Ahmed Shamim & Faruk Wasif: Debating “The Hindu Question” through Marx & Bauer

Debating “The Hindu Question” through Karl Marx’s “On The Jewish Question”
Ahmed Shamim debates Faruk Wasif, translated by Irfan Chowdhury for Alal O Dulal
Nipu Sheel wails sitting on the debris of her house that was set ablaze by Jamaat-Shibir men at Banshkhali in Chittagong. The religious fanatics looted and torched houses and temples of the Hindus in the district on Thursday, following the death sentence to Jamaat leader Delawar Hossain Sayedee. Photo: Anurup Kanti Das
Nipu Sheel at Banshkhali. Photo: Anurup Kanti Das

PART 1: Ahmed Shamim “On the Hindu Question” (after Karl Marx)
Islam is encircled in peace. Its three core phonemes are: seen, laam, meem which mean peace. Aslam means to surrender (oneself) to peace – who does that is a Muslim, which means resting in peace. This blend of sweet language and expressions of Islam, no doubt, should bring peacefulness in hearts. Yet, repeated attacks on non-Muslims in Bangladesh have turned these aphorisms in to hallow words.

The main reasons for this are, Islam as the state religion is against the peace promised by Islam, and peace cannot be established with a claim for superiority. Equality, empathy and democratic mindset are needed for peace. These are very much absent in Bangladesh. The nucleus of power in Bangladesh is pivoted around the recognition of ‘heterosexual Muslim Bengali males’, as this combines ‘ the greatest race, the greatest sexual orientation, the greatest religion, the greatest sex’. If power politics and the power of money are also added, who would be able to resist the rise of ‘the greatest sex’?

The state can. But none of AL-JP-Jamaat-BNP-Leftist alliance – who runs our state, has effective agendas to stop the communalism.  The existence of AL-JP-Jamaat-BNP depends on that very rise. The non-communist leftist parties of the county and those opportunistic parties which call themselves ‘communist parties’, ally with AL and BNP alternately, supporting the rise of ‘that sex’. On the other hand, the revolutionary parties want to give democratic-revolution a chance. Amid this razzle-dazzle, the minority gets annihilated.

The ‘heterosexual Muslim Bengali males’ will be found responsible, regardless of their party affiliation or ideological bent, in all the recent carnage carried out – in Ramu, Sathia or Char Aicha. Even if, let say, this ‘males’ do not get the ‘shadow’ of the conventional political umbrella, it can create effective ‘national politics’ by developing an anxiety: ‘Islam is under the attack’; the ‘national politics’ is then forced to become ‘the umbrella’. Numerous evidences, supporting this, have been found already. The game involving an ‘Islam phobia-phyla’ is at its most dangerous now, in Bangladesh, compared to any other time.

Under this circumstance, what should the state do to protect the minorities from the attacks? Many say we cannot sit back, demanding it from the state; we, the citizen, will need to come out to save our friends. I congratulate this willingness to social protest, but how long can we protect our friends from ourselves, playing ‘hide-n-seek’? How long will this game go on?

Hindus are nearly wiped out in Bangladesh. In 1941, the percentage  of the Hindu population was 28%, in 1951 it was 22%, in 1961 it was 18.5%, in 1974 it was 13.5%, in 1981 it was 12.1%, in 1991 it was 11.6% and in 2001 it came down to 9.6%. The percentage of Hindus is reducing by about 3.2%, in every 10 years. Accordingly, in 2011 there should be around 6-7 Hindus in every 100 people. Although, the national dailies estimate that the rate of reduction to be higher – if that estimate is accepted, by now the percentage of Hindu population would be about 5%.

So, the number of Hindu population has become a question. The answer to which would, perhaps, not be found fully amongst the increasing communal violence in Bangladesh. However, that is where may be we make a start. What the communal violence, in this context? The aggression and violence of Muslims and Bengalis on Hindus and Jummas. The minorities do not participate in the riot, rather, they are attacked by the dominant group. (Bengali) Muslim community has systematically been bashing the Hindu community. (Muslim) Bengali community has been bashing the Jumma community.”

This, indeed, is a poisonous tree. The question now is where is its root? In the Bengali-Muslim state arrangements, or does it lie in the claims of the rights – Hindus as Hindu and Jummas as the indigenous people? One could research the world history in search of an answer to this question. Although the question at hand is unique in quality, one might want to examine the symptomatically similar ones. I don’t see any wrong in that. But, we need to be careful, just because we have an answer (to an old question) ready at hand, not to formulate our new question according to the available answer. Specially, when a solution is sought comparing ‘the Jew’ question with ‘the Hindu’ question.

Different individuals have tried to explain ‘the Jew’ question differently in Europe. The difference in the proposed solutions offered to the question is due to differences in individual understandings for what was ‘the root cause’.  According to Marx, Bruno Bauer said that

no one is free in Germany; if we aren’t free then, how would we free our (Jewish friends)? If they claim a special freedom as Jew then they become egoists. As Germans, they will have to work for the political freedom of Germany; as human being they will have to work for freedom of humans; the particular torcher and harassment meted out to them should be realised as part of reassurance of the prevailing law, not as exception to it. … Why would Germans fight to free the Jews, if Jews do not fight for Germans’ freedom? …the Jewish claim to be free in a Christian state means that Christians get rid of their religious culture. But do Jews leave their religious culture?  If Jews do not leave their religious culture, how do they then expect Christians to do the same? … A Christian state can only show Christian paths to Jews; meaning, by providing special rights, it can segregate Jews from the others (non-Jew) where Jews will face social pressure from the others and in doing so the torchers on Jews will become harsher, as they with their religion stand opposite to the religion of the power…      

If this is the situation how would the Jews be free?  Marx provided a brief summary of Bauer’s solution to the issues as follows:

We will have to be free fist, and then others can be freed. … The toughest problem between Christians and Jews is the issue of religion. How do eliminate religious issues?  By leaving the religion. Bauer’s solution states all including Jews will get civic freedom by leaving religion.

Marx was not satisfied with Bauer’s framing of the question and the proposed solution. His first criticism is – the question does not end in who will set whom free or who will be freed; a third factor is important here – what type of freedom is being discussed here?

Marx’s objection is Bauer had always interpreted leaving the ‘politics involving religions’ as people leaving the religions themselves. Instead of investigating people’s political freedom and human freedom, Bauer created a one-sided ‘Jew ‘question. Marx considered if Bauer had asked Jews what rights they have, from their standpoint, to seek political freedom. Then, in response, it can be asked that did the political freedom’s standpoint give such a right with which Jews can be asked to leave their religion, people can be asked to leave their religion?

This question of Marx, has always been asked to minorities, demanding an answer by the ‘Susheels’(a term commonly but curmudgeonly used for intellectuals) of Bangladesh. Due to this demand, we could consider it.

The demand from a part of the ‘Susheels’ is similar to Bauer. As Bauer, they also say, Hindus will have to first join in the fight to free the citizens of the country; if Bangladesh is not freed politically, Hindus or Jummas won’t be free; while the ‘majority’ is not free, how would the ‘minority’ be free? By claiming themselves as the ‘minority’, they have detached themselves from the civil society. When they do not participate in Muslim’s freedom, why would the Muslim fight for their freedom?

This part of the ‘Susheels’ has the same verdict on women’s liberty. If women do not join the fight for freedom of men, why would men fight for women? In this connection, if Hindus are bashed for being Hindu, we will have to leave it aside accepting it’s within the law; Jummas and women will have to do the same. Special protection or conditions cannot be demanded, if demanded they would be deem as suspicious – conspiracies to form Hindu, Jumma and Women states. Although, Marx had strongly criticised Bauer for this opinion, sadly the leftist ‘‘Susheels’ are oping like Bauer.

The other part of the ‘Susheels’ opinion is a bit different. I find myself in this part. We consider Bangladesh (by borrowing a Marxist term) is a hypocritical state. It’s in ‘religion’ and in ‘Ziraf’ at the same time. With a religious statehood it is satisfied with these – ‘intends to be secular’, ‘good Muslim’, ‘moderate Muslim’ –models.  From the standpoint of political freedom for this state, no one has the right to ask the minorities to leave the politics of religion, race or gender. There is no legitimacy in such solicitations. Rather, the state should be forced to take special care of the victims and to protect them from any future attacks or ‘ills’; to arrange ‘Affirmative Actions’ for the minority.  The state should try to become ‘secular’ by taking these actions.  The ‘attackers’ or the ‘victims’ won’t be waiting for the state to turn ‘secular’ by achieving ‘political freedom’.

Posing questions such as ‘why the Hindus are not participating in the fight for civil liberties’, ‘Why Jummas or feminists are absent’ is self-contradictory.  Hindus, Jummas and feminists participate as common people in the fight to establish civil liberties, so you do not see them, and when they fight for – ‘minority’, ‘Jumma’ or ‘Women’– rights, you get angry stating that why would you join in those fights.

Bauer also had made the same mistake. When Marx pointed this out to Bauer, he responded that Marx had misunderstood him.

Truly, it is very difficult to read the minds of ‘discriminatory Bengali males’.  They want equality, but do not want to give up their claims on ‘the greatness’. As ‘Bengali’ they are better than ‘Jummas’; as ‘Muslims’ they are better than ‘Hindus’; and as ‘Men’ they are better than ‘Women’.

To change this situation we need law, a law that would safeguard ‘Hindus’, ‘Jummas’, ‘Women’ and all other ‘Inferiors’ from the superiority of the ‘Superiors’.  When Bangladesh gains social-political freedom and becomes a secular state, perhaps, this law can be repealed.

