Capitalism Exposed, Part 1: Politics-Administration-Media evil nexus

© AFP

© AFP

Captalism Exposed, Savar Tragedy Part 1 (Politics-Administration-Media evil nexus)
by Zia Hassan, Translated from Bengali by Adnan R Amin for AlalODulal.Org
The reason capitalism succeeds worldwide is because it promotes human greed. It sees greed as an essential force and accepts it as internal and core. Whatever is written in the constitution, we are top to bottom, capitalist– naked, ugly, without cover, hungry wolf pack, out of control, shameless capitalist.

We all are to blame for these deaths.

Those who are blaming only the owner of Rana Plaza for the Savar Incident, are just kidding themselves. Those holding only garment-owners responsible are guilty of the same mistake. In truth, the state, all of its machineries, veins and arteries, brain, liver, bones and all else is responsible for the executions. All of us connected to this system – we, who have surrendered to sheer greed – are guilty of this crime.

Today, I will analyze some of the culprits. Very first mention goes to the causal nexus of politicians, bureaucrats and media. These three have successfully institutionalized corruption.

There was a time when politicians, bureaucrats and media nurtured a mutual fear of each other. They maintained a safe distance from each other. But gradually, the three have come together to establish loving harmony. Even in Savar we see, Murad Jung provided political support, the UNO provided administrative help while the police was standing by in case a little legitimate violence was called for. Under the protection of this nexus, Rana annexed the property. And with proceeds from the crime, Rana Tower was built. And the rent from Rana Tower finances Murad Jung’s anti-hartal processions, postering and patronization of cadres/goons. Dig around and you’ll find that it was upon recommendation from Murad Jung that the UNO was appointed and after a chat with the Home Minister that the OC’s transfer was averted. Thugs like Rana never have access to these higher echelons of power.

In an earlier post I wrote that after 40 years of a Culture of Corruption – corruption has been institutionalized over the past five years. Many of my friends criticized me after that.
They were upset that I had implied lower corruption in the previous years. But they misunderstood my post. I never meant corruption-levels were any lower during the BNP or caretaker regimes. My contention was that corruption has been institutionalized in the past five years. Higher or lower corruption and institutionalization of corruption are very different things.

The grand union of politicians and bureaucracy was presided over by none other than MK Alamgir.
In 1996, there was a movement demanding a Caretaker Government system, just like the one taking place now. During that time, a number of secretaries – led by MK Alamgir – ignored the tradition of administrative neutrality to setup the ‘Jonotar Moncho’ (citizens’ platform) and endorsed the Awami League’s demands. This was a revolutionary moment in the history of Bangladeshi administration. I have searched the internet and there has never been precedence in any other country of the world.

Back then, there weren’t this many media (channels) or talk-shows. But the civil society was scathing in its criticism of this involvement. The living proof that they were right lies in the 400 corpses in that heap of rubbles in Savar and in Shahinur’s orphaned child.

MoKha (MK Alamgir) has been rewarded for his obedience: the 400-crore Farmers Bank, ministership, apartments, plots and other unknown riches! But the nation will have to bear the burden of MoKha’s grievous wrong. The unholy union of politicians and the administration reached its height with a flourish of creativity, perseverance and devotion during Awami League’s latest term.

Previously in government corruption, contractors paid a percentage to bureaucrats or politicians in order to get the contract. What happens now is bureaucrats and politicians get together to agree on a contract value. Then they divide the value amongst themselves, call in contractors and ask for the lowest possible price.
They then negotiate with the contractor. Which is why, you’ll see all government contracts go to some politician’s company and is actually implemented by a professional contractor. Contract for the flyover that collapsed in Bahaddar Hat, Chittagong – had gone to the late, once-famous student leader Jahangir Sattar Tuku. A professional developer had implemented the project.

This term, the media pledged it allegiance to the government – completing the tripartite nexus. There was also a holistic acceptance of corruption in the society. These are the two specific reasons I have stated that the institutionalization of corruption is now complete.
This time around, a key feature of Sheikh Hasina’s government has been visible state patronage for bureaucrats and the Corrupt. Previously, their actions had been implicitly condoned. Because things would’ve heated up – had this been revealed. But this BAL term, such matters were out in the open. To bureaucrats accused of corruption during the last Caretaker Government – the Head of the Government said ‘you have been persecuted ; go ahead with your work’. They have been promoted too. They have been given the clear impression that they would be protected by the government. Unleash your greed.

