Manosh Chowdhury: India, water control and neighbor rule

India, water control and neighbor rule
by Manosh Chowdhury, translated for AlalODulal.org by Irfan Choudhury

Manosh Chowdhury, Image © Sharat Chowdhury
Manosh Chowdhury © Sharat Chowdhury

1. India’s relationships with its neighbors on land and in water are equally tense and dangerous. In both cases, its neighbours are tormented and there is a lack of discussion/dialogue/analysis of their rights. A dead quietness. However, there is a trend to discuss  water-related issues. Newspapers occasionally feature it — but not without interference.

As a suffering neighbor, Bangladesh’s own discussions and expert technological analysis of its issues are muddled and die in raucous political debate. A relaxed attitude could instantly be termed as ‘pro-Indian’, or even as that of AL’s broker. On the contrary, a confronting approach, regardless of the achievement of anything practical that reduces inequity, could help to provide an impeccable  platform for building anti-AL politics. This constricted practice of opposition in Bangladeshi history, in its politics and culture, whether or nor helpful to the country, has helped to strengthen India’s existence as a powerful neighbour. At least India is not worried by an undivided, albeit weak, country as a political threat. The position of the citizens of Bangladesh, India’s feeble neighbor, is made worse amid nasty AL-BNP bickering.

Relations between India and its neighbors, let’s say with Bangladesh, are seldom discussed, receive no attention. There is a historical context for this. It relates to the creation of two nations – India and Pakistan. The inspiration and processes leading to the formation of these  nations were so bizarrely self-interested that, from the inception,  hostility and hatred have endured — ensuring conflict year after year since independence. Military ambition and the race between the two nations reduced the neighbours to the level of sub-animals. But the irony is in the fact that  Pakistan’s military ambition and preparation have given it a  reputation as a ‘monster’, while India is spared. If  Pakistan’s rulers are responsible for half the credit for this reputation, the other half lies with a world-wide Indian intelligentsia — whose influence, judgments and analysis are globally accepted, inflicting as much monstrosity on Pakistan as possible. I do not mean to say that as a country I really love Pakistan. Rather, I want to point out that Indian intellectuals and analysts play a crucial role in creating such perceptions of Pakistan, and the stature of Pakistanis and Indians is already formulated. One is intertwined with the other. ‘India is a secular state’ versus ‘Pakistan is a Islamist state’; ‘India is cultured’ versus ‘Pakistan is aggressive’; ‘India is an established democracy’ versus ‘Pakistan has been militarily ruled numerous times’ and so on. However India or Pakistan have benefited or suffered adversely by the creation of such dual images, India’s role towards its neighbors has been obscured.

This is why I am among those who believe that to study India’s presence and its strengths in the region requires careful study of other countries’ experience. In order to realise India’s potency and influence, let alone a solution for it,  thorough investigation of the role of a huge pro-Indian intelligent-bourgeoisie and its self-gratification are required.

2. A lion’s share of Bangladeshi identity is made up of rhetoric. Reiteration of ‘sujala sufala shoscho shamala’ like  times tables in our youth, made us oblivious of the gradual dissolution of our forests. It took a long time even to realise that natural forestation is quite insignificant and minimal in the region. Rhetoric and hyperbole are responsible for this. Realisation of the actual circumstances is never evident. Yet I have sometimes thought that rhetoric and eloquence have their place in literature, probably causing little harm, or when appropriately used, manageable effects. However, in political analysis and language we should not tolerate rhetoric. It is used incessantly  in the political arena, its precepts being constantly regenerated. In the end, these are reinforced as powerful ideology and passed on to future generations. A very dangerous practice for a state and a society.

