Memories Of Underdevelopment – Grand Alliance And The Third Force In Power Politics

© Faheem Haider

© Faheem Haider

Memories Of Underdevelopment – Grand Alliance And The Third Force In Power Politics

By Faruk Wasif, translated by Emon Sarwar for Alal ODulal

Friedrich Engels in his 1887 essay,  “The Role of Force in History”, (1) discussed the role of coercion in the history. Paris commune was an ideal model where peoples’ force overthrew the ‘System’. On the other hand, Prussia of Bismarck or Napoleon’s France is the classical examples of hegemonic force. Earlier one is like all grasping expanding torrent or a Tsunami while the later is like a toilet flush. The Coup d’etat, resulting from the internal struggle and conflicts of the ruling classes are just like this toilet flush in the commode. On the contrary, the mass upsurge is comparable to a huge tsunami that flashes away everything in its way and sets for a topsy-turvy in the society.

In retaliation of the excessive usage of force by the government, BNP-Jamat alliance has resorted to the strategy of applying wild and irrational force. As it appears, they have been taken over by the impulse of militant tactics while they miserably failed to give diligence or effort in justifying the righteousness and legitimacy of this strategy. Ostensibly and eventually, this militant tactics per se, is on the verge of a failure.

Alain Badiou, in his book ‘The Rebirth of History: Times of Riots and Uprisings (2) spoke of three types of mass uprisings 1) immediate Riot, 2) Latent Riot, 3) Historical Riot. For us in Bangladesh, number 1 and 3 are relevant. In our dialect, we may call them- Mass Uprising and Furtive Resistance.

When the peaceful transition of power is impossible, resorting to the application of force is inevitable. This unavoidable path led to transition of power in 1990. The Historical Riot or Mass Uprising renders the state machinery ineffective through defiance and by withstanding the forces of the state. On a culminating moment it challenges the state by amassing huge number of people in a particular place. It needs to achieve universal legitimacy or at least it needs to have the endorsement from the largest segment of the population. It needs to hold the ground, for a long time, on the basis of numerical superiority. In the process, on the most opportune and decisive moment, hundreds and thousands of people must take the street to demonstrate their Sovereign Power.

After 1990, we have experienced two such Historical Riots in the national level- the mass congregations at Shahbag and Matijhil. Movements of such nature were orchestrated, at regional level, at Kansat and Fulbari where the government had to concede. In 1996, Awami Legaeue and her alliance, to some extent, could organize such mass movement that compelled the government to come to terms. The Tahrir Square Movement of Egypt is also a classical example of Historical Riot in contemporary global arena.

But, due to many limitations BNP and her allies can’t do this. First of which is the lack of popular legitimacy to obtain a universal support and endorsement in favor of their demand. That is why they are still in the stage of Immediate Riot or Furtive Resistance, like they were in those days during Shahbag Movement.

Storming with a short lifted procession under the threat of law enforcing agencies, sudden attacks in groups of 10-12 to set fire in vehicles on the street, throwing cocktails- all these are the symptoms of Immediate Riot. Primarily, the youths are the main strength of such Immediate Riots. It is highly localized in nature; as we have already experienced it in case of Sitakunda, Satkheera and Bogra district.

An immediate riot is unrest among a section of the population, nearly always in the wake of a violent episode of state coercion।” (P. 23)

Its limitation is, it gathers its strength within the perimeter of its Firm Base and at some point the strength diminishes. It may upset the state machinery but cannot really defeat it. It may put stress on the nerve of the people and the government but it lacks the potency of exerting force to collapse the government. An Immediate Riot- through the continuity of events and anecdotes may step up into a Historical Riot. That’s what happened in Tunisia. But, can BNP-Jamat make it happen? It could have been possible — provided they could manage to transform the support of a quarter of the population for them, into the moral support of the majority.

