Comparison of India and Bangladesh

Reuters/Mansi Thapliyal, via Atlantic/ India

Protests in India against sexual violence/Reuters/Mansi Thapliyal, via Atlantic

Comparison of Political Culture of India and Bangladesh- A Common Man’s Fantasy!
 By Aminul Sarwar for Alal O Dulal

While we discuss Bangladesh politics- India comes up automatically. Regional hegemony, friendship and bitterness, mutual interest, influence over Bangladesh’s internal politics- hosts of many other issues make India an important and inseparable factor in Bangladesh.

Besides, due to the,  cultural commonness,  geographical proximity and historical relationship between the nations- it is almost impossible to strikeout the equation of Bangladesh politics without calculating the India factor. Hence, as a common Bangladeshi citizen, it becomes a difficult yet interesting case study to draw a comparative analysis of India and Bangladesh politics and political culture, to deduce the discourse for a desired solution of Bangladesh’s political crisis.

In India, BJP rose as a nemesis to the Congress Party. Congress capitalised the attachment of Gandhi and Nehru to their party and turned them into icon of their party by using their personality cults. After the assassination of Rajiv Gandhi, congress did the same- they built installations, used government fund to run youth employment project etc, after his name. On the contrary, rather than focusing on any personality cults- BJP capitalised on an Ideology and kept on crawling slowly for quite sometimes. Though, after the Indira Gandhi era and congresses’s debacle over the arms scam and Babri Masjid, there came a time of political diversity in Indian politics- the power centre came back to congress’s hand within a short period,  Bhartia Janta Dal made some impression with bleak efforts but weak coalitions made them weaker in deciding the political course of India. In fact, in those days- India seemed to have been missing a leader with a charishmatic public face. From 1991 to 2004, India had so many prime ministers representing various partiers and coalitions, but none seemed have made a long lasting impression in the social and political arena of India.

Before the rise of Modi, in fact, there was no potent political entity in India that could challenge the monolithic congress party in Indian politics. However, BJP’s journey to the political potency relied mostly on communal and sectarian politics. BJP kept challenging the credo of secularism in the Indian constitution and got heavy back up from religious and extreme right organisations like Viswa Hindu Parishad, RSS, Sangh Parivar, hindu Mahasava etc. These organisations with their communal and religious agenda worked as the spokesman of BJP and helped creating a huge fan base among the general mass of India. During this period, BJP  lead Gujrat emerged as a model of development and posterity within India. Narendra Modi- a peculiar combination of religious extremism and political dynamism, came into the focus of Pan-Indian political theatre. Moreover, the long tenure of Congress and UPA alliance in the power might have created a sense of monotony in terms of political dynamism in the mass psychology. Despite the coining of the ‘Shining India’, UPA and Congress failed retaining the confidence of the people with aged, indifferent and apparently nonchalant Manmohan Singh in the helm of the affairs and ‘Italian’ Sonia Gandhi at the backdrop. Anna Hazare’s civil movement also played a vital role to sensitise the people about the pervasive corruption in the government. People wanted a new face, capable to handling Shining India and guiding it into the elite club of global power and economy. For now, as it looks like-  in Modi, India has got what she wanted.  We have to leave it on time to decide whether the Modi Mania is a fluke or a Time-worthy thing.

Like congress in India, Awami-league is the biggest political party in Bangladesh. But, unlike congress in India, Awami-league in Bangladesh had to face an iconoclastic politics of it’s opponent. Though BJP emerged as the nemesis of congress, the former did not take a stance to malign the cult figures of the later. In the plethora of political acquisitions, BJP did not even try to encase on maligning Gandhi or Nehru to divert public sentiment. Therefore, Indian politics, so far, did not confined itself in the personal clash or dynastic rivalry. Indian politics never lacked political negotiations, consent and agreement among the political rivals. On the other hand, just after the inception, Bangladesh experienced a scathingly bitter and counter revolution led by an antithesis, against her struggle for liberation and the father of the nation. It led to huge bloodshed and personal vilification campaign which in turn led to a political future of mutually-destructive intents amongst the political rivals. With the present setup of parties and leadership- it appears to be an inextricable quagmire of the people of this country.