With patronage from the top-levels of the government, politicians, bureaucrats and officers had formed an alliance and usurped state resources and annexed citizens’ property. But there had been something missing: that is the media.
To acquire media’s acquiescence – the Awami League (BAL) government used its culture capital of ‘Bangalee-ism’ and the moral high-ground of ‘on the side of liberation forces’. BAL’s trusted intellectuals take on the role of armed muscle in this encroachment of the media. Still those who refused to acquiesce, have been pressurized in different ways. News dailies like the ‘Prothom Alo’, which gained popularity by launching a Jihad against corruption, were silent during this term. Apart from the Padma Bridge case, Prothom Alo’s role in preventing corruption was pitiable: not a single minister’s corruption was exposed. They didn’t even bother to follow-up news printed by other newspapers. And (in Bangladesh), it’s really not news until Prothom Alo covers it.
My deduction is that Prothom Alo has been tamed – through the manipulation of the business interests of Transcom Group (parent company). The government has put fear into the minds of Transcom, ‘if you cross your limits, your business will disintegrate’. Transcom could not bring itself to risk the fall of its empire worth thousands of crores of Takas.
Plus, most of the media has lost its moral strength after colluding with politicians to partake in the politicians’ corruption machinery. Therefore, Bangladesh’s 70-years’ tradition of activism against corruption was absent during this term. That is also why, even after the APS was nabbed red-handed with 70 lacs Taka and after there was direct proof, Suranjit is still a minister.

Having been procured by politicians and the administrations, media professionals too – in a spirit of ‘when in Rome, do as the Romans do’ – joined hands with the corrupt officials to complete the tripartite alliance and became an important part of corruption. The civil society that had taken action against corruption during the Caretaker Government’s term, embraced a silent defeat after witnessing this institutionalization of corruption. And thus, a tolerance/acceptance for corruption developed in society.
Defeated in battle, hapless and maimed – the conscious citizens of the society then geared up to resort to corruption in their own domains. One would begin a race to deceive another and ensure his own survival. He saw that his values had no worth. This is the ugly face of capitalism: survival of the fittest.
Money becomes the biggest source of power. Money becomes the all-encompassing, all-controlling. Morals, ethics, humanity and all such values cease to have a place in society.
Previously, the common people would look down upon corruption. Newspapers did not spare a single corrupt official. But all that has changed. Now, corruption has found acceptance. And during this present time, corruption found a level of acceptance in the psyche of the common people. There was a time when daughters would never be married to a corrupt family or individual. But this too has changed in most families. Now the father of the bride himself says, ‘(groom) works in the government. He’ll lose his job if he doesn’t take bribes! It’s nothing, really! And how is he supposed to take care of his family? What great salary does he get?’

When society accepts corruptions, then it has to be said that corruption has been institutionalized.
Now many will say, ‘so you want to say the Awami League is responsible for all this? Everyone else who came before were blameless? You must be very anti-Awami League!’
Please don’t get me wrong. All I’ve said is that this attempt had been ongoing throughout the past 40 years. All that I’ve said here, had been there all those years. But, in the last five years, the glorious unification of the tripartite nexus just took corruption to new heights through collusion of the media. Besides, the Corrupt belong to no parties. They become Awami Leaguers during BAL’s term, and BNP supporters, in BNP’s term. If a third-force were to emerge, the Corrupt would support them too.

So, why take this roundabout way to arrive at the topic of Savar? It’s because, institutionalization of corruption has led to it being integrated into the work of the 14 government agencies which issue license permits. They will take bribes whether there’s safety or not. So naturally, industry owners figure – if money must be spent, why should I have to pay? For example, generators had been installed in five floors of the Rana Plaza. This is simple to observe. It should be obvious in any factory-inspection. And it shouldn’t qualify for environmental certification. I know of no buildings in Bangladesh where generators have been hoisted to five floors! But Rana and Murad Jung have made it possible through their influence. There just was no one to check their unbridled greed.
If you pay attention: when a crack was discovered in a column of the building, who came to certify (its safety)? The UNO (district executive officer)! The UNO came and assured everyone that nothing was going to happen to the building. A UNO is the highest administrative officer in a union. There’s little anyone can say after he has spoken.
Another thing: the corruption in our power sector is the reason why every other building in Dhaka needs to install its own generator.
In 1993, our total power generation was 4000 MW. In 2013, we have reached 6000 or 7000 MW. During the same time-period, Vietnam went from 3000 MW to 15000 MW (at present). Why can’t we do what they can? The answer: corruption. If there wasn’t corruption, we would have power. If we had adequate power, no generators would be needed at Rana Plaza. And without generators, the entire building wouldn’t have come crashing down. Shahana – after living for 110 hours – would not have to die in the flames of anger, shame and grief, fretting over the future of her toddler.

Everything is connected. Everything, connected.
You may call it failure of the administration, bad governance. But I say this is the built-in Greed of the capitalist system: the very Greed that forms the basis of capitalism. The ugly system we have setup without even attempting to check Greed.

Rana Plaza did not collapse under the weight of columns or concrete. It imploded under the burden of the boundless Greed of capitalism.
If you said it was garments-owners’ greed that brought it down – you would be wrong. This Greed is mine, yours, your brother’s, your father’s, everyone’s. we, the nation, have embraced this culture of greed and avarice. And only one issue remains before you and I: survival of the fittest. The only measure of ‘fit’ is money. Ours is now a society of profit and greed. It’s a dog-eat-dog world. Everyone wants 100% – but without spending a single buck.
How can we speak of garment artists? We who pay 600 takas to domestic workers after making them toil 24/7.
This culture of greed, this cut-throat competition, this I-want-all -you-got-or-else – cannot be escaped without profound soul-searching. In the second part, we will see how hopes of super-normal profits have joined hands with systemic greed. And how this industry is flourishing without any sense of ethics or morals and solely on the basis of ‘maximum profits’. Where humanity and workers-rights are ritual sacrifices.

