When Rapists Are Bengali, When Rape Is A State Weapon For Ethnic Cleansing

© Trimita Chakma

© Trimita Chakma

“Our struggle for self-determination and autonomy, meaning the struggle since 80’s decade, rape has been used by Bengali military and civilian men / administration / state as a weapon. I, along with all women in the hills of the Chittagong Hill Tracts grew up/growing up with a constant but grave fear and heaviness in our chests of being raped, and then, of being murdered… I believe, Bangladeshi women are not strangers to this danger. At least, those who have witnessed 1971, the war of independence – as during those nine months period, women lived through the fear of being raped in any moment.”
When Rapists Are Bengali, When Rape Is A State Weapon For Ethnic Cleansing
by Samari Chakma for ThotKata, translated by Irfan Chowdhury for Alal O Dulal

 

Just a week ago amid much colour and festivity, the 2014 International Women’s Day was celebrated in the capital Dhaka. In Gulshan, in solidarity with corporate women, men as well as women marched on pink disco heels. Shahbag rolled out the purple carpet on a truck to discuss the plight of dead-missing-damaged women victims of the Rana Plaza disaster and to deliberate on the case of Kalpana Chakma’s struggle. I wonder whether I should laugh or cry at this tokenized inclusion of marginalized women.

Showcasing Kalpana Chakma, not as the leader of the women’s movement in Bangladesh but as a marginal case of abduction of women, provokes a thought that the movement which has a centre and an edge where the voice of ethnic women is included.

However, let’s leave these things for now.

7 March 2014. On the eve of International Women’s Day, a seventeen-year-old indigenous girl was raped in Gobamara, Manikchari. The victim of rape is a domestic aide. She was returning home from Chittagong on a vacation. But her master, while boarding her in a bus, had instructed the bus driver to drop her off in Khagrachari. So she could not get off in Manikchari. She had to get in a minibus to arrive in Khagrachari. Her village, Batanatali is about 10 km from Manikchari. The bus in which the girl had boarded, however, was destined for Ramagar. So she was forced to get off the bus in Jayliyapara. And from there, she again got in a bus for Manikchari, but by now she did not have the full fair for this trip. The bus-helper (conductor) dropped her off in Gobamara. There are some Bengali shops in Gobamara. As she was waiting for a bus, a Bengali-settler who runs a bike on rent approached her saying that he’s going to Manikchharhi and she could come with him. She agreed to go with him in good faith. But after a short distance from Gobamara the Bengali man stopped the motorcycle saying that it wasn’t working. Then he called two of his friends on the mobile to come over. After his two friends had arrived, they took her to a nearby bush and raped her. The rapists left her there unconscious. When she had regained consciousness, she got up somehow and told the local people who caught the rapists red-handed and handed them over to the police. At first, instead of filing a case against the rapists, the police tried to settle the case through monetary compensation, however, the police were later forced to take the case on the pressure from the girl’s guardians and the local indigenous leaders.

There weren’t much of an opportunity to organise festivities around 8 March in the Chittagong Hill Tracts (CHT). We, the indigenous hill women in Khagrachari, are passing days in extreme anxiety and fear. At present, CHT is a rapists’ heaven. Indigenous  women, girls and even children are being raped somewhere or other in the hills at any given moment. These ‘rapes’ are very political – being used by the state as a weapon to further repress the indigenous CHT tribes/clans. Virtually all of the state administrative machinery are used to protect the rapists. Because, according to reports in the news media, the rapists are all Bengali. As if this country of ours named ‘Bangladesh’ is only for ‘Bengalis’.

According to the Hill Women’s Federation and CHT News, in 2013 there were 17 incidents of rape and tortures of indigenous women, teenage girls and children in the CHT. Of which 8 victims were raped and 7 victims were attempted rapes. One victim had been killed after being raped. One was killed at Matirangya after being tortured. Not only just that; 5 Bengali women and children had also been raped. One of them is merely a child. As per information all perpetrators are Bengali.

That’s the snapshot of 2013. While celebrations are in order for the International Women’s Day, I would like to highlight an estimate for you. Do you know, how many rapes have been conducted in the CHT in just two and a half months in 2014? According to the CHT News and information gathered by Hill Women’s Federation, in two months there have been 6 rapes and one attempted rape in the CHT. A madrassa teacher has been punished physically by locals for sexually abusing an indigenous girl. When the girl’s mother had tried to file a case with the police, they instead called the chairman of the Golabari Union to settle the issue. No case was filed following an apology from the madrassa ‘Huzur (teacher)’ to the girl. Meanwhile, in Baghaichari a member of the Army, deployed ‘to provide security to us’, tried to rape an indigenous woman from the hills in his home, and in Panachari a Bengali women was gang – raped by a pack of Bengali men.