PART 2: Faruk Wasif: The Hindu Question is also a Muslim Question

Ahmed Shamim’s complaint is two-pronged:

  1. If Hindus are bashed for being Hindu, we will have to leave it aside accepting it’s within the law; Jummas and women will have to do the same. Special protection or conditions cannot be demanded, if demanded they would be deem as suspicious – conspiracies to form Hindu, Jumma and Women states.
  2. From the standpoint of political freedom for this state, no one has the right to ask the minorities to leave the politics of religion, race or gender. There is no legitimacy in such solicitations. Rather, the state should be forced to take special care of the victims and to protect them from any future attacks or ‘ills’; to arrange ‘Affirmative Actions’ for the minority.  The state should try to become ‘secular’ by taking these actions.  The ‘attackers’ or the ‘victims’ won’t be waiting for the state to turn ‘secular’ by achieving ‘political freedom’.

Who has asked to leave the politics of religion, race or gender? All politics are allowed, and they can be criticized for their (reactionary) effects. What he has done is ‘shaved his own head’. In the first accusation he is the defender of the tortured, in the second allegation, he is their guardian-protector. When the state belongs to the ‘majority’, that is when one of ‘us’ calls out to protect ‘them’. That’s why I said that

As a Muslim state the Bangladesh state can never fee the Hindus. Just as it cannot provide full civil rights to the Muslims…such a state doesn’t recognise citizens, but identify Hindu-Muslims. A state dependent on religious identity bound to behave this way. This way, the state actually exploits the ‘majority’s’ religious identity while at the same time holding up their freedom.”

The special protection theory could be termed as, ‘a type of socialism suffering from a guarding-malaise’ or it could be termed as ‘surgery-malaise of the politics’. When the house is on fire, the fire has to be put out first; which idiot argues against that? My question wasn’t about how to stop the communal violence, but how to uproot the whole communalism.

It does not mean that – the police will not stop the marauders; the cases against the criminals will not be sent to courts for speedy trials; the state will not form the Minority Commission; abolish the inappropriate ‘acquired-wealth’ law and return the ‘wealth/lands’ to their just-owners; or the state will not remain vigilant against discriminatory rules, principles or attitudes.

Of course it will. Barbers attending to remove boils/abscesses is as practical as calling gendarmerie to catch dacoits; however, the idea to resort to their expertise to treat political and social maladies is foolish. Not all issues can be solved by creating laws or sending troops.

So, long term thinking and work plans are necessary. There isn’t a ‘before’ or an ‘after’ for this thinking and the work plan. They have to be ongoing. But Ahmed Shamin is caught in what is commonly known as – ‘which came first the chicken or the egg’ quandary. Please note, how he has twisted my words by adding a ‘first‘ –

‘Hindus will have to first join in the fight to free the citizens of the country; if Bangladesh is not freed politically, Hindus or Jummas won’t be free’.

Who has asked Hindus to first join in the fight to free the citizens? Where did he find the delineation between ‘before’ and ‘after’ the uprising?  In brief, what I wrote was:

Muslims and Hindus both will need to discuss equity, putting the question of special rights aside. Hindus, then will not need to seek special protection, rather, they would want equal rights as citizen. As, if we are able to establish equality for all citizen, Hindu-Muslim equality would also be established .Muslims too, as Muslims cannot afford to be complacent by allowing special protection. They will have to demand equal rights for all. They will need to understand that achieving equity for Muslims is impossible without granting equal rights to Hindus. So, I do not support special rights/protection for anyone.”

Ahmen Shamim said, “Secularity should be attained by introducing the special protection law”. Meaning that the present ‘religion-based-state’ would become a secular state later, if ‘certain steps’ are taken. Is there any example of such progress? Look at India, Bangladesh – it’s not there.

A special right for Muslims is entrenched in their ego and domination stemming from the ’majority’ number; whereas  a special right for Hindus would be to provide special protection to them. In seeking special rights and protections for the Indian Muslims, Jinnah in an unrelenting manner had separated the Muslims and had put up a ‘separate states’ fences around them. Yet, they haven’t brought freedom for the Pakistani Muslims; instead, they have been further punished by a ‘Military-Mullah’ regime/ism.

Without making the whole society safe, we cannot protect ‘some of the inhabitants’ in a reserved ‘protected-area’ separately. Placing police before ‘their’ house-suburbs-business institutions for security reasons is akin to segregating them (somewhat similar to Ministers). Not only this type of special protection would come unstuck under a ‘Majority’ pressure, but being imprisoned in such special protections will gradually erode their (minority’s) social-cultural-economic-political or even biological abilities. Please note the outcomes of special protection given to the American Red Indians.

The Babri Mosque incident in India proves that the state would fail to stop attacks, when and if the ‘majority’ is under a spell of ‘extreme communal rage’. Whereas, in spite of the efforts from Ershad to use this incident to incite communal violence in Dhaka were unsuccessful due to social resistance.

The victims of the recent communal attacks in Bangladesh, even in Sathia, were not helped by the police-administration-ministers, but their Muslim neighbours. So, the society’s immunity has to be boosted, if it is to be shielded from the attacks of ‘communal-viruses’. This is possible by reinforcing the strengths to unite all the communities. The Hindu-Buddhists-Christian solidarity, merely aids a counter unity from the Muslims.

Therefore, seeking special protection from the state, segregating the ‘minority’ is not only impossible and inappropriate, it a mask for ‘social out-casting’. This is the very way how the ‘Sushil NGO supporters’ build a ‘patron-client relationship’ and the ‘war monger NATO’ utilising a human-interventionist method, make the ‘minority’ a hostage to carry out massacres on the ‘majority’. Following the similar path to that of the USA, many in India have yelled out for military interventions against Bangladesh to protect the Hindus.

Ahmed Shamim’s proposal for special protection is in support of such a path. The inevitable consequence of implementing the special protection is – establishment of a ‘Hindu Bangla Land’.

Sushils are always in favour of the special protection. Their modern diagnostics are filled with antibiotics, surgery, tests; still, they cannot give us a healthy life and environment. Communalism is a symptom to a disease. Its roots lie in inequity in economic and political powers. Ahmed Shamim’s ‘Marx’s Jew Question’ is a result of focussing on symptoms, ignoring the disease.

Anyhow, after Sathia, many have lost their confidence on special protection and ‘non-communal’ forces. I feel it is rather responsible to move forward a cause, where, Bengali as a race, Bangladeshi as citizens and human as species can co-exist peacefully and can attain civil liberties and cultural harmony.

I believe relentless fight for such a cause would, in the long run, transform communalism. Then, Hindus would still be Hindu, Muslims would remain as Muslim, atheists would be atheists, but their different identities will not cause the catastrophes – of partitioning the country, the society or the hearts.

PART 1: ‘হিন্দু প্রশ্ন’ প্রসঙ্গে – Ahmed Shamim

ইসলামকে ঘিরে আছে শান্তির সমারোহ। এর মুল ধ্বনিত্রয় হল সিন লাম মীম- যার অর্থ  শান্তি। এসলাম মানে শান্তির কাছে (নিজেকে) সমর্পন করা- যে তা করল সে  মুসলমান, যার অর্থ শান্তিতে সমাহিত। ইসলামের এই ভাষা ও ভাবের মধুর মিলন  নিঃসন্দেহে অন্তরে প্রশান্তি আনার কথা। কিন্তু বাংলাদেশে অ-মুসলিমদের উপর  ধারাবাহিকভাবে ঘটমান অত্যাচার অবিচার ওই বাণীগুলোকে কথার কথা বানিয়ে  দিয়েছে।

এর মূল কারণ, রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ইসলাম ইসলামধর্ম-প্রতিশ্রুত  শান্তির বিরোধী, এবং শ্রেষ্ঠত্বের দাবী নিয়ে কখনো শান্তি প্রতিষ্ঠান হয়  না। শান্তির জন্য সাম্য লাগে, সমমমর্ীতা লাগে, গণতান্ত্রিক মানসিকতার দরকার পড়ে। বাংলাদেশে সেই সাম্য, সমমর্মীতা এবং গণতান্ত্রিকতার বড় অভাব।  বাংলাদেশে গড় ক্ষমতার ভর করে আছে বাঙালি বিসমকামী মুসলিম পুরুষ পরিচয়ে,  কারণ এই সমন্বয়ে আছে ‘শ্রেষ্ঠ জাতি, শ্রেষ্ঠ সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন,  শ্রেষ্ঠ ধর্ম, শ্রেষ্ঠ লিঙ্গ। এর উপর যদি ক্ষমতার রাজনীতির ও টাকার ক্ষমতার সংযোগ ঘটে তবে সেই সর্বশ্রেষ্ঠ লিঙ্গের উত্থান ঠেকায় কে? এক ঠেকাতে পারে  রাষ্ট্র। কিন্তু আমাদের রাষ্ট্র পরিচালনা করেন-  আওয়ামী-জাপা-জামাত-বিএনপি-বামপন্থী জোট- তাদের কারোরই ওই সাম্প্রদায়িকতা  ঠেকানোর জন্য কার্যকরী কোনো এজেন্ডা নাই।

আওয়ামীলীগ-জাপা-জামাত-বিএনপি’র অস্তিত্ব নির্ভর করছে সেই উত্থানে- দেশের অকমিউনিস্ট বামপন্থী দল এবং  কমিনিউনিস্ট নামধারী সুবিধাবাদী দলগুলো একবার আওয়ামী পরেরবার বিএনপি করে  করে সেই লিঙ্গের উত্থানকেই সহায়তা করছে। অন্যদিকে বিপ্লবীদলগুলো  গণতান্ত্রিক বিপ্লবকে একটা সুযোগ দিতে চায়। এই মহাযোগে মহাসমারোহে চলছে  সংখ্যালঘু নিধন। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া রামু, সাঁথিয়া, চর আইচাসহ প্রায় সব  জায়গার ধ্বংসযজ্ঞগুলো জানলে দেখা যায়, সেসব যজ্ঞের যাজকেরা দলমত  নির্বিশেষে বাঙালী মুসলমান বিসমকামী পুরুষ। এই পৌরুষ বিদ্যমান রাজনৈতিক  ছাতার ছায়া যদি প্রথম নাও পায় (কথার কথা), ইসলাম আক্রান্ত- এই ধুয়া তুলে-  একটা রাজনীতি খাড়া করে ফেলে- জাতীয় রাজনীতিকে সেই  ছাতা ধরতে বাধ্য করতে  পারে। ইতোমধ্যে এর সপক্ষে বহু প্রমান দাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশে ইসলাম নিয়ে  ফোবিয়া-ফিলিয়ার খেলা এখন অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বিপজ্জনক। এমতাবস্থায়  সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণ ঠেকানোর জন্য রাষ্ট্রের কি করা দরকার?