Coming up in the second part: Capitalism Exposed, Part 2: 2006 Labor Law & Third Party Contracts.

ক্যাপিটালিজম এক্সপোজড -সাভার ট্রাজেডি পার্ট ১- রাজনীতিবিদ -প্রশাসন-মিডিয়ার ইভিল নেক্সাস


বিশ্বব্যাপী ক্যাপিটালিজম এর সাফল্যের প্রধান কারণ হচ্ছে ক্যাপিটালিজম মানুষের  লোভ কে  প্রমোট করে। এবং ঐ লোভটাকেই একটা প্রয়োজনীয় শক্তি হিসেবে দেখায় এবং  ঐটাকে আপনার অর্ন্তনিহিত, বৈশিষ্ট্য বলে স্বীকৃতি দেয়। সংবিধানে যাই লেখা থাকুক,  আমরা আগা, পাশ তলা পুঁজিবাদ- নগ্ন কদর্য আভরণহীন, ক্ষুধার্ত  নেকড়ের দলের মত নিয়ন্ত্রণহীণ- নির্লজ্জ পুঁজিবাদ।  সাভারের রানা প্লাজায়, এখন পর্যন্ত জানা ৪০০ মানুষের মৃত্যুতে,  পুঁজিবাদের ওই কদর্য রূপটাই পরিস্ফুট হয়ে ওঠে।

আপনি সবাই  এই হত্যার দোষে দায়ী।

সাভারের ঘটনায় যারা যারা রানা প্লাজার মালিক রানাকেই শুধু  দায়ী করছেন, তারা নিজেদের সাথে ছলনা করছেন। যারা শুধু পোশাক মালিকদেরকে দায়ী করছেন একই আত্ম প্রতারণা করছেন। বাস্তবে আমরা পুরো বাংলাদেশ রাষ্ট্র, আমাদের কড়ি-কব্জা, শিরা-উপশিরা, ব্রেইন, কলিজা, হাড্ডি সব কিছুসহ এই পুরো সিস্টেম এই হত্যাকাণ্ডের জন্যে দায়ী। এই সিস্টেমের সাথে জড়িত আমরা সবাই – যারা এই লোভের কাছে আত্ম সমর্পণ করেছি- এই  হত্যার দোষে দায়ী।


আমি আজ কিছু কালপ্রিটদেরকে বিশ্লেষণ করবো। সবার আগে আসবে এই সীমাহীন লোভ এর প্রধান পক্ষ- রাজনীতিবিদ, প্রশাসন এবং মিডিয়ার দুষ্ট চক্র।  যাদের হাতে  জন্ম নিয়েছে  ইনস্টিটিউশনালাইজড করাপশন । 
একটা  সময় ছিল। সরকার  কর্মচারী এবং রাজনীতিবিদেরা  এক জন আরেক জনকে ভয় পেত এবং নিরাপদ দূরত্ব মেইনটেইন করতো। এই দূরত্ব ধীরে ধীরে কমে এসে, তিন পক্ষ সম্মিলিত হয়ে, এখন এক অপূর্ব সম্প্রীতি এস্টাবলিশ হইছে। সাভারেও আমরা দেখি, মুরাদ জং দিছে রাজনৈতিক সাপোর্ট, ইউএনও দিছে প্রশাসনিক সাপোর্ট,  ঠেঙ্গানির জন্যে ছিল পুলিশ- এবং এদের সাপোর্ট দিয়ে রানা করেছে  ভূমি দখল। সেই ভুমি দখলের টাকায় হইছে, রানা টাওয়ার। এবং সেই রানা টাওয়ার এর ভাড়ায় চলে হরতাল মুরাদ জং এর হরতাল বিরোধী মিছিল এবং পোস্টারিং বা ক্যাডারদের খরচ ।  খোঁজ নিয়ে দেখেন, এই  ইউএনওর নিয়োগ দিতে স্থানীয় সরকার এ সুপারিশ করছে মুরাদ জং,  এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সাথে  কথা বলে মুরাদ জং  ঐ থানার ওসির ট্রান্সফার ঠেকাইছে। কারন, রানাদের মত ক্যাডার দের এই লেভেল এ এক্সেস থাকেনা। 

আমি একটা পোস্ট এ লিখেছিলাম,গত ৪০ বছরে দুর্নীতির সাংস্কৃতিক চর্চার পর, গত পাঁচ বছরে দুর্নীতির ইনস্টিটিউশনালাইজেশান  হইছে। এরপর বেশ কিছু বন্ধু  আমার সমালোচনা করছে। তাদের ক্ষোভ, আমি কেমনে মিন করলাম যে , তার আগের বছর গুলোতে দুর্নীতি কম হয়েছে। আমার পোস্টটা তারা ভুল বুঝেছেন, কারণ আমি কোন মতেই মিন করিনাই যে তার আগের বছর গুলোতে বি এন পি বা তত্ত্বাবধায়কের আমলে  দুর্নীতি কম হইছে। আমার পয়েন্টটা হইলো, গত পাঁচ বছরে দুর্নীতির ইনস্টিটিউশনালাইজেশন হইছে। দুর্নীতি কমা বাড়া বা দুর্নীতিয়ের ইন্সটিটিউশানালাইজ হওয়া আলাদা জিনিষ।

