Cricket Nationalism: Death threats against Kabir Suman

Facebook death threat against Kabir Sumon

Death threat against Kabir Sumon from RSS Facebook page

Kabir Suman: “After such impassioned appeal (“Is there no one who can kill this piece of pube?”), after such frantic and helpless SOS, will no one come forward? I am a 66-year-old aging man. My limbs tremble and shake… Even children can take me down with utmost ease. Will it be a “Boimela” (book fair) for me too? The next Kolkata Boimela perhaps? Would it be right to keep me alive that long?”

For the last one week we analyzed cricket nationalism (Mouka Mouka), as well as macho culture (Happy-Rubel) in India and Bangladesh. Now in another turn of events, death threats have been issued against Kabir Suman, songwriter, singer, musician, journalist, author, activist, and ex-parliamentarian (Lok Sabha, Parliament of India, 2009-2014), for supporting the Bangladesh team. The following are the chain of posts since March 19th, in reversed order. Translated by AlaloDulal.org Editors Tibra Ali and Nadine S. Murshid.

Kabir Suman, March 22, 2015 [Facebook post]

Two lines from my favorite poet Pinaki Thakur (I don’t remember the entire poem / an amazing poem on Rammohon Roy, whom some people wanted killed): “They will kill me? What do they eat?”

Shourodeep Ghosh shared one of my posts on Facebook. Rest follows from there. Shourodeep is probably an Indian citizen. His words: “bishwa baal.” [AoD Editorial: Literally, the word “baal” means pube. But, here it is used as pejorative, equating him to ‘a Nobody’, but a ‘pube’.] One of the commenters on his post, a man self-identified as Aawara Romeo (such a spineless coward that he couldn’t even use his own name) wrote: “baal ta ka marar keu nei?” [“Is there no one who can kill this pube?”]

Finally, after all these years this man has articulated what many have perhaps wanted to but haven’t been able to, as they wrote and spread rumors about me. Could he be one of those people who were behind the machete-wielding event at the Dhaka Boimela? I don’t think so. Mr. Aawara Romeo, it seems, is an Indian Bengali.

My family members and I know that many in India and in West Bengal (more in West Bengal than anywhere else in India) who have read the above call for my death must have found their own feelings being resonated in those words. After everything that Indian Bengalis have written about me I can’t but think that.

Ah! After such impassioned appeal (“Is there no one who can kill this piece of pube?”), after such frantic and helpless SOS, will no one come forward? I am a 66-year-old ageing man. My limbs tremble and shake. Everyone knows, especially famous journalists and anti-Mamata progressive-liberals, that I am spineless. My right knee hurts so much that I can’t move too well, I climb stairs only one-foot one-step at a time. Even children can take me down with utmost ease. Will it be a “Boimela” (book fair) for me too? The next Kolkata Boimela perhaps? Would it be right to keep me alive that long?

Thank you, India’s kill-Suman Bengali mobs. You have shown the way. You have done so many things for so long. Why refrain from this? But, if you’re really your father’s son, show your face. Okay fine, come from behind.

Kabir Suman, March 20, 2015 [Facebook post]

Nowhere did I say anything negative about India, Indians or the Indian Cricket Team. On the contrary I congratulated the Indian Cricket Team. At the same time I said that I seem to know the Bangladeshi Cricket Team better, and that I support them. That’s all! Immediately the way a lot of people from India started a torrent of curses and expletives aimed at me that I was amazed. But I didn’t say a single thing against either India or the Indian Team! Why don’t people just read what I wrote — It’s right here below.

My impression is that everyone is thinking that I would be very hurt (the way a particular person and his followers had thought). Not a chance. I can imagine that a lot of Bengalis are angry at me. I have been living with this since “Tomake Chai” [his first music album from HMV] came out in 1992. I am used to it. And in reality, my time is almost up. It’s almost time for me to go into retirement. To learn and sing ragas, to do voice training for about five hours a day to keep the voice in shape, to read a few books, sleep, and teach music to a few. This is my life now.

