Shahbagh: For fiery sisters

© BdNews24.com

© BdNews24.com

We easily forget the names of Kalpana Datta, Shanti Ghose, Shuniti Chowdhury, Beena Das, Leela Rai, Nanibala Devi, Du’Koribala Devi, Matangini Hajra and names of many other revolutionary women who played active roles in the fight for independence against the British. Even if the name of Ila Mitra, the legendary female leader of the Santal revolt at Nachol, comes up occasionally, we never recall the women of the then Muslim League who played active and important roles in the language movement of 1952.

For the Fiery Sisters

by Umme Raihana
[Combined from two translations by Tibra Ali & Zerin Rahman]

Shahbag experience 1:
The street theater was going on. My friend Saiful looked at the audience and began – “What is it that we demand? We want to hang Kader! What do we need to hang him? Don’t you have gamchas (a gamcha is cloth towel typically used to wipe off perspiration) on your shoulder? Or Chaddor (A large piece of cloth to cover the upper body)? Don’t the mother and sisters have their ornas (an orna is a long piece of cloth that is used to cover a woman’s bosom over their usual clothing)?”

He suddenly stopped as he was saying this, and as soon as he said “sorry”, another woman and I threw him our own ornas. From amongst the audience were then collected volunteers to play the labourers, that is, the extras for the background for the street play, who were to make the rope for the noose. I was one of these extras. As we stood there without our ornas rolling the rope, we chanted in chorus: “Roll, roll, roll the rope! The rope for the hangman! The rope to hang the Butcher Kader. Roll, roll, roll the rope!”

My point in sharing this spontaneous story at Shahbag is to illustrate the incredible environment of sisterhood created in Shahbag.  Whether one is fifteen or fifty-five, whether you wear a hijab or leggings, as a woman one will not find herself in harm’s way amongst the Shahbag masses. There is a strong spirit of recognition amongst those present that we too – us women – are warriors at Shahbag.

For two weeks now there have been non-stop protests going on at Shahbag square of Dhaka, Bangladesh, demanding appropriate punishments for the war-criminals of 1971. Taking part in these protests, from the city and beyond, are both women and men from all levels of society. Those who aren’t able to take part have expressed their identification with the aims of this movement. The movement is no longer limited to just demanding the death-penalty of one Kader Molla; It has gained a lot by expanding its demands to banning Jamaat-e-Islam (the extremist Islamic party that has harboured war-criminals) and Shibir (the militant student wing of the same party) from politics, and the closure of business interests owned by Jamaat. Events have resulted in the brutal murder of the blogger Rajib Haidar, affiliated with the movement. Despite his anti-Jamaat stance and his atheistic position, the rows upon rows of people who had gathered to attend his Janaja (the Islamic ritual prayer to honour the dead) extended from Shabag square to the the Arts Institute.

At one point in the movement, Chhatro Union member Lucky Akter and  a few other  female members from multiple student unions were tagged “Agni-Konna” or Firebrand Women by leading Bangladeshi media outlets. Their uninterrupted physical occupation of Shahbag, tirelessly creating and sustaining motivating slogans for the crowd was instrumental in calling more people to action at Shahbag – a turning point in making Shahbag a success. The Agni-Konna’s call notwithstanding, the particular female demographic at Shahbag masses defy any particular stereotype of age-gender-profession. From a strictly class perspective, most of those assembled women fall squarely in the middle class category, ranging in professions from students-teachers- white collar workers- and housewives. None of their presence can be trivialized.

The visible presence of women in this movement is not consistent with the usual place of women in this country. In a country where the patriarchal system routinely tries to minimize sexual assault on women by labeling it as “eve-teasing”, where on street-corners you see signs saying “no honking, no smoking and no eve-teasing” or where the mass-media routinely broadcasts news, dramas, movies or commercials loaded with male-dominated sexist content, all in the name of society, it is amazing to see so many women spontaneously turning up to take part in such a large rally!

The reason for women’s consistent presence Shahbag explored further brings to light some pertinent points. Shahbag has defied pundits as the movement  has survived and thrived without any mentionable incident of sexual harassment. Does that mean there are no rapists or sexual predators lurking amongst the assembled mass of humanity at Shahbag? Or are they staying away fearing the vocal wrath of the Agni-Konna’s? It should not be forgotten that rapists and sexual predators do not belong to any particular race or group, and as such they cannot disappear completely from the scene. The rapists and sexual predators still exist amongst the Agni-Konnas fathers, brothers, friends, lovers, and husbands. So what then is the reason for their passivity at Shahbag?