In February this year two rapes in successive weeks was followed by a murder-after-rape in Khagharchari. The first incident took place on 15 February. In Kamalchari of Khagrachari an indigenous house-wife named Sabita Chakma was raped and asphyxiated by perpetrators. Sabita Chakma’s husband and the villagers alleged that the Bengali driver (and his assistant) of truck carrying sand took advantage when they found Sabita Chakma alone. What is the basis of this complaint? The truck (carrying sand) was stationed (apparently needing a mechanical repair) at the exact time and location where Sabita Chakma was last seen alive. Sabita Chakma’s body had impressions of mobile oil used in trucks. Sabita’s husband filed a case two days after the incident. But even after a month, till today, the police and the administration have failed to arrest the Bengali truck driver Nasim and his helpers duo Nayjam and Nazrul. Rather, a part of the administration is very active to save them. The situation is made worse in the area, settler-Bengalis are incensed to attack tribal villagers in the hills.The attacks took place in presence of the army. Injured in these attacks are still in the hospital. In the absence of security, the indigenous hill villagers are today village-less.

The second incident occurred on the 25th. A ninth grade girl, of Masterpara of Matiranga police station, was raped by two Bengali-settlers: Tarumiya (aged 40) and Abdul Khaliq (aged 40). The victim is a classmate of the rapist Tarumiya’s daughter. The abused schoolgirl and her mother reveal to us that she attends a school in Khagrachari from her aunt’s house. She was on a vacation in her village during the school holidays .She was supposed to return back to Khagrachari the-day-after-next when she had been raped. That day she and her cousin went to collect vegetables in an adjacent forest. Finding them alone,Tarumiya tried to smothered them but the cousin somehow fled and told everyone in the village. Tarumiya raped the girl, Abdul Khaliq was next to him. As as the villagers arrived at the scene they (Tarumiya and Abdul Khaliq) fled. The villagers rescued the schoolgirl and took her to Khagrachari Sadar Hospital. And, on that very day the girl’s mother filed a case at the Matiranga police station. After three days of treatment in the hospital she was brought to the court under section 3 to record her statement. The girl claims that she had told the magistrate the name of the ones who raped her – loud and clear. The case is currently pending at the Khagrachari Court. But sadly and unfortunately in the medical report rapes are reported as negative.

Each of the rape incident that takes place in the hills receives negative medical report: “Rape did not take place“. To investigate I spoke to an NGO worker. According to the NGO worker, on the assurance of anonymity a doctor has told them that doctors are instructed from the high corridors of administration (over the phone as well as via their representatives) not to produce positive medical reports, as soon as the news of a rape incident arrives. The relation between Bengalis and Indigenous people would deteriorate, they are told as a reason. Communal violence would commence. So in spite of the rapes, it is the doctor’s job to produce negative medical reports: ‘found no evidence of a rape.

Rape, sexual violence are the reality of women in Bangladesh. So, why the activists of the hills and the plains are seeing these rapes in the region as an attempt to eradicate Jummas? In fact, in this region, the rapes which took place in the CHT cannot be understood in isolation without understanding the political history. In recent times while the rate of rape of Tribal Indigenous women from the hills has increased significantly and alarmingly, but rape as a  tool to rule the Jummas of this area is not new. Our struggle for self-determination and autonomy, meaning the struggle since 80’s decade, rape has been used by Bengali military and civilian men / administration / state as a weapon. I, along with all women in the hills of the Chittagong Hill Tracts grew up/growing up with a constant but grave fear and heaviness in our chests of being raped, and then, of being murdered. Yet, within our own family and (indigenous) society  we do not spend the day in these fears.

I believe, Bangladeshi women are not strangers to this danger. At least, those who have witnessed 1971, the war of independence – as during those nine months period, women lived through the fear of being raped at any moment. In the independent Bangladesh the reality of this anxiety for the Hill-Tracts women is not confined to only 9 months or 9 years. Over the last twenty-four years we have been living under severe exposure to rape and sexual assault; fighting to survive without any swords or shields. Sometimes women of the hills are raped to overthrow their family from their lands. There are precedents of murder after rape. We have not forgotten Thumaching from Baradalu Village, Kawkhali Upazila of Rangamati . Again, to smother the voices of hills women who are protesting, a list is prepared so that indirectly a  message is conveyed that if you say too much the outcome would not be good.