Since they can’t do that and as they have failed so far, to master a mass uprising in retaliation of the usage of force by the state machinery, the question now is–what could be the reason for their furtive resistance and militant activity? Is it to equate the force applied by the government and to generate the popular demand to counter that force? That means, inducing somebody else to establish the equilibrium of ultimate force that they themselves have failed to do! To invoke the Third Force into the play? Therefore- an effort to convert the political crisis into a military issue? It’s a political failure of BNP.  It is rather helping the government to justify the usage of disproportionate force as a plea of good governance.

By this time, people, in their horizon of imagination, have started envisioning military intervention as a means of relief from this crisis. That means, in this case, the military intervention is a substitute of a protest en-masse, or a mass upsurge that did not succeed.

This substitute enters the arena as a cumulative aspiration of the trio- the government, the opposition and the people. This is where we can find the ‘Unity Through Application of Force’ as stated by of Friedrich Engels (model of Napoleon and Bismarck). Though this is an imposed unity, for the sake of maintaining the Statehood of the State, military takes up the role of the State.

For many reasons, the Post Colonial states did not emerge as the Elite Settlements resulting from the contests of the ruling classes. States did not come here as the outcome of Class Struggles of the hegemonic classes (such as France). Neither did it emerge through the reflection of the nationalistic aspirations of he common people (like Egypt of Gamal Abdel Nasser or Cuba of Fidel Castro). Not even from the urge of inter-class-collaboration (like ancient Egyptian state where this adjustment was imperative to ensure the irrigation).

Our state came to being as the successor of the colonial rule. So the state here can stand above the ruling class. (3) It may be called an imposed state from above. Even sometimes, the military and the bureaucracy that rest in the higher tier of the pyramids appear to be the savior of the state. Only to hide their lack of democratic legitimacy and to assert its interventionist role, these types of states needed ideological façade. In this case, we must remember, the pretext of Bangladesh and Pakistan military of saving ideals like – Islam, Nationalism or for that matter Elimination of Corruption as they did last time.

The paradox history remains what would be the pretext for next intervention of such nature and what would be the cover that it will appear with? As per the recent equations, it may be assumed that, this time, anti-corruption and anti-communal spirit might be used as the shield for the impending intervention. Probably, the anti militant spices too, will obviously be used in the recipe to stir up the taste buds. Military takes over the role of the arbitrator in the unresolved conflict of the power-hungry politico. That is why, we have seen the Civico-Military-Corporate entente conducting disciplining program for the ruling bourgeois, during the last emergency rule (4).

In short, we being organic part of the imperialist global system had to experience such operations because of the extra-social and class-transcended existence of the political leadership of our country. The lack of clear understanding of this structure makes many people consider such an operation of the civico-military-corporate trio as a revolutionary act. The sight of running away bourgeois gives them a Revolutionary or Susheel complacency but this is where they commit the mistake.

Following the legacy of the colonial era, the ruling class does not hesitate to carry out the agenda of the international disciplining agencies like World Bank, United Nations or for that matter the international Super Powers. It is constituted in a manner that, NGOs, Civil Society, Military, Elites, Corporate Business Syndicates etc. gets easily plugged-in with the global system. In the end, this works as the defensive shield for their protection. This is how the political dichotomy of Bangladesh maintains its supremacy in the power race.

As it appears, to bring the peace and to ensure the safety in public life, soon the permanent establishments of the state – the military, Civil Bureaucracy (State Administration and NGO elites), with the endorsement of the local business elites, will proceed for another disciplining mission. Though this may, for time being, succeed to ensure the effectiveness of the state and save the national integrity it won’t be able to bring in a comprehensive resolution for the fundamental conflicts within the structure of the state. To do so, we need to have a Universal Mass Uprising or Historical Riot. Our crisis does not only concern the present anarchy but also the absence of a road map for the future crisis.

Inability of the revolutionaries to apply optimum force to evict the political system formed by the thugs, absence of administrative force to ensure the safety of the people, and the inability of BNP and her allies in retaliating the government force with equal and opposite force – these three factors have generated the need for a forceful intervention to set the equilibrium in place.