In the slogans that are being chanted frequently at Shahbag, in the songs that are being sung, the place of women is more prominent than the real women who are present there. Rape is a war-crime. Yet, rape is something that is rarely discussed in this country; “The freedom of Bangladesh has been achieved at the price of three million lives and the loss of the honour/ izzat  (an Urdu word meaning honour that has Islamic connotations)/ ultimate sacrifice/ self-sacrifice of three hundred thousand mothers and sisters” goes the usual narrative. We are even ready to make a flag out of the saree (the traditional long piece of cloth worn by the women of Bangladesh) of a raped sister. But in reality the raped woman can no longer be our sister. Rather, her place is at the lowest rung of our society. Yet we claimed to have “honoured” these same women who were raped in the war. The country is so frequently equated to the mother that it is a topic that doesn’t need to be mentioned. Yet, we don’t often discuss the topic of raped mothers as often as that of raped sisters- just as the topic of war children is almost never mentioned.

The relationship between the absence of sexual assaults on the women present and the presence of “sisters” and “mothers” in the slogans and the songs that are being uttered and sang frequently at Shahbag, is very clear. Historically these familial relationships have been used to create desexualized images of women. It becomes necessary to desexualize women because the main images of women in our society are sexual. From presenting women as commodities on bill-boards to presenting one’s own daughter (who is a woman after all) to the family of a prospective groom in the drawing room, the image of a woman that is active is a sexual one.

The need for a desexualized construct of women is easily understood from history. The first reason is the result of man’s worship of the ancient and original religious power (who was a goddess) long ago in this part of the world. Secondly, in the construction of the nation state, the idea of the “mother” is much more powerful than any other common factors (such as religion, race or language), and so there is much more continuity in the usage of this idea.

To sexualize/ desexualize women, or to make them into commodities/ objects/ activists/ sacred beings/ mothers/ sisters etc., to bring them out into the open or send them back into the home, to allow or deny them access to education, whenever the need arises, these are all long-established and often used tricks of the patriarchal society. Therefore, it is not entirely untrue to that the idea of “the motherland” is a convenient and expedient concept. The flag made out of the saree of a raped sister is similarly an overly emotive and deceptive piece of narrative. From the “restitution” of the raped women right after the war of 1971 to the usage of the term Birangana (which roughly translates to “war heroine”, which is yet another desexualized image) instead of “rape victims” today, are evidences of this fact. These labels and sentiments are in conflict with the idea of the woman as a whole.

But the mass-awakening of Shahbag gives us a reason to ally with these constructs, because as a result, it allows women to come out of the home and participate in the movement calling for the trial of the war-criminals. To a certain degree these desexualized constructs have been helpful in creating the female friendly atmosphere at Shahbag. Besides, the primary objectives of the movement are bringing to justice the war-criminals, the destruction of Jamaat-e-Islam, and bringing to justice the murders of Rajib. It is not the time to evaluate how much the idea of womanhood is being sacrificed in the construction of a national identity. However, at the same time we need to keep in mind that reinforcing the constructs which support these mother-earth-nation or mother-Mecca-Medina equivalences are ultimately misleading and destructive. On one hand, these ideas desexualize women by turning them into “mothers”, but by the same same token, by turing the country into “mother”, they reinforce the patriarchal narrative by transforming the invading plundering class into rapists.

However, it would be a mistake to think that the only factor protecting women amidst the mass-movement of Shahbag is this process of desexualization. These firebrand girls have always existed amongst us. Because we are so used to forgetting and minimizing the role that women have played in every revolution in every age, we struggle to remember the heroics of a Pritilata. We easily forget the names of Kalpana Datta, Shanti Ghose, Shuniti Chowdhury, Beena Das, Leela Rai, Nanibala Devi, Du’Koribala Devi, Matangini Hajra and names of many other revolutionary women who played active roles in the fight for independence against the British. We fail to keep in mind the contributions by the female labour leaders such as Dukhumot Bibi or Shantoshkumari Devi. Even if the name of Ila Mitra, the legendary female leader of the Santal (one of the non-Bengali ethnic indigenous people) revolt at Nachol, comes up occasionally, we never recall the women of the then Muslim League who played active and important roles in the language movement of 1952.