As a woman lawyer of Khagrachari in the Hill Tracts, it seems to me that to challenge the patriarchal power of Bangladeshi society, to accommodate the differences between the women from the hills and the plains are not sufficient. We, the workers of the women’s movement in Bangladesh, whether we live in the plain or in the hills, will need to recognise the patriarchal face and ethnic identities of the state, and understand them. It’s difficult. But we can only find a technique or method to destroy the weapon of power by recognising it.

Samari Chakma an Indigenous women lawyer provides a highlight with some specific and recent horrific  incidents which demand immediate justice and state protection.

This is a translation of a piece by Samari Chakma, first published in thotkata.net on 17 March 2014.

মানিকছড়ি থেকে বাঘাইছড়ি: ধর্ষক যখন বাঙালী, ধর্ষণ যখন জাতিগত নিধনের রাষ্ট্রীয় হাতিয়ার

–সমারি চাকমা

মাত্র সপ্তাহখানেক আগে রাজধানীর ঢাকায় জাকজমকপূর্ণ পরিবেশে নানা আনুষ্ঠানিকতায় আর্ন্তজাতিক নারী দিবস, ২০১৪ পালিত হল। গুলশানে কর্পোরেট জগতের নারীদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে গোলাপী ডিসকো হিল পরে মিছিল করেন। শাহবাগে ট্রাকের উপর বেগুনী গালিচা বিছিয়ে নারী দিবসে রানা প্লাজার ভবনধ্বসে নিহত-নিখোঁজ-ক্ষতিগ্রস্ত নারীদের কথা এবং কল্পনা চাকমার সংগ্রামগাঁথা কেইস হিসেবে উপস্থাপিত হল। প্রান্তিক নারীদের এই টোকেনাইজড ইনক্লুসন দেখে কাঁদব না, হাসবো ভেবে পাই না। কল্পনা চাকমাকে বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের নেত্রী হিসেবে নয় বরং, একজন প্রান্তিক অপহৃত নারীর কেইস হিসেবেই অর্ন্তভুক্ত হতে দেখি আর ভাবি, নারী আন্দোলনেরও কেন্দ্র এবং প্রান্ত আছে যেখানে প্রান্তিক এথনিক ভয়েসেস ইনক্লুডেড হয়!

এসব কথা থাক এখন।

মার্চ ৭, ২০১৪। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের আগের দিন, একজন সতের বছর বয়সী পাহাড়ী নারী গোবামারা মানিকছড়িতে ধর্ষণের শিকার হন। ধর্ষণের শিকার নারীটি একজন গৃহ শ্রমিক। চট্টগ্রামে থেকে সে ছুটিতে বাড়ী ফিরছিল। কিন্তু তার গৃহকর্তা বাসে তুলে দেবার সময় বাসের ড্রাইভারকে বলে দিয়েছিল খাগড়াছড়ি নামিয়ে দিতে। তাই সে মানিকছড়ি নামতে পারেনি। আবার খাগড়াছড়ি থেকে মিনিবাসে করে মানিকছড়ি আসতে হল। মানিকছড়ি থেকে তাঁর গ্রাম বাটনাতলী ১০ কিলোমিটার মতন দূর হবে। মেয়েটি যে বাসে উঠেছিল সেটি ছিল রামগড়গামী। তাই বাস থেকে মেয়েটি জালিয়াপাড়াতে নামতে বাধ্য হয়। আর সেখান থেকে আবার একটা মানিকছড়ির বাসে উঠে, কিন্তু মেয়েটির কাছে বাসের পুরো ভাড়ার টাকা ছিল না। হেলপার তাকে গোবামারাতে নামিয়ে দেয়। গোবামারাতে বাঙালীদের কিছু দোকান আছে। মেয়েটি বাসের জন্য অপেক্ষা করছিল। একজন বাঙালী সেটলার, ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালায়, সে মেয়েটির কাছে এসে বলে যে সে মানিকছড়ি যাচ্ছে, মেয়েটি তার সাথে যেতে পারবে। সরল বিশ্বাসে মেয়েটি তার সাথে যেতে রাজী হয়। কিন্তু গোবামারা থেকে কিছুদূর যাবার পর বাঙালীটি মোটর সাইকেল থামিয়ে বলল, তার মোটর সাইকেল খারাপ হয়েছে। এরপর সে মোবাইল করে তার দুই বন্ধুকে সেখানে আসতে বলে। সেই দুজন আসার পর পথের পাশের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে মেয়েটিকে তারা ধর্ষণ করে। ধর্ষণকারী বাঙালী সেটলাররা তাকে অজ্ঞান অবন্থায় সেখানে ফেলে যায়। জ্ঞান ফিরে এলে মেয়েটি কোনমতে উঠে এসে স্থানীয় লোকদের জানালে লোকজন ধর্ষণকারীদের হাতে-নাতে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। প্রথমদিকে পুলিশ মামলা না নিয়ে, টাকা পয়সার মাধ্যমে বিষয়টিকে সেটেল করার চেষ্টা করে, পরে মেয়েটির অভিভাবক এবং পাহাড়ি নেতৃস্থানীয় ব্যাক্তিদের চাপের মুখে পুলিশ মামলা নিতে বাধ্য হয়।

