Tandra Chakma: Justice for Sabita and some related issues

Justice for Sabita. © Trimita Chakma.
“Justice for Sabita.” © Trimita Chakma.

Justice for Sabita and some related issues
By Tandra Chakma. Translated by Tibra Ali for AlalODulal.org

According to UN Women 25th of February is “Orange Day.” Every year this day is observed around the world as part of the campaign calling for end of violence against women.

Just the other day, on the 15th of February, in Kamalchari area of Khagrachari district in Bangladesh, a woman named Sabita Chakma was raped and then killed, according to a lodged complaint. The day Sabita was killed a group of labourers on a sand carrying construction truck were seen in the area. On Sabita’s body grease and soot from a truck was found as evidence. Despite bringing this to the administration’s attention none of the labourers’ names have been mentioned in the FIR (First Information Report). To protest this the Women’s Resource Network Committee has refused to allow any truck entrance to the Kamalchari neighbourhood. They have informed that until the women of the area feel safe they will continue to barricade the roads.

My point of view is that the women of Kamalchari have no other option. Till this day the women of Chittagong Hill Tracts have seen no justice for the violence done against them. With each passing day the situation is becoming more and more intolerable. Because those who commit these crimes know well that they won’t be brought to justice. So it shouldn’t be surprising if the women take the law into their own hands to ensure their safety. Even as a human rights activist I support such an action.

On the other hand on the morning of the 25th a few Bengali settlers, under the banner of Bengali Chhatra Parisad, formed a human chain in the city of Khagrachari. Their complaint is that instead of identifying the real culprits the Paharis are blaming Bengali settlers. On their way back from the demonstration, these people entered the village of Kamalchari and attacked the residents there. Two Paharis were seriously injured in the attack. [1]

If we look at the past we see that the case of Kalpana Chakma’s disappearance has never been solved. Those involved are roaming around the place like heroes. Many atrocities have been committed since then. Sagari, Sujata, Panemala, the list of names of victims is endless. Our capacity for tolerance has grown thin. How much longer can we just be spectators? No matter how much the UN or UN Women observe days to end violence against women, it will not have any effect on decreasing the violence against indigenous women. The real reason for the attack by the settlers of Kamalchari is to try to divert attention from the rape and murder of Sabita Chakma. Because just days ago the officials of the Sadar Police Station of Khagrachari have said that if the guilty parties are swiftly arrested then it will lead to a communal riot [2]. This is a very worrying statement. When those who are in charge of protecting the law and order make statements like these where will the women of Khagrachari go to demand justice? Who will assure them protection? We need to think of this deeply. As I was writing this piece another development has taken palce for whose description I am copying here Tipu Chakma’s Facebook status:

“On the 25th of February, around two-thirty in the afternoon, a school girl was raped in the Ramshira area of Matiranga upazila, of Khagrachari district. Those accused are — Mohammad Taru Mia (20), father’s name Mohammad Lal Mia, village — Ramshira, and Khalek Mia (20), father’s name Abdur Rahim, village — Master Para, Matiranga, Khagrachari Zila.

“It has been reported that the school girl stays at a relative’s residence in the Gachban area of Khagrachari Sadar area for the purpose of education. Due to the fact that the school was on vacation she went home 2 to 3 days before. To prepare for her return to Khagrachari on the afternoon of Tuesday she went to the nearby wooded area to collect some vegetables. At this time, finding her alone, the two accused put their hands on her mouth and raped her one after another. However, the school girl was able to scream out. Hearing her cries people from surrounding area rushed to her rescue.

“The victim is known to be a 9th grade student of the Khagrachari Technical School and College. Her house is in the Pran Kumar village of Amtali union in Mati Upazila.

“It has been reported that the rape victim has been sent to the Khagrachari Sadar Hospital for treatment”

The picture of the state of Adivasi (indigenous) women’s right that emerges from a recent report by the Kapaeeng Foundation is like this:


“The state of Adivasi Women:

“Even though the fight to win the rights of Adivasi people has gained significant momentum, from a socio-economic point of view the state of Adivasi women is still on the edge. Due to the racist official policies there are still no seats reserved for Adivasi women either at the level of local government council or the National Assembly. There are even some political reason for the extreme situation of the rights of Adivasi women and children. The absence of recognition of the Adivasis in the Constitution, the lack of political participation of Adivasi women in the structure of the government and the traditional institutions, the lack of support from the law for Adivasi women and children who have been victimized and the absence of exemplary punishment for the perpetrators of violence, the failure to realize the Peace Accord of 1997, the continued militarization of the Chittagong Hill Tracts etc. have all contributed to pushing the Adivasi women to a more fragile and extreme condition. On top this the Adivasi women have been victims of murders, killings following rape, attempted rape, physical abuse, sexual harassment, kidnapping, trafficking etc. In 2013 widespread sexual harassment and female trafficking have added a new level to the violence in the Chittagong Hill Tracts.