Our country and the nation do not deserve such a plight! Issues like development, economic growth, good governance are being submerged in the conundrum of the fight of two major belligerents. Along, we are wasting away- the invaluable time.  The aspirations of our generation, our spirit, capability- everything being atrophied.  Almost the whole nation is aligned with the ideology and stands of two major camps. We have mostly three sorts of people here- The beneficiaries of political parties, the ones driven by the core values and ideologies of the political camps, and the ones, who has no choice but to stick with the “Better of Two Evils” as per their own scales of measurement. The third group holds the majority. Thou they are the majority and are the true voice of the people- they are unheard and uncared for! This unheard people have aspirations which are otherwise listed in the manifestos of the political parties. But, due to the personal ego, clash and mutually-destructive rivalry between the political parties- these aspirations get no priority, whatsoever. Nothing but the hatred and animosity- are the constant outcomes of our national politics.

In Indian politics, though the bitterness amongst the rivals are not so intense- traditionally, the mass possesses a negative idea about the politicians. Capitalising on this negative idea of the mass, Aam Admi Party (AAP) has come to scene. Today, the result of Delhi provincial assembly election is due to be declared. The exit pole has already portrayed a landslide victory of AAP defeating Modi-fied BJP! In fact, BJP seems to have overused the Modi card for too long and a Megalomaniac Modi is no more the Unique Sales Proposition to the voters of Delhi. They want delivery and o far, BJP has not delivered as mush it promised  during the campaign of the national election last year. The central politics has always an important role to shape the provincial or state politics. Delhi is no less but more moved by this fact. On the other hand, despite the resignation in the midway, people of Delhi has decided to give Arvind Kejarwal one more chance. They are convinced with the honestly of his effort and the resilience of his uncompromising stand against corruption and communalism. Moreover, AAP has brought forward faces who are callow in the politics but hold true representation of the society. During the last Bidhansava election, AAP gave ticket to an ex army private from Delhi Cantt constituency who finally made it to the assembly!  AAP is rallied by the young generation and the lower class people of the society- who constitute the majority of the voter! I am sure, if Kejarwal can deliver well, in the next national election, Kejarwal and his AAP will be a factor that will shake the national Juggernauts.

Is it possible for us to have such a change in our country? I want our minds to be decolonized and to redefine our nuances. I want the plutocracy and the oligarchy to end!  May we have a new political party that will represent the people from all spheres and classes of the society? Garments worker, aspiring middle class, professionals, educated persons from the rural areas- everybody. A party that will hold the core values and spirit of 1971 and will work to establish a society free of exploitations. It must put highest importance on development, employment, good governance, answerability and a  people-facing administration. One, that must take a Zero Tolerance stance against communal politics and fundamentalism! A party that will promise actions against corruptions and act to ensure fair chances for all. A party that will promise us a state where our own people will not be the victim of political violence of political parties or of the extrajudicial killings of the law-enforces! I don’t  want us to be held anymore hostage by our past and held back. I don’t  want us to be restricted anymore in the “Better of Two Evils” theory! I don’t want ourselves to be bound by our ideologies and aspirations to be addressed by only one party and thereby, get our spirit and emotion played, as political pawns in their hand! I want them to try the war criminals without any ifs or buts!”

Aminul Sarwar is a retired government employee and now an entreprenuer.