At this juncture, we must wait and see as to how this need for filling up the vacuum is met. Well, to understand that this solution is going to be a short-lifted one- we don’t need to wait. It was same in 1996 and the solution for 1/11 in 2009.

”We shall clearly see from this why the policy of blood and iron was bound to be successful for a time and why it was bound to collapse in the end.”

The legacy of contraction in historical memory through various regimes, teaches us the difference between the military government and civilian rule. The difference is very obvious and flagrant. But what is absent in our memory is the presence of even a deeper state within the political governments. When that Deep State appears with uniforms, the political government looks very callous and dirty with all the failures and stigma smeared on its face. This bifurcation of the popular thoughts goes pretty well with the neoliberal political system. But, people tend to forget that.

The military intervention is nothing but the miscarriage of an Immediate Riot, that could transform itself into a Historical Riot. In our context, the failure of mastering a truly popular political movement by any of the two major political parties, when in the opposition, is a predicament in the way of our political development. That is why, time and again, the opportunity of an uprising of the sovereign power of people against the despotism is hijacked. That is how, in the recent time, Shahbag uprising was wasted by Awamileague and the rage of common mass against the One Party System of Awamileague has been atrophied by the incompetency BNP and their craving for the military intervention.

Faruk Wasif is an activist and journalist. 

 References:

2. http://kasamaproject.org/revolutionary-strategy/4080-12badiou-the-rebirth-of-history-times-of-riots-and-uprisings

3. http://www.amazon.com/Marx-End-Orientalism-Controversies-sociology/dp/0043210201

4. http://rokomari.com/book/34449;jsessionid=548CCE63FCAD912FC864F622D51CCD45

The original post in Bengali is below:
মেমরিজ অব আন্ডারডেভেলপমেন্ট: বলপ্রয়োগের খেলায় জোট-মহাজোট ‌ও ‘তৃতীয় শক্তি’

December 4, 2013 at 4:04am

‘Let us now apply our theory to contemporary German history and its use of force, its policy of blood and iron.” Engels 1887

ফ্রেডরিখ এঙ্গেলস তার ১৮৮৭ সালে লেখা The Role of Force in History (1)তে ইতিহাসে বলপ্রয়োগের ভূমিকা আলোচনা করেছিলেন। প্যারি কমিউন ছিল জনগণের বলপ্রয়োগের মাধ্যমে ব্যবস্থা উচ্ছেদের আদর্শ মডেল। আবার বিসমার্কের জার্মানি বা নেপলিয়নের ফ্রান্সও আধিপত্যবাদী বলপ্রয়োগের উদাহরণ। প্রথমটা যদি জলোচ্ছ্বাস হয়, দ্বিতীয়টা হলো কমোডের ফ্লাশের মতো। শাসকশ্রেণীর অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ফল হিসেবে ঘটা ক্যু অথবা রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডগুলো হলো এই ফ্লাশের মতো। বিপরীতে গণঅভ্যুত্থান হলো জলোচ্ছ্বাসের মতো, যা সবকিছুকে ভাসিয়ে নেয়, যা ফ্যানো কথিত একধরনের আপসাইড ডাউন পরিস্থিতি তৈরি করে। লোকপ্রবাদে একেই বলা হয়: তলার মামুদ ওপরে আর ওপরের মামুদ তলায়।

রাষ্ট্রের একতরফা বলপ্রয়োগের হুমিকর বিরুদ্ধে বিএনপি-জামাত জোট এখন পাল্টা বলপ্রয়োগের কৌশলই নিয়েছে। আন্দোলনের যোগ্যতা-বৈধতার পর্যালোচনা ছাড়াই কেবল রণকৌশলের বিবেচনায় বলা যায় বিএনপি-জামাত জোটের বলপ্রয়োগের কৌশল তার অন্তর্গত কারণেই ব্যর্থ হতে যাচ্ছে।