Still, in the traditional narrative of the war of liberation of 1971, the women remain “raped” mothers-sisters, someone to be pitied; In our minds they are stuck in the image of “victims”, carrying the label of Birangana. We never recall the names of those women who were active as freedom fighters or Muktijoddhas, women such as Rezina Ansaree, Alamtaz Begum, Nazia Osman Chowdhury, Shapna Datta Chowdhury, Sakhina Begum, Roshenara Begum, Asahlata Baidya, Zinnat Ara, Karuna Begum, Mirasi Begum, Amena Azaad, Joygun Bibi, Mohosena Begum – and many other female freedom fighters we neglect to recall. Amongst the women whose regular performance of patriotic songs and poetry on the Shadheen Bangla Betar (The radio of free Bengal was the radio station based in India that broadcast to the war-time Bangladesh of 1971) inspired the people of this country to dream of freedom are the names of Bulbul Mohalnobish, Nazneed Neena, Rupa Farhad, Flora Ahmed, Manjula Dasgupta, Ivy Rahman, Kulsum Asad, Dipti Lohani, Shaokat Ara Aziz, Bashona Gun, Parveen Akhtar, Ratna Ghoshal and others. Amongst those who formed the singing troops roaming the freedom-fighters’ camps during the war were Lubna Mariam, Nasheed Kamal and many, many others.

Post-the liberation war, during the mass uprisings of the nineties, during the anti-rape campaigns at Jahangir Nagar University in 1997, during the 2001 demonstration at the Shamshun Nahar Hall (One of the historical and famous dormitories for women who come to at Dhaka University from outside Dhaka) of Dhaka University – at each of these events women have played a vital and important role, and thus is can safely be concluded that the presence of women in revolutions in this country is not a new or isolated event.

Shahbag experience 2:

I myself don’t subscribe to any particular religion. But that doesn’t mean that I believe in attacking others’ religious beliefs. I tend to prefer the terms believer/non-believer over theist/atheist. This is a conscious choice on my part; Although the meanings of these words may be the same, their presentation is different. Instead of dwelling on whether it was correct to hold a janaza for blogger Rajib Haidar, or whether it was respectful to his memory or not, I turned up to attend his janaza. On my way there I was shooed by people at several places. Disregarding the “Don’t come here, there’s a janaza in progress!” admonishments (The janaza is traditionally attended only by men, unless a special and separate room is available for women), I managed to reach a group which consisted entirely of women.   This was explained by the fact that the group’s men have all gone to take part in the janaza. While the janaza was in progress, we all stood around in silence. Afterwards, however, Rebecca Neela told us of her bitter experience. There were aggressive men who wanted her to move because of the janaza and, although she didn’t get into an argument with them, she had stood her ground. Her logic was – “We have been here demonstrating here for all these weeks, we can’t just “vanish” now.”

If we look into history, we see that most of the early converts to a new religion were women. Everyone is familiar with the stories related to the first female converts to Islam and Buddhism. Women are more likely to show interest in converting to a new religion precisely because they are the most likely victims of the current dominant religion- this is a very plausible thesis. However, in most dominant religions women are also the ones who tend to adhere most strictly to all the rules and regulations. They are known to be more religious. On the other hand, women have always played a leading role in helping society advance by pushing traditional religious boundaries by putting forward new interpretations and analyses of religions. In resisting the subjugation of women in the name of religion, the women activists of the anti-Shibir movement of Jahangir Nagar University have held up this role.

The women activists of Shahbag are nothing different from them. I don’t think you can ever find a woman who supports marauding, murder or rape in the name of religion, whether she is a believer or a non-believer. Already, there are smear campaigns to besmirch the reputations of the women activists of Shahbag. There is absolutely no truth in the dirty and nasty rumours that are being spread by the forces of communalism, all using modern information technology. These religious bigots are simply using the ancient methods of insulting, attacking, slandering and smearing women. The constant presence of women at Shahbag therefore is proof of the fact that people who believe in intellectual openness and freedom are actively resisting this propaganda.

After the destructive rampage perpetrated by Jamaat and Shibir on Friday, Shabag has awakened again! Naturally, there is a significant female presence there. Braving the chaos, bullets, knives, rallies by the religious militia, the fearless and firebrand women of Bangladesh have come out again alongside their men. In times like these the safety of women is usually such a rare thing that the spectacle of Shahbag really amazes!

Inherent in the presence of the women who are activist there or who have come out to show their support for the Shahgab movement is the possibility to build a strong, country-wide anti-rape movement. Just as Shahbag has questioned the very existence of Jamaat by forcing the realization that the death-penalty of one Kader Molla is not a solution – in the same way, Shahbag has the potential to force the realization that it is not the trial of individual rapists that is the solution but that we must question the systems of our rape-obsessed state and society that seem to have become a factory of churning out rapists and sexual predators.

Let the journey begin. This path will be a hard one. To shun the imposition of the goddess idea, or to construct a “desexualized” image of the motherland. The demand for the death-penalty of the rapist will not cover up the bill-boards that parade the bodies of women. The mass media doesn’t work like that. For aeons the patriarchal system have pulled women out of homes when it saw the need, only to push them back once the need was over. Now that we have come out let us never go back.