Preparing for the long sleep. I am passing my time pretty well. And from this position of passing my time pretty well I want to say again — I wanted the Bangladesh Team to win. I like the team. What can I do. In my youth the Pakistani Team came to play in Calcutta under the captaincy of Fazal Mahmud. Test match. What a glorious age of cricket it was. Among the Indian players was Chandu Borde, Jaisimha, Ramakant Desai, Polly Umrigar. Ah! Polly Umrigar!!! And Abbas Ali Baig! What a flamboyant cricketer! The darling of the stadium. Pakistan’s Hanif Mohammad, Nasim-ul-Ghani, Intikhab Alam, Javed Burki, ‘Leg Cutter’ bowler Fazal Mahmood. Was Mushtaq around at that point? I have forgotten much. But what I haven’t forgotten — the spectators in Calcutta’s Eden Garden were Indian citizens, I imagine. I don’t think people came from Pakistan to see that test match. The spectators were clapping non-stop seeing the Hanif and Burki’s play, and Fazal’s bowling. There were moments where it appeared that more people were supporting Pakistan. But in reality that was not it. Cricket was a royal game. Its temperament was regal. Even when the opposition played well the cricket-lovers of Calcutta didn’t hold back in showing their appreciation. And the shots that Mushtaq and Hanif played! And their cuts! We all collected Hanif’s pictures and kept them in our notebooks. The Partition and the horrible riots had happened perhaps only twenty years previous to that time. A lot of horrific memories were still fresh. But in our neighbourhood or in school there were plenty of boys who had pictures of Hanif, Burki or Fazal pasted in their notebooks. While playing cricket on the streets with a tennis ball and bricks for stumps many Bengali kids from that era declared themselves to be Hanif and Mushtaq. For that they were never called ‘traitors’ by any Indians or lover of India. I personally was very much in the Hanif camp. For this no friend or teacher or senior from the neighbourhood ever said to me — ‘What arrogance this is? How can you say “Hanif-Hanif” after being fed at the breasts of Mother India, after being fed the rice, daal and fish-curry of India? You should leave and go to Pakistan.’

There was this time when England, in deep trouble, brought Colin Cowdrey from England. I was there when he entered the pitch. I was very young then. But I remember, Cowdrey entered the field like a king and the whole Indian team welcomed him. My hero — Polly Umrigar — showed so much respect to the tall and well-built man. And the whole audience stood up while clapping. It wasn’t until Cowdrey took the stance that people sat down. ‘Cricket – the king of all sports.’ There was even a book by that title. It was our holy book. No one in those days said, seeing how many people in Calcutta was celebrating Colin Cowdrey, that, look how these people are still licking the English boots, how they are still mentally colonized.

No. That age is no more. And that cricket is no more.

In those days, no one would have said, on the day of India-Pakistan match, that ‘today is the day of war between India and Pakistan.’ And the money involved in the game in those days was nothing compared to what is involved today.

The era that I am from, in that era of proud subcontinent, on hand you had the India-Pakistan War, while on the other hand no Classical concert was possible in Calcutta without kheyal of the two great Pakistani artists, Acharya Salamat Ali Khan and Acharya Najakat Ali Khan. When their 45 rmp disk of pahari thumri was released in 1962, which went on to capture the whole of India within a few months, no one was able to even imagine — that these two artists are from Pakistan, therefore to like them is to betray one’s own country, and to betray India.

I write not to explain anything, I write only to write. Time is short. Maybe someone will benefit from these reminiscence. Those whose religion it is to oppose me, these words won’t percolate through their thick brains. But maybe normal people will enjoy reading this. Who knows?

Yes, I want to repeat, I wanted Bangladesh to win.

I have congratulated the Indian Team, and I will again. But I would have been happy if Bangladesh had won.

Kabir Suman, March 19, 2015 [Facebook post]

I was ardently wishing the Bangladesh team to win, which is what I always want whenever they play international matches. But, the Bangladesh team did not make it. So, instead of the happiness that I would have felt if they had won, in its place I felt lugubrious. But, this is what I have understood: In 1971 Bangladesh was born as an independent nation. I don’t really know how extensively cricket was played and practiced before 1971, i.e. when Bangladesh was East Pakistan. But Indians have been playing and practicing cricket from far before 1971 on a much grander and extensive scale.