অনেকেই  বলেন রাষ্ট্রের কাছে দাবী করে বসে থাকলে চলবে না, আমরা নাগরিকরা আমাদের  বন্ধুদের রক্ষার নেমে পড়তে হবে। আমি বলব, এই সামাজিক আন্দোলনকে সাধুবাদ  জানাই, তবে একটা কথা, আমাদের বন্ধুদের আমাদের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য  আমাদের সঙ্গে আমাদের এই বৌচি খেলা- আমাদের বন্ধুদের বৌ বানিয়ে!- এ খেলা  আর কত দিন চলবে? বাংলাদেশে হিন্দুতো নাই হয়ে গেল প্রায়। ১৯৪১ সনে বাংলাদেশ হিন্দু ধর্মালম্বীর সংখ্যা শতকরা ছিল ২৮, ১৯৫১-তে ২২, ১৯৬১-তে ১৮.৫,  ১৯৭৪-এ ১৩.৫, ১৯৮১-তে ১২.১৩, ১৯৯১-তে ১১.৬২, ২০০১-এ ৯.৬। প্রতি দশ বছরে  হিন্দুধর্মী লোকের সংখ্যা ৩.২৩% কমে যাচ্ছে। সেই হিসাবে ২০১১ সনে  বাংলাদেশে প্রতি একশ জন নাগরিকের মধ্যে অন্তত ৬ থেকে ৭ জন হিন্দু  ধর্মাবলম্বী পাওয়া যাওয়ার কথা। অবশ্য জাতীয় দৈনিকগুলোর হিসাবে হিন্দু কমে  যাওয়ার হার গত দশ বছরে বাড়তির দিকে- এই হিসাব বিবেচনায় নিলে শতকরা ৫ জনে  এসে পড়ার কথা এই সময়ে।

অর্থাৎ হিন্দু জনসংখ্যা একটি  প্রশ্নবোধক সংখ্যা হয়ে দাড়িয়েছে। বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান সাম্প্রদায়িক  সংহিসতার গতিপ্রকৃতির মধ্যে এই প্রশ্নের উত্তর হয়তো পুরোটা পাওয়া যাবে  না, তবু সেখান থেকেই শুরু করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে সাম্প্রদায়িক সংহিসতা  জিনিসটা কী? হিন্দুদের উপর, জুম্ম জাতির উপর মুসলমানদের, বাঙালিদের  সহিংসতা। এর মধ্যে পারস্পরিক ব্যাপার কই? (বাঙালি) মুসলিম সম্প্রদায় হিন্দু সম্প্রদায়কে সিস্টেম্যাটিকভাবে মেরেই যাচ্ছে।  (মুসলমান) বাঙালি সম্প্রদায় মেরে যাচ্ছে জুম্ম সম্প্রদায়কে। এটি একটি বিষবৃক্ষই বটে। এখন প্রশ্ন এই  বৃক্ষের গোড়া কোথায়? বাঙালি মুসলামানের রাষ্ট্র ব্যবস্থায়, নাকি  হিন্দুদের হিন্দু হিসেবে ও জুম্মদের আদিবাসী হিসেবে নিজেদের অধিকার আদায়ের  দাবীর মধ্যে? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বিশ্বের ইতিহাস হাতড়ানো যেতেই  পারে। গুণে হয়তো প্রশ্নটি অনুপম, কিন্তু লক্ষণে যেসব প্রশ্নের সঙ্গে মিল  আছে তা খতিয়ে দেখায় দোষ দেখি না। কিন্তু সতর্ক থাকতে হবে যাতে পুরোনো  প্রশ্নের সমাধান হাতে আছে বলে নতুন একটি প্রশ্নকে যেই সমাধানের যোগ্য করে  উপস্থাপন করা না হয়। বিশেষ করে ‘ইহুদি প্রশ্নে’র সঙ্গে যখন ‘হিন্দু  প্রশ্ন’কে তুলনা করে সমাধান খুঁজতে চাওয়া হয়।

ইউরোপে  ‘ইহুদি প্রশ্নে’র সমাধান একেক জন একেক ভাবে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন কয়েক  শতাব্দী ধরে। সমস্যার গোড়া কে কোথায় পেয়েছেন সেই অনুসারে তাদের  প্রস্তাবিত সমাধান ভিন্ন ভিন্ন হয়। মার্ক্সের বরাতে পাই, ব্রুনো বাওয়ার  বলেছেন, জার্মানিতে কেউই মুক্ত নয়, আমরা যদি মুক্ত না হই তাইলে তোমাদের  (ইহুদী বন্ধুরা) কীভাবে মুক্ত করব? তোমরা ইহুদী হিসেবে যদি বিশেষ মুক্তির  দাবী কর তাহলে তোমরা ইগোইস্ট। জার্মান হিসেবে তোমাদের জার্মানির  রাজনৈতিক মুক্তির জন্য কাজ করতে হবে, মানুষ হিসেবে মানবের মুক্তির জন্য কাজ করতে হবে; তোমাদের প্রতি এই বিশেষ নির্যাতন এবং লাঞ্ছনা নিয়মের ব্যতিক্রম আকারে নয় বরং নিয়মের নিশ্চিতকারী অংশ আকারেই অনুধাবন করা উচিত।…  জার্মানরা কেন ইহুদীদের মুক্তির জন্য লড়বে, যদি ইহুদীরা জার্মানদের মুক্তির জন্য না-ই লড়ল?… খৃষ্টান রাষ্ট্রে ইহুদীদের মুক্ত হতে চাওয়া মানে এটা  দাবী করা যে খৃষ্টানরা যাতে তাদের ধর্মীয় সংস্কার ত্যাগ করে। কিন্তু  ইহুদীরা তাদের নিজেদের ধর্মীয় সংস্কার ত্যাগ করে কি? ইহুদীদরা যদি নিজেদের  ধর্মীয় সংস্কার ত্যাগ না করে, তাইলে তারা কি করে চায় খৃষ্টানরা তাদের  ধর্মীয় সংস্কার ত্যাগ করুক?… খৃষ্টান রাষ্ট্র ইহুদীদের প্রতি একমাত্র  খৃষ্টান পথেই আচরণ করতে পারে, অর্থাৎ বিশেষ অধিকার দিয়ে, ইহুদীকে রাষ্ট্রের অন্যান্যদের থেকে অপর করে দেওয়ার মাধ্যমে, যেখানে ইহুদীরা অপরাপর  (অ-ইহুদী) সামাজিক স্তরগুলোর চাপের তলে পড়বে, এবং এর মাধ্যমে ইহুদীদের ওপর ওই চাপগুলো (নির্যাতন) কঠোরতর হবে, কেননা তারা তাদের ধর্ম নিয়ে একটি  ক্ষমতাধারীদের ধর্মের বিপরীতে আছে।…

এই যদি অবস্থা  তাইলে ইহুদীদের মুক্তি আসবে কীসে? মার্ক্স বাওয়ারের সমাধান সংক্ষেপে তুলে  ধরেন এভাবে-  আমাদের আগে মুক্ত হইতে হবে তার পর অপরকে মুক্ত করা যাবে।…  খৃষ্টান আর ইহুদীদের মধ্যে শক্ত সমস্যাটি হল ধর্মীয় সমস্যা। ধর্মীয় সমস্যা  দূর করা যায় কী করে? ধর্মকে ত্যাগ করার মাধ্যমে। বাওয়ারের সমাধান বলে  ইহুদীসহ সবাই ধর্ম ত্যাগ করার মধ্য দিয়ে নাগরিক মুক্তি লাভ করবে। মার্ক্স  বাওয়ারের এই প্রশ্নের গঠন ও সমাধান নিয়ে সন্তুষ্ট হননি। তার প্রথম  সমালোচনা হল- কে মুক্তি দিবে আর কে মুক্তি পাবে এরমধ্যেই প্রশ্নটি শেষ হয়  না- তৃতীয় একটি পয়েন্ট এখানে গুরুত্বপূর্ণ- কী ধরণের মুক্তির কথা বলা হচ্ছে এখানে? মার্ক্সের আপত্তি হল, বাওয়ার সবসময় রাজনৈতিকভাবে ধর্মকে পরিত্যাগ  করাকে মানুষের তরফে স্বয়ং ধর্মকে পরিত্যাগ করা অর্থে বুঝিয়েছেন। মানুষের  রাজনৈতিক মুক্তি ও মানব মুক্তির সম্পর্ক বিষয়ে তদন্ত না করে, একতরফা এক  ইহুদী প্রশ্ন তৈরি করেছেন। মার্ক্স মনে করেন, বাওয়ার যদি ইহুদীদের প্রশ্ন  করে, তোমাদের স্ট্যান্ডপয়েন্ট থেকে, তোমাদের কি রাজনৈতিক মুক্তি চাওয়ার  অধিকার আছে? তাহলে (প্রত্যুত্তরে) এই প্রশ্ন করা যায় যে রাজনৈতিক মুক্তির  স্ট্যান্ডপয়েন্ট কি এমন অধিকার দেয় যার বলে ইহুদীদের কাছে দাবী করা যাবে  তারা যেন ইহুদীবাদ ত্যাগ করে, মানুষের কাছে দাবী করা যাবে তারা যেন ধর্ম  ত্যাগ করে? মার্ক্সের এই প্রশ্নটি বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের প্রতি সুশীল  সমাজের বাওয়ারবৎ দাবী- সেই দাবীর প্রেক্ষিতে বিবেচনা করা যেতে পারে।