৮ই মার্চ দিনটিকে ঘিরে পার্বত্য চট্টগ্রামে উৎসব আয়োজনের তেমন সুযোগ ছিল না। খাগড়াছড়িতে আমরা পাহাড়ি নারীরা এই দিনটি পালন করছি অত্যন্ত শংকা আর ভয়ের সাথে। এই মুহুর্তে পার্বত্য চট্টগ্রাম হচ্ছে ধর্ষকদের স্বর্গরাজ্য। প্রতিটি মুর্হুতে কোথাও না কোথাও ধর্ষণের শিকার হচ্ছে পাহাড়ি নারীরা, কিশোরীরা এমনকি শিশুরাও বাদ পড়ছে না। আর এই ‘ধর্ষণ’ খুবই রাজনৈতিক। পার্বত্য চট্টগ্রামের অধিবাসী পাহাড়ি জাতিসত্তাগুলোকে নিপীড়নের আরো একটা হাতিয়ার হিসাবে ‘ধর্ষণ’কে ব্যবহার করছে রাষ্ট্র। রাষ্ট্র তার প্রশাসনিক সকল যন্ত্রের সাহায্যে ধর্ষকদের বাচাঁতে কোন ক্রটি রাখছেনা। কারণ, পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য মতে ধর্ষকরা সকলে বাঙালী। আর আমাদের এই ‘বাংলাদেশ’ নামক রাষ্ট্রও যেন শুধুমাত্র ‘বাঙালীদের’।

হিল উইমেন্স ফেডারেশন এবং সিএইচটি নিউজ তথ্যানুসারে, ২০১৩ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়ি নারী, কিশোরী এবং শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ১৭টি। এদের মধ্যে ধর্ষণের শিকার হন ৮ জন, ধর্ষণের প্রচেষ্টার শিকার হয়েছেন ৭ জন। ধর্ষণের পর একজনকে হত্যা করা হয়েছে। মাটিরাংগায় একজন নির্যাতিত হবার পর আতœহত্যা করেছে। শুধু তাই নয় ৫ জন বাঙালী নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। তারমধ্যে একজন শিশু বলে জানা যায়। তথ্য মতে, ধর্ষণকারী সকলেই বাঙালী।

এইতো গেল ২০১৩ সালের চিত্র। আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উদযাপনে যখন চলছে চারদিকে, তখন আরও একটা হিসেব আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই। আপনি কি জানেন, ২০১৪ সালের মাত্র আড়াই মাসে পার্বত্য চট্টগ্রামে কতগুলো ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে? সিএইচটি নিউজ এবং হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সংগৃহীত তথ্যমতে, পার্বত্য চট্টগ্রামে এই দুই মাসে ৬ টি ধর্ষণের এবং ১ টি ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। একজন পাহাড়ি কিশোরীকে যৌন নিপীড়ন করার অভিযোগে মাদ্রাসার এক শিক্ষককে উপস্থিত লোকজন উত্তম মধ্যম দেন। আর ঐ কিশোরীর মা থানায় মামলা করতে গেলে ওসি মামলা না নিয়ে গোলাবাড়ির ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারমেনকে ডেকে মীমাংসা করান। মাদ্রাসার হুজুর কিশোরীটির কাছ মাপ চাইলে আর মামলা হয়নি। ইতিমধ্যে বাঘাইছড়িতে আমাদের নিরাপত্তার নামে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর একজন সদস্য একজন পাহাড়ি নারীকে নিজ বাড়ীতে ধর্ষণের চেষ্টা করেছেন। আর পানছড়িতে একজন বাঙালী নারী, বাঙালী পুরুষ কর্তৃক গণ-ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