রাজনীতিবিদ আর প্রশাসনের এই মহা সম্মিলনের সূচনা হয়েছিল, ঐ মখা  আলমগীরের  হাত ধরেই।
 ১৯৯৬ সালে, ঠিক বর্তমানের মত তত্ত্বাবধায়ক সরকারে আন্দোলনের সময় মহিউদ্দীন খান আলমগিরের নেতৃত্বে অনেক গুলো সচিব প্রশাসনের নিউট্রালিটিকে ডিনাই করে তৈরি করে  জনতার মঞ্চ করে এবং আওয়ামী লীগের দাবির প্রতি সম্মতি দেয়। বাংলাদেশের প্রশাসনের ইতিহাসে সেইটা একটা যুগান্তকারী ঘটনা। এবং আমি নেট সার্চ করে দেখছি, প্রথিবীর আর কোন দেশে এই রকম প্রিসিডেন্স নাই। 
তখন এতো টকশো আর মিডিয়া ছিলনা। কিন্তু সচেতন মানুষেরা এইটার প্রচণ্ড সমালোচনা করেছিলেন। তাদের সমালোচনা যে সঠিক ছিলো তার চাক্ষুষ প্রমাণ আজ সাভারের ধসে পড়া ভবনে ৪০০ টি লাশ এবং  শাহিনুর এর  অনাথ সন্তান। 
মখা তার আনুগত্যের পুরস্কার পেয়ছেন। ৪০০ কোটি টাকার ফার্মার্স ব্যাংক, বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রিত্বসহ ফ্লাট, প্লট, আর জানা না জানা কত সম্পদ। কিন্তু,এই জাতিকে যুগে যুগে মখার এই জঘন্য অন্যায়ের দায় টানতে হবে। 
রাজনীতিবিদ দের সাথে প্রশাসনের  যে সম্মিলনের সূচনা করেছিলেন, তা সৃষ্টিশীলতা, অধ্যবসায় এবং সাধনার অপূর্ব সমন্বয়ে একটা চরম উৎকর্ষতার প্রয়োগ দেখা দেয়, আওয়ামী লীগের এই টার্ম এ।
আগে সরকারি দুর্নীতিতে কনট্রেকটাররা, কন্ট্রাক্ট  পাওয়ার বিনিময়ে একটা পার্সেন্টেজ আমলা বা রাজনীতিবিদদের দিতো। এখন যেটা হয়, তা হলো, আমলা এবং রাজনীতিবিদেরা মিলে পুরো কনট্রাকটর একটা ভ্যালু ঠিক করে এবং এই ভ্যালুটা নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে,কনট্রেকটারকে ডাক দিয়ে বলে, আপনি এই কাজটা মিনিমাম কত টাকায় করবেন।
তারপর তারা কন্ট্রাক্টরের সাথে  নেগোশিয়েট করে। ফলে দেখবেন, এখন সরকারি সব কন্ট্রাক্ট এ, কন্ট্রাক্ট নিছে কোন রাজনীতিবিদ এর কোম্পানি এবং কাজ টা করছে কোন প্রফেশনাল কোম্পানি।   চট্টগ্রামে বহদ্দার হাটে, যে ফ্লাইওভারটা পড়লো, তার কাজ ছিলো চট্টগ্রামে এর  এক কালের  প্রখ্যাত ছাত্রনেতা  প্রয়াত  জাহাঙ্গীর সাত্তার টুকুর কন্ট্রাক্ট। কাজটা  এক্সিকিউট করছিলো একটা প্রফেশনাল ডেভেলপার।

এবং এই টার্ম এ এসে মিডিয়া সরকার এর বশ্যতা স্বীকার করে, এই তিন পক্ষের দুষ্ট চক্র টি সম্পন্ন করে। এবং সমাজে দুর্নীতির ব্যাপারে একটা সামগ্রিক এক্সেপ্টেন্স আসে। এই পারটিকুলার দুইটি বিশিষ্টের অর্জনের কারনেই, দুর্নীতির ইনস্টিটিউশনালাইজেশন সম্পন্ন হইছে বলে বলছি। 