Rhetoric similar to ‘sujala sufala shoscho shamala’ is found in ‘Bangladesh is an agronomical country’ and ‘Bangladesh is a land of rivers’. Both ideas obstruct the understanding of Bangladesh’s current environment, economy and political-economy. The latter is central to today’s topic. Comparing rivers to mothers is appropriate for the livelihood of many Bangladeshis, yet the ‘mother’ which has realised its meaning in defending India has a very different quality and meaning for Bangladesh. But those palaverous discussions are not my real interest. What I want to say is that this rhetoric is extremely archaic. It had meaning until the Mogul period when rivers flowed between  undivided sovereign regions, but it has none at all when they flow between independent nation-states. Ancient rhetoric means very little in the context of today’s river (or ‘mother-river’).

Bangladeshi rivers  today, without  exception, are restrained by other countries’ whims. The water of the rivers is allowed to flow according to the command of another country. Discussions or demands relating to the free flow of river waters are dead amid our political chicanery toward attaining power. Sharing river waters depends not only on the other country’s domestic needs but also on its desire to dominate its neighbor. ‘Mother-river’ rhetoric has to change.

3. The day before yesterday I read in the newspaper that Teesta is dying. Discussion and dialogue on sharing river Teesta’s water has been going on for a while. Since the visit of Indian Prime Minster Manmohan Singh last year it has at least been in focus. Media reports led people to assume that the Indian central government had no keen interest in Teesta; if there were any, it was from Mamata Banerjee, the  Chief Minister of West Bengal. Recently, Teesta gained prime attention in diplomatic intercourse from Bangladesh. Indian dams built on Teesta  cause seasonal droughts in northern Bangladesh. The situation is so dire that apart from overflow during heavy monsoons, regions in Bangladesh are getting no water. These issues are public knowledge. Further, environmental and water scientists, after intense and careful experiment and calculation, have established a clear correlation between water deficiency and Indian policy and lack of sincerity. I have no expertise in that, and I do not pretend to have it. My interest lies in India’s historical role in our water crisis and in countering its influence.

But is India at all democratic when it comes to sharing natural resources with its neighbors? Is the Indian government at all frank in maintaining a democratic relationship? Has India been able to lose its big-brotherly attitude under any  administration? Or have its policy makers desired this? Although it is none of our business, we should ask whether the Indian nation state is democratic for all its citizens? This question would be none of our business as gentlemanly demeanor dictates that we should not be involved in other countries’ ‘internal’ affairs. This type of gentlemanly framework is not helpful. If so-called ‘internal’ affairs affect external issues then they are not separate ‘internal’ issues. In the water sharing issue, the Indian government has always argued that necessary steps are taken for its citizens. Whether true or false the issue is not unrelated to us. Secondly, if a nation is aggressive and undemocratic toward its own people, what hope is there that it would take a benevolent step for the general public of another country? This is mentioned because of India’s full-on operations against its underprivileged races and Maoists.

I intentionally brought up the Indian image and the issue of its attitudes. We are talking about the India that is close to the declaration of war – even one-sided war – against various races in different parts of the country. The India which has deployed its army, directly or indirectly, in half of its territories in the last two or three decades in such subtle ways that it went nearly unnoticed — from Hariana to Manipur, Mizoram to Kashmir, Assam to Andra, Jharkhand to Punjab. It is not so easy to recognise that India in its materialistic publicity and marketing. The issue is far deeper than the needs and rights of water of its neighbors. For Bangladesh, it is not just a matter of solving the issue via maintaining a cordial relation with the Indian central government. It would also be mean and in any case a short-term solution to expect to progress the issue by luring Mamata Banerjee, who seems to be unhappy about the Teesta issue. We need to ensure that Bangladeshi ruler groups get beyond mud throwing to develop a united and unquestionable schema — but that is overly imaginative in the prevailing Bangladeshi political culture. The next step is even tougher. I think it is impossible to achieve an enduring solution for sharing natural resources without a long-distance, visionary alliance with pro-democratic and anti-autocratic forces within India. No doubt that would annoy the Indian central government. But drops of  flattery will not quench our thirst, let alone for good.
Manosh Chowdhury is Professor of Anthropology at Jahangirnagar University. Translator Irfan Chowdhury is a member of Editorial Board of AlalODulal.org.