বাংলাদেশের রাজনীতি এবং আমার যত চাওয়া
_____________________________
বাংলাদেশের রাজনীতির কথা বলতে গেলে ভারত চলে আসেই। রিজিওনাল হেজেমনি, মিত্রতা, পারষ্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট তিক্ততা, বাংলাদেশের আভ্যন্তরীন রাজনীতে ভারতের প্রভাব ও হস্ত্ক্ষেপ- সব কিছু মিলে, ভারত বাংলাদেশের জন্য বড় ফ্যাক্টর। তাছাড়া, সাংস্কৃতিক নৈকট্য এবং ঐতিহাসিক সম্পর্কের অভিন্নতার কারনে- ভারত কে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের রাজনীতির সমীকরন মেলান অসম্ভব!
ভারতে কংগ্রেসের নেমেসিস হিসেবে বি জে পির’র উথ্বান। কংগ্রেস গান্ধি ও নেহেরূকে প্রবাদ পূরুষ করে তাদের দলের এবং জাতির আইকন হিসেবে উপস্থাপন করেছে। রাজীব গান্ধির মৃত্যুর পর, রাজিব গান্ধিকে ও তারা দলিয় আইকন হিসেবে ব্যাবহার করেছে। রাজিব গান্ধির নামে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করেছে- চালু করেছিল সরকারি বৃত্তির স্কীম। পক্ষান্তরে বি জে পি, কোন ব্যাক্তিকে ফোকাস না করে- একটা আইডলজি কে আকড়ে গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে গেছে। একবার অটল বিহারি বাজপেয়ির নেতৃত্বে সরকার গঠন করলেও, নিরংকুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকাতে, সেবার তেমন কিছু করতে পারেনি। এর আগে, খুব অল্পদিনের জন্য কংগ্রেসকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য ভি পি সিং এর নেতৃত্বে, ভারতিয় জনতা দল, ক্ষমতার পাদপ্রদিপের তলায় আসলেও- নানা হ্যাটেরোজনাস এলিমেন্টের মিলন মেলাটি খুব বেশিদিন তাদের আবেদন ধরে রাখতে পারেনি। আমার মনে হয়, কেন্দ্রিয় রাজনীতির বাঘা বাঘা নেতা থাকলেও, দেশ ব্যাপি তৃণমূল পর্যায়ে কর্মী ও রিপ্রেসেন্টেশন না থাকাটা তাদের জন্য সবচে বর চ্যালেঞ্জ ছিল। ইন্ফ্যাক্ট, মোদির উথ্বানের আগ পর্যন্ত, বি জে পি, ভারতের রাজনীতির কংগ্রেস নামক মহীরুহের মোকাবেলায় যে রাজনৈতিক শুন্যতা ছিল সেটার সুযোগ নিয়ে, খুব কম সময়ে জাতীয় রাজনীতির ফ্যাক্টর হতে পারলেও- ধর্ম ও মৌলবাদকে পুঁজি করেই মূলত তাদের বিশাল ফ্যান বেজ তৈরি করে। আর এস এস, হিন্দু মহাসভা, সংঘ পরিবার, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, শিব সেনা, ইত্যাদি ধর্মিয় সংগঠন, বি জে পি’র মূখপাত্র ও ফুটসোলজার হয়ে রাজনৈতিক দল হিসেবে বি জে পির গ্রহন যোগ্যতা ও সাস্টেনেবিলিটির সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করেছে। টানা দু’টার্মে কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউ পি এ সরকারের শাসনামলে- প্রভুত অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের হাত ধরে, শাইনিং ইন্ডিয়ার উথ্বান হলেও- কংগ্রেসের নেতৃত্বের মধ্যে সাধারন মানুষের আনকন্ডিশনাল লয়ালটি অর্জনের মত ফ্লেয়ারের অভাব ছিল- সাথে ইউ পি এ জোটের দূর্নিতি এবং আন্না হাজারের দুর্নীতি বিরোধি মুভ্যমেন্ট তো ছিলই। সাবেক আমলা- অশতিপর মনমোহন সিং এবং রাজনীতিতে সাচ্ছ্যন্দ বোধ না করা, ইতালিয়ান সোনিয়া গান্ধি; এই কম্বিনেশনটা আর যা হোক, বিশ্বে নতুন অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তি হিসেবে ভারতকে নেতৃত্ব দেবার যে