সুশীল সমাজের একপক্ষের দাবী ব্রুনো বাওয়ারের মতই। বাওয়ারের মতো তারাও বলেন,  হিন্দুকে আগে দেশের নাগরিকের মুক্তির দাবীতে শামিল হতে হবে, বাংলাদেশের  রাজনৈতিক মুক্তি না এলে হিন্দু বা জুম্মদের মুক্তি আসবে না, যেখানে  সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানই মুক্ত নয়, সেখানে সংখ্যালঘুর মুক্তি সম্ভব কী করে  হয়। নিজের সংখ্যালঘু ধর্মগোষ্ঠী হিসেবে চিহ্নিত করার মাধ্যমে, সংখ্যাগুরুর আক্রমণ থেকে নিরাপত্তা চাওয়ার মাধ্যমে নাগরিক সমাজ থেকে তার নিজেদের  বিচ্ছিন্ন করে ফেলছে। যেখানে মুসলমানের মুক্তির লড়াইয়ে তারা সংযুক্ত হয় না,  মুসলমান কেন তাদের মুক্তির লড়াইয়ে নামবে! নারীমু্ক্তির ব্যাপারেও সুশীল  সমাজের এই পক্ষটির একই রায়। পুরুষের মুক্তির জন্য যদি নারী না নামে, তাহলে  পুরুষ কেন নারী মুক্তির লড়াইয়ে নামবে। এক্ষেত্রে, হিন্দু হিন্দু হিসেবে মার খেলেও তা নিয়মের মধ্যে ধরে নিয়ে সয়ে যেতে হবে, জুম্ম ও নারীকেও তাই করতে  হবে। বিশেষ ব্যবস্থা চাওয়া যাবে না, চাইলে সন্দেহ করা হবে, হিন্দু রাজ্য,  জুম্ম এবং নারীরাজ্য গঠনের পায়তারা চলছে। বাওয়ারকে তার এমত বিশ্লেষণের জন্য মার্ক্স কঠোর সমালোচনা করেছেন, অথচ দুঃখের বিষয় সুশীল সমাজের বামপন্থী  ঘরণা থেকেই বাওয়ারবৎ বিশ্লেষণ আসছে।

অন্যপক্ষের কথা একটু অন্য রকম। এই পক্ষে আমি নিজেকে পাই। আমাদের মতে বাংলাদেশ  (মার্ক্সের টার্ম ধার করে) একটি হিপক্রিট রাষ্ট্র। ধর্মেও আছে জিরাফেও আছে। রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে সেকুলারকাংখী, গুড মুসলিম, মডারেট মুসলিম এসব মেডেলে  তৃপ্ত রাষ্ট্র। এই রাষ্ট্রের রাজনৈতিক মুক্তির স্ট্যান্ডপয়েন্টে দাড়িয়ে  সংখ্যালঘুদেরকে তাদের ধর্ম, জাতি, জেন্ডার ইত্যাদি পরিচয়ের রাজনীতিকে  পরিত্যাগ করতে বলার অধিকার নাই কারো। ওইরূপ আব্দারের লেজিটিমেসি হাজির  নাই। বরং এই রাষ্ট্রকে বাধ্য করা উচিত ক্ষতিগ্রস্তদের বিশেষ যত্ম নেয়া এবং  ভবিষ্যৎ ক্ষতির হাত থেকে তাদের রক্ষা করা। সংখ্যালঘুদের জন্য এফার্মেটিভ  এ্যাকশানের ব্যবস্থা রাখা। এসব করে করেই সেকু্লার হতে হবে। রাজনৈতিক  মুক্তির মাধ্যমে কবে সেকুলার হবে রাষ্ট্র ততদিন আক্রমনকারী ও আক্রান্তরা  বসে অপেক্ষা করবে না। নাগরিকের মুক্তির আন্দোলনে হিন্দুরা নাই কেন,  জুম্মরা, নারীবাদীরা নাই কেন সে হিসাব করা যে স্ববিরোধিতা তা একটু খেয়ালে  রাখা দরকার; নাগরিক অধিকারের লড়াইয়ে হিন্দুরা, জুম্মরা, নারীবাদীরা সাধারণ  নাগরিক হিসেবে অংশগ্রহণ করে, তাই আপনার তাদের দেখতে পান না, এবং যখন তারা  তাদের পাটাতন থেকে সংখ্যালঘুর, নারীর অধিকার আদায়ের লড়াই করে, সে লড়াইয়ে  আপনার কেন যাবেন বলে গোস্যা দেখান। বাওয়ারও এই ভুল করেছিল। মার্ক্স যখন  তাকে চোখে আঙুল দিয়ে সে ভুল ধরিয়ে দেয়, জবাবে বাওয়ার বলেছিল, মার্ক্স তাকে বুঝতে পারেনি। আসলেই বাঙালি মুসলমান বিসমকামী পুরুষের মন বোঝা বড় দায়।  তারা সমাধিকার চায়, কিন্তু শ্রেষ্ঠত্বের দাবী ছাড়তে চায় না। বাঙালি হিসেবে  জুম্মদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ, মুসমান হিসেবে হিন্দুদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ এবং পুরুষ  হিসেবে নারীদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ- এই অবস্থা পরিবর্তনের জন্য আইন দরকার, যে আইন হিন্দুদের, জুম্মদের, নারীসহ সকল অশ্রেষ্ঠদেরকে শ্রেষ্ঠদের হাত থেকে  সুরক্ষা দিবে। বাংলাদেশের সামাজিক-রাজনৈতিক মুক্তি এলে, সেকুলার রাষ্ট্র  হলে, তখন নাহয় সেই আইন তুলে নেওয়া যাবে।

PART 2: সাম্প্রদায়িকতা: হিন্দু প্রশ্ন আসলে মুসলিম প্রশ্নও বটে

Faruk Wasif

চিন্তাজগতে ভাসুর থাকতে নাই। ঋণই করি আর আছাড়ই মারি_ নাম নিয়া করাই নিয়ম। ইহা  বিতর্কের আদব, বিদ্যাচর্চার লেহাজ। তো এই ‘ভদ্রলোক’_ আহমেদ শামীম_  ভদ্রতাবশত আমার ‘সাম্প্রদায়িকতার অ্যান্টিবড়ি কোথায় পাব?’ লেখারে ধোলাই  করতে গিয়ে এই জ্ঞানজাগতিক নমশুদ্রের ভাসুর ঠাউরে বেনামী করে দিয়েছেন। আমি  যেহেতু তাঁর ভাষায় ‘সুশীল’, সেহেতু স্বনামেই উত্তর দিয়ে ‘ভদ্রলোকের’ প্রতি  বাধিত হলাম।

আহমেদ শামীম কয়েকটা সমস্যা বাঁধিয়েছেন।  হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদ যে অসাম্প্রদায়িকতাকে শক্তিশালী করার  বদলে, সাম্প্রদায়িক ইন্ধনের মজুদ কমানোর বদলে, তাকে আরো পুনরুতপাদিতই করে,  ওই লেখায় সেটা আমি আলবত আলোচনা করেছিলাম। তিনি ঐক্য পরিষদের লাইনের  সমালোচনাকে সমগ্র হিন্দু সমাজের সমালোচনা হিসেবে আমার বিরুদ্ধে চার্জশিট  দাখিল করেছেন। মওলা কে সইবে তোমার অবিচার?

আহমেদ শামীমের অভিযোগটা দ্বিফলাবিশিষ্ট: ১. ‘‘হিন্দু হিন্দু হিসেবে মার খেলেও তা নিয়মের মধ্যে ধরে নিয়ে সয়ে যেতে হবে,  জুম্ম ও নারীকেও তাই করতে হবে। বিশেষ ব্যবস্থা চাওয়া যাবে না, চাইলে  সন্দেহ করা হবে, হিন্দু রাজ্য, জুম্ম এবং নারীরাজ্য গঠনের পায়তারা চলছে ২. ”এই রাষ্ট্রের রাজনৈতিক মুক্তির স্ট্যান্ডপয়েন্টে দাড়িয়ে সংখ্যালঘুদেরকে  তাদের ধর্ম, জাতি, জেন্ডার ইত্যাদি পরিচয়ের রাজনীতিকে পরিত্যাগ করতে বলার  অধিকার নাই কারো। ওইরূপ আব্দারের লেজিটিমেসি হাজির নাই। বরং এই রাষ্ট্রকে  বাধ্য করা উচিত ক্ষতিগ্রস্তদের বিশেষ যত্ম নেয়া এবং ভবিষ্যৎ ক্ষতির হাত থেকে তাদের রক্ষা করা।  সংখ্যালঘুদের জন্য এফার্মেটিভ এ্যাকশানের ব্যবস্থা রাখা। এসব করে করেই  সেকু্লার হতে হবে। রাজনৈতিক মুক্তির মাধ্যমে কবে সেকুলার হবে রাষ্ট্র ততদিন আক্রমনকারী ও আক্রান্তরা বসে অপেক্ষা করবে না।”

একেই বলে আপন মাথা আপনিই মুণ্ডন। প্রথম অভিযোগে তিনি নিপীড়িতের ডিফেন্ডার, দ্বিতীয় অভিযোগে  ‘তাদের রক্ষা করা’র অধিপতি স্বরের অাধিকারিক। রাষ্ট্র যদি আমাদের মানে  সংখ্যাগুরুর হয়, তখনই বলা যায় তাদের রক্ষা করার কথা। সেজন্যই আমি বলেছিলাম, ”মুসলিম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ রাষ্ট্র কখনো হিন্দুদের মুক্তি দিতে  পারে না। যেমন পারে না, মুসলমানদেরও সম্পূর্ণ নাগরিক অধিকার দিতে…এমন  রাষ্ট্র নাগরিক চিনে না, হিন্দু-মুসলিম চিনে। ধর্মীয় পরিচয়নির্ভর রাষ্ট্র  এই আচরণ করতে বাধ্য। এভাবে ওই রাষ্ট্র আসলে সংখ্যাগুরুর ধর্মপরিচয়কে  এক্সপ্লয়েট করে তাদের মুক্তিও আটকে রাখে।”