http://www.bonikbarta.com/austoprohor/2013/06/22/5534

মানস চৌধুরী
ভারতের অবয়ব: পানিশাসন আর প্রতিবেশী শাসন

এক. ভারতের সঙ্গে এর প্রতিবেশীদের সম্পর্ক ডাঙায় ও পানিতে প্রায় সমান ধরনের উত্কণ্ঠার ও বিপজ্জনক। দুটো সম্পর্ক নিয়েই প্রতিবেশীদের নিপীড়িত দশা ও অধিকার নিয়ে আলাপ-আলোচনা-বিশ্লেষণ বিশেষ অনুপস্থিত। প্রায় নৈঃশব্দের দশা। তারপরও পানির সম্পর্ক নিয়ে কিছু আলাপ-আলোচনা করবার রেওয়াজ শুরু হয়েছে। পত্রপত্রিকায় নানান সময়ে এ নিয়ে দু-চার কথা লেখালেখির একটা চল রয়েছে। সেই চলটাও যে নির্বিঘ্ন তা নয়।

ভুক্তভোগী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের নিজস্ব সংকটের আলাপ, বিশেষজ্ঞ মতামত, প্রাযুক্তিক বিশ্লেষণ সবই রাজনৈতিক ডামাডোলের মধ্যে নিপতিত হয়। কোনো শিথিল অবস্থান সহসাই ভারতপন্থিতা, কিংবা এমনকি আওয়ামী লীগের ‘দালালি’ হিসেবে পর্যবসিত হতে পারে। আবার একটা মারদাঙ্গা অবস্থান ঘোষণা বাস্তব বৈষম্যের বিষয়ে তেমন রদবদল করতে পারুক বা নাই পারুক, আওয়ামীবিরোধী রাজনীতির মোর্চা গঠনে দুর্দান্ত এক পাটাতন সরবরাহ করে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে, রাজনৈতিক প্রবাহে ও সংস্কৃতিতে এই লঘুচিত্ত প্রতিপক্ষতার চর্চা দেশের কাজে না-লাগুক, ভারতকে একটা শক্তিশালী প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে টিকে থাকতে সহায়তা করেছে। অন্তত ভারতের কিছুতেই ভাবতে হয় না একটা অখণ্ড, দুর্বল যদিও, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হিসেবে বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে। আওয়ামী-বিএনপি রাজনীতির খামচাখামচিতে পড়ে বাংলাদেশের জনগণ ভারতের দুর্বল প্রতিবেশী রাষ্ট্রের নাগরিক হিসেবে আরো আরো নাজুক জায়গা অর্জন করছে।