India is a huge state. Cricket is played in many corners of the country from where talented players are selected for the national team. Bangladesh, in comparison, is much smaller. There is a direct relationship between cricket and economic resources. In India the patrons of cricket were the princely states – the nawabs, and the kings (from the days of the British Raj). They even played the game themselves – such as Maharajkumar of Vijaynagaram. Another was Gaekwad, and some others too. Bangladesh is not economically rich. During the days of undivided-India I don’t recall any zamindars of east and west Bengal playing cricket, neither have I heard of any zamindars who have acquired fame as a cricketer; at least I am not aware of any. In fact, the Bengalis who made a name for themselves as cricketers in undivided-India were more or less from the middle-class.

In independent Bangladesh the tradition and practice of cricket, of international standard, is relatively new. That this small, far more underdeveloped in fabrication-industry, primarily an agro-based country, has made such great advancements in this game, in such a short period of time, is indeed remarkable. In the history of cricket this is not very common. One of the only other countries that I can think of is Sri Lanka. I’m, of course, not an expert; I only keep track of bits and pieces of cricketing news. But the kind of cricket that Bangladeshi players are playing gives me hope that in a few years time they will see better results; one doesn’t need to be a Bengali for that. If any normal, thinking astute Indian considers it this way: that an Indian state, like West Bengal or Orissa, is playing the Indian national team, it’ll perhaps be easier for them to fathom.

The Indian team has played well and won. Bravo! Likewise, Indian players and cricket lovers might find it difficult to imagine, considering Bangladesh’s struggles since its independence (at least in terms of cricket), the game that Bangladesh played against not just Indian players, but against some of the world’s best, facing the gargantuan challenges, and standing their ground and delivering; even if I hadn’t been a Bengali I would have hugged them and kissed their cheeks, while clapping for the Indian team in the same breath.

If this were a fairy tale, the princess would have given her heart to Bangladesh today. If it were so that the winner of the game would have to be her lawfully wedded partner for life she probably would have acquiesced, but in her heart she would have waited for the Bangladesh-prince to come take her away riding on his horse and to an unknown destination.

Today is ending with a ball. A gray twilight is descending upon Bengal. Near the end of my life this graying twilight envelops me in a wistful melancholy. But even then I find happiness thinking – a galloping fierce black horse. The reins in the hands of the Bangladesh-prince [AoD Editorial: alluding to the cricket team] is riding on. Holding him by his waist, her face resting on his back, the liberated princess dreams on.


[Original Facebook posts in Bangla]

Kabir Suman, March 22, 2015:

আমার প্রিয় কবি পিনাকী ঠাকুরের একটি কবিতার দুটি লাইন (কবিতাটি আমার পুরো মনে নেই/ অসাধারণ একটি কবিতা – বিষয় রামমোহন রায় যাঁকে কেউ কেউ মেরে ফেলতে চাইছেন): “উহারা আমায় মারিবে?/উহারা কী খায়?”

আমার একটি লেখা সৌরদীপ ঘোষ শেয়ার করেছেন। সেই সূত্রে বাকিটা। সৌরদীপ ঘোষ, সম্ভবত ভারতেরই নাগরিক, তাঁর কথা: “বিশ্ব বাল!!!” সেই সূত্রে একেবারে নিচে Aawara Romeo নামধারী (এতোটাই কাপুরুষ ও নপুংসক যে নিজের নাম দিতে পারেননি) লিখছেন: “baal ta ka marar keu nei?” = “বালটাকে মারার কেউ নেই?”

এতোদিন ধরে এত ধরণের বাঙ্গালি আমার নামে যা-ইচ্ছে-তাই লিখে, বলে ও রটাতে রটাতে বলতে চেয়েও যা বলে উঠতে পারেননি অবশেষে একজন অন্তত তা বলে দিলেন। ঢাকা বইমেলায় যারা চাপাতি চালিয়েছিল এই সুধী তাদের কেউ কি? মনে তো হয় না। শ্রী আওয়ারা রোমিও মনে হচ্ছে ভারতীয় বাঙ্গালি।

আমি এবং আমার পরিবারের সদস্যরা জানেন “বালটাকে মারার কেউ নেই?” কথাটা প’ড়ে এ-দেশের, এ-রাজ্যের (দেশের অতোটা নয়, রাজ্যের যতোটা) অনেক বাঙালির মনই তাঁদের মনের কথার প্রতিধ্বনি শুনতে পাবে। আমার সম্পর্কে ভারতের বাঙালিরা এতদিন ধরে যা যা লিখে চলেছেন তা সম্যক জেনে আমার এ-ছাড়া অন্য কিছু মনে হওয়ার উপায় নেই।