“In 2013, the number of Adivasi women and children who have been victims of violence was in total 67, with 54 of them in CHT and 13 in the plains. Of these 15 are women and children who have been victims of rape (12 from CHT and 3 from the plains). The father of one young woman victim have committed suicide unable bear the mental pain. In the CHT 16 children, including 5 girls, who have been forcefully converted to Islam have been rescued from Madrassas. The police has also rescued, from the Dhaka-Khulna Highway and Faridpur-Rajbari Area, 3 Adivasi girls who, it is suspected, were being smuggled to India with false promises of employment. Besides this 6 Adivasi women have been kidnapped and 16 Adivasis have been physically assaulted. Of these 69% are below the age of 18. On the other hand 89% of the perpetrators were Bengali settlers and land-grabbers, while 7% were by Adivasis and 4% by members of the law and order forces.

“A variety of unexpected reasons such as lack of oversight in court cases, complex judicial procedure, lack of awareness, lack of support from the law, lack of enthusiasm to pursue cases due to lengthy court processes, lack of access to funds, the dependence of the families of victims on the government etc., have contributed to a large number of cases related to violation of the human rights of Adivasi women being stalled in the courts. Here it should be mentioned that in September of 2013 the Tribunal to protect women and children from abuse passed the death sentence for a rape case in Chittagong. This kind of news will help create the hope among the Adivasi women that irrespective of the racial identity perpetrators of rape must face the consequences. Needless to say that if the perpetrators keep on getting away without facing consequences the incidents of violence against women can only increase” — Source: Kapaeeng Report.

The perpetrators of the rape and murder of Sabita Chakma are getting away thanks to the excuse of “Pahari-Bengali racial tension”. The point is why is there even a question of tension when there is such a high level of presence of the law-enforcement forces? Is it not really possible to end this tension if there is a genuine will to do so?

There is still time to bring the culprits to justice before the situation becomes even worse. As time passes the water will get even muddier. And the administration will be to blame for this. It is desired that attention will be payed to all the Adivasi issues in that has been discussed in all the forums to this date.

[1] http://cerdc.net/index.php/hr-report/communal-violence-cht/288-breaking-news-indigenous-villagers-of-kamalchari-village-in-khagrachari-hill-district-come-under-communal-attack

[2] Violence against indigenous women rarely get law enforcers’ attention , 22 Feb 2014, Dhaka Tribune, Link: http://www.dhakatribune.com/law-amp-rights/2014/feb/22/violence-against-indigenous-women-rarely-get-law-enforcers-attention

Human chain protesting the rape and murder of Sabita Chakma. Source: The Daily Star.
Human chain protesting the rape and murder of Sabita Chakma. Source: The Daily Star.

সবিতার সুবিচারের অধিকার এবং কিছু কথা

তন্দ্রা চাকমা

আজ ২৫শে ফেব্রুয়ারী UN Women এর ঘোষণা মতে “অরেঞ্জ ডে”। প্রতি মাসের ২৫ তারিখ নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধের জন্য বিশ্ব জুড়ে এই ক্যাম্পেইনের কর্মসূচি পালিত হয়।

এদিকে খাগড়াছড়ির কমলছড়িতে গত ১৫ই ফেব্রুয়ারী সবিতা চাকমা নামে একজনকে অভিযোগ অনিযায়ী ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। সবিতা যেই দিন মারা যায় সেদিন বালুবাহী ট্রাকে কিছু শ্রমিকদের ওই এলাকায় দেখা যায়। সবিতার মৃত দেহে ট্রাকের গ্রীজ ও কালি প্রমাণ হিসাবে ছিল। প্রশাসনকে বলা সত্ত্বেও প্রশাসন বালুর ট্রাকের শ্রমিকদের নাম এফ-আই-আর এ অন্তর্ভুক্ত করেনি।  এর প্রতিবাদে কমলছড়ির উইমেন রিসোর্স নেটওয়ার্ক কমিটির নারীরা তাদের পাড়ায় সম্প্রতি কোন ট্রাক ঢুকতে দেয়নি। নারীরা নিরাপত্তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তারা রাস্তা অবরোধ করে রাখবে বলে ঠিক করেছে।