এই বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে খাগড়াছড়ি জেলায় পরপর দুটো ধর্ষণ আর ধর্ষণের পর একটি খুনের ঘটনা ঘটেছে। এই মাসের প্রথম ঘটনাটি ঘটে গত ১৫ ফেব্রুয়ারী তারিখে। খাগড়াছড়ি কমলছড়িতে সবিতা চাকমা নামে এক পাহাড়ি গৃহবধুকে ধর্ষণের পর গলা টিপে হত্যা করে দুবৃত্তরা। সবিতা চাকমার স্বামী এবং গ্রাম বাসীর অভিযোগ করেন বালু ট্রাক বাহিত এক বাঙালী ড্রাইভার আর তার হেলপার সবিতা চাকমাকে একা পেয়ে ধর্ষণ করার পর গলা টিপে হত্যা করেছে। এই অভিযোগের ভিত্তি কি? যে সময় ও স্থানে, সবিতা চাকমাকে শেষবার দেখা গেছে সেখানে বালু বাহিত ট্রাক খারাপ হয়েছিল। সবিতা চাকমার মৃতদেহে, হাতে ও শরীরের নানা অংশে ট্রাকে ব্যবহ্রত মোবিল তেল পাওয়া গিয়েছিল। ঘটনার ২ দিন পর সবিতা চাকমার স্বামী মামলা দায়ের করেন। কিন্তু মামলা হবার প্রায় একমাস হতে যাচ্ছে, অথচ আজও পুলিশ, প্রশাসন সেই বাঙালী ট্রাক ড্রাইভার নাসিম আর তার হেলপারদ্বয় নেজাম ও নজরুলকে গ্রেফতার করতে পারেনি। বরং তাদের বাঁচাতে প্রশাসনের একটা মহল ভীষণ তৎপর। ঐ এলাকার পরিস্থিতি খারাপ করা হয়েছে, সেটলার বাঙালীদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে পাহাড়ি গ্রামে হামলা করবার জন্য। সেনাবাহিনীর উপস্থিতিতে এই হামলা চালানো হয়। এই হামলায় আহতরা এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। নিরাপত্তার অভাবে পাহাড়ি গ্রামবাসীরা আজ পর্যন্ত গ্রামছাড়া।

দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটে ২৫ তারিখ। মাটিরাংগা থানায় মাস্টার পাড়া গ্রামে নবম শ্রেণীতে পড়–য়া এক পাহাড়ি স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে দুই বাঙালী সেটলার তারুমিয়া (৪০) আব্দুল খালেক (৪০)। ধর্ষক তারুমিয়ার কন্যা নির্যাতিত পাহাড়ি মেয়েটির সহপাঠী। ঐ নির্যাতিত স্কুল ছাত্রী ও তার মায়ের সংগে কথা বলে জানা যায়, পাহাড়ি মেয়েটি জেঠিমার বাড়ীতে থেকে খাগড়াছড়ির একটি স্কুলে পড়াশুনা করে। স্কুল ছুটি থাকায় মেয়েটি নিজ গ্রামে ছুটি কাটাতে গিয়েছিল। যেদিন সে নির্যাতিত হয় তারপরের দিনে তার খাগড়াছড়িতে ফেরার কথা ছিল। তাই সেদিন সে কাকাত বোনকে সাথে নিয়ে গ্রাম সংলগ্ন বনে যায় তরিতরকারী সংগ্রহ করতে। এসময় তাদেরকে একা পেয়ে তারুমিয়া মুখ চেপে ধরলে ছোট বোনটি পালিয়ে যায়। গ্রামে গিয়ে সকলকে জানায়। তারুমিয়া মেয়েটিকে ধর্ষণ করে, আব্দুল খালেক পাশে ছিল। এরই মধ্যে গ্রামের লোকজন ঘটনাস্থলে আসলে তারুমিয়া ও তার সহযোগী আব্দুল খালেক পালিয়ে যায়। স্কুল ছাত্রীকে লোকজন উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে পাঠায়। এবং, মেয়েটির মা সেদিনই মাটিরাংগা থানায় একটি মামলা দায়ের করে। হাসপাতালে ৩ দিন চিকিৎসা শেষে ২২ ধারায় জবানবন্দি নেবার জন্য মেয়েটিকে কোর্টে আনা হয় । মেয়েটি জানায়, সে ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে জবানবন্দিতে ধর্ষকদের নাম স্পষ্ট বলেছে। মামলাটি বর্তমানে খাগড়াছড়ি কোর্টে বিচারাধীন। কিন্তু খুবই দুঃখের বিষয় মেডিকেল রির্পোটে ধর্ষণের ঘটনা নেগেটিভ বলে জানানো হয়েছে।