আহা, অমন আকুতি (“বালটাকে মারার কেউ নেই?), অমন হাহাকার, অমন অসহায় SOS পড়ে কেউ কি বুক বেঁধে এগিয়ে আসবনে না? আমি তো ৬৬ বছরের এক জরাগ্রস্ত লোক। হাতপা কাঁপে। সকলেই জানেন, বিশেষ করে নামী সাংবাদিক ও মমতাবিরোধী প্রগতিশীলরা যে শিরদাঁড়া নেই। ডান হাঁটুতে আর উরুতে এতো ব্যথা যে বেশি হাঁটতে পারি না, সিঁড়ি দিয়ে উঠি এক পা এক পা করে। বাচ্চা ছেলেরাও আমায় সহজেই ঘায়েল করতে পারবেন। তা, আমার বেলাতেও কি ‘বইমেলা’? পরের কলকাতা বইমেলা? অতোদিন বাঁচিয়ে রাখাটা কি ঠিক হবে?

ধন্যবাদ, ভারতের সুমন-মারো বাঙ্গালি জনতা। রাস্তাটা বাৎলে দিলেন। অনেক কিছুই তো করলেন। এবারে এটাই বা বাদ থাকে কেন। শুধু, বাপের ব্যাটা যদি সত্যিই হন একবার সামনে আসুন। আচ্ছা ঠিক আছে – পেছন থেকেই নাহয় চেষ্টা করে দেখুন।

Kabir Suman, March 20, 2015:

একটি জায়গাতেও ভারত, ভারতবাসী বা ভারতের ক্রিকেট দল সম্পর্কে কোনও কুকথা বলিনি। বরং ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সাবাশ জানিয়েছি। সেই সঙ্গে বলেছি বাংলাদেশের ক্রিকেট দলকে আমার বেশি পরিচিত মনে হয়, তাঁদের আমি সমর্থক। – ব্যাস্‌! অমনি ভারতের বেশ কিছু ফেসবুক্‌বিদ যে গালাগালির ঝড় ছোটালেন তা বিস্ময়কর। ভারত বা ভারতীয় দলের বিরুদ্ধে তো একটি কথাও লিখিনি রে বাবা। আমার লেখাটা আর-একবার পড়ে দেখুন – এই তো, এর নিচেই আছে।

আমার ধারণা, সকলেই ভাবছেন (এর আগে কী-এক পাত্র ও তাঁর সাঙ্গপাঙ্গরা যা ভাবছিলেন) আমি খুব আহত বোধ করব। ধ্যুৎ। বুঝতে পারি আমার ওপর অনেক বাঙালির প্রচুর রাগ। ১৯৯২ সালে ‘তোমাকে চাই’ বেরনোর পর থেকে তো এই নিয়েই আছি। অভ্যেস হয়ে গেছে। আর, বাস্তবিকই, আমার দিন তো ঘনিয়ে এলো। বলতে গেলে অবসরে চলে এসেছি। রাগসঙ্গীত গাওয়া, শেখা, গলার পারদর্শিতা বজায় রাখার জন্য দিনে-সন্ধেতে ঘন্টা পাঁচেক অনুশীলন, কিছু বই পড়া আর ঘুম, কয়েক জনকে গান শেখানো। এই নিয়ে আমার জীবন।