ভারতের সঙ্গে তার প্রতিবেশীদের, ধরা যাক বাংলাদেশের, ডাঙার সম্পর্ক নিয়ে কথাই তো প্রায় বলা যায় না, বলা হয়ে ওঠে না। ডাঙার সম্পর্ক নিয়ে কথা না-কইতে পারার সমস্যাটার একটা ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট রয়েছে। প্রেক্ষাপটটি ভারত ও পাকিস্তান নামক দুইটা রাষ্ট্র উদ্ভবের সঙ্গে সম্পর্কিত। রাষ্ট্র দুইটা উদ্ভবের প্রকৃতি ও প্রেষণা এমন উদ্ভট ধরনের স্বার্থসংশ্লিষ্ট ছিল এবং গোড়া থেকেই এমন ধরনের বৈরিতা ও বিদ্বেষ এই রাষ্ট্র দুটোর কল্পনার মধ্যে ছিল যে ‘স্বাধীনতার’ প্রায় অব্যবহিত পরেই কোন্দল উপহার দিয়ে গেছে বছরের পর বছর। দুইটা রাষ্ট্রের সামরিক আকাঙ্ক্ষা ও প্রতিযোগিতা অন্যান্য প্রতিবেশীদের প্রায় ঊন-প্রাণীতে পর্যবসিত করেছে। কিন্তু পরিহাসটা এখানেই। পাকিস্তানের সামরিক আকাঙ্ক্ষা ও প্রস্তুতি বিগত বছরগুলোতে তাদের রাষ্ট্র ও সরকারসমূহকে যতটা দানবিক পরিচয় দিয়েছে, কিছুতেই ভারতকে তা দেয়নি। এই কৃতিত্ব যদি পাকিস্তানের শাসকদের আটআনা হয়ে থাকে তো বিশ্বব্যাপী ভারতীয় বুদ্ধিবৃত্তিক কারখানারও আটআনা কৃতিত্ব আছে। তাদের বিচার-বিশ্লেষণের প্রভাব এখন দুনিয়াব্যাপী সবাই মানে। আর তার বদৌলতে তারাও পাকিস্তানের যথাসম্ভব দানবীকরণ ঘটিয়েছেন। আমার বক্তব্য এই নয় যে, পাকিস্তান রাষ্ট্র হিসেবে আমার অতীব প্রিয়। বরং আমি বলতে চাইছি, পাকিস্তানের ভাবমূর্তি গঠনে ভারতীয় বিদ্যাকর্মী ও বিশ্লেষকদের এন্তার ভূমিকা রয়েছে এবং পাকিস্তানের ভাবমূর্তি ও ভারতের ভাবমূর্তি একটি কাঠামোবদ্ধ বিষয়। একটির সঙ্গে অন্যটি ওতপ্রোত জড়িত। ‘ভারত একটি সেক্যুলার রাষ্ট্র’ বনাম ‘পাকিস্তান একটি ইসলামপন্থী রাষ্ট্র’; ‘ভারত সংস্কৃত’ বনাম ‘পাকিস্তান জঙ্গি’; ‘ভারত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাসম্পন্ন’ বনাম ‘পাকিস্তান দফায় দফায় সামরিক’ ইত্যাদি। এ রকম যুগল ইমেজের নির্মাণে ভারত আর পাকিস্তানের নিজ নিজ যতই সুবিধা-অসুবিধা হোক না কেন, প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর জন্য ভারতের ভূমিকা আড়াল থাকতে পেরেছে।

এসব কারণে আমি অন্তত তাদের দলে, যারা মনে করেন এ অঞ্চলে ভারতের উপস্থিতি ও শক্তিমত্তাকে পাঠ করতে হলে অপরাপর রাষ্ট্রগুলোর অস্তিত্বকেও গুরুতর মনোযোগ দিয়ে দেখতে হবে। আর ভারতের শক্তিমত্তা ও আধিপত্যের একটা সুষ্ঠু অনুধাবনও যদি করতে চাই, প্রতিকার তো পরের প্রশ্ন, তাহলেও ভারতের বিশালাকায় বুদ্ধিজীবিতার সাফাইকারী ও আত্মপ্রশস্তির ভূমিকার আদ্যোপান্ত তদন্ত করতে হবে।