আমার মতে কমলছড়ির নারী দের এ ছাড়া আর কি বা করার আছে? পার্বত্য চট্টগ্রামে আজ পর্যন্ত কোন সহিংসতার বিচার কখনও নারীরা পায়নি। যতই দিন যাচ্ছে পরিস্থিতি অসহনীয় মাত্রায় চলে যাচ্ছে। কারন যারা অপরাধ করে তারা ভাল করেই জানে তাদের কিছু হবে না। নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে যদি নারীরা নিজেদের হাতে আইন তুলে নেয় তাহলে অবাক হবোনা। মানবাধিকার কর্মী হয়েও তাতে আমার পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

অপরদিকে আজকে সকালে বাঙালি ছাত্র পরিষদের ব্যানারে ভুয়াছড়ি পাড়ার কিছু সেটলার বাঙালিরা খাগড়াছড়ি শহরে মানবন্ধন করে। তাদের ভাষ্যমতে প্রকৃত অপরাধী সনাক্ত না করে পাহাড়িরা বাঙ্গালিদের দোষারোপ করছে। মানবন্ধন শেষে ভুয়াছড়ি ফেরার পথে তারা কমলছড়ি গ্রামে ঢুকে পাহাড়িদের উপর হামলা চালায়। এতে ২ জন পাহাড়ি গুরুতর আহত হন।[1]

আমরা যদি অতীতের দিকে ফিরে তাকাই তাহলে দেখি কল্পনা চাকমার হারিয়ে যাওয়ার কোন সুরাহা হয়নি । যারা জড়িত তারা বীরের মত ঘুরে বেড়াচ্ছে । এর পর আরও অনেক অপরাধ হয়েছে। সাগরি, সুজাতা, পনেমালা এই রকম আরও অনেক নাম বলে শেষ করা যাবে না। আমাদের সহ্য শক্তি কমে যাচ্ছে। আমরা আর কত তাকিয়ে থাকব । UN Women  তথা UN যতই সহিংসতা প্রতিরোধ দিবস করুক আদিবাসী নারীর প্রতি সহিংসতা কমার কোন প্রভাব পড়বে না। আজকে সকালে কমলছড়ির সেটেলার তথা সমধিকার সমর্থিত দলের হামলার বড় কারণ হল সবিতা হত্যার ও ধর্ষকদের আড়াল করা। কারন কিছুদিন আগে খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন আসামীদের তাড়াতাড়ি গ্রেফতার করলে সাম্প্রদায়িক হামলা হবে।[2] এই কথাটা বড়ই উদ্বেগজনক। যারা জনগনের জানমাল রক্ষার দায়িত্তে তারা এই কথা বললে খাগড়াছড়ির নারীরা কার কাছে বিচার চাইবে? কে তাদের জানমালের দায়িত্ব নেবে? বিষয়টা গভীর ভাবে ভাবার সময় এসেছে । এই লেখাটা যখন লিখছিলাম তখন আরেকটি ঘটনা ঘটেছে যার বর্ণনা টিপু চাকমার ফেইসবুক স্ট্যাটাস থেকে এখানে সরাসরি তুলে ধরলাম,

“খাড়াছড়ির পার্বত্য জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলাধীন রামশিরা এলাকায় আজ ২৫ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে এক পাহাড়ি স্কুলছাত্রীকে বাঙালি যুবক কর্তৃক ধর্ষণ করা হয়েছে। অভিযুক্ত ধর্ষণকারীরা হলেন- মোঃ তারুমিয়া(২০) পিতা- মোঃ লাল মিয়া, গ্রাম- রামশিরা ও খালেক মিয়া(২০), পিতা আব্দুর রহিম, গ্রাম-মাষ্টার পাড়া, মাটিরাঙ্গা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