বিরাট লম্বা ঘুমের প্রস্তুতি। দিব্যি আছি। সেই দিব্যি থাকা অবস্থাতেই আবার বলছি – আমি চাইছিলাম বাংলাদেশ দল জিতুন। ভালো লাগে দলটাকে। কী করব। আমার কৈশোরে ফজল মাহমুদের নেতৃত্বে পাকিস্তান দল খেলতে এসেছিলেন কলকাতায়। টেস্ট খেলা। সে ছিল দারুণ ক্রিকেটযুগ। ভারতের খেলোয়াড়দের মধ্যে চান্দু বোরদে, জয়সিমা, রমাকান্ত দেশাই, পলি উমরিগর – উফ্‌! পলি উমরিগর!!! তেমনি আব্বাস আলি বেগ! What a flamboyant cricketer! The darling of the stadium. পাকিস্তানের হনিফ মোহাম্মদ, নসিমুল গনি, ইম্‌তিখাব আলম, জাভেদ বার্কি, ‘লেগ কাটার’ বোলার ফজল মহম্মদ। মুশ্তাক কি তখন ছিলেন? কত কী ভুলে গিয়েছি। যেটা ভুলিনি – কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সের দর্শকরা, আমার ধারণা, ভারতীয় নাগরিক ছিলেন। ওই টেস্টম্যাচ দেখতে পাকিস্তান থেকে লোক চলে এসেছিল বলে মনে হয় না। হনিফ ও বার্কির খেলা দেখে, ফজলের বোলিং দেখে কলকাতার জনগণ মুহূর্মুহু হাততালি দিচ্ছিলেন। এক এক সময়ে মনে হচ্ছিল বেশিরভাগ দর্শক পাকিস্তানের সমর্থক। কিন্তু আদতে তা তো নয়। ক্রিকেট ছিল রাজার খেলা। রাজকীয় তার মেজাজ। প্রতিপক্ষ ভালো খেললে কলকাতার ক্রিকেট-প্রেমীরা মন খুলে তারিফ জানাতেন। হনিফ ও মুশ্তাকের মার! তাঁদের কেতা! আমরা সবাই পাকিস্তানের হানিফের ছবি সংগ্রহ করে খাতায় সেঁটে রাখতাম। দেশভাগ ও জঘন্য দাঙ্গা হয়েছে তার বড়জোর বছর কুড়ি আগে। অনেক মর্মান্তিক স্মৃতি তখনও জ্যান্ত। আমাদের স্কুলে বা পাড়ায় হানিফ বার্কি ফজলের ছবি জোগাড় করে খাতায় সেঁটে রাখতে চায় না এমন ছেলে কমই ছিল। রাস্তায় ইঁটের উইকেট সাজিয়ে টেনিস বলে ক্রিকেট খেলার সময়ে সে-যুগে অসংখ্য বাঙ্গালি ছেলে ছিলেন স্বঘোষিত হানিফ, মুশ্তাক। সে-জন্য কোনও ভারতবাসী বা ভারতপ্রেমী তাঁদের ‘দেশদ্রোহী’ বলেননি। আমি নিজে খুব হানিফপন্থী ছিলাম। কোনও বন্ধু বা শিক্ষক বা পাড়ার বড়রা আমায় সে-জন্য বলেননি – ‘তোর এত বড় স্পর্ধা তুই ভারতের স্তন্যপান করে, ভাত খেয়ে ডাল আর মাছের ঝোল খেয়ে এখন হানিফ-হানিফ করছিস? যা, পাকিস্তানে চলে যা।’

একবার, ইংল্যাণ্ড দল মহা ফাঁপরে পড়ে কোলিন কাউড্রেকে নিয়ে আসেন ইংল্যাণ্ড থেকে। যেদিন উনি ইডেনের মাঠে নামলেন, আমি মাঠে ছিলাম। কত অল্প বয়স তখন আমার। মনে আছে, কাউড্রে মাঠে নামছেন রাজার মতো, ভারতের গোটা টীম তাঁকে সমানে অভিবাদন জানাচ্ছেন। আমার হিরো – পলি উমরিগর – লম্বা, সুদেহী মানুষটি কী-সম্মানই না জানাচ্ছেন। আর, সারা মাঠের দর্শক দাঁড়িয়ে উঠে করতালি দিচ্ছেন। কাউড্রে স্টান্স নেওয়া পর্যন্ত কেউ বসেননি। ‘খেলার রাজা ক্রিকেট’। একটা বইই তো ছিল। আমাদের ধর্মগ্রন্থ সেযুগে। কোলিন কাউড্রেকে নিয়ে কলকাতার বিপুল সংখ্যক দর্শকের মাতামাতি দেখে কেউ কিন্ত বলেনি – এ মা, এরা এখনও ব্রিটিশের পা-চাটা, এখনও মন থেকে গোলামি যায়নি!