আলা বাদিউ তাঁর The Rebirth of History: Times of Riots and Uprisings (2) বইয়ে তিন ধরনের রায়ট বা গণবিক্ষোভের কথা বলেছেন: ১. ইমেডিয়েট রায়ট, ২. ল্যাটেন্ট রায়ট এবং ৩. হিস্টরিক্যাল রায়ট। আমাদের জন্য প্রাসঙ্গিক প্রথম ও তৃতীয়টা। বাংলায় যাদের নাম দিতে পারি সর্বজনীন সমাবেশ বনাম চোরাগোপ্তা প্রতিরোধ।

ক্ষমতা পরিবর্তনের শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ার পথ রূদ্ধ হলে বলপ্রয়োগ অনিবার্য। এই অনিবার্যতার পথেই ঊন্নসত্তরের গণঅভ্যুত্থান ঘটেছিল। নব্বইয়ের পালাবদলও সম্ভব হয়েছিল। সরকারযন্ত্রকে অকার্যকর করা, রাষ্ট্রের বলপ্রয়োগ মোকাবেলা করে টিকে থাকার চূড়ান্ত মুহূর্তে কোনো একটি বিশেষ জায়গায় সমস্ত জমায়েত কেন্দ্রীভূত করে রাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ করার এই পথই হলো সর্বজনীন সমাবেশ বা হিস্টরিক্যাল রায়টের ধরন। একে সর্বজনের অনুমোদন অর্জন করতে হয়, অন্তত দৃশ্যত ব্যাপক সংখ্যক মানুষের সমর্থনপুষ্ট হতে হয়। সংখ্যার জোরে একটি জায়গায় দীর্ঘদিন অবস্থান জারি রাখতে হয়। এরই চরম মুহূর্তে লাখো জনতার ঢল নামিয়ে জনতার সার্বভৌম ক্ষমতা জাহির করতে হয়। নব্বইয়ের পর, দেশীয় স্তরে শাহবাগ আর মতিঝিল চত্বরে পাল্টাপাল্টি দুটি হিস্টরিক্যাল রায়ট অনুষ্ঠিত হওয়ার অভিজ্ঞতা আমাদের আছে। আর আঞ্চলিক পর্যায়ে কানসাট ও ফুলবাড়ীতেও এই অবস্থা সৃষ্টি হয়েছিল এবং তখন সরকারকে হার মানতে হয়েছিল। ১৯৯৬ সালে অসহযোগ আন্দোলনের তুঙ্গে এক মাত্রায় আওয়ামী লীগের জোটও এরকম সর্বজনীন সমাবেশ ঘটিয়ে সরকারকে বাধ্য করেছিল। সাম্প্রতিক বিশ্বে তাহরির স্কোয়ারের বিক্ষোভ ছিল হিস্টরিক্যাল রায়টের আদর্শক্ষণ।

কিন্তু বিএনপি জোটের দ্বারা বহুবিধ কারণে সেটা সম্ভব না। প্রথমত, তাদের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পপুলার লেজিটিম্যাসির অভাব, যার জন্য তাদের পক্ষে ইউনিভার্সাল সাপোর্ট মোতায়েন করা কঠিন। । এ কারণে শাহবাগের প্রতিক্রিয়ার সময়ের মতোই এখনো তারা পড়ে রয়েছে ইমিডিয়েট রায়ট তথা চোরাগোপ্তা হামলার পথে। এর প্রধান অস্ত্র হলো ত্রাস সৃষ্টি করা।