দুই. বাংলাদেশের পরিচয়ের সিংহভাগই তৈরি হয়েছে পাঠ্যপুস্তকের রেটরিকগুলো দিয়ে। ‘সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা’ শুনতে শুনতে আর নামতার মতো আওড়াতে আওড়াতে বাংলাদেশের ক্রমাগত বনজ সম্পদের উধাও হয়ে যাবার বাস্তবতা আর বোঝা হয়নি শৈশবে। এমনকি যে প্রাকৃতিক বনবনানীও এই অঞ্চলে বিশেষ কিছু উল্লেখযোগ্য নয়, সেটা বুঝতেও বহু বছর লেগেছে। রেটরিক বা বাগাড়ম্বরের ঝামেলাই এগুলো। পরিস্থিতি কিছুতেই অনুধাবন করা হয় না। তারপরও নানান সময়ে আমি এ নিয়ে ভেবেছি যে, সাহিত্যের দুনিয়ায় হয়তো শিথিল শর্তে রেটরিক ও অলঙ্কারকে জায়গা দেয়া যেতে পারে। হয়তো তাতে ক্ষয়ক্ষতি বিশেষ নয়, কিংবা উপযুক্ত পরিবেশে সেসব ক্ষতি সামালযোগ্য। কিন্তু রাজনৈতিক বিশ্লেষণ ও রাজনীতির ভাষামালাতে কিছুতেই রেটরিককে বরদাশ্ত করা ঠিক হবে না। মুশকিল হচ্ছে রাজনীতির অঙ্গনেই এসব বাগাড়ম্বর চর্চিত হয়ে থাকে বেশি, লাগাতার এবং পুনরুত্পাদিত হয়। পরিশেষে, শক্তিশালী মতাদর্শ আকারে বিরাজমান হয় আর উত্তর-প্রজন্মের মধ্যে সঞ্চালিত হয়। খুবই বিপজ্জনক রাষ্ট্রীক অনুশীলন, সামাজিকও বটে।

‘সুজলা-সুফলা শস্য-শ্যামলা’র মতো অন্য দুটো প্রবল রেটরিক হচ্ছে ‘বাংলাদেশ একটি কৃষিজীবী দেশ’ আর ‘বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ’। দুটোই সাম্প্রতিক বাংলাদেশের প্রকৃতি ও পরিবেশ, অর্থনীতি ও রাজনৈতিক-অর্থনীতি বুঝবার জন্য বিশেষ প্রতিবন্ধক। শেষোক্তটি আজকের প্রসঙ্গের জন্য একেবারে কেন্দ্রীয়। নদী ও মাতার তুলনা বাংলাদেশের মানুষজনের যে লোকজীবন, সেখানে খুবই মানানসই। আবার ভারতে ‘মাতা’র যে অর্থ পুরাণ পেরিয়ে নয়া ভারতের অন্তরাত্মার স্মারক হয়েছে, সেই অর্থে মাতার খুবই গুণগত ভিন্নতা রয়েছে। কিন্তু সেসব শব্দালঙ্কারমূলক আলোচনা আমার মূল আগ্রহ নয়। এখানে আমি যেটা বলতে চাইছি তা হলো, এই রেটরিকগুলোর বয়স অত্যন্ত প্রাচীন। অখণ্ড মোগল শাসনামল পর্যন্ত তবু এর প্রচলের একটা অর্থ তৈরি করা যায়, যখন একটি নদী দুটো সার্বভৌম অঞ্চলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে, কিংবা দুটো সম্রাট-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চল দিয়ে; কিন্তু কিছুতেই আধুনিক জাতিরাষ্ট্রের সীমানায় বিভাজিত দুটো রাষ্ট্রের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয় না। সেই কালের রেটরিক আজকের নদী কিংবা আজকের নদীমাতা কোনোটারই কোনো অর্থোদ্গম ঘটে না।

আজকের বাংলাদেশের নদীগুলো প্রায় কোনো ব্যতিক্রম ছাড়া অন্য একটি রাষ্ট্রের ইচ্ছা-অনিচ্ছার মধ্যে বন্দি। নদীর পানি অন্য একটি রাষ্ট্রের খবরদারির বিষয় হিসেবে প্রবাহিত। নদীর পানির প্রয়োজন নিয়ে কথা-বলা বা দাবি-তোলা আমাদের রাজনৈতিক অনুশীলন ও ক্ষমতা দখলের চালবাজির মধ্যে নিপতিত। নদীর পানিবণ্টন অন্য রাষ্ট্রটির অভ্যন্তরীণ প্রয়োজনই কেবল নয়, প্রতিবেশীর ওপর নিয়ন্ত্রণের আকাঙ্ক্ষার ওপরও নির্ভরশীল। ফলে এমনিতেই নদীমাতৃকতার রেটরিকটি বদলের দরকার পড়ছে।