পাহাড়ের সংঘটিত প্রত্যেকটি ধর্ষণের ঘটনার মেডিকেল রির্পোট নেগেটিভ বলে রির্পোট দেয়া হয়। ধর্ষণ ঘটেনি। এই ব্যাপারে খোঁজ নিতে একজন এনজিও কর্মীর সাথে আমি কথা বলি। তার ভাষ্য, মেডিকেল রির্পোট কেন নেগেটিভ আসে জানতে চাইলে নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক ডাক্তার জানিয়েছেন, যখনই কোন ধর্ষণের সংবাদ আসে তখন থেকেই প্রশাসনের উচ্চ মহল থেকে ফোন আর প্রতিনিধি পাঠিয়ে ডাক্তারদের জানানো হয়, এই সব ধর্ষণের মেডিকেল রির্পোট যেন পজেটিভ না আসে। কারণ হিসাবে তাদেরকে বলা হয়, যদি রির্পোট পজেটিভ আসে তাহলে পাহাড়ি-বাঙালী সর্ম্পক খারাপ হবে। সাম্প্রদায়িক হানাহানি হবে। তাই ধষর্ণ ঘটলেও, ডাক্তারের কাজ হল সেটা অস্বীকার নেগেটিভ রিপোর্ট দেয়া – ‘ধর্ষণ এর আলামত পাওয়া যায়নি।’

ধর্ষণ, যৌন সহিংসতা সারা বাংলাদেশের নারীর বাস্তবতা। তাহলে, কেন পাহাড়ী-সমতলের এ্যাকিটভিস্টরা এই অঞ্চলে ধর্ষণকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জুম্ম জাতি নিধনের হাতিয়ার হিসেবে দেখছে? আসলে, পার্বত্য চট্টগ্রামে সংঘটিত ধর্ষণকে এই অঞ্চলের রাজনৈতিক-ইতিহাস থেকে বিচ্ছিন্নভাবে বোঝা যায় না। সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ী নারী ধর্ষণের হার উল্লেখযোগ্য এবং আশংখাজনক হারে বেড়ে গিয়েছে, তবে ধর্ষণ এই অঞ্চলে জুম্ম জাতিকে অনুশাসনের হাতিয়ার হিসেবে নতুন নয়। আমাদের জাতিগত আত্মপরিচয়, স্বায়ত্ত্বশাসন আদায়ের সংগ্রামের শুরু, মানে সেই ’৮০র দশক থেকেই ধর্ষণকে সামরিক ও বেসামরিক বাঙালী পুরুষ/প্রশাসন/রাষ্ট্র হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে এসেছে। আমি সহ পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল পাহাড়ি নারীরা বড় হয়েছি-হচ্ছি প্রতিনিয়ত ধর্ষিত হওয়া এবং এরপরে খুন হওয়ার শংকার পাথর-ভার বুকে নিয়ে। অথচ নিজেদের পরিবারে বা সমাজে আমাদের এই শংকার মধ্যে দিন কাটাতে হয়না।