For women, for the safely of the future generations, let the fight go on!

Umme Raihana: post-graduate student of the department of mass-communications and journalism.

শাহবাগ ২০১৩: জ্বলন্ত অগ্নির সহোদরা

.  উম্মে রায়হানা

শাহবাগ অভিজ্ঞতা ১
প্রাচ্যনাটের পথনাটক চলছিল। বন্ধু সাইফুল দর্শকদের দিকে লক্ষ্য করে শুরু করলেন- ‘আমরা কী চাই? কাদেরের ফাঁসি। ফাঁসি দিতে হইলে কী লাগব? আপনাদের ঘাড়ে গামছা আছে না? চাদর আছে না? মা-বইনদের ওড়না আছে না?’ বলতে বলতে থেমে গিয়ে ‘সরি’ বলতেই আমি আর আরেক নারী ওর দিকে গায়ের ওড়না ছুঁড়ে দিলাম। দর্শকদের মধ্যে থেকে জোগার করা হল দড়ি পাকানোর শ্রমিক অর্থাৎ ব্যাকগ্রাউন্ড আর্টিস্ট। তাদের মধ্যে আমিও একজন। ওড়না ছাড়াই পুরো সময় দাঁড়িয়ে দড়ি পাকাতে পাকাতে কোরাসে গলা মেলালাম- ‘পাকা রে পাকা রে পাকা, দড়ি পাকা, কসাই কাদেরের ফাঁসি হবে, দড়ি পাকা কইষা।’ এ গল্প বলার কারণ হল শাহবাগে এক অভূতপূর্ব নারীবান্ধব পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। আপনার বয়স ১৫ হোক বা ৫৫, আপনার পোশাক হিজাব হোক বা লেগ ইনস– নারী হিসেবে আপনি কোনোরকম নিগ্রহের শিকার হবেন না। কারণ আপনিও যে একজন যোদ্ধা।

ঢাকার শাহবাগে দু’সপ্তাহ ধরে চলছে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের যথাযথ শাস্তির দাবিতে অবিরাম আন্দোলন। এতে সামিল হয়েছেন শহর ও শহরের বাইরের সর্বস্তরের নারী ও পুরুষ। যারা উপস্থিত হতে পারেননি তারা সংহতি জানিয়েছেন। একজন কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবিতে এখন এ আন্দোলন সীমাবদ্ধ নেই। জামায়াতে ইসলামী ও শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, জামায়াতি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বন্ধের দাবিসহ আন্দোলনের অর্জন অনেক। ব্লগার রাজীব হায়দারের নৃশংস হত্যাকাণ্ড এ আন্দোলনের কারণে ঘটেছে। তার জামায়াত-বিরোধী, এমনকি নাস্তিক অবস্থান সত্ত্বেও শাহবাগ মোড় থেকে চারুকলা ইন্সটিটিউট পর্যন্ত দীর্ঘ হয়েছে তার জানাজায় সমবেত জনতার সারি।

আন্দোলনের এক পর্যায়ে ছাত্র ইউনিয়ন কর্মী লাকী আক্তারসহ আরও কিছু ছাত্র সংগঠনের নারীকর্মীদের ‘অগ্নিকন্যা’ বলে ঘোষণা করে এদেশের প্রধান গণমাধ্যমগুলো। শাহবাগে তাদের লাগাতার অবস্থান ও শ্লোগান দেওয়া, মানুষকে একাত্ম হওয়ার আহবান জানানো ও সফল হওয়া এ ঘোষণার কারণ। অগ্নিকন্যাদের অবদান মনে রেখেও বলা যায়, তারা ছাড়াও শাহবাগে আছেন বিভিন্ন বয়স ও পেশার বিপুল সংখ্যক নারী। শ্রেণির দিক থেকে এরা প্রধানত মধ্যবিত্ত। পেশায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, চাকুরিজীবী, গৃহিণী। এদের কারও উপস্থিতিই কম গুরুত্বপূর্ণ নয়।

নারীর এ অংশগ্রহণ ও অবস্থান সার্বিকভাবে এ দেশের নারীর অবস্থার সঙ্গে একদমই মেলে না। ইভটিজিং-এর নাম করে যৌন নিপীড়নকে লঘু করে তোলা পুরুষতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা যেখানে রাস্তার মোড়ে মোড়ে লিখে রাখে ‘হর্ন দেওয়া নিষেধ, ধূমপান নিষেধ, ইভটিজিং নিষেধ’ অথবা গণমাধ্যম যখন পুরুষতান্ত্রিক বিষয়বস্তু সম্বলিত সংবাদ, নাটক, সিনেমা, বিজ্ঞাপন প্রচার করে বিনা বাধায়, সমাজের দোহাই দিয়ে- সেখানে এত বড় জমায়েতে নারীর এমন স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ বিস্ময় জাগায় বটে!