তিন. পরশু দিন সকালের পত্রিকা খুলতেই সেদিন যে খবরটা নজর কাড়ে তা হলো, তিস্তার মৃত্যু হচ্ছে। তিস্তা নদীর পানি নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলাপ-আলোচনা চলছে। অন্তত গত বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সফরের সময়কাল থেকে তিস্তাই কেন্দ্রবিন্দু হয়ে গেছিল। বিশেষত, পত্রপত্রিকার কারণে মানুষজন ধরেই নিয়েছিল যে, তিস্তার বিষয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বিশেষ কোনো অনান্তরিকতা নেই, যা এবং যতটুকু আছে তা কেবল মমতা ব্যানার্জির, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর। সাম্প্রতিকতম কূটনৈতিক যোগাযোগের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় মনোযোগ পেয়েছে তিস্তার পানি, বাংলাদেশের তরফে। তিস্তার পানিতে ভারতের বাঁধের কারণে উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ অঞ্চল মৌসুমি খরার শিকার হচ্ছে। এমনকি পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ যে, বর্ষার সময়ে অতিরিক্ত ঢলের পানিটুকু ছাড়া বাংলাদেশ প্রান্তে আর কোনো কিছুই প্রাপ্য থাকছে না। এই বিষয়গুলো কমবেশি পাবলিক পরিচিত। পানি ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা আরো নিবিড়ভাবে হিসেব নিকেশ করে দেখাতে সমর্থ হন যে, কতটা ও কীভাবে পানি-স্বল্পতা রয়েছে এবং কীভাবে সেটা ভারতের পলিসি ও আন্তরিকতার সঙ্গে সম্পর্কিত। আমি সেখানে বিশেষজ্ঞতার ভণিতা করব না, সেটা আমার নেই বলে। আমার আগ্রহ ঐতিহাসিকভাবে ভারত রাষ্ট্রটির ভূমিকা নিয়ে। আর আমাদের পানি সমস্যাতে এর আধিপত্যশীল ভূমিকার রাজনৈতিক মোকাবেলা নিয়ে।

কিন্তু ভারত কি আদৌ তার প্রতিবেশীদের সঙ্গে প্রাকৃতিক সম্পদ ভাগ-বাঁটোয়ারা করে নেবার ব্যাপারে গণতান্ত্রিক? ভারত সরকার কি আদৌ গণতান্ত্রিক সম্পর্ক রক্ষার বিষয়ে আন্তরিক? কোনো শাসনামলেই কি বৃহত্-ভ্রাতাসুলভ দাম্ভিকতা থেকে ভারত রাষ্ট্র মুক্ত হতে পেরেছে? কিংবা সেটা চেয়েছে এর নীতিনির্ধারকরা? এমনকি একটু অনধিকার চর্চা মনে হলেও এই প্রশ্ন করাও খুব জরুরি যে, ভারত রাষ্ট্র আদৌ তার সব নাগরিকের জন্যই কি গণতান্ত্রিক? শেষের প্রশ্নটা অনধিকার চর্চা মনে হতে পারে এজন্য যে, একটা জনপ্রিয় ভদ্রলোকী ভাবনাকাঠামো আছে। সেটা হলো কোনো রাষ্ট্রের ‘অভ্যন্তরীণ’ বিষয় নিয়ে আমাদের মাথা ঘামানো সমীচীন নয়। এ রকম ভদ্রলোকী ভাবনাকাঠামো খুব একটা সুবিধাজনক নয়। যদি তথাকথিত ‘অভ্যন্তরীণ’ বিষয় বহিস্থ বিষয়গুলোকে প্রভাবিত করে, তাহলে তো সেটা নিছক বিযুক্ত বিষয় নয়। পানির প্রসঙ্গটা ভারত বরাবর দেখিয়ে এসেছে তার নিজের জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ হিসেবে। সেটা সত্যি হোক বা অতিরঞ্জন আমাদের জন্য প্রসঙ্গটা একটুই বিচ্ছিন্ন নয়। দ্বিতীয়ত. যদি একটা রাষ্ট্র তার নিজের জনগণের জন্যই যথেষ্ট আক্রমণাত্মক ও অগণতান্ত্রিক হয়ে থাকে, কী ভরসা যে অন্য দেশের আম-মানুষের জন্য আরামদায়ক কোনো পদক্ষেপ সে নেবে? এসব কথা আসছে সাম্প্রতিক কালে ভারতে অন্ত্যজ জাতি ও ‘মাওবাদী’দের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযানের প্রেক্ষিতে।