এই টার্ম এ, শেখ হাসিনার সরকারের একটা অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে,  রাষ্ট্রের শীর্ষ পর্যায় থেকে, আমলা এবং দুর্নীতিবাজদের অপেনলি  প্রশ্রয় দেয়া হইছে।তার আগে প্রশ্রয়টা ছিল ইমপ্লিসিট এবং গোপন। এইটা প্রকাশ পেলে হই চই  পরে যেত।  কিন্তু, আওয়ামী লীগ এর এই টার্ম এ বিষয় টা ছিল প্রকাশ্য।  তত্ত্বাবধায়কের আমলে  যেসব  সরকারি আমলারে দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত করা হইছিল,  তাদেরকে সরকার প্রধান  ডাইরেক্টলি ওপেন মিটিং এ বলছে, আপনাদের  উপর অত্যাচার হইছে, আপনারা নির্ভয়ে কাজ করেন। তাদের প্রমোশন ও দেয়া হইছে।   সরকার  ডাইরেক্টলি তাদের ফিলিং দিছে, আমরা আপনাদের প্রটেক্ট করবো  আনলিশ  ইয়োর গ্রিড। 
সরকারের শীর্ষ থেকে এই প্রশ্রয় পেয়ে, রাজনীতিবিদ, আমলা, কর্মচারীরা মিলে একটা এলাইয়েন্স করে রাষ্ট্রীয় সম্পদ দখল করছে, জনগণের সম্পদ লুটপাট করছে। কিন্তু তাদের একটা জিনিস মিসিং ছিলো।সেইটা হইলো মিডিয়া।  
মিডিয়াকে বশ করতে, আওয়ামী লীগ ব্যবহার করে, তার কালচারাল ক্যাপিটাল বাঙ্গালীয়ানা এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির নৈতিক অবস্থান।আওয়ামী লীগ এর পেটোয়া বুদ্ধিজীবীরা এই দখল কাজে আর্মস ক্যাডার এর ভূমিকা নেয়। এবং যারা নত হয় নাই, তাদের উপর  প্রেশার সৃষ্টি করা হইছে বিভিন্য ভাবে ।  প্রথম আলোর মত পত্রিকা যারা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিহাদ এর মত ভূমিকা নিয়ে জনগণ এর মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে, তারা এই টার্ম এ ছিল  নীরব। পদ্মা সেতুর দুর্নীতি বাদে দুর্নীতি প্রতিরোধে প্রথম আলোর ভূমিকা ছিল, ন্যক্কার জনক। একজন মন্ত্রীর দুর্নীতিও  এক্সপোজ করা হয় নাই। এমনকি অন্য পেপারে র যা আসছে, টাও তারা কখনও ফলো আপ করে নাই তারা । প্রথম আলো নিউয না করলে, নিউয নিউয হয়ে উঠে না।  আমার ধারনা প্রথম আলোকে বশ করা হইছে, ট্রান্সকম গ্রুপ এর বিজনেস ইন্টারেস্ট এ হাত দিয়া। সরকার  ট্রান্সকম কে ভয় দেখাইছে, যদি তেড়িবেড়ি কর তো তোমার বিজনেস ধসিয়ে  দিব। ট্রান্সকম তার হায়ার কোটি টাকার বিজনেস এম্পায়ার ভেঙে পরার রিস্ক নেয় নাই।   
তাছাড়া অধিকাংশ মিডিয়া তার নৈতিক শক্তি ও হারাই ফেলছে রাজনীতিবিদদের  সাথে নিজেই এই লুটপাট যন্ত্রের একটা অংশীদার হয়ে পড়ার পর। ফলে দুর্নীতির নিয়ে এক্টিভিজম  যেইটা বাংলাদেশের মিডিয়ার ৭০ বছরের বৈশিষ্ট্য তা এই টার্ম এ ছিল অনুপস্থিত । এই জন্যেই  এপিএস এর হাতে  ৭০ লক্ষ টাকা  ধরা খাওয়ার পরেও, ডাইরেক্ট প্রমান আসার পরেও  সুরঞ্জিত এখনও মন্ত্রী আছে।


কিন্তু রাজনীতিবিদ এবং প্রশাসন, মিডিয়াকে বশ  করার  পর,  রোম এ গিয়ে রোমান হওয়ার মানসিকতা থেকে মিডিয়া কর্মী এবং সাংবাদিকেরাও, রাজিনিতিবিদ এবং প্রশাসনের সাথে যুক্ত হয়ে  দুর্নীতির এই ত্রিপার্টি এলাইয়েন্স সম্পন্ন করে এবং মিডিয়া কর্মী ও সাংবাদিকেরা দুর্নীতির একটা বড় পার্টি হয়ে দাঁড়ায়।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় নাগরিক সমাজ দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে এক্টিভিজম করছিলো তার দুর্নীতির এই প্রাতিষ্ঠানিকিকরন দেখে, নীরবে   পরাজয়  মেনে নেয়। এবং দুর্নীতির এই ত্রিপার্টি এলাইয়েন্সের কাছে বশ্যতা স্বীকার করে । এবং সমাজে দুর্নীতির একটা এক্সেপট্যান্স সৃষ্টি হয়। 
যুদ্ধে পরাজিত, সব হারানো, পঙ্গু যোদ্ধার মত হতাশ হয়ে সচেতন নাগরিক সমাজ নিজেকে  প্রতারিত ভেবে  নিজেরাই  নিজেদের লেভেলে দুর্নীতিবাজ হওয়ার প্রস্তুতি নেয়। এক জন মানুষ আরেক জনকে ঠকিয়ে, তার সার্ভাইভাল নিশ্চিত আর প্রতিযোগিতায় নামে। সে দেখতে পায়, তার ভালুর কোন মুল্য নাই। এইটা কদর্য ক্যাপিটালিজম। সারভাইভাল অফ দা ফিটেস্ট। 
টাকা হয়ে ওঠে সব চেয়ে বড় শক্তি। টাকায় হয়ে ওঠে নিয়ন্তা। নীতি-নৈতিকতা, মানবিকতা বা সব ধরনের ভ্যালু সমাজে অপাংতেয় হয়ে আসে । 
ইতি পূর্বে দুর্নীতিকে সাধারণ মানুষ সমালোচনার দৃষ্টিতে দেখত। পেপার-পত্রিকায় দুর্নীতিবাজদের সামান্যতম প্রশ্রয় দেয়া হতোনা। কিন্তু সেইটা এখন চেঞ্জ হইছে। আমাদের সমাজে দুর্নীতি এখন গ্রহণযোগ্যতা পাইছে। 
এবং এই সময়ে, সমাজে গণ মানুষের ধারণায় দুর্নীতির প্রতি একটা ব্যাপক গ্রহণ যোগ্যতা চলে আসে। একটা সময় ছিলো, দুর্নীতিবাজ জানলে মানুষ মেয়েকে বিয়ে দিত না, কিন্তু অধিকাংশ ফ্যামিলিতে এইটা চেঞ্জ হইছে। এখন মেয়ের বাপ ই বলে ,”  সরকারি কাজ করে, ঘুষ না নিলে তো ওর চাকুরী চলে যাবে। এইটা কোন ব্যাপার না। আর অর সংসার চলবে কেমনে ?  বেতন পায়  বা কয় টাকা ?”