বিশেষ প্রটেকশানের  তত্ত্ব একধরনের সমাজতত্ত্বের দারোগাব্যাধি বা রাজনীতির সার্জিক্যালবাতিক  বলা যায়। ঘরে আগুন লাগলে তো আগে ঠেকাতেই হবে; এই বিষয়ে বিতর্ক করে কোন  আহাম্মক? আমার প্রশ্ন ছিল সাম্প্রদায়িক হামলা ঠেকানোর উপায় নিয়ে না, খোদ  সাম্প্রদায়িকতাকে দূর করার ব্যাপারে। এর মানে এই না যে দাঙ্গাবাজদের ঠেঙাতে পুলিশ আসবে না, অপরাধীদের দ্রুত বিচার আদালতে পাঠাবে না, রাষ্ট্র মাইনরিটি কমিশন গঠন করবে না, অর্পিত সম্পত্তি আইন বাতিল এবং ন্যায্য মালিকদের হাতে  সম্পত্তি প্রত্যার্পণ করবে না, সাম্প্রদায়িক ভেদবিচারচিহ্নধারী সব  বিধিনির্দেশ, আচার-ব্যবহারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র নিরন্তর সজাগ থাকবে না।  অবশ্যই থাকবে।ফোঁড়া কাটতে নাপিত বা ডাকাত তাড়াতে দারোগা ডাকাই নিয়ম,  কিন্তু নাপতানি কারিগরি আর দারোগার বুদ্ধি দিয়ে রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যাধি  সারানোর চিন্তা আহাম্মকি। আইন করে বাহিনী পাঠিয়ে সব বিপদ মোকাবেলা করা যায়  না।

তাই দীর্ঘমেয়াদি চিন্তা ও কর্মসূচি প্রয়োজন। এই চিন্তা ও  কর্মসূচির কোনো আগে-পরে নাই। একটানা চালাতে হবে। অথচ তিনি ‘ডিম আগে না  মুরগি আগে’ নিয়ে আছেন। দ্যাখেন আমার কথার মধ্যে একটা ‘আগে’ ঢুকিয়ে টুইস্ট  করে আমার মুখে বসিয়েছেন, ‘হিন্দুকে আগে দেশের  নাগরিকের মুক্তির দাবীতে শামিল হতে হবে, বাংলাদেশের রাজনৈতিক মুক্তি না এলে হিন্দু বা জুম্মদের মুক্তি আসবে না’।

হিন্দুকে আগে দেশের নাগরিকের মুক্তির দাবিতে সামিল হতে কে বলেছে? সংগ্রামের ‘আগে’ পরে বিভাজন তিনি  পাইলেন কই? আমার লেখার সারাংশ ছিল:
”মুসলিম ও হিন্দু উভয়কেই  বিশেষাধিকারের জায়গা ছেড়ে সমানাধিকারের জায়গায় দাঁড়িয়ে কথা বলতে হবে।  হিন্দু হিন্দু হিসেবে বিশেষ প্রটেকশান তখন চাইবে না, সে চাইবে নাগরিক  হিসেবে সমান প্রটেকশান। কারণ, নাগরিক সমতা প্রতিষ্ঠিত হলে হিন্দু-মুসলমানের সমতাও প্রতিষ্ঠিত হবে। মুসলিমও মুসলিম হিসেবে বিশেষ প্রটেকশানের দেমাগের  খেয়ালে মুরগি একে দেয়ালে রান চিবানোর আরামে থাকলে চলবে না। তাকেও সবার জন্য সমানাধিকার চাইতে হবে। হিন্দুর সমানাধিকার ছাড়া সব মুসলমানের সমানাধিকার  অর্জনও যে অসম্ভব সেই বুঝ মুসলিমদের মাথায় আসতে হবে। আমি তাই কারো  বিশেষাধিকারের পক্ষে যেতে পারলাম না।”

শামীম বলছেন বিশেষ প্রটেকশান  ”করে করেই সেকু্লার হতে হবে।” মানে বর্তমানের ধর্মরাজ্য পরকালে  সেক্যুলাররাজ্য হবে কিছু জিনিস ‘করে করে করে’ গেলে।এই করে করে এগনোর কোনো  উদাহরণ আছে কি? ভারত দেখুন, বাংলাদেশ দেখুন, নাই।

বরং প্রথমেই  সংখ্যালঘু সমস্যা যে একইসাথে সংখ্যাগুরুরও সমস্যা, হিন্দু প্রশ্ন যে গভীরে  মুসলিম প্রশ্ন; তা বুঝতে হবে। এবং সেভাবেই সমস্যাটার এনালাইসিস করতে হবে।
মুসলিমের বিশেষাধিকার হলো তার সংখ্যাগরিষ্ঠতার দেমাগ ও প্রতাপ; আর হিন্দুর  বিশেষাধিকার হলো তাকে বিশেষভাবে প্রটেকশান দেওয়া। জিন্নাহ ভারতীয়  মুসলমানদের বিশেষ প্রটেকশান চাইতে চাইতে তাদের আলাদা করে ঘেরাও দিয়ে পৃথক  রাষ্ট্রীয় দেওয়াল তুলেছিলেন। কিন্তু তাতে পাকিস্তানী মুসলমানদের মুক্তি তো  আসেইনি, তারা বরং সামরিক-মোল্লাতন্ত্রের হাতে আরো কয়েদ হলো। অন্যদিকে  সংখ্যাগরিষ্ঠের ভীড়ের ভেতরে আলাদা পকেটের মতো সংখ্যালঘুর অভয়ারণ্য তৈরি  করাও অসম্ভব। ভারত সেই অসম্ভাব্যতা নিয়ে জ্বলন্ত আছে চোখের সামনে।

পুরো সমাজটাই নিরাপদ না করে সমাজবদ্ধ মানুষকে সংরক্ষিত বনাঞ্চলের মতো আলাদাভাবে রক্ষা করা যায় না। তাদের বাড়ি-পাড়া-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে পুলিশ বসিয়ে রাখা মানে নিরাপত্তার স্বার্থে মন্ত্রী-মিনিস্টারদের মতো তাদের বিচ্ছিন্ন  করে ফেলা। এধরনের বিশেষ প্রটেকশানের ঘেরাটোপ সংখ্যাগুরুর চাপে যেমন ভেঙ্গে  পড়বে, তেমনি নিরাপত্তা-দেওয়ালের মধ্যে আটকে থাকতে থাকতে তাদের  সামাজিক-সাংস্কৃতিক-অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক এমনকি জৈবিক শক্তিও লোপ পাবে।  আমেরিকায় রেড ইন্ডিয়ানদের বেলায় এই বিশেষ প্রটেকশানের ফলাফল খেয়াল করুন।

সংখ্যাগুরু প্রচণ্ড সাম্প্রদায়িক আক্রোশে জঙ্গি হলে রাষ্ট্রশক্তি যে তাদের ঠেকাতে  ব্যর্থ হয় ভারতের বাবরি মসজিদ কাণ্ড তার উদাহরণ। আবার সেই ঘটনাকে ব্যবহার  করে ফায়দা তুলতে এরশাদশাহীর চেষ্টা সত্বেও সামাজিক প্রতিরোধের কারণে সেসময়  ঢাকায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাঁধানো যায়নি।

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক  হামলার ইতিহাস, এমনকি চলতিপথের সাঁথিয়ায় দেখেছি, পুলিশ-প্রশাসন-মন্ত্রী নয়;  সেখানে আক্রান্তরা সহযোগিতা পেয়েছেন প্রতিবেশী মুসলমানদের কাছে। অর্থাৎ  সমাজকে সাম্প্রদায়িক জীবাণুমুক্ত করতে হলে সমাজের প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে  হবে। তা সম্ভব সর্বসম্প্রদায়ের ঐক্যকে এগিয়ে নেওয়ার জীবনীশক্তি জোরদার করার মাধ্যমে। হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানদের সাম্প্রদায়িক ঐক্য কেবল মুসলমানের  পাল্টা সাম্প্রদায়িক ঐক্যকেই সাহায্য করে।

সুতরাং বিশেষাধিকারের  নামে রাষ্ট্রকে মাতব্বরি করতে ডাকা, সংখ্যালঘুকে আরো একঘরে করবার নিদান  কেবল অবাস্তব ও অপ্রয়োগিকই নয়; তা সামাজিক-অচ্ছ্যুতকরণেরই (Social  out-casting) ছদ্মবেশী রূপ। এই কায়দাতেই তো সুশীল এনজিওবাদীরা  প্যাট্রন-ক্লায়েন্ট রিলেশন গড়ে আর যুদ্ধবাজ ন্যাটো মানবিক ইন্টারভেনশনিস্ট  কায়দায় সংখ্যালঘুকে জিম্মি করে সংখ্যাগুরুর ওপর চালায় গণহত্যা।  যুক্তরাষ্ট্রের কায়দাতেই ভারতের অনেকে হিন্দুদের রক্ষায় বাংলাদেশে সামরিক  হস্তক্ষেপের ডাক দেন, আহমেদ শামীমের বিশেষ প্রটেকশানের রাস্তা, তারই  ফেউগিরি করে। বিশেষ প্রটেকশানের অনিবার্য পরিণতি ‘হিন্দু বঙ্গভূমি’  প্রতিষ্ঠা।