শুরুতে ভারত রাষ্ট্রের অবয়ব বা ইমেজ প্রসঙ্গটি এনেছিলাম সজ্ঞানেই। যে ভারত নিজেরই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের জাতিগুলোর বিরুদ্ধে প্রায় যুদ্ধ ঘোষণা করবার মরিয়া প্রস্তুতি নিচ্ছে, এমন এক যুদ্ধ যেটা কিনা নেহাতই একতরফা— সেই ভারতের কথা হচ্ছে। যে ভারত গত দুই তিন দশকে দেশের প্রায় অর্ধেক এলাকায় সেনা মোতায়েন করেছে প্রত্যক্ষভাবে বা পরোক্ষভাবে, এত মোলায়েমভাবে যে, প্রায় টেরই পাওয়া যায়নি; হরিয়ানা থেকে মণিপুর অবধি, মিজোরাম থেকে কাশ্মীর অবধি, আসাম থেকে অন্ধ্র অবধি, ঝাড়খণ্ড থেকে পাঞ্জাব অবধি— সেই ভারতের কথা হচ্ছে। এই ভারতকে বৈশ্বিক প্রচার-প্রচারণাতে চিনতে-পারা বিশেষ সহজ নয়। প্রতিবেশীদের পানির অধিকার বা প্রয়োজনের থেকে বিষয়টা আরো গভীর। বাংলাদেশের জন্য বিষয়টা কেবল ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে খায়খাতির রেখে ফয়সালা করবার বিষয় নয়। এমনকি যেহেতু মমতা ব্যানার্জিকে তিস্তার বিষয়ে নারাজ মনে হচ্ছে, তাই তাকেও ভজনা করে অবস্থাটিকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব ভাবাও লঘুচিত্ত ও স্বল্পপাল্লার ফয়সালা হবে। প্রথমেই নিশ্চিত করতে হবে যে, বাংলাদেশের বিভিন্ন শাসক দল গোবর ছিটাছিটির বাইরে গিয়ে বাংলাদেশের জন্য প্রয়োজনীয় একটা অখণ্ড ও তর্কাতীত রূপরেখা বানাতে পারছেন। তবে সন্দেহ নেই বাংলাদেশে বিদ্যমান রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে তা খুব কল্পনাতীত বটে। পরের ধাপটি আরো কঠিন। ভারত রাষ্ট্রের অভ্যন্তরে যেসব গণতান্ত্রিক শক্তি, স্বৈর ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী যেসব রাজনৈতিক কণ্ঠস্বর রয়েছে, তাদের সঙ্গে দূরপাল্লার ও দূরদর্শী মৈত্রী গঠন করা ছাড়া প্রাকৃতিক সম্পদের বণ্টন নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি একটা ব্যবস্থাপনা সম্ভব বলে আমি মনে করি না। কোনো সন্দেহ নেই যে, কেন্দ্রীয় ভারত সরকারের বিরাগভাজন হবার মতো একটা কাজ সেটা। কিন্তু তোয়াজের পানির ফোঁটাতেও তৃষ্ণা আমাদের মিটবে না, দীর্ঘকাল তো নয়ই।

[উত্তরা, জাবি ক্যাম্পাস, সাভার ১৮-২০ জুন ২০১৩]

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s