সমাজ যখন দুর্নীতিকে একসেপ্ট করে নিল, তখন দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানীকিকরন হইছে তো বলতে হবেই। 
অনেকে বলবেন, আচ্ছা আপনি বলতে চাচ্ছেন তাহলে আওয়ামী লীগ সব কিছুর জন্যেই দায়ী। আগের সবাই ধুয়া তুলসী পাতা ছিলো। আপনিতো ঘোর আওয়ামী লীগ বিরোধী মানুষ মশাই।প্লিজ ভুল বুঝবেন না। আমি জাস্ট বলছি, এই প্রচেষ্টা গত ৪০ বছর ধরেই চলিতেছিল। এই খানে যা যা বলা হইছে, তার প্রতি টি আগের বছর গুলো তেও ছিল। কিন্তু,  গত পাঁচ বছরে, এই ত্রিপার্টি নেক্সাসের একটা অভূতপূর্ব মিলন দেখা দেয় এবং দুর্নীতির চর্চা এইটা একটা চরম উৎকর্ষতায় পৌঁছায় মূলত মিডিয়াকে বশ করতে পারার কারণে। তাছাড়া যারা দুর্নীতিবাজ তাদের কিন্তু কোন দল নাই।তারা আওয়ামী লীগ এর আমলে আওয়ামী লীগ, বি এন পির আমলে বি এন পি হয়ে যায়। অন্যে কেও আসলে তারা তার পক্ষ ও নিবে।

তো সাভারের কথা বলতে এই গরু রচনা কেন টানলাম। কারণ, দুর্নীতি ইনস্টিটিউশনালাইজ হয়ে যাওয়ার কারণে, আজ যে ১৪ টা সরকারি অধিদপ্তর থেকে লাইসেন্সের পারমিট নিতে হয়ে তাদের কাছে দুর্নীতি তাদের স্বাভাবিক জীবন যাত্রার একটা অংশ হয়ে দাঁড়ায়ছে। সেইফটি থাকলেও, সে টাকা নিবে, না থাকলেও টাকা নিবে। তাহলে শিল্প মালিকরা চিন্তা করে, টাকা যখন দিতেই হবে তাহলে কেন আমি খরচ করবো । ফোর একজামপল, রানা  প্লাজার পাঁচটা ফ্লোরে বসানো হইছে জেনারেটর। এইটাই  একটা সিম্পল অব্জারভেশান । যে কোন ফ্যাক্টরি ইন্সপেকশনে এইটা ধরা পড়ার কথা। এইটা এনভায়রনমেন্ট এর সার্টিফিকেট পাওয়ার কথা না। বাংলাদেশে কোন বিল্ডিংয়ের পাঁচটা ফ্লোর জেনারেটর তোলা হইছে আমার জানা নাই। কিন্তু রানা তার মুরাদ জংএর খুঁটির জোরে সব অসম্ভবকে সম্ভব করছে। তার লোভকে ঠেকানোর মত কেউ ছিলনা।