সুশীল সমাজ সর্বদাই বিশেষ প্রটেকশানবাদী। তাদের মডার্ন  ডায়গনস্টিকস অ্যান্টিবায়োটিক, সার্জারি, টেস্টমেস্টে ভরপুর; কিন্তু  স্বাস্থ্যকর জীবন ও পরিবেশ তারা দিতে অক্ষম। সাম্প্রদায়িকতা হলো রোগের  লক্ষণ, এর গোড়া রয়েছে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতার অসম বিভাজনের মধ্যে।  রোগ ভুলে সিম্পটম নিয়ে থাকলে যা হয়, সেটাই হয়েছে আহমেদকৃত মার্কসের জুুয়িশ  কোশ্চেনের খণ্ডিত পাঠে। যাহোক, সাঁথিয়ার পরে বিশেষ প্রটেকশন আর  ‘অসাম্প্রদায়িক’ শক্তির হস্তক্ষেপে আস্থা আরো টলে গেছে অনেকের। আমি জাতি  হিসেবে বাঙালি, নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশি এবং প্রজাতি হিসেবে মানুষ পরিচয়ের  মিলমিশের ভিত্তিতে নাগরিক মুক্তি ও সামাজিক সংহতি অর্জনকে কর্তব্য জ্ঞান  করি। নিরন্তর সংগ্রামেই দীর্ঘমেয়াদে সাম্প্রদায়িকতার রূপান্তর সম্ভব বলে  মনে করি। তখনো হিন্দু হিন্দুই থাকবেন, মুসলমান মুসলমান থাকবেন, নাস্তিক  নাস্তিক থাকবেন, কিন্তু তাদের এই পরিচয়ভিন্নতা দেশভাগ-সমাজভাগ-হৃদয়ভাগের  সর্বনাশ ঘটাবে না।

তার জন্য, আবারো বলছি: “হিন্দুর সমানাধিকার  ছাড়া সব মুসলমানের সমানাধিকার অর্জনও যে অসম্ভব সেই বুঝ মুসলিমদের মাথায়  আসতে হবে। আমি তাই কারো বিশেষাধিকারের পক্ষে যেতে পারলাম না।”

PART 3: সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্প্রদায়িকতা প্রশ্নে বোঝাপড়ার দুর্দশা

 Ahmed Shamim

নাম নেওয়া হয়নি তাই কেউ নিজেকে ভাসুর নাম দিয়ে নিতেই পারেন। এই ভাসুর-নাম-দেওয়া কার্যের সমানে সমানে যা ফলানো হয় তা হচ্ছে: নাম-দেওনেওয়ালা, যারা তার নাম নেয় নাই, তাদের ছোট ভাইয়ের বধূ বানিয়ে ফেলার বাসনা। এমত বাসনা পুরুষতান্ত্রিক কি না সেই প্রশ্ন এখানে মুখ্য নয়– যা আপাতত মুখ্য তা হচ্ছে তার নাম কেন নিলাম না; তার নাম নেওয়া হয় নাই তার যুক্তিসংগত কারণ আছে– আর সে কারণকে হিশাবে না আনার মনোবৃত্তিই হয়তো তাকে এই বাগধারা খেলায় নিয়োজিত করেছে। যাহোক, বেসুর বাওয়ারের ওপর শশুর মার্কসের পর্যালোচনার পাটাতনে দাড়িয়ে বাংলাদেশে ‘হিন্দু সমস্যা’র প্রতিষেধক আবিষ্কার করে ফেললেন ভাসুর ফারুক ওয়াসিফ, অথচ একটাবারও তাদের নাম নিলেন না, কিন্তু আমার লেখায় ওয়াসিফের নাম নেইনি বলে তিনি গাল ফুলালেন! অন্যদিকে আমি বাওয়ারের রেসিপি অনুযায়ী যারাই সমাজে ‘হিন্দু সমস্যা’র প্রতিষেধক বানায় তাদের একপক্ষে রেখে আমার সমালোচনার উদ্দেশ্য করেছি, কারণ এমন ভাবনার ভাবুক ওয়াসিফ একা নন, তদুপরি ফারুকের লেখার পুরোটা ওই ভাবনাকে প্রতিনিধিত্বও করে না; এখন এমন একজনের নাম নিলে তার ঘাড়ে সব চাপানো হলো এই ভ্রম তৈরি হতে পারে, এবং আর সবাই দায়মুক্ত বোধ করতে পারে- এই বাবদে- ওর নাম নেওয়া ছহি হয় না। তবু, চিন্তাজগতের রেওয়াজ নিজেই ভেঙ্গে আমাকে দেখলেন তিনি তার আয়নায়! এটুকু বলে পারিবারিকসম্পর্কগত বাগধারার খেলা থেকে আমি নিজেকে বিরত রাখতে চাই। তর্ক হবে যুক্তির সূত্রে– অলংকারও তাতে থাকতে পারে। তবে যুক্তি তর্ক গপ্পোই হোক।

১.

“সাম্প্রদায়িকতা হলো রোগের লক্ষণ, এর গোড়া রয়েছে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতার অসম বিভাজনের মধ্যে। রোগ ভুলে সিম্পটম নিয়ে থাকলে যা হয়, সেটাই হয়েছে আহমেদকৃত মার্কসের জুুয়িশ কোশ্চেনের খণ্ডিত পাঠে।”- ফারুক ওয়াসিফ।

মার্কসের কথা হল, সমাজে মূলত দুই রকমের বৈষম্য আছে– সামাজিক ও রাজনৈতিক, এবং সামাজিক বৈষম্য হল আদিকারণ। কিন্তু সামাজিক বৈষম্য রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বৈষম্যের মূল হলেই যে পরে উল্লেখিত বৈষম্যাদি নেহাত লক্ষণ তথা অ-স্বতন্ত্র সমস্যায় পরিণত হয় তা কিন্তু না। নিঃসন্দেহে সাম্প্রদায়িকতা একটা সামাজিক সমস্যা, অর্থাৎ তা সমাজ গঠনের কাঁচামাল (এই বিষয়ে বিশদ সর্বজনে প্রকাশিত গুজব ও সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে নাজমুল সুলতানের লেখায় দ্রষ্টব্য); কিন্তু এই কথা থেকে কেউ যদি দাবী করে যে সাম্প্রদায়িকতার কারণ যেহেতু সামাজিক, তার কার্যকে রাজনৈতিক, আইনশাস্ত্রীয়, সাংস্কৃতিক আপন আপন পরিমণ্ডলে মোকাবিলা করা যাবে না। ঐমত দাবী রিডাকশনিজমের পুনরাবৃত্তি বৈ কিছু নয়। অর্থাৎ ফলাফলকে কারণের ভেতর ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা। স্বয়ং মার্কস বলে রেখেছেন রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক বৈষম্যের প্রতিবাদ তার আপন পরিমণ্ডলে যেমন হওয়া দরকার, তেমনি তার সামজিক সূত্রের জায়গা থেকেও করা দরকার। এ বাবদে, সাম্প্রদায়িকতাকে নেহাত লক্ষণ আকারে দেখাটা হল রিডাকশনিজম প্রসূত– সাম্প্রদায়িকতা যে একটা স্বতন্ত্র বস্তু (তার আদিকারণ নির্বিশেষে) তা অস্বীকার করা মানে সাম্প্রদায়িকতার সমস্যাকে মোকাবিলা করার জন্য রাজনৈতিক ও সামাজিক উভয় পরিসরে যুগপৎ লড়াইয়ের যে বুঝটা লাগে তা অর্জন করতে না পারা। রোগ এবং লক্ষণের সে কথাই প্রকাশ করে।

ফারুক ওয়াসিফের “সাম্প্রদায়িকতার অ্যান্টিবড়ি কোথায় পাব?” লেখাটি পড়লে দেখা যায়, ব্রুনো বাওয়ার যেসব যুক্তির জোরে ইহুদি প্রশ্ন ফরমুলেট করেছেন, ওয়াসিফও অংশত ওসব যুক্তি ব্যবহার করে ‘হিন্দু সমস্যা’ ফরমুলেট করেছেন। পাঠক পাশাপাশি রেখে মিলিয়ে দেখতে পারেন। মার্কস তার ‘ইহুদী প্রশ্ন প্রসঙ্গে’ বাওয়ারের ওই যুক্তিগুলো তুলে ধরে সমালোচনা করেন। এখন মার্কসবাদী ওয়াসিফ যদি বাওয়ারের যুক্তিগুলোরই পুনরোৎপাদন করেন, তবে বলতে হবে মার্কসের সমালোচনা তিনি পাতে তুলছেন না। মার্কস বাওয়ারের ভুল ধরিয়ে দিয়েছিলেন। বাওয়ারের ভুলটা ছিল ট্রাজিক, একই ভুল যখন ওয়াসিফ করলেন তখন তাকে, মার্কসেরই মতানুসারে, ফার্স ছাড়া আর কীইবা বলা যায়। তার (এবং আরো অনেকের) সংশ্লিষ্ট যুক্তিগুলোর সমালোচনা, বা ভুল ধরিয়ে দেওয়ার জন্য ‘ইহুদী প্রশ্ন প্রসঙ্গে’-র যেটুকু তুলে ধরার দরকার মনে করেছি ততটুকুই তুলে ধরেছিলাম। ওয়াসিফ সমালোচনা সহ্য করতে পারলেন না অথবা নিজের ভুলটুকু বুঝতে পারলেন না; উল্টো তেড়ে এলেন ত্যারা ত্যারা কথা নিয়ে, খণ্ডিত পাঠের অভিযোগ নিয়ে। এখন, কথা হল, খণ্ডকে না বুঝে অখণ্ডকে সরাসরি বুঝে ফেলার দাবীর মত আরেকটি ধ্রুপদী ভাববাদী ভুলে মশগুল হলে চলে কী করে!

২.

“আহমেদ শামীম কয়েকটা সমস্যা বাঁধিয়েছেন। হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদ যে অসাম্প্রদায়িকতাকে শক্তিশালী করার বদলে, সাম্প্রদায়িক ইন্ধনের মজুদ কমানোর বদলে, তাকে আরো পুনরুতপাদিতই করে, ওই লেখায় সেটা আমি আলবত আলোচনা করেছি। তিনি ঐক্য পরিষদের লাইনের সমালোচনাকে সমগ্র হিন্দু সমাজের সমালোচনা হিসেবে আমার বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেছেন।” -ফা.ও.