জানা যায়, ওই স্কুল ছাত্রী খাগড়াছড়ি সদরের গাছবান এলাকায় আত্মীয়ের বাসায় থেকে পড়াশুনা করে থাকে। স্কুল বন্ধ থাকার কারণে ২/৩ দিন আগে সে বাড়িতে যায়। খাগড়াছড়ি আসার প্রস্তুতি হিসেবে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ওই স্কুল ছাত্রী তরিতরকারী সংগ্রহ করতে পাশ্র্ববর্তী বনে যায়। এ সময় একা পেয়ে দুই সেটলার যুবক তাকে মুখ চেপে ধরে পালাক্রমে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এমতাবস্থায় কোন প্রকারে ওই স্কুল ছাত্রীর চিৎকার দেয়। তার চিৎকার শুনে আশে-পাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে।

ধর্ষণের শিকার ওই স্কুলছাত্রী খাগড়াছড়ি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী বলে জানা গেছে। তার বাড়ি মাটি উপজেলাধীন আমতলী ইউনিয়নের প্রাণ কুমার পাড়ায়।

ধর্ষণের শিকার ওই স্কুল ছাত্রীকে চিকিৎসার জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।”

সম্প্রতি কাপেং ফাউন্ডেশনের প্রতিবেদনের ভাষ্য অনুযায়ী আদিবাসী নারীদের মানবাধিকার লংঘনের যে চিত্র পাওয়া যায় তা নিম্নরূপ:

“আদিবাসী নারীদের অবস্থা

গত কয়েক দশকে আদিবাসীদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন জোরদার হলেও আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে আদিবাসী নারীদের অবস্থা এখনও প্রান্তিক পর্যায়ে রয়ে গেছে। বর্ণবাদী বৈষম্যমূলক সরকারী নীতির ফলে এখনো স্থানীয় সরকার পরিষদে এবং জাতীয় সংসদে আদিবাসী নারীদের জন্য কোন আসন সংরক্ষিত হয়নি। কিছু রাজনৈতিক কারণেও আদিবাসী নারী ও শিশুদের অনগ্রসর ও প্রান্তিক অবস্থায় ফেলে দিয়েছে। সংবিধানে আদিবাসীদের স্বীকৃতি না থাকা, রাষ্ট্রের রাজনৈতিক কাঠামো এবং প্রথাগত প্রতিষ্ঠানে আদিবাসী নারীদের রাজনৈতিক অংশগ্রহণ না থাকা, ঘটনার শিকার নারী ও শিশুর আইনি সহযোগিতা না পাওয়া এবং অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়া, ১৯৯৭ সালের পাবর্ত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়া, পার্বত্য চট্টগ্রামে সামরিকায়ন অব্যাহত থাকা প্রভৃতি বিষয় আদিবাসী নারীদের আরো বেশি প্রান্তিক ও ভঙ্গুর অবস্থানে ঠেলে দিয়েছে। তন্মধ্যে হত্যা, ধর্ষণের পর হত্যা, ধর্ষনের চেষ্টা, শারিরীক নিগ্রহ, যৌন হয়রানি, অপহরণ, পাচারের মত সহিংসতার শিকার হয়েছে আদিবাসী নারীরা। ব্যাপক মাত্রায় যৌন হয়রানি বৃদ্ধি ও নারী পাচারের মত মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ২০১৩ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামে সহিংসতার ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা হিসেবে সংযুক্ত হয়েছে।

২০১৩ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের ৫৪ জন এবং সমতল অঞ্চলের ১৩ জন সহ মোট ৬৭ জন আদিবাসী নারী ও শিশু দেশব্যাপী সহিংসতার শিকার হয়েছে। তন্মধ্যে ১৫ জন আদিবাসী নারী ও শিশু (১২ জন পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে এবং ৩ জন সমতল থেকে) ধর্ষনের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের শিকার একজন কিশোরীর পিতা মানসিক আঘাত সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের পাঁচজন ত্রিপুরা কন্যা শিশুসহ ১৬ জন আদিবাসী শিশুকে মাদ্রাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে যাদেরকে ইসলাম ধর্মে জোরপূর্বক ধর্মান্তর করা হয়েছে। আবার পুলিশ ঢাকা-খুলনার হাইওয়ে ফরিদপুর-রাজবাড়ী এলাকা থেকে ৩ জন আদিবাসী মেয়েকে উদ্ধার করে যাদেরকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে পাচার করা হচ্ছিল বলে ধারণা করা হয়েছিল। তাছাড়া ৬ জন আদিবাসী নারী অপহরন এবং ১৬ জন আদিবাসী নারী শারিরীক লাঞ্চনার শিকার হয়েছে। তাদের মধ্যে ৬৯ শতাংশের বয়স ১৮ এর নিচে। অন্যদিকে ৮৯ শতাংশের ঘটনা সংঘটিত করেছে সেটেলার বাঙালি ও ভূমিদস্যুরা, আর ৭ শতাংশের ঘটনা আদিবাসী দ্বারা এবং ৪ শতাংশের ঘটনা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য দ্বারা সংঘটিত হয়েছে ।