রাষ্ট্রীয় বাহিনীর হুমকির মুখে ঝটিকা মিছিল, হঠাত করে ১০-১২ জন মিলে গাড়ি পোড়ানো, ককটেল ফাটানো হচ্ছে ইমেডিয়েট রায়টের লক্ষণ। মুখ্যত তরুণরাই হয় ইমেডিয়েট রায়টের বাহন। ইমেডিয়েট রায়ট অতিঅবশ্যই অঞ্চলের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। যেমন সীতাকুণ্ড বা সাতক্ষীরা বা বগুড়া। “An immediate riot is unrest among a section of the population, nearly always in the wake of a violent episode of state coercion।” (P. 23) এর সীমাবদ্ধতা হলো, নিজ নিজ ঘাটি এলাকার মধ্যেই এর শক্তি বদ্ধ হয়ে থাকে এবং একসময় তা ফুরাতেও থাকে। এটা সরকারযন্ত্রকে বিপর্যস্ত করতে পারে, কিন্তু পরাস্ত করতে পারে না। জনগণ ও সরকারের স্নায়ুর ওপর চাপ সৃষ্টি করতে পারলেও এধরনের বলপ্রয়োগ সরকার পতন ঘটাতে অক্ষম। ইমেডিয়েট রায়ট ঘটনার ধারাবাহিকতায় হিস্টরিক্যাল রায়টে উন্নীত হতে পারে। যেমনটা ঘটেছিল তিউনিসিয়ার বেলায়। কিন্তু বিএনপি-জামাত কি সেটা পারবে? পারা সম্ভব ছিল, যদি তারা তাদের প্রতি জনগণের একাংশের সমর্থনকে অধিকাংশের নৈতিক সমর্থনে পরিণত করতে পারতো।

সেটা যেহেতু পারছে না সেহেতু প্রশ্ন হলো, রাষ্ট্রীয় বলপ্রয়োগের ক্ষমতার বিপরীতে সর্বজনীন সমাবেশ ঘটাতে ব্যর্থ হয়ে চোরাগোপ্তা হামলা চালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্য তাহলে কী? সরকারের বলপ্রয়োগের সমান ও বিপরীত বলপ্রয়োগের চাহিদা সৃষ্টি করা? অর্থাত, তারা নিজেরা যা পারছে না সেই সর্বাত্মক বলপ্রয়োগের অ্যাকশন অন্য কাউকে দিয়ে ঘটানো! ‌তৃতীয় কোনো পক্ষকে ডেকে আনা??? রাজনৈতিক সংকটের রাজনৈতিক মীমাংসায় ব্যর্থ হয়ে সামরিক মীমাংসা করা? তার জন্য রাজনৈতিক সমস্যাকে সামরিক সমস্যায় পরিণত করা? এটা বিএনপির রাজনৈতিক ব্যর্থতা। সরকার বরং তার অতিরিক্ত বলপ্রয়োগকে রাজনৈতিক ও সুশাসনিক মোড়কে ঢেকে রাখতে পারছে।

ইতিমধ্যে নিস্তার পাওয়ার ইচ্ছা থেকে মানুষের আকাংখার দিগন্তে সামরিক বলপ্রয়োগের দাবি তৈরি হচ্ছে বা সেই পরিস্থিতি পরিকল্পিতভাবে সৃষ্টি করা হচ্ছে। অর্থাত সামরিক বলপ্রয়োগ আসলে এখানে জনগণের সর্বজনীন সমাবেশ ঘটাবার ব্যর্থতার বিকল্প। এই বিকল্প সরকার, বিরোধী দল এবং জনগণ_ তিনদিকের আকাংখাতেই প্রবেশ করেছে। এখানেই এঙ্গেলস কথিত বলপ্রয়োগের মাধ্যমে ইউনিটি সৃষ্টির (নেপলিয়ন বা বিসমার্কের মডেল) তরিকা দেখতে পাব। যদিও এটা এক কৃত্রিম ইউনিটি, কিন্তু রাষ্ট্রের রাষ্ট্রিকতা বজায় রাখার স্বার্থে সেনাবাহিনী নিজেই রাষ্ট্র হয়ে ওঠার ভূমিকায় অবতীর্ণ হবে।