রেটোরিকের তোড়ে ওয়াসিফ তর্কটা নিয়ে গেলেন এই জায়গায়: উনি চান হিন্দু-মুসলিমের ঐক্য, আর আমি আছি বিভেদের লাইনে। এই তর্ক অর্থহীন– অক্ষম আবেগের দিকে আবেদনের অধিক কিছু নয়। বলাইবাহুল্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আমরা দুইজনেই চাই। হিন্দু প্রশ্ন বা আদিবাসী প্রশ্ন যে বাংলাদেশের আর সকল জনগোষ্ঠীর প্রশ্ন তা নিয়েও কেউ দ্বিমত পোষণ করবে না। তর্কটা হচ্ছে কীভাবে  সেই ঐক্যে পৌঁছানো যায় তা নিয়ে। ওয়াসিফের সমাধানটাকে এইভাবে সূত্রবদ্ধ করা যায়: সাম্প্রদায়িক ঐক্য দরকার। এবং সেই ঐক্যে পৌঁছানোর পথ হচ্ছে হিন্দু মুসলমানের ঐক্য মঞ্চ। তার সমাধান একটি পূর্বানুমানের উপর দাড়িয়েছে: হিন্দুর নিজস্ব মঞ্চ থাকলে তা মুসলমানের নিজস্ব মঞ্চ তৈরিতে জ্বালানি যোগাবে। সাম্প্রদায়িকতা তাই পুনরোৎপাদিত হবে।

সাম্প্রদায়িক ঐক্য নিয়ে ওয়াসিফবৎ সুবাসনা চরাচরে অসংখ্যজন বহন করেন। এটা নিয়ে তর্ক না। এই তর্কের সমস্যাগুলো এই জায়গায়:

ধরা যাক, হিন্দু এবং মুসলমান এক মঞ্চে আসল। এখন সমাজে মুসলমান বড়, হিন্দু ছোট। ছোট এবং বড় এক হলে বড়দের টার্মে ছোট এবং বড় মিলিত হয়। এই ঐক্য দিয়ে আমরা কি করব? হিন্দু এবং মুসলমানের ন্যায্য ঐক্যের পূর্বশর্ত হচ্ছে তাদের সমান সমান আকারে এক হওয়া। এটা কীভাবে হতে পারে? সমান রিকগনিশন কেউ কাউকে দিতে পারে না। এইটা অর্জন করতে হয়– এই অর্জন করার পূর্বশর্ত হচ্ছে হিন্দুর স্বতন্ত্র এবং স্বাধীন কর্তা হিশাবে হাজির হওয়া। এটা হওয়ার জন্য হিন্দুকে সোনার পাথরবাটি নামক ঐক্যের নাম নেওয়ার দরকার নাই (বাওয়ের যেমন বলেছিলেন ইহুদীদের উচিত হবে চিরন্তন মানব এবং চিরন্তন জার্মানের ঐক্যগানে নিজেকে মিলিয়ে দেওয়া), নির্যাতিত জনগোষ্ঠী আকারে হিন্দুদের নিজেদের পরিচয়কে নিশ্চয়তা দিতে হবে। সমানে সমানে এক হলেই তবে ঐক্য নামের জীবনীশক্তি নির্মাণ হয়। না হলে বিদ্যমান বৈষম্যকে এক করে জগাখিচুড়ি নামক মুসলমান-নির্দেশিত ঐক্য বৈ কিছু হবে না। আমাদের দাবি তাই দ্বিফলাযুক্ত-ই– একদিকে আমরা যেমন সমকক্ষ হওয়ার মাধ্যমে হিন্দুদের রাজনৈতিক অধিকার আদায়কে সমর্থন করি, তেমনি বিদ্যমান অবিচার ও বৈষম্য নিরসনের জন্য রাষ্ট্রের কী কর্তব্য তাও বলে রাখি। এটি আত্মবিরোধিতা নয়– বরং একই রাজনীতির প্রতি দুই ভিন্ন কর্তাসত্তার (তথা হিন্দু জনগোষ্ঠীর কর্তাসত্তা আর রাষ্ট্রের কর্তাসত্তা) কী ভূমিকা তা নির্দেশ করা।

ওয়াসিফের পূর্বানুমানটির পর্যালোচনা: হিন্দু নিজের নির্যাতিত পরিচয় কে গ্রহণ করে জনগোষ্ঠী আকারে সংগঠিত হলে মুসলমান সাম্প্রদায়িকতা পুনরোৎপাদন করবে এটা অমূলক। সাম্প্রদায়িক হুমকির কাছে আত্মসমর্পণ করে নিরাপদ পথ খোঁজার মত। অথচ হিন্দুর পরিচয় ঢাকা থাকলেই বরং এই সাম্প্রদায়িকতা প্রশ্রয় পায়। মুসলমান যখন হিন্দুকে হিন্দু বলে এবং সমান্তরালে সমান নাগরিক বলে স্বীকার করতে পারবে তখনই সাম্প্রদায়িকতা নিরসনের ভিত্তি নির্মিত হবে। আর মুসলমান ক্ষেপে  যাবে এই ভয়ে হিন্দু ঐক্য নামের অসম পাথরবাটি আঁকড়ে থাকবে তা কোন আর্গুমেন্টের ন্যায্য পাটাতন হতে পারে না। তদুপরি, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ সাম্প্রদায়িকতার দোসর বলার মধ্য দিয়ে দুইটা ভুল করা হয়। প্রথমত, সংখ্যাগরিষ্ঠের সাম্প্রদায়িকতার মোকাবিলা না-হিন্দু হয়ে করার উপদেশ দেওয়া। দ্বিতীয়ত, হিন্দু সমাজের  প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠনের প্রয়োজনীয়তাকে অস্বীকার করা। ওয়াসিফ যদি হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের আওয়ামী-লেজুড়বৃত্তির রাজনীতির সমালোচনা করেন, এই সংগঠন কীভাবে নিপীড়িত জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করতে পারে সে কথা বলে নিতেন, তবে আমাদের এত কথা বলতে হত না। না, তিনি এই নির্যাতিতের আপন নামে প্রতিনিধিত্বের রাজনীতিরই অবসান চান।

অথচ প্রতিনিধিত্ব ছাড়া জনগোষ্ঠী বলে অলীক কোনো জিনিশ নাই। রাজনীতিতত্ত্বের মৌলিক শিক্ষা এটা। হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের রাজনীতি পছন্দ না হওয়ায় তিনি চান হিন্দুর প্রতিনিধিত্ব সর্বধর্মীয় প্রতিনিধিত্বে বিলীন করে দিতে। ছোট আর বড়ের এই অলীক মিলনের কাহিনিই তো যুগে যুগে সাম্প্রদায়িকতার পুনরোৎপাদন করে আসছে! জার্মানদেশের মার্ক্স তো বটেই, বাড়ির কাছের পড়শি শ্রী  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথায়ও এই মর্মে সমর্থন পাই: “ভারতবর্ষে হিন্দুতে মুসলমানে প্রতিনিয়তই পরস্পর রফানিষ্পত্তির কারণ ঘটবে। অসমকক্ষতা থাকলে সে নিষ্পত্তি নিয়তই বিপত্তির আকার ধারণ করবে। ঝরনার জল পানের অধিকার নিয়ে একদা বাঘ ও মেষের মধ্যে একটা আপোষের কন্‌ফারেন্স বসেছিল। ঈশপের কথামালায় তার ইতিহাস আছে। উপসংহারে প্রবলতর চতুস্পদটি তর্কের বিষয়টাকে কিরকম অত্যন্ত সরল ক’রে এনেছিল সে-কথা সকলেরই জানা আছে। ভারতবর্ষের কল্যাণ যদি চাই তা হলে হিন্দু-মুসলমানে কেবল যে মিলিত হতে হবে তা নয়, সমকক্ষ হতে হবে। সেই সমকক্ষতা তাল-ঠোকা পালোয়ানির ব্যক্তিগত সমকক্ষতা নয়, উভয়পক্ষের সামাজিক শক্তির সমকক্ষতা।”

৩.

“আমার প্রশ্ন ছিল সাম্প্রদায়িক হামলা ঠেকানোর উপায় নিয়ে না, খোদ সাম্প্রদায়িকতাকে দূর করার ব্যাপারে। এর মানে এই না যে দাঙ্গাবাজদের ঠেঙাতে পুলিশ আসবে না, অপরাধীদের দ্রুত বিচার আদালতে পাঠাবে না, রাষ্ট্র মাইনরিটি কমিশন গঠন করবে না, অর্পিত সম্পত্তি আইন বাতিল এবং ন্যায্য মালিকদের হাতে সম্পত্তি প্রত্যার্পণ করবে না, সাম্প্রদায়িক ভেদবিচারচিহ্নধারী সব বিধিনির্দেশ, আচার-ব্যবহারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র নিরন্তর সজাগ থাকবে না। অবশ্যই থাকবে।”- ফা.ও.