নানা অপ্রত্যাশিত কারণে, যেমন- মামলার তদারকির অভাব, জটিল বিচারিক পদ্ধতি, সচেতনতার অভাব, পর্যাপ্ত আইনী সহায়তার অভাব, প্রলম্বিত প্রক্রিয়ার কারণে মামলা চালিয়ে যাওয়ার অনীহা, আর্থিক সামর্থ্যরে অভাব, ঘটনার শিকার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা চালানোর জন্য সরকারের উপর নির্ভরশীলতা ইত্যাদি কারণে দেশের বিভিন্ন আদালতে আদিবাসী নারীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা সংক্রান্ত অসংখ্য মামলা ঝুলে রয়েছে। এখানে উল্লেখ করা গুরুত্বপূর্ণ যে, ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ ট্রাইব্যুনাল চট্টগ্রামে একটি ধর্ষন মামলায় ধর্ষনকারীকে মৃত্যুদ- প্রদানের রায় দেন। এ ধরনের সংবাদ আদিবাসী নারীদের আস্থা সৃষ্টি করবে যে, বৈষম্যহীনভাবে জাতিগত পরিচিতি নির্বিশেষে যে কোন ধর্ষনের ঘটনায় অপরাধীদের এ ধরনের পরিণতি ভোগ করতে হয়। বলাবাহুল্য, অপরাধী যদি ক্রমাগত দায়মুক্তি পেতে থাকে তাহলে নারীর প্রতি সহিংসতার মাত্রা বাড়তে থাকবে|” -কাপেং প্রতিবেদন

“পাহাড়ি বাঙ্গালী টেনশন” তৈরির অজুহাতে সবিতা চাকমার ঘটনার আসামিরা পার পেয়ে যাচ্ছে। কথা হচ্ছে যেখানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সব ধরনের উপস্থিতি আছে সেখানে কেন এই টেনশন হবে? এই টেনশন কি আন্তরিক ভাবে চাইলে বন্ধ করা যায় না। তাই যদি না হবে তাহলে উনারা ওখানে কি করেন?

পরিস্থিতি মারাত্মক হওয়ার আগে এখনও সময় আছে এই অপরাধিদের ধরে আইনের আওতায় আনা হোক । যত দিন যাবে জল তত ঘোলা হবে । তার দায় কিন্তু প্রশাসন কে নিতে হবে। সবশেষে বিভিন্ন ফরামে এই যাবত ধরে করা আদিবাসী নারীদের সমস্ত সুপারিশের দিকে সুনজর দেওয়া হোক।

[1] http://cerdc.net/index.php/hr-report/communal-violence-cht/288-breaking-news-indigenous-villagers-of-kamalchari-village-in-khagrachari-hill-district-come-under-communal-attack

[2] Violence against indigenous women rarely get law enforcers’ attention , 22 Feb 2014, Dhaka Tribune, Link: http://www.dhakatribune.com/law-amp-rights/2014/feb/22/violence-against-indigenous-women-rarely-get-law-enforcers-attention

5 comments

  1. Police said they are not arresting anyone for the moment so as not to inflame settler / Pahari tensions. This basically means, so as not to inflame the settlers. Because what could inflame the Pahari more, than to do nothing about the rape and murder of Sabita? It is a very well written and well argued piece, thank you Tandra.

  2. I think, you should have also written that, Sabita Chakma was not even raped. She was killed. Have you seen her post mortem reports? It confirmed that, she was not raped. Because she was in period in that time and her extra clothes were at right place. Why didn’t you find news about post mortem reports? Don’t be too much emotional, which can be harmful and a reason to make communal conflicts. Even, 4 Bengali people already had been beaten up by tribal while they were returning to home from protesting human chain. 2 of them lost their eye and leg respectively. So please be careful to spread such rumour.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s