এ অংশগ্রহণ ও অবস্থানের কারণ অনুসন্ধান করলে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সামনে আসে। শাহবাগে উল্লেখযোগ্য কোনো যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটেনি। রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে একত্রিত হওয়া মানুষদের মধ্যে কি ধর্ষক-নিপীড়ক নেই? তারা কি শাহবাগের অগ্নিকন্যাদের ভয়ে এখান থেকে শতহস্ত দূরে আছে? মনে রাখতে হবে, ধর্ষক বা যৌন নিপীড়ক বলে আলাদা কোনো জাতি বা দল নেই বলেই তাদের রাতারাতি উধাও হয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। ধর্ষক-নিপীড়করা অগ্নিকন্যাদেরই বাবা, ভাই, বন্ধু, প্রেমিক ও স্বামী। তাহলে তাদের নিষ্ক্রিয়তার কারণ কী?

শাহবাগে যে শ্লোগানগুলো মুহুর্মুহু শোনা যাচ্ছে, যেসব দেশাত্মবোধক গান বেজে চলেছে- সেসবে নারীর স্থান উপস্থিত নারীজাতির প্রতিনিধির চেয়েও ব্যাপক। ধর্ষণ একটি যুদ্ধাপরাধ। এদেশে সেটা কখনও উচ্চারণ করা হয় না। বলা হয়, ‘৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে এবং ৩ লাখ মা-বোনের ইজ্জত/সম্ভ্রম/সর্বোচ্চ ত্যাগ/আত্মত্যাগের বিনিময়ে পাওয়া স্বাধীনতা।’ ধর্ষিত বোনের শাড়ি দিয়ে আমরা পতাকা বানিয়ে ফেলতেও রাজি আছি। কিন্তু ধর্ষিত নারী মাত্রই আমাদের বোন নন। বরং সমাজে ধর্ষিতার স্থান নিম্নতম স্তরে। আবার আমাদের কাছেই যুদ্ধে ধর্ষিতা বোনের ‘সম্মান’ পেয়েছেন। দেশ যে আমাদের মায়ের সমান এ কথা সবসময় এত বেশি বলা হয়েছে যে এ সম্পর্কে নতুন করে আলোচনা অর্থহীন। তবে তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, ধর্ষিত বোনের মতো ধর্ষিত মা কিন্তু এতটা উচারিত নয়- যেমন যুদ্ধশিশু প্রসঙ্গও নয়।

‘মা-বোন’ বিষয়ক গান বা শ্লোগানের সঙ্গে যৌন নিপীড়ন না ঘটার সম্পর্ক খুব পরিষ্কার। ঐতিহাসিকভাবেই এ দুটো সম্পর্ক দিয়ে নারীর ‘অযৌন’ ইমেজ নির্মাণ করা হয়। নারীকে আলাদাভাবে ‘অযৌন’ করে তোলার প্রয়োজন পড়ে। কারণ সমাজের মূল স্রোতে নারীর প্রধান ইমেজ আদতে ‘যৌন’ ইমেজ। সেটা বিলবোর্ডে পণ্য নারী থেকে শুরু করে ড্রইংরুমে নিজ কন্যাকে (যে একজন নারী) পাত্রপক্ষের সামনে প্রদর্শন পর্যন্ত ক্রিয়াশীল থাকে।

এ ‘অযৌন’ নির্মাণের পেছনের কারণগুলোও ইতিহাস বলে দিতে পারে। প্রথমত, এ ভূখণ্ডের মানুষের প্রাচীন ধর্মবিশ্বাসে আদ্যাশক্তির (দেবী) উপাসনার ফলাফল। দ্বিতীয়ত, এ ভূখণ্ডে জাতিরাষ্ট্র উদ্ভবের সময় থেকে ‘জাতি’ ধারণা নির্মাণে সহায়ক শক্তি হিসেবে ‘মা’ ধারণা অন্যান্য সব কমন ফ্যাক্টরের (ধর্ম ,বর্ণ, ভাষা) চেয়ে বেশি শক্তিশালী হওয়ায় এর সর্বোচ্চ ব্যবহার করার ধারাবাহিকতা রয়েছে।

