They are reflexively ant-Erdogen, anti-Kurd and pro-Assad (As seems to be Mr. Wasif himself ; He conceives an elaborate conspiracy theory about peace with Kurds allowing NATO to intervene in favour of the Syrian rebels. His concern for the brutal Assad dictatorship, sorry “Syria” is touching, but Mr. Wasif should perhaps keep in mind that the peace process is in Turkey’s own interests and has nothing to do with Syria except in his own fevered imagination) Where is the far left in all this? Well, having no following of their own and unable to make this all about “capitalism” as Mr Wasif claimed, they merely jumped into the bandwagon of the Kemlaist movement providing their own veneer of legitimacy. They can’t actually make protests against “neo-liberalism” but they can ally with the far-right against the common threat of “Islam” under spurious “secularist” grounds.

    If Mr. Wasif knew anything about Turkey and did not simply perceive everything through the lenses of leftist dogma, he would know that the AKP has advanced democracy and freedom (And the economy, although Mr. Wasif may see it all as “neo-liberalism”) further than any previous “secularist” government in Turkey’s history. All this despite being hobbled by the mechanism’s of dictatorship bequeathed to it y the original Kemalist regime. Thankfully they have managed to defang the military and for the first time in Turkey’s history advance a genuine peace process with the disaffected Kurds. All despite fierce opposition from the Kemalist elite, the present architect of the protests (Some were even calling for a military coup in the beginning of the protests; thankfully the military is in no position to do so).

    Which brings me to the “secular” opposition so extolled by Mr. Wasif. Does he even now the first thing about them? Let me help him out. The main opposition is the right wing Kemalist CHP, heirs to the legacy Mustafa Kemal (An actual brutal tyrant compared to Erdogen. He was quite literally a fascist who admired Mussolini among other things but never mind he was “secular”). They are virulently anti-Kurdish, pro-Assad, pro-military, anti-minority and their “secularism” consists of refusing to allow hijabi women from attending university. The other main opposition party is the even more nationalist, anti-minority right-wing MHP. Leftists of his tribe are nowhere to be found in parliament but even so, Mr Wasif should think twice before extollling such right-wing, anti-democratic elements for their supposed “secularism”.

    Finally on to my final point about Erdogen’s need to heed the will of the “people”. Unfortunately reality is not as Mr. Wasif would like it to be. Reliable polls still show the AKP as the most popular in the country and having the confidence of the vast majority of the citizens, with recent pro-AKP demonstrations being even larger than the protests. Funnily, I don’t recall hearing nearly as strong words for Hasina after the much more violent police/chatro league crackdown on hefazot protestors (We are still waiting for the full death toll of that one). More ink was spilled criticizing the protests then the government, yet Mr. Wasif neatly pivots himself when the protests are happening in a foreign country, manufacturing grievances (“neo-liberalism” and “capitalism”) out of thin air.

    http://www.hurriyetdailynews.com/ceos-in-turkey-back-gezi-park-protestors.aspx?pageID=238&nID=48984&NewsCatID=345

  3. An excellent response by Tec15 to an essentially shallow and uninformed post about Turkey.

    1. The demonstrators do not represent the forces of progression but the forces of reaction.

    They represent the traditional urban secular elite that ruled the country and believed in an enforced secularism and westernization which carried with it an inherent hatred for religion. These people believed – and believe – that it is their mission to make the whole of Anatolia follow the social culture of the “enlightened west”.

    This traditional elite thus despise the conservative Anatolian majority for clinging on to indigenous Anatolian Muslim Turkish culture. Some Kemalists (i.e. these demonstrators) have even suggested in the past that elite “educated” Turks vote be given two points in elections and the “uneducated” Anatolian peasantry be given one vote.

    This elite is also very anti-Kurdish and the policing of these riots has been nothing compared to the far more repressive policing of the Kurds in the past.

    These elites do not want a pluralist Turkey which recognizes the reality and diversity of the country i.e. conservative Anatolian Turkish majority (mainly AKP), Kurdish minority etc but want to continue the almost century long (and failed) Kemalist project of enforced secularization and Turkification.

    2. These demonstrators do not believe in freedom, but in restricting freedom.

    – No freedom for women who want to wear the headscarf.

    – No freedom for Kurds who want to express their identity.

    In the past they urged a military coup. Now that the essentially fascist military has been defanged they have resorted to street violence and riots. These riots may have cost the Turkish economy $5 billion.

    They will not succeed in the anti-democratic attempt to overthrow a legally elected government by a powerful minority.

  4. Jamal, what are your criteria for identifying forces of progression vs. forces of reaction? How do you classify what is democratic and what is anti-democratic? I am just curious.

  5. 1. Though the protestors may be socially liberal and wear western style clothes for many (probably the majority) of them their political ideals are not liberal.

    Traditional Kemalism was based on French Republicanism which called for militant secularism and a mono-ethnic state.

    This has damaged both Turkey’s conservative majority who treasure Islam as their religion and part of their identity, and the belief in a mono-ethnic state has severely affected the Kurds who have had 3,000 villages destroyed, 2 million people made refugees in the 80s and 90s and 40,000 people killed.

    Traditional Kemalism i.e. a return to it is what most of these demonstrators want. This is a regression to a failed anachronistic model. Traditional Kemalism also borrowed and in turn influenced other radical nationalist i.e. fascist ideologies and states of the 1920s e.g. Italian fascism and German Nazism (both Hitler and Mussolini liked Ataturk).

    What Turkey needs is a more inclusive, moderate social democratic state which respects peoples right to practise their religion and for Kurds and other ethnic groups to express their cultural identity.

    2. These demonstrators are not democratic in they do not believe in the will of the majority of the Turkish nation. The Turkish masses are far more respectful of Islam than the secularized urban elites who believe that they are the guardians of the eternal Kemalist revolution.

    However, to balance all this out. People should have the right to question their government and protest against them (many of these demonstrators went further and engaged in violence and destruction).

  6. Is there anything like Global Youth Rebellion? Has any one defined it? Are there any linkages or international net work? Is there any ‘new” ideological or political underlying thoughts behind? Or are these including Shahbag Jagoron have been inspired purely by local / national conditions?

    Bangladesh circumstances are different. Shahbag youth had great opportunity to broden their horizon. They did not and lost appeal. Onley they know best, why? Why they lost sight of pseudo-democracy, elected dictatorship, endless political crimes, corruptions, abuse of power, absence of rule of law, politicisation of services and professions – in one word politics & administration devoid of reasonable moral content. People are ready, the youths are ready but we see no indications of any ground breaking uprising or movement. Why, – that is another question. May be the nation is suffering from a great lack of Moral Courage. May be people are still searching for ways & means. In the short run, however, ther can be no doubt that the time is
    very critical. Popular frustration is so acute that a social-political time bomb, out of the blue, can suddenly destroy what ever little democracy and uneasy peace Bangladesh has.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s