একদম। কিন্তু রাষ্ট্র নিরন্তর সজাগ থাকবে কী করে? রাষ্ট্রকে এ ব্যাপারে সজাগ রাখার জন্যই আইনের কথা বলেছি। এখানে আইনকে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকাণ্ডের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলাটাতো কাঁচা কাজ হয়ে গেল। আইনের সংস্কৃতি-গঠনের ভূমিকাকে ভুলে গেলে চলবে কী করে! মাইনরিটি কমিশন গঠন ও এর সংগে নেগোশিয়েন ও বার্গেনিংয়ের জন্য মাইনরিটির ঐক্য পরিষদের প্রয়োজনীয়তা নাই মনে করলেতো চলে না। কারণ, সাম্প্রদায়িক ভেদবিচারচিহ্নধারী সব বিধিনির্দেশ, আচার-ব্যবহারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র নিরন্তর সজাগ আছে কি? সাধারণত নেই। তাই বিশেষ অধিকার আইন আপন করে জাগিয়ে দেওয়ার দাবী উঠল। অধিকারের ভাগ-বাটোয়ার রাষ্ট্র এভাবে (ভার)সাম্য আনতে পারে। পুনর্বার রবীন্দ্রনাথের বরাতেই এর সমর্থন পাওয়া যায়ঃ, “হিন্দুতে মুসলমানে কেবল যে এই ধর্মমত ভেদ তা নয়, তাদের উভয়ের মধ্যে একটা সামাজিক শক্তির অসমকক্ষতা ঘটেছে… এদের মধ্যে সমকক্ষভাবে আপোষ ঘটবে কী ক’রে। অত্যন্ত দুর্যোগের মুখে ক্ষণকালের জন্যে তা সম্ভব, কিন্তু যেদিন অধিকারের ভাগ-বাটোয়ারার সময় উপস্থিত হয় সেদিন সিংহের ভাগটা বিসদৃশরকম বড়ো হয়ে ওঠে, তার কারণটা তার থাবার মধ্যে।”

৪.

“মুসলিমের বিশেষাধিকার হলো তার সংখ্যাগরিষ্ঠতার দেমাগ ও প্রতাপ; আর হিন্দুর বিশেষাধিকার হলো তাকে বিশেষভাবে প্রটেকশান দেওয়া।”‍-ফা.ও.

বাংলাদেশের মুসলমানের অধিকার কী করে বিশেষ অধিকার হল! সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোগকরা অধিকারকে বিশেষ হিসেবে দেখার সুযোগ নাই। বাংলাদেশে মুসলমানের অধিকার হল স্বত: সাধারণ অধিকার- এটাই যেন চল- সেভাবেই চলে আসছে। এই চলের তলে পিষ্ঠ সংখ্যালঘুজন যখন তাদের অধিকার চায়, তখন মুসমানের অধিকারটিকেও বিশেষভাবে দেখা ও দেখানো কি পানি ঘোলা করে খাওয়ার মতো হয়ে গেল না! এতো নারী নির্যাতন নিয়ে বিশেষ আইনের দাবীর বিপরীতে পুরুষ নির্যাতন বিরোধী আইনের দাবী তোলার মত ব্যাপার হল। পুরুষ নির্যাতন বিরোধী এমত আইনের দাবী বিদ্যমান আইন যে পুরুষেরই আইন সেটাকে ঢেকে দেয়।

৫.

“সমাজকে সাম্প্রদায়িক জীবাণুমুক্ত করতে হলে সমাজের প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে হবে। তা সম্ভব সর্বসম্প্রদায়ের ঐক্যকে এগিয়ে নেওয়ার জীবনীশক্তি জোরদার করার মাধ্যমে। হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানদের সাম্প্রদায়িক ঐক্য কেবল মুসলমানের পাল্টা সাম্প্রদায়িক ঐক্যকেই সাহায্য করে।”- ফা.ও.

ওয়াসিফের এই কথার প্রথমাংশে আছে বেশ সরলীকৃত সুন্দর কথা; আর শেষাংশে পাওয়া আছে আমেরিকার নিও কনজার্ভেটিজম মন্ত্রের অনুরণন: আমেরিকায় আফ্রিকান আমেরিকানদের বিশেষ অধিকার নিয়ে যারা সোচ্চার তাদের বিরুদ্ধে উল্টো রেসিজমের অভিযোগ তোলা হয়। নিও কনজার্ভেটিভরা যেমন বলেন- তারা কালার ব্লাইন্ড। রঙ নিয়ে রাজনীতি করা হল রংবাজী। ভাবখানা এমন রঙ না দেখলেই যেন বর্ণবৈষম্য দূর হয়ে যাবে! সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক সম্পর্ক যেখানে অসম সেখানে রাষ্ট্রের চোখ যদি ছোট ও বড়োকে তাদের বিদ্যমান অবস্থার নিরিখে “সমান”ভাবে দেখে তবে বিদ্যমান অসমতা-ই তো পুনরোৎপাদিত হবে। নিও-কনজার্ভেটিভদের রাজনৈতিক কূটবুদ্ধির বলিহারি। আর আমাদের বিশ্বাস ফারুক ওয়াসিফ যুক্তির ভুলে সে ফাঁদে পড়েছেন, নিশ্চয়ই সদিচ্ছার ঘাটতিতে নয়।

প্রাসঙ্গিক রচনাসমূহ:

আহমেদ শামীম: “হিন্দু প্রশ্ন” প্রসঙ্গে

http://goo.gl/8t59QV

কার্ল মার্কস: অন দ্য জুয়িশ কোশ্চেন

http://goo.gl/aQ8zKx

ফারুক ওয়াসিফ: সাম্প্রদায়িকতা: হিন্দু প্রশ্ন আসলে মুসলিম প্রশ্নও বটে

http://goo.gl/vxufKK

সাম্প্রদায়িকতার এন্টিবড়ি কোথায় পাব?

http://goo.gl/I102Xh

নাজমুল সুলতান: চন্দ্রপৃষ্ঠে সাঈদী, নিম্নবর্গবাদ ও রাজনীতির বিলোপ

http://goo.gl/xuizLp

(খসড়ায় মন্তব্যযোগে সহায়তার জন্যও নাজমুলকে ধন্যবাদ)

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর: সমস্য

http://goo.gl/gBspv2

Ahmed Shamim is a teacher, researcher & grad student at CUNY. Faruk Wasif is a writer,  journalist and activist, and a graduate in Bengali from Jahangirnagar University.

7 comments

  1. …….When Bangladesh gains social-political freedom and becomes a secular state, perhaps, this law can be repealed…
    1) Everyone, including the writer, please revisit the definition of ‘secular’! You cannot have secularism & religion in the same package. You can be ‘liberal’ and religious but never secular and religious. So please go through the elaborate definition of secularism. Oh.. and don’t be emotive – I am not puritanical Wahabi type of Muslim with beard!
    2) Please stop writing in clumsy Biblical english. This is just a blog so let people enjoy the flow of writing instead of showing off your grammatical pedantries!
    No hard feeling please.

    • Please don’t control people about what sort of English they should use. If there’s a different language you seek, please do write in that language and send us your submissions and we will consider them like we consider all submissions. But don’t try to “kharij” others. Eta amader jatiyo bodobhyash.

      There are many “just a blogs” where people don’t want to engage in serious debates. We are not that blog.

      We gave this challenge earlier this year.

      https://alalodulal.org/2013/03/03/bangla-blogs/

      Nobody responded, so we decided to be a platform for “grown up” debates.

    • I beg to differ. You can be secular and religious, and in fact, you cannot be secular unless you respect and understand religion. Secularism cannot be anti-religion. So, just to revisit political science/philosophy 101: Secularism refers to the separation of religion and politics. It doesn’t mean removing religion “from the package”.

      • Really? No true Scotsman, sorry “secularists”. Weren’t the Soviet Union, China, Albania et all so called “secular” states? These secularists repression of religion doesn’t count because you say so? Bearing in mind that many of our own “secularist” intellectuals were avowed admirers of those same aforementioned states at one time or another…

  2. Thamen bhai.. ei proshongo ta niya debate kora tah illogical mone hoche.. I think forming a “Hindu-Budha-CHristian Unity COuncil” never helps.. as Faruk Wasif pointed out it actually instigates communal-ism. Considering the fact that both of the debaters come from an Urban set-up, we have no idea of how easy it is in a rural setup to instigate a mob attack on an opposite community. So this heated debate is as pointless as the “Unity COuncil’s attempt to stop communal violence.

    • Debate is never pointless. At least Wasif and Shamim are debating with words, not violence– the way our political “leaders” settle debates. My hats off to both of them for still caring enough about these issues to debate them.

  3. I just read the two pieces. I don’t know what to make of the discussion. To be general I did not find the discussion relevant, insightful and with a right focus based on an understanding of the context. I would like to know the reasons why proportionally the Hindu population is reducing in Bangladesh. Without knowing this how can one even attempt to find a solution. How comes the AL when in power cannot protect the Hindus from attacks by Muslims? Soon after an incident when Hindu population, business or property is targeted the police, certain sections in Bangladesh society and AL quickly blame Jamaat and BNP, which is then denied by the Jamaat and BNP, who say it is the AL who did it to blame Jamaat and BNP. Sometimes the media subsequently shows AL connection sometimes it does not.

    There can be several possible reasons for the proportional reduction of the Hindu population in Bangladesh. First, fear of violence may frighten many to leave their homes for India. Second, some may be using the persecution card to go to India to seek better economic opportunities. India always complains that Bangladeshis, including Muslims, are illegally crossing into India and changing the demographic profile. The exact number and scale of this, I don’t know, but perhaps the Hindu Bangladeshis going to India receive a better welcome. Third, is the birth rate of Hindus lower than Muslims in Bangladesh? Fourth, discrimination faced by Hindus in education, jobs and in social life may be another reason. Fifth, how many Hindus who left East Pakistan during 1971 War actually came back after the liberation of Bangladesh? I guess all these reasons are part of the explanation, rather than one factor being responsible for the problem.

    In India there are regular communal violence against Muslims and widespread discrimination at different levels, but the Indian Muslims do not have any place outside the country to go and perhaps they do not want to go. In Bangladesh frightened Hindus or those who are just fed up with living in country dominated by Muslims can decide to try and go to India. I think when the Bangladeshi society is divided into two and the conflicts between BNP and AL are so deadly there is no possibility of finding a lasting solution. However, efforts can be made to improve things for Hindus and other minorities in Bangladesh. Militant secularism and Bengali nationalism have been a disaster to Bangladesh, causing, in my view, immense problems for Bangladesh including communal relationships. We should move away from both militant secularism / Bengali Nationalism and militant Islamic state ideas. The goal should be pluralism and respect for all. Poor thinking / imagination and unnecessary political conflicts are the main barriers to finding a lasting solution.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s