না। সেই যুগ আর নেই। সেই ক্রিকেটও আর নেই।
সে-যুগে ভারতীয় দলের সঙ্গে পাকিস্তান দলের খেলা থাকলে কেউ বলত না ‘আজ ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ।’ আজকের মতো এতো বিপুল টাকার খেলাও ছিল না তখন।

আমি যে-যুগের গর্বিত উপমহাদেশীয় সেই যুগে একদিকে ভারত-পাকিস্তানে বোকাবোকা যুদ্ধও হচ্ছে, আর অন্যদিকে পাকিস্তানের দুই মহাশিল্পী আচার্য সালামাত আলি খান ও আচার্য নাজাকাত আলি খানের খেয়ালের অনুষ্ঠান ছাড়া কলকাতার কোনও রাগসঙ্গীতের আসর সম্ভবই হচ্ছে না। ১৯৬২ সালে তাঁদের গাওয়া পাহাড়ি ঠুংরির ৪৫ আর পি এম ডিস্ক যখন বেরলো ও ভারতের শ্রোতাদের কয়েক মাসের মধ্যে জয় করল কোনও ভারতীয় কিন্তু ভাবতেও পারতেন না যে – এই দুই শিল্পী পাকিস্তানের, অতএব তাঁদের পছন্দ করা মানে দাঁড়াবে দেশদ্রোহিতা করা, ভারতের সঙ্গে বেইমানি করা।

কোনও কিছু ব্যাখ্যা করার জন্য নয়, এমনিই লিখেছি। সময় ফুরিয়ে আসছে যে। এই ধরণের স্মৃতিচারণ হয়তো কারুর কাজে লাগবে। আমার বিরোধিতা করা যাঁদের ধর্ম হয়ে দাঁড়িয়েছে তাঁদের নিরেট মগজে কিছুই ঢুকবে না। এই লেখাটা পড়ে স্বাভাবিক মানুষদের হয়ত ভালো লাগবে। কে বলতে পারে।

হ্যাঁ, আবার বলছি, আমি চাইছিলাম বাংলাদেশ দল জিতুন।
ভারতের দলকে গতকালও সাবাশ জানিয়েছি, আজা আবার জানালাম। কিন্তু আমার আনন্দ হতো বাংলাদেশ দল জিতলে।

Kabir Suman, March 19, 2015:

আমি প্রাণপণে চাইছিলাম বাংলাদেশ দল জিতুন, যা আমি তাঁদের কোনও আন্তর্জাতিক খেলা থাকলে সব সময়ে চাই। বাংলাদেশ দল পারলেন না। ফলে, তাঁরা জিতলে যে আনন্দটা হতো তার জায়গায় বিষাদ। কিন্তু এরই মধ্যে আমি যা বুঝেছি: ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ জন্ম নেয় স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে। তার আগে সেখানে, অর্থাৎ সেকালের পূর্ব পাকিস্তানে ক্রিকেট খেলার চল কতোটা ছিল, কতোটা ব্যাপক অনুশীলন হতো তা আমি ঠিক জানি না। কিন্তু ভারতে ১৯৭১ সালের ঢের আগে থেকে যে পরিমান ও যে মাত্রায় ক্রিকেট চর্চা ও অনুশীলন হতো সেই তুলনায় তা খুবএকটা আগুয়ান ছিল বলে মনে হয় না।

আয়তনে ভারত বিরাট। তার নানান জায়গায় ক্রিকেট চর্চা হয়ে থাকে এবং সেইসব জায়গা থেকে প্রতিভাবান ও কৃতী খেলোয়াড়দের নিয়ে জাতীয় দল গঠন করা হয়ে থাকে। বাংলাদেশ সে-তুলনায় কতো ছোট। ক্রিকেটের সঙ্গে বিত্তের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ। ভারতে সেই প্রিন্সদের আমল থেকে (ব্রিটিশ আমল) ক্রিকেটের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন রাজা রাজড়ারা। তাঁরা খেলতেনও। যেমন মহারাজকুমার অফ বিজয়নাগরম। আর একজন ছিলেন গায়েকওয়াড়। তেমনি আরও কেউ কেউ। বাংলাদেশ কিন্তু আর্থিক দিক দিয়ে বিত্তশালী নয়। অবিভক্ত ভারতে পূর্ববঙ্গ বা পশ্চিমবঙ্গের জমিদাররা ঘটা করে ক্রিকেট খেলতেন, ক্রিকেট চর্চা করতেন, জমিদারনন্দনরা ক্রিকেট অনুশীলন করে নাম করেছিলেন বলে আমি তো জানি না। বরং অবিভক্ত ভারতে যে ক’জন বাঙ্গালি প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলেছিলেন তাঁরা মোটের ওপর মধ্যবিত্ত শ্রেণীরই।