আমি বিশ্বাস করি, বাংলাদেশের নারীর কাছে এই শংকা অচেনা নয়। অন্তত, ’৭১ বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধের সময়টা যাঁরা, যে সকল নারীরা দেখেছেন তাদের জন্যতো নয়ই, কারণ তাঁরা নয়টি মাস তিল-তিল করে বেঁচে ছিলেন যে কোনও মুহূর্তে ধর্ষিত হওয়ার আতঙ্ক নিয়ে। স্বাধীন বাংলাদেশে পাহাড়ী নারীদের জন্য এ বাস্তবতা কেবল ৯ মাস, ৯ বছরের নয়। দুই যুগেরও অধিককাল ধরে আমরা ধর্ষণ, যৌন নিপীড়নের খড়গ মাথায় নিয়ে বেচেঁ আছি, ঢাল-তলোয়ার ছাড়া প্রতিটি মুহুর্ত যুদ্ধ করছি। কখনও পাহাড়ী পরিবারকে আদি-ভূমি থেকে উৎখাতের জন্য সেই ভূমিতে বসবাসকারী পাহাড়ী নারীকে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের পর খুন করে ফেলার নজিরও আছে। আমরা বড়ডলু গ্রাম, কাউখালী উপজেলা রাঙামাটি তুমাচিং এর কথা ভুলে যায়নি। আবার, পাহাড়ী নারীর প্রতিবাদী কণ্ঠকে রূদ্ধ করার জন্য তাদের নাম-তালিকা প্রস্তুত করে, পরোক্ষভাবে জানান দেয়া, যদি বেশী কথা বল, তার পরিণতি ভাল হবে না।

খাগড়াছড়ির একজন নারী আইনজীবি হিসেবে আমার আজকাল মনে হয়, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের পিতৃতান্ত্রিক ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য পাহাড়ী-সমতলের নারীর অভিজ্ঞতার ভিন্নতাকে এ্যাকোমোডেট করাই যথেষ্ট নয়। আমাদের, মানে বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের কর্মীদের, সমতল বা পাহাড়ে, যেখানেই থাকি না কেন, এই রাষ্ট্রের পিতৃতান্ত্রিক চেহারা এবং জাতিগত পরিচয়কে চিনে নিতে হবে, বুঝে নিতে হবে। কাজটা কঠিন। কিন্ত ক্ষমতাধরের হাতিয়ারকে চিনে নিলেই কেবল সেই হাতিয়ার ভেঙ্গে ফেলার কৌশল, পথ পাওয়া যায়।

4 thoughts on “When Rapists Are Bengali, When Rape Is A State Weapon For Ethnic Cleansing

  1. IT IS INEVITABLE, BENGALI SETTLERS WILL BECOME INCREASINGLY MORE VIOLENT AND PREDATORY TOWARDS THE CHT INDIGENOUS PEOPLE.

    The shift of Bengalis from a very small minority in the early 1960s to nearly half the total number by 1991 was clearly a massive shift and an unprecedented change for people who have lived there for generations. Most of the population changes took place since the birth of Bangladesh.

    Tension and periodic violence between the Bengali settlers and locals are a constant feature and I worry that one day the settlers will unleash extreme violence on their neighbours with a view to undertaking ethnic cleansing of the area and try to push them into India or Myanmar. Although Bengalis are not the only groups who have used to violence and killings in the CHT but the potential for violence among the Bengalis seems to be growing and getting stronger with their growth of population as compared to the indigenous and non Bengalis, who are conversely getting weaker.

    Although there will be many years of great hardship, sorrows, blood and tension the eventual fate for the indigenous and non Bengalis of HCT seems to me that they will lose CHT and become like ethnic minority communities found in many in western countries, surviving and perhaps even thriving in a Bengali Bangladesh.

  2. Just as BD experienced the use of rape as a war weapon, it is now being used by the them. Unfortunately this is not just in BD. women are being victims of rape as a way of punishing or establishing power over a community around the world. For example, in Congo, in the Northern Kivu province alone there have been 14,000 rapes since 2004. Most of which have been accrued as part of a broader attack on a village, designed to terrorize local communities into accepting the aggressor’s control, and in other instances it has been used to punish a village for allegedly supporting an opposing militia. Tragic and True!

  3. It always draws our deep attention if it happens with tribal ladies.Unfortunately, it happens almost equally with Bengali ladies living in hill tracts ts as well ; which doesn’t touch our emotion ! In other part of Bangladesh, rape cases are almost in the same rate and happening by Bangales as well.But than, it happens in western countries also and by the same western people.So, point is not the Bengali man or western man but the point is male folk ! As such, defaulters are male and the males should be responsible for that and accept the allegation. I have all the sympathy for hill women and i stand in full support of hill women not against Bangalee man but against males.Wishing safety and security of all the woman of the world.

  4. Pingback: Bangladesh : viols et nettoyages ethniques | LA PILULE ROUGE

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s