খেয়াল করে দেখেন। বিল্ডিংটার যখন একটা কলাম ফাটল দেখা দিছে, কে আসছিল সার্টিফিকেট দিতে ? ইউএনও। ইউএনও এসে বলে গেছে যে, বিল্ডিংয়ের কিছু হবেনা। একজন ইউএনও, একটা ইউনিয়নের সর্বোচ্চ প্রশাসনিক কর্মকর্তা। সে বলার পর কিন্তু আর কারও কিছু বলার থাকেনা। 
আরেকটা দিক থেকে দেখেন, আমাদের পাওয়ার সেক্টরে যে দুর্নীতি চলছে, তাই কিন্তু আজ ঢাকা শহরে বিল্ডিংয়ে, বিল্ডিংয়ে নিজস্ব জেনারেটর বসার মূল কারণ।
 ১৯৯৩ সালে আমাদের টোটাল পওয়ার ছিলো ৪০০০ মেগা ওয়াট, এখন ২০১৩ তে আমরা পৌঁছেছি ৬০০০ বা ৭০০০ মেগা ওয়াট এ। একই সময় ভিয়েতনাম  ৩০০০ মেগা ওয়াট থেকে এখন পৌঁছেছে ১৫০০০ মেগা ওয়াট এ। ওরা কেন পারছে , আমরা কেন পারি নাই ? এই দুর্নীতি। ঐই  দুর্নীতি যদি না হতো, তাহলে আমাদের পাওয়ার থাকত। রানা টাওয়ারের ফ্লোরে ফ্লোরে জেনারেটর বসাতে হতো না এবং এই জেনারেটরের ভারে রানা টাওয়ার ধ্বসে  পড়তোনা। সাহানা ১১০ ঘণ্টা, তার অকিঞ্চিৎকর জীবনের প্রদীপটাকে  জ্বালিয়ে রেখে,ক্ষোভে, দুঃখে, লজ্জায়, ঘৃণায়,  শোকে পুড়ে  মরতোনা তার সন্তানের বাকি জীবন কেমনে কাটবে  এই ভীতি বুকে নিয়ে। 
সব কানেক্টেড। সব কানেক্টেড।

একে আপনি বলবেন, প্রশাসনের ব্যর্থতা, কুশাসন। কিন্তু আমি বলব ক্যাপিট্যালিস্ট সিস্টেমের বিল্ট ইন লোভ। যে লোভ হচ্ছে ক্যাপিটালিজমের ভিত্তি। তাকে নিয়ন্ত্রণ না করে যে সিস্টেম আমাদের দেশে বানানো হয়েছে, তার একটা নগ্ন কদর্য রূপ। 

রানা প্লাজা, কলাম বা কনক্রিটের ভারে ভেঙ্গে পরে নাই, ভেঙ্গে পরেছে ক্যাপিটালিজমের বাঁধন হারা কদর্য লোভের ভারে।
আপনি যদি আমারে বলেন, শুধু মাত্র এই বিল্ডিং , গার্মেন্টস এর মালিকের লোভের কারণে ধসে পড়েছে, আপনি ভুল করবেন। এইর লোভ আমার, আপনার, আপনার ভাইয়ের,  আব্বার, দুলা ভাইয়ের সবার। আমরা পুরো জাতি, ক্যাপিটালিজমের লোভের কালচারে ঢুকে পড়ছি।এখন আমার আপনার সবার সামনে একটাই ইসু। তা হইলো সারভাইভাল অফ দা ফিটেস্ট। ফিট হওয়ার এক মাত্র নিক্তি টাকা।  এইটা এখন লাভ আর লোভের সমাজ। যে যার কাছ থেকে যেমনে পারতাছে মারতাছে। সবাই ১০০% চায়, তার বিনিময়ে এক টাকাও দিতে চায়না।
পোশাক শিল্পীদের কথা কি বলবেন, বাসার কাজের লোককে ২৪ ঘণ্টা  খাটায় আমরা ৬০০ টাকা দেই পেটে ভাতে।
এই লোভের সংস্কৃতি,এই মার মার কাট কাট, আমারে সব দে, নইলে ছিল্লা কাইট্টা লবণ লাগাই দিমু সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে  আসতে হলে অনেক বড় সোল সার্চিং করতে হবে।
দ্বিতীয় পর্বে আমরা দেখব, প্রশাসনের এই লোভের সাথে কিভাবে যোগ হয়েছে , সুপার নর্মাল প্রফিট এর আশায় গার্মেন্টস সেক্টরে লোভ। এবং  কিভাবে ইন্ডাস্ট্রিটা সকল ধরনের নীতি-নৈতিকতা বিবর্জিত করে গড়ে উঠছে , ম্যাক্সিমাম প্রফিটের  লোভ এর উপর ভিত্তি করে।  যাতে বলি হচ্ছে মানবতা এবং শ্রমিক এর ন্যায্য অধিকার।  যা আসবে পরবর্তী পর্ব। ক্যাপিটালিজম এক্সপোজড -সাভার ট্রাজেডি পার্ট ২- গারমেন্টস এ লোভ এর বলী শ্রমিকের ন্যুনতম অধিকার 


10 thoughts on “Capitalism Exposed, Part 1: Politics-Administration-Media evil nexus

  1. Dear Bloggers
    Demand for translation of Bengali articles is more than we are able to manage. We have a small group of volunteer bloggers, all holding down full-time, demanding jobs. Can you help us translate some articles to reduce the load on other bloggers?

    We have translated just the first para of Zia Hassan’s article above. Could one of you regular readers translate the rest and post it in comments? We will move your translation to the main body of article, crediting you as translator. Thanks. Solidarity.