এক্স ফ্যাক্টরটা দরকার, সেটা মিস করছিল। ভারতের জনতা তেমনটাই ভেবেছে। এখানে, ব্যাক্তি বা আইকন কেন্দ্রিকতা বিহিন বি জে পি তাদের সাফল্য খুজে পেয়েছে। তারা একজন ব্যাক্তিকেই খুজে নিয়েছে কংগ্রেস কে মোকাবেলা করার জন্য। উন্নয়নের জন্য ক্ষুধার্থ ভারত, গুজরাটের মিথ ধরে, মোদিকেই দিল্লির ভার তুলে দিয়েছে। মোদি কেমন করছে- সেটা বলার সময় এখনো হয়নি। তবে, ইন্ডিয়া যে এগিয়ে যাচ্ছে- সেটা দিন দিন আরো ভিজিবল হয়ে উঠছে।
বাংলাদেশে আওয়ামিলিগ কংগ্রেসের মতই বড়দল। এরাও দেশের স্থপতি ও জাতির জনককে ফোকাস করে তাদের রাজনীতি করছে। কিন্তু, ভারতে কংগ্রেসকে যে জিনিসটা ফেস করতে হয়নি, সেটা বাংলাদেশে আওয়ামিলিগ কে করতে হয়েছে। বি জে পি কংগ্রেসের নেমেসিস হলেও, গান্ধি বা নেহেরূর আইকনোক্লাস্ট হসেবে উদয় হয়নি। ফলে, কংগ্রেসকেও কোনদিন, বিজেপির নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আইকনোক্লাস্টিক স্ট্যান্স নিতে দেখা যায়নি। এতে করে, আর যা হোক, ভারতের রাজনীতি পরিবার বা ব্যাক্তি আক্রমনের মধ্যে কখনোই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েনি। সেখানে আপোষ রফা কিংবা রাজনৈতিক শিষ্টাচারের খুব একটা আকাল পড়েনা। বাংলাদেশের জন্মের পর থেকেই, দেশের স্বাধীনতা কিংবা প্রতিষ্ঠার এ্যান্টিথিসিসের একটা কাউন্টার রেভ্যুলেশন লক্ষ্য করা গেছে। এতে করে, যেমন সীমাহীন রক্তপাত হয়েছে, তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক শিবির গুলোর মধ্যে অন্তহীন আস্থা ও বিশ্বাসের ঘাটতি। বর্তমান সেট আপ এ এই দূরত্ব বা তিক্ততা শেষ হবার বা কমার কোন সম্ভাবনা নেই।
আমাদের দেশে এমন দুরুবস্থা ডিজার্ভ করেনা। উন্নয়ন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সুশাসন- সবকিছুই দু’ললের তিক্ত লড়াইয়ের ডামাডোলে হারিয়ে যাচ্ছে। সাথে হারিয়ে যাচ্ছে অতি মূল্যবান সময়। আমাদের জেনারেশনের আশা আকাংখা, কর্মস্পৃহা, ক্যাপাবিলিটি, সব কিছুই মরে যাচ্ছে এই সময়ের সাথে সাথেই। দেশের সকল মানুষই, কোননা কোন ভাবে, প্রধান দুই রাজনৈতিক শিবিরের সাথে এলাইনড। এদের মধ্যে, কেউ বেনিফিসিয়ারি, কেউ আইডোলজি ড্রিভেন আবার কেউ শুধুই মন্দের ভাল খুজতে যেয়ে বাধ্য অনুসারী। তৃতিয় দলের মানুষরাই আসলে দেশের মূল জনশক্তির রিপ্রেসেন্টেটিভ। এরা সংখ্যায় বেশি হলেও- এদের ভয়েস সবময় আনহার্ড। এই আনহার্ড মানুষগুলোর কিছু এস্পাইরেশন আছে। সে এস্পাইরেশন দুই প্রধান দলের ম্যানিফেস্টোতেও আছে। কিন্তু, নিজেদের ব্যাক্তিগত ক্ষোভ ও পরষ্পরবিধ্বংসী নীতির কারনে, শুধু শত্রূতার জায়গাটাই স্থির থাকে- বাদ পড়ে যায় মানুষের এস্পাইরেশন টুকু।
ভারতের রাজনীতিতে তিক্ততা এমন না হলেও- মানুষের মধ্যে, প্রথাগত রাজনৈতিক শক্তি গুলোর সম্পর্কে বিরূপ মনোভাব রয়েছে। এই বিরূপ মনোভাবকে প্রাধান্য দিয়ে ভারতে আম আদমি পার্টি মঞ্চে এসেছে। আজ দীল্লির নির্বাচনের ফলাফল ঘোষিত হবে। আম আদমি পার্টি আশা করে ল্যান্ডস্লাইড বিজয় পাবে। মোদি ম্যানিয়ায় মত্ত ভারত, খোদ রাজধানীতেই মোদিকে কুপোকাত করে দিচ্ছে- তারা মোদি ম্যাগালোম্যানিয়াক আইকন পছন্দ করছে না। কংগ্রেসের বেটার অল্টারনেটিভ হিসেবে বিজেপি কে পেলেও- বিজেপির চেয়ে