স্বাধীন বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট চর্চা ও অনুশীলন শুরু হয়েছে বেশিদিন আগে না। আয়তনে ছোট এবং কারিগরি শিল্পে ভারতের চেয়ে কম উন্নত, কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশে অল্প সময়ের মধ্যে এই খেলাটিতে যে উন্নতি হয়েছে তা চমকপ্রদ। ক্রিকেটের বিশ্ব ইতিহাসে এর নজির খুব কমই। শ্রীলঙ্কার কথা মনে আসে। আমি অবশ্য বিশেষজ্ঞ নই, নেহাতই মামুলি খবরাখবর রাখি। এখন বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা যে মানের খেলা খেলছেন তাতে আশা জাগে আর কিছু বছরের মধ্যেই বাংলাদেশ ক্রিকেটে আরও ভালো ফল করবে। – বাঙ্গালি হওয়ার দরকার নেই। ভারতের যে-কোনও স্বাভাবিক বোধভাষ্যিসম্পন্ন মানুষ যদি আজকের দিনে একবার কল্পনা করেন যে ভারতের কোনও অঙ্গরাজ্য, যেমন পশ্চিমবঙ্গ বা ওড়িশা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাকি-ভারতের জাতীয় দলের সঙ্গে ম্যাচ খেলছেন তাহলেই তাঁর বুঝতে সুবিধে হবে ব্যাপারটা।

ভারতীয় দল ভালো খেলেছেন এবং জিতেছেন। সাবাশ। তেমনি স্বাধীন বাংলাদেশের বিবর্তনের পথ ধরে আজ ভারতের খেলোয়াড় ও খেলাপ্রেমীরা কল্পনাও করতে পারেন না এমন অবস্থায় (ক্রিকেট খেলার নিরিখে) বাংলাদেশের জাতীয় দল যে খেলা দেখালেন, ভারতের তথা বিশ্বের নির্বাচিত কিছু তুখোড় খেলোয়াড়ের সামনে বুক চিতিয়ে দাঁড়িয়ে নানান চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা করতে যেভাবে সচেষ্ট হলেন তাতে আমি বাঙ্গালি না হলেও তাঁদেরই আলিঙ্গন করতাম, গালে চুমু খেতাম – বিজয়ী ভারতীয় দলকে বারবার করতালি দিয়ে অভিনন্দিত করেও।

রূপকথার আমল হলে রাজকুমারী কিন্তু আজ তাঁর হৃদয় দিতেন বাংলাদেশকে। যদি এমন হতো যে ম্যাচবিজয়ীকেই জীবনসঙ্গী হিসেবে বরমাল্য দিতে সেই রাজকুমারী বাধ্য তাহলে তিনি প্রথা অনুযায়ী সেটাই করতেন, কিন্তু মনে মনে অপেক্ষা করতেন – কবে ‘বাংলাদেশ’-কুমার ঘোড়া ছুটিয়ে আসবেন, কবে সেই কুমার তাঁর বলিষ্ঠ হাত বাড়িয়ে রাজকুমারীকে তুলে নিয়ে পাড়ি দেবেন অজানায়।

আজকের দিনটা শেষ হয়ে এলো ব’লে। বাংলার ধূসর গোধূলি নেমে আসছে। জীবনসায়াহ্নে এই ধূসরিমা বিষন্নবিধুর। তাও আমি কল্পনা করে আনন্দ পাচ্ছি – গ্যালপ করছে ঝিকমিকে কালো তেজি ঘোড়া। লাগাম হাতে বাংলাদেশ-কুমার ঘোড়া ছোটাচ্ছেন। তাঁর কোমর জড়িয়ে ধরে তাঁর পিঠে মুখ রেখে সদ্যমুক্ত রাজকুমারী স্বপ্ন দেখছেন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s