প্রয়োজনমতো নারীকে যৌন/অযৌন করে তোলা, পণ্য/বস্তু/কর্মী/পবিত্র/মা/বোন ইত্যাদি বানিয়ে তোলা, ঘরের বাইরে বের করা ও ঘরে বন্দী করে রাখা, শিক্ষিত করে তোলা ও অশিক্ষিত করে ফেলে রাখা- এসবই পুরুষতান্ত্রিক ব্যবস্থার বহুব্যবহৃত কৌশল। ফলে দেশমাতৃকা একটি উদ্দেশ্যমূলক ধারণা বললে ভুল বলা হয় না। ধর্ষিত বোনের শাড়ি দিয়ে তৈরি পতাকাও একটি অতি আবেগপ্রসূত প্রতারণামূলক বয়ান। যুদ্ধপরবর্তী সময়ে ধর্ষিতা পুনর্বাসন থেকে শুরু করে এ সময় পর্যন্ত ধর্ষিতা শব্দের বদলে ‘বীরাঙ্গনা’ শব্দের (এটাও নারীর ‘অযৌন’ ইমেজ) নির্মাণ ও প্রয়োগ সে সাক্ষ্যই দেয়। ফলে এ সব বিশেষণ ও আবেগ সার্বিকভাবে নারী ধারণার সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

কিন্তু শাহবাগের গণজাগরণ একভাবে এ নির্মাণের পক্ষে দাঁড়াতে প্রেরণা দেয়। কারণ এর ফলে নারীরা ঘরের বাইরে এসে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে সামিল হতে পারেন। শাহবাগের নারীবান্ধব পরিস্থিতির পেছনে এ ‘অযৌন’ নির্মাণের ভূমিকা কিছুটা হলেও আছে। এছাড়া এখন আন্দোলনের প্রধান ও প্রথম দাবি যুদ্ধাপরাধের বিচার, জামায়াতে ইসলামীর বিনাশ, রাজীবের হত্যাকারীদের বিচার। এ সময় জাতীয়তার চেতনা নির্মাণে নারী কতটা বলি হল বা ব্যবহৃত হল তা হিসেব করার সময় নয়। কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে এটাও মনে রাখতে হবে যে, এর পক্ষে দাঁড়ানো, অর্থাৎ মা-মাটি-দেশ/ মা-মক্কা-মদীনা/ মা–পবিত্রতা ইত্যাদি ধারণা আদতে ক্ষতিকর ও বিভ্রান্তিমূলক। এসব ধারণা একই সঙ্গে নারীকে ‘অযৌন’ করে ‘মা’ করে তোলে, উল্টোদিকে দেশকে মা বানিয়ে (সম্পদ ও সম্মান প্রশ্নে) বহিরাগত লুঠেরা শ্রেণিকে ধর্ষক বানিয়ে পুরুষাধিপত্যবাদী ধারণাকেই সমৃদ্ধ করে।

শাহবাগের গণজাগরণে কেবল নারীর ‘অযৌন’ নির্মাণই ক্রিয়াশীল থেকে নারীকে রক্ষা করছে– এ কথা মনে করলে ভুল ভাবা হবে। আমাদের অগ্নিকন্যারা আমাদের মধ্যে সবসময় ছিলেন। প্রতিটি আন্দোলনে-সংগ্রামে নারীর অবদান ও অংশগ্রহণ সব যুগেই অবহেলিত ও অস্বীকৃত হয়ে আসছে বলে আমরা অনেক কষ্টে প্রীতিলতাকে স্মরণ করি, তা-ও সবসময় নয়। আমরা ভুলে যাই কল্পনা দত্ত, শান্তি ঘোষ, সুনীতি চৌধুরী, বীণা দাস, লীলা রায়, ননীবালা দেবী, দু’কড়িবালা দেবী, মাতঙ্গিনী হাজরা এবং আরও অনেক বিপ্লবী নারীর নাম যারা ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। শ্রমিকনেত্রী সন্তোষকুমারী দেবী, দুখুমত বিবির অবদান আমরা মনে রাখি না। নাচোলের সাঁওতাল বিদ্রোহের কিংবদন্তী নেত্রী ইলা মিত্রের নাম কখনও-সখনও সামনে এলেও ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় তৎকালীন মহিলা মুসলিম লীগের নারীদেরও আমরা স্মরণ করি না।