পোস্ট-কলোনিয়াল রাষ্ট্রগুলো বিবিধ ঐতিহাসিক কারণে ক্ষমতাবান শ্রেণীগুলোর প্রতিযোগিতা থেকে উদ্ভূত এলিট সেটেলমেন্ট হিসেবে আসেনি (যেমন ব্রিটেন)। রাষ্ট্র এখানে ক্ষমতাকামী শ্রেণীগুলোর শ্রেণীসংগ্রামের ফলে উদ্ভূত হয়নি (যেমন ফ্রান্স)। জনতার আকাংখার প্রতিফলন হিসেবে জাতীয়তাবাদী কায়দাতেও তা আসেনি (যেমন গামাল আবদেল নাসেরের মিসর বা ক্যাস্ত্রোর কিউবা)। বা আসেনি শ্রেণীসমন্বয়ের তাগিদ থেকে (প্রাচীন মিসরীয় রাষ্ট্র, সেচের প্রয়োজনে এই সমন্বয় সেখানে জরুরি হয়ে উঠেছিল)। আমাদের রাষ্ট্র এসেছে ঔপনিবিশেক শাসনের ধারাবাহিকতা থেকে, পুরনো রাষ্ট্রব্যবস্থা ধ্বংস করে। রাষ্ট্র তাই শাসকশ্রেণীর ঊর্ধ্বের প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখা দেয়।(3) একে বলা যায় ওপর থেকে নাজিল হওয়া রাষ্ট্র। এবং অনেকসময় ক্ষমতার পিরামিডের ওপরে অবস্থানকারী সেনাবাহিনী ও আমলাতন্ত্র খোদ রাষ্ট্রের রক্ষক হিসেবে আবির্ভূত হয়। এই রাজনৈতিক সমাজের বাইরে থেকে হস্তক্ষেপের অবৈধতাকে ঢাকতে তারা তখন আদর্শিক ঝালর ঝুলিয়ে রাখে নিজেদের উর্দির ওপরে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে সামরিক বাহিনীর দ্বারা কখনো ইসলাম, কখনো জাতীয়তাবাদ এবং গতবারের মতো দুর্নীতিদমনকারী দেশপ্রেমের মতাদর্শের ব্যবহারের কথা মনে রাখা দরকার। ইতিহাসের ধাঁধা হচ্ছে, আগামিবার সেরকম কোনো ইন্টারভেনশন ঘটরে, তার মতাদর্শিক মোড়কটা কী ঘটবে? সাম্প্রতিক ঘটবালির সমীকরণ অনুসারে অনুমান করা যায় যে, এবারে হয়তো দুর্নীতি ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধিতাকে ঢাল করা হবে। সঙ্গে অতিঅবশ্যই জঙ্গিবাদবিরোধী মালমশলাও পরিবেশিত হবে।

ক্ষমতালিপ্সু শ্রেণীগুলোর মীমাংসার অতীত সংকটে সেনাবাহিনী নেয় মাতব্বরের রোল। সেকারণেই গত জরুরি অবস্থার সময় (4) অধিপতি বুর্জোয়াদের বিরুদ্ধে সিভিকো-মিলিটারি-কর্পোরেট শক্তিকে রাষ্ট্রীয় ডিসিপ্লিনিং কর্মসূচি পালন করতে দেখি। এককথায় সাম্রাজ্যবাদী বিশ্বব্যবস্থার তলার দিকের অরগানিক পার্ট এই আমাদের রাষ্ট্রটি জনগণের বিরুদ্ধে তো বটেই, এমনকি খোদ রুলিং এলিটদের বিরুদ্ধেই অভিযানে নেমে পড়ার কারণ এই সমাজবহির্ভূত-শ্রেণী-ঊর্ধ্ব অবস্থান। এই চরিত্র ঠিকমতো উপলব্ধির ব্যর্থতা থেকে জনগণের মধ্যে ধারণা হয়, সিভিকো-মিলিটারি-কর্পোরেট ত্রিভূজ বোধহয় গডফাদার, দুর্নীতিবাজ ও দাঙ্গাবাজদের বিরুদ্ধে বিপ্লবী অভিযানে নেমেছে। বুর্জোয়াদের তাড়া খাওয়ার দৃশ্য যাদের মনে ‘বিপ্লবী বা সুশীল’ সুখানুভূতি দেয়, তারা এখানেই ভুল করবেন।