  2. @khujeci: am posting a part of this (long) article in a separate comment. Let me know if the translation is up to the mark. If it works for you – I’ll work on the rest. Happy to help.

    • Dear Adnan,
      Excellent translation. We have put it up in the main body of the article, with credit to you as translator.

      Zia has also completed Part 2 of his article. Do you want to translate part of that, or continue translating this one?

    • Adnan vai. a great honor for me to to see you taking all the trouble to translate this. this is a long article and a laborious job. Thanks, mate.

      • Zia bhai – not at all. Thank YOU for writing the piece. I am but an instrument.

  3. [Admin: This translation has been moved into body of post.]
    We all are to blame for these deaths.

    Those who are blaming only the owner of Rana Plaza for the Savar Incident, are just kidding themselves. Those holding only garment-owners responsible are guilty of the same mistake. In truth, the state, all of its machineries, veins and arteries, brain, liver, bones and all else is responsible for the executions. All of us connected to this system – we, who have surrendered to sheer greed – are guilty of this crime.

    Today, I will analyze some of the culprits. Very first mention goes to the causal nexus of politicians, bureaucrats and media. These three have successfully institutionalized corruption.

    There was a time when politicians, bureaucrats and media nurtured a mutual fear of each other. They maintained a safe distance from each other. But gradually, the three have come together to establish loving harmony. Even in Savar we see, Murad Jung provided political support, the UNO provided administrative help while the police was standing by in case a little legitimate violence was called for. Under the protection of this nexus, Rana annexed the property. And with proceeds from the crime, Rana Tower was built. And the rent from Rana Tower finances Murad Jung’s anti-hartal processions, postering and patronization of cadres/goons. Dig around and you’ll find that it was upon recommendation from Murad Jung that the UNO was appointed and after a chat with the Home Minister that the OC’s transfer was averted. Thugs like Rana never have access to these higher echelons of power.

    In an earlier post I wrote that after 40 years of a Culture of Corruption – corruption has been institutionalized over the past five years. Many of my friends criticized me after that.
    They were upset that I had implied lower corruption in the previous years. But they misunderstood my post. I never meant corruption-levels were any lower during the BNP or caretaker regimes. My contention was that corruption has been institutionalized in the past five years. Higher or lower corruption and institutionalization of corruption are very different things.

    The grand union of politicians and bureaucracy was presided over by none other than MK Alamgir.
    In 1996, there was a movement demanding a Caretaker Government system, just like the one taking place now. During that time, a number of secretaries – led by MK Alamgir – ignored the tradition of administrative neutrality to setup the ‘Jonotar Moncho’ (citizens’ platform) and endorsed the Awami League’s demands. This was a revolutionary moment in the history of Bangladeshi administration. I have searched the internet and there has never been precedence in any other country of the world.


    Back then, there weren’t this many media (channels) or talk-shows. But the civil society was scathing in its criticism of this involvement. The living proof that they were right lies in the 400 corpses in that heap of rubbles in Savar and in Shahinur’s orphaned child.
    MoKha (MK Alamgir) has been rewarded for his obedience: the 400-crore Farmers Bank, ministership, apartments, plots and other unknown riches! But the nation will have to bear the burden of MoKha’s grievous wrong. The unholy union of politicians and the administration reached its height with a flourish of creativity, perseverance and devotion during Awami League’s latest term.

    Previously in government corruption, contractors paid a percentage to bureaucrats or politicians in order to get the contract. What happens now is bureaucrats and politicians get together to agree on a contract value. Then they divide the value amongst themselves, call in contractors and ask for the lowest possible price.
    They then negotiate with the contractor. Which is why, you’ll see all government contracts go to some politician’s company and is actually implemented by a professional contractor. Contract for the flyover that collapsed in Bahaddar Hat, Chittagong – had gone to the late, once-famous student leader Jahangir Sattar Tuku. A professional developer had implemented the project.

    This term, the media pledged it allegiance to the government – completing the tripartite nexus. There was also a holistic acceptance of corruption in the society. These are the two specific reasons I have stated that the institutionalization of corruption is now complete.
    This time around, a key feature of Sheikh Hasina’s government has been visible state patronage for bureaucrats and the Corrupt. Previously, their actions had been implicitly condoned. Because things would’ve heated up – had this been revealed. But this BAL term, such matters were out in the open. To bureaucrats accused of corruption during the last Caretaker Government – the Head of the Government said ‘you have been persecuted ; go ahead with your work’. They have been promoted too. They have been given the clear impression that they would be protected by the government. Unleash your greed.

  4. Although I would disagree that something qualitatively changed in the development of the venal nexus of politics, bureaucracy and business, I agree that MK Alamgir’s ‘Janatar Moncho’ in 1996 fundamentally changed bureaucratic tradition. Bureaucracy is now part and parcel of the executive arm of the ruling parties. If this trend continues, soon the who bureaucracy will change with each change in regimes.

    • but this is a no brainer. bsc interview processes at the bottom and OSDification at the top are facts of life. we recolonise colonial civil service architecture, with our two favourite duffer nationalisms.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s