তবু মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে প্রচলিত বয়ানে নারী সর্বদাই ‘ধর্ষিত’ মা-বোন বা দয়ার পাত্রী হিসেবে হাজির হয়েছেন, শুধু ‘আক্রান্ত’ ইমেজে আটকে গেছেন, বীরাঙ্গনা নাম বহন করেছেন। সক্রিয় মুক্তিযোদ্ধা রোজিনা আনছারী, আলমতাজ বেগম, নাজিয়া ওসমান চৌধুরী, স্বপ্না দত্ত চৌধুরী, সখিনা বেগম, রশেনারা বেগম, আশালতা বৈদ্য, জিন্নাত আরা, করুণা বেগম, মিরাসি বেগম, আমেনা আজাদ, জয়গুন বিবি, মোহসেনা বেগম- এমন আরও অনেক মুক্তিযোদ্ধার নাম আমরা নিই না। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের যেসব গান-কথিকা-কবিতা পাঠে উদ্বুদ্ধ হয়ে এ দেশের মানুষ স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছেন, সে অনুষ্ঠানে যে নারীরা নির্ভীকভাবে অংশ নিয়েছেন তাদের মধ্যে আছেন বুলবুল মহলানবিশ, নাজনীন নীনা, রুপা ফরহাদ, ফ্লোরা আহমেদ, মঞ্জুলা দাশগুপ্ত, আইভি রহমান, কুলসুম আসাদ, দীপ্তি লোহানী, শওকত আরা আজিজ, বাসনা গুণ, পারভীন আখতার, রত্না ঘোষাল প্রমুখ। যুদ্ধক্ষেত্রের বাইরে মুক্তির গান গেয়ে বেরিয়েছেন লুবনা মরিয়ম, নাশিদ কামালসহ আরও অনেকে।

মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে নব্বই-এর গণঅভ্যুত্থান, সাতানব্বইয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণবিরোধী আন্দোলন, ২০০১ এ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হলের আন্দোলন– সব ক্ষেত্রেই নারীর অংশগ্রহণ উল্লেখযোগ্য ছিল। ফলে এটা দাবি করা যায় যে, এদেশের নারীর বিপ্লবী ভূমিকা নতুন বা বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়।


শাহবাগ অভিজ্ঞতা ২

আমি নিজে কোনো বিশেষ ধর্মে বিশ্বাস করি না। তাই বলে অন্যের ধর্মবিশ্বাসে আঘাত করি না। নাস্তিক-আস্তিকের বদলে বিশ্বাসী-অবিশ্বাসী শব্দ দুটো ব্যবহার করি। অর্থ এক হলেও পরিবেশনের দিক দিয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য মনে হওয়ায় এ সচেতন নির্বাচন। ব্লগার রাজীব হায়দারের জানাজা পড়া ঠিক না ভুল, এতে তাকে সম্মান জানানো হয় না অসম্মানিত করা হয়, এ দোটানায় না থেকে হাজির হয়েছিলাম জানাজার জামায়াতে। যদিও আন্দোলনকারীদের সবাই ইসলামে বিশ্বাসী হবেন সেটাও বলা যায় না। দুয়েক জায়গায় তাড়া খেতে হল– ‘ওই দিক দিয়ে যান, এখানে জানাজা চলছে।’ পাত্তা না দিয়ে ফাঁক-ফোকর গলে একটা দলের সঙ্গে গিয়ে জুটলাম যেখানে প্রত্যেকেই নারী। দলের পুরুষেরা জানাজায় শামিল হতে গেছেন বলেই এ নারী-প্রাধান্য। জানাজার সময় আমরা চুপচাপ দাঁড়িয়ে ছিলাম। জানাজা শেষে বন্ধু রেবেকা নীলার তিক্ত অভিজ্ঞতা শুনলাম। তিনি মারমুখী পুরুষদের সঙ্গে ধর্ম নিয়ে তর্কে যাননি কিন্তু দাঁড়িয়েই ছিলেন। ওর যুক্তি ছিল– ‘‘আমরা তো এতদিন ধরে এখানেই আছি। এখন হঠাৎ করে ‘নাই’ হয়ে যেতে পারি না।’’

ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, বেশিরভাগ ধর্ম প্রথম গ্রহণ করেছেন নারীরাই। ইসলাম আর বৌদ্ধ ধর্মমতের গল্প সবাই জানেন। নারীরা প্রচলিত ধর্মে নিপীড়িত হন বলেই নতুন ধর্ম গ্রহণে তাদের মধ্যে আগ্রহ দেখা যায়– এমন অনুমান অসঙ্গত নয়। আবার প্রচলিত সব ধর্মেই দেখা যায়, ধর্মীয় রীতিনীতিগুলো পালন করেন নারীরাই। তারাই বেশি ধর্মপ্রাণ বলে পরিচিত। আবার ধর্মের শৃঙ্খল ভেঙ্গে বেরিয়ে আসতে বা ধর্মের নতুন ব্যখ্যা বিশ্লেষণ করে সমাজকে এগিয়ে নিতেও তারা সবসময় অগ্রণী ভূমিকায় ছিলেন। সমাজে ধর্মের নামে নিপীড়ন রোধে নারীর এ ভূমিকা বহাল রেখেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবিরবিরোধী আন্দোলনের সক্রিয় নারীকর্মীরা।