উপনিবেশিক আমলের জের ধরে স্থানীয় শাসকশ্রেণী-ঊর্ধ্ব রাষ্ট্র আন্তর্জাতিক ডিসিপ্লিনিং এজেন্সি তথা জাতিসংঘ-বিশ্বব্যাংক প্রভৃতি এবং আন্তর্জাতিক পরাশক্তিসমূহের বর্ধিত হস্ত হতে দ্বিধা করে না। এমনভাবে এটা গঠিত যাতে এনজিও-সুশীল, সামরিক-এলিট, কর্পোরেট-বিজনেস সিন্ডিকেটগুলো খুব সহজেই ওই আন্তর্জাতিক সিস্টেমের সাথে প্লাগড-ইন হয়ে থাকতে পারে। আখেরে সেটাই তাদের শ্রেণীস্বার্থ ও বিশেষাধিকার রক্ষার কবচের কাজ করে। বাংলাদেশে দুটি দলের শীর্ষনেতৃত্ব এ কায়দাতেই জনবিচ্ছিন্ন হয়েও বহিরাগত শক্তিতে রাজনীতিতে কর্তৃত্ব বজায় রাখতে পারে।

মনে হচ্ছে রাজনৈতিক সংকট মীমাংসায় এবং জনজীবনে নিরাপত্তা দেওয়ার নামে রাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিষ্ঠান তথা সেনাবাহিনী, সরকারি-বেসরকারি আমলাতন্ত্র (রাষ্ট্রীয় প্রশাসক এবং এনজিও-এলিট) স্থানীয় ব্যবসায়ী এলিটদের সমর্থনে আরেকটা ডিসিপ্লিনিং মিশনে নামবে। আপাতভাবে, তা রাষ্ট্রের কার্যকারিতা ও ঐক্যকে রক্ষা করায় সাময়িকভাবে সমর্থ হলেও, ইতিমধ্যে জনগণ ও রাষ্ট্রের মধ্যেকার মৌলিক বিরোধকে তা চূড়ান্তভাবে মেটাতে পারবে না। তার জন্য দরকার রাষ্ট্রব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনের রূপরেখা নিয়ে ঘটানো সর্বজনীন গণঅভ্যুত্থান বা হিস্টরিক্যাল রায়ট। আমাদের সংকট কেবল বর্তমানের নৈরাজ্যের জন্যই নয়, আমাদের দুর্দশা ভবিষ্যতের সেই রূপরেখার অভাব। আমাদের শাসকরাই কেবল ব্যর্থ নয়, আমাদের রাজনৈতিক সমাজের দিশাহীনতাও আমাদের মুক্তির বাধা। আমরা কেবল আমাদের ভুল বিকাশেরই (Development) শিকার নই, আমরা আমাদের রাজনৈতিক অবিকাশেরও শিকার।

বিপ্লবীদের দিক থেকে লুটেরা-খুনী-প্রতারকদের রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে বলপ্রয়োগের মাধ্যমে উচ্ছেদের ক্ষমতার অভাব, জনগণের নিরাপত্তা দিতে সামর্থ্যবান প্রসাশনিক বলপ্রয়োগের শূন্যতা এবং বিএনপি জোটের সরকারের বিরুদ্ধে সমান ও বিপরীত বলপ্রয়োগের সামর্থ্যের ঘাটতি_ এই তিনে মিলে বলপ্রয়োগের মাধ্যমে যে মীমাংসার চাহিদা সৃষ্টি করেছে, আগামি দিনগুলোতে তা কীভাবে পূরণ হয়, সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা। কিন্তু এটা বুঝবার জন্য অপেক্ষার প্রয়োজন নেই যে, এই মীমাংসা সাময়িক। যেমন ছিল নব্বই, ছিয়ানব্বই ও ২০০৯ এর ১-১১ এর মীমাংসা। সুতরাং, ‘We shall clearly see from this why the policy of blood and iron was bound to be successful for a time and why it was bound to collapse in the end.”