শ্রেয়তর হিসেবে দেখেছে আম আদমি পার্টিকে। আম আদমি পার্টির সব’চে আকর্ষনিয় পয়েন্ট হচ্ছে- এরা সব ফ্রেশ মুখকে সামনে নিয়ে এসেছে। মধ্যবিত্ত, এমনকি নিম্ন বিত্ত মানুষকেও দলের নেতৃত্বে উপবিষ্ট করেছে। দিল্লি ক্যান্ট থেকে একজন প্রাক্তন সৈনিক আমাদমির হয়ে গত বিধান সভা নির্বাচনে জিতেছিল। আম আদমি পার্টির ৪৯ দিনের ভাগুরা ও ধরনা-নির্ভর সরকারকে দিল্লির মানুষ আবার চান্স দিচ্ছে। এবার সে সুযোগ আরো বেশি কনসলিডেটেড করেই পাচ্ছে আম আদমি। আম আদমি পার্টির প্রধান ম্যানিফেস্টো গুলো হল- দূর্নীতি বিরোধি অবস্থান, কমিউনাল রাজনীতির বিরুদ্ধে অবস্থান। এই দুটি পয়েন্টে- তারা কংগ্রেস এবং বিজেপি কে আউট প্লে করেছে। দিল্লির জনগন ও সে ম্যানিফেস্টো গ্রহন করেছে।
আমাদের দেশে কি এই ধরনের একটা চেঞ্জ সম্ভব? যেখানে নতুন কোন রাজনৈতিক দল আসবে যারা, সমাজের সকল শ্রেনির মানুষকে রিপ্রেজেন্ট করবে। গার্মেন্ট্স শ্রমিক, এসপায়ারিং মধ্যবিত্ত, মফস্বলের শিক্ষত ভদ্রলোক- সবাইকে? যারা ৭১ এর স্বাধীনতার মূল স্পীরিটকে প্রমোট করে শোষোনহীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় কাজ করবে। যুদ্ধাপরাধিদের বিচার করবে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জেহাদ করবে, দলীয়করন আর চাটুকারিতার অবসান ঘটিয়ে জনসম্পৃক্ত প্রশাসন এবং জবাদিহিতাকে সর্বোচ্ছ গুরুত্ব দেবে? সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ বিরোধি শক্ত অবস্থান নেবে? সকল জনগন, পেশাজীবি, ব্যবসায়ি- সবার জন্য ফেয়ার চান্স এর সুযোগ করে দেবে? সত্যিকারার্থে আইনের ও সংবিধানের শাসন প্রতিষ্টিত করতে? আমার বিশ্বাস- তাহলে আর কেউ আমাদের জিম্মি করে রাখতে পারবে না। আর কারো মুখাপেক্ষী হয়েও থাকতে হবে না- আমাদের কলোনিয়াল মাইন্ডসেটের নু্যয়েন্স গুলোকে রিডিফাইন করে ডিকলোনাইজ করার সূযোগ আসবে। আমাদের আর ঘৃণা ও প্রতিহিংসার রাজনীতির পেট্রোল বোমায় দগ্ধ হয়ে কিংবা উর্দ্দিধারি পেটোয়া বাহিনির গুলিতে প্রাণ হারাতে হবেনা! সবচে বড় কথা- আমাদের আর বেটার অফ ট্যু এভিল না বেটারের অপশন থাকবে! একটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলের মুখাপেক্ষি এবং আইডলজিক্যাল অনুসারি হয়েও আমার এই চাওয়া। আমার বিশ্বাস আমার মত দেশের ৯০% লোক ও এমনটাই চাইবেন।
Maj. Mohammed Aminul Hoque Sarwar (retd) is Managing Director of eTech Solar Ltd., AVTek International

 

3 thoughts on “Comparison of India and Bangladesh

  1. Would have been useful to have some analysis of the institutional safeguards that allow an AAP to rise to power. Without those safeguards, BJP would have choked AAP to death, and similarly Congress would have never allowed BJP to rise. What are those safeguards? They are specific, concrete, and written into law. Leaving readers with the impression of some “Indian essence” that allows them to be more democracy-loving, and Bangladeshis to not, is not useful and inaccurate. We need to get beyond cultural essentialisms.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s