শাহবাগের নারীকর্মীরাও ব্যতিক্রম নন। ধর্মের নামে লুঠতরাজ-খুন-ধর্ষণের পক্ষে কোনো নারীকে পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না, তা তিনি বিশ্বাসী হোন আর অবিশ্বাসীই হোন। শাহবাগে আন্দোলনরত নারীদের নিয়ে ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে কুৎসা রটনার প্রক্রিয়া। সাম্প্রদায়িক শক্তি তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে যেসব ঘৃণ্য কথাবার্তা প্রচার করছে তার মধ্যে সত্যতার লেশমাত্র নেই। নারীকে অপমান করা, আঘাত করা, কলুষিত ও কলঙ্কিত করার পুরানো পদ্ধতি ব্যবহার করছে ধর্মান্ধ গোষ্ঠী। এসব প্রচারের বিরুদ্ধে মুক্তবুদ্ধির মানুষ কতটা সোচ্চার তার প্রমাণ মেলে শাহবাগে নারীদের অবিরাম উপস্থিতি দেখে।

শুক্রবার দুপুর থেকে সারাদেশে জামায়াত-শিবিরের ব্যাপক নাশকতামুলক কর্মকাণ্ডের পর শাহবাগ পুনরায় জেগে উঠেছে। স্বাভাবিকভাবেই সেখানে নারীর উপস্থিতি ব্যাপক। ভাঙচুর, গোলাগুলি, জঙ্গি মিছিল, দা, চাপাতি কোনো কিছুকেই ভয় না পেয়ে পুরুষদের সঙ্গে আবারও রাজপথে নেমে এসেছেন আমাদের নারীরা, আমাদের অগ্নিকন্যারা। এ সময়ে সার্বিকভাবে নারীর নিরাপত্তা এত দুর্লভ একটি বস্তু যে শাহবাগ কেবল বিস্ময়ই জাগায়।

শাহবাগে আন্দোলনে সক্রিয় এবং সংহতি জানাতে আসা নারীর মধ্যে অমিত সম্ভাবনা রয়েছে দেশজুড়ে একটি শক্ত অবস্থান নিয়ে ধর্ষণবিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলার। একজন কাদের মোল্লার ফাঁসি যেমন কোনো সমাধান নয় বলে জামায়াতে ইসলামীর রাজনৈতিক অবস্থানকেও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে শাহবাগ- তেমনি একজন বিচ্ছিন্ন ধর্ষকের বিচার বা শাস্তি নয়, ধর্ষক তৈরির কারখানা ধর্ষকামী সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থাকেও প্রশ্নবিদ্ধ করা ও পুনর্নির্মাণ করা সম্ভব শাহবাগ থেকেই।

শুরু হোক যাত্রা। এ পথচলা আরও কঠিন। দেশমাতৃকার ‘অযৌন’ নির্মাণ, দেবীত্ব আরোপ ইত্যাদি উপাদান সঙ্গে থাকবে না। নারী শরীর প্রদর্শনকারী বিলবোর্ড কখনওই ঢেকে যাবে না ধর্ষকের ফাঁসির দাবিতে। গণমাধ্যম এভাবে কভারেজ দেবে না। পুরুষতন্ত্র যুগে যুগে প্রয়োজনমতো নারীকে ঘর থেকে টেনে বের করেছে, কাজ ফুরালে ঠেলে ঘরে ঢুকিয়েছে। এবার যেন আমরা আর ঘরে ঢুকে না যাই।

নারীর জন্য, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সংগ্রাম চলতে থাকুক ।

উম্মে রায়হানা : স্নাতকোত্তর, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ।

http://bangla.bdnews24.com/opinion_bn/article594266.bdnews

2 thoughts on “Shahbagh: For fiery sisters

  1. I could not quite figure out whether you were lamenting the lack of recognition for the female members of our society oe whether you were sharing the self defeating trauma of seeking a national identity.
    The drama of Shahbagh was certainly entertaining – but to take jingoism as a portrayal of nationalism is challenging sanity. Despite my disqualification by age to be a Razakar, I suspect my rationality qualifies me to be tagged as a Razakar !
    When you finally grow out of your hangman’s syndrome, I would like to read your thoughts with the sympathy it deserves.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s