এই অবিকাশের মধ্যে আমলের পর আমল পার করার ঐতিহাসিক স্মৃতি সামরিক সরকার ও রাজনৈতিক সরকারের মধ্যে পার্থক্য করতে শেখায়। পার্থক্য অবশ্যই দৃশ্যমান। কিন্তু যা অদৃশ্য, তা হলো রাজনৈতিক সরকারের মধ্যেও ডিপ স্টেটের সক্রিয় উপস্থিতি। সেই ডিপ স্টেট যখন সামরিক পোশাকে ভেসে ওঠে, তখন তাকে আনকোরা মনে হওয়ার কারণ, যাবতীয় ময়লা-কালিমার দায় রাজনৈতিক সরকারের ওপর অর্পণ। জনপ্রিয় চিন্তার এই দ্বিধা (Bifurcation) নিওলিবারেল রাজনৈতিক ব্যবস্থার সঙ্গে খুব যায়। কিন্তু তারা ভুলে যায়, সামরিক বলপ্রয়োগের হস্তক্ষেপ আসলে ইমেডিয়ট রায়টের হিস্টরিক্যাল রায়ট হয়ে ওঠার গর্ভপাতের মুহূর্ত। আমাদের প্রেক্ষাপটে দুই দলের যেই বিরোধী দলে থাকুক, তারাই যেকোনো সত্যিকার জনপ্রিয় প্রতিবাদী আন্দোলন বিকাশের পথে যেমন বাধা, তেমনি তাদের কারণে নিপীড়নমূলক ব্যবস্থার বিরুদ্ধে জনগণের সার্বভৌম ক্ষমতার উত্থানও বারবার বেহাত হয়। নিকট সময়ে লীগের দ্বারা শাহবাগের উত্থান আর বিএনপি’র দ্বারা একদলীয় শাসন কায়েমের বিরুদ্ধে জনমানুষের ক্ষোভ এভাবেই সামরিকবাহিনীর মুখাপেক্ষিতার অসহায়ত্বে শেষ হয়।

1. রোল অফ ফোর্স ইন হিস্টরি: এঙ্গেলস http://marxists.anu.edu.au/archive/marx/works/1887/role-force/index.htm

2. রিবার্থ অফ হিস্টরি: আলা বাদিউ http://kasamaproject.org/revolutionary-strategy/4080-12badiou-the-rebirth-of-history-times-of-riots-and-uprisings
3. মার্কস অ্যান্ড দি এন্ড অফ অরিয়েন্টালিজম: ব্রায়ান এস টার্নার http://www.amazon.com/Marx-End-Orientalism-Controversies-sociology/dp/0043210201

4. জরুরি অবস্থার আমলনামা: ফারুক ওয়াসিফ http://rokomari.com/book/34449;jsessionid=548CCE63FCAD912FC864F622D51CCD45
1. রোল অফ ফোর্স ইন হিস্টরি: এঙ্গেলস
http://marxists.anu.edu.au/archive/marx/works/1887/role-force/index.htm

2. রিবার্থ অফ হিস্টরি: আলা বাদিউ
http://kasamaproject.org/revolutionary-strategy/4080-12badiou-the-rebirth-of-history-times-of-riots-and-uprisings

3. মার্কস অ্যান্ড দি এন্ড অফ অরিয়েন্টালিজম: ব্রায়ান এস টার্নার
http://www.amazon.com/Marx-End-Orientalism-Controversies-sociology/dp/0043210201

4. জরুরি অবস্থার আমলনামা: ফারুক ওয়াসিফ
http://rokomari.com/book/34449;jsessionid=548CCE63FCAD912FC864F622D51CCD45

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s