Faruk Wasif: The Sahibs of Begum Para and the turtles that sell the country

Flag-Pins-Bangladesh-Canada
“’Second Home’: The Sahibs of Begam Para and the Turtles that Sell the Country”
by Faruk Wasif for Prothom Alo, translated for AlalODulal.org by Nusrat Chowdhury [please do not reproduce w/o permission]

If one asked which animal carries its own home on its back, the answers would be, 1. a turtle; 2. a Chinese farmer; and, 3. a few thousand wealthy Bangladeshis. The turtle of that ancient lore, however, did not have a shell, and would get eaten up by foxes, dogs, and eagles as soon as it left its house. He figured he was safe only when home. So he prayed to the Turtle God so that he could always carry his home of hard shell with him. Gods of those times would fulfill the wishes of those pure in heart. One fine morning the turtle found that his home of hard shell was attached to his belly and his back. The turtle has been safely moving around with his home since.

38-year-old Liu Ling Chao of China was very poor. He had no home to call his own and also loved to travel. He came up with a great idea of building a house of bamboo and plastic that could be carried around. It weighed about 60 kilograms and one could easily wander around with it. Since then Ling Chao has been peregrinating, albeit at the pace of a snail. He has made about 20 miles in three months. So what if he cannot boast speed? He has a home.

The story of the wealthy Bangladeshis, however, is a far more interesting one. Former Ambassador of Bangladesh, Mr. M. Sirajul Islam told the following story to The Independent. A region in Toronto, Canada is nicknamed, “Begum Para” by the local Bangladeshis. The sahibs of these begums don’t live with them. They arduously make money living in Bangladesh. When fatigued from making money, they come and spend some leisurely time here with their families. Even Moghul begams would have been green with envy had they seen the lifestyle of these deshi begams. Their apartments are filled with luxury items; their children attend the best schools. The begums’ sole responsibility is to take care of their children and to enjoy themselves. There are many such “Begum Paras” across Canada.

It’s no surprise that the sahibs are rich. On top of this, they have been able to build second homes abroad thanks to the foreign investors’ quota. It’s not that expensive: a mere 160,000 Canadian dollars could buy you citizenship. The begams had to also part with the same amount in exchange of which they managed a safe abode abroad. This house is more powerful than the one the turtle carries, and less onerous than the one built by Ling Chao. Whenever you want to relax, whenever you’d like to flee the country amidst trouble, this home, along with its begum and all its amenities and security will be there for you. You don’t have to lug it around. All you have to carry on yourself is the citizenship card bought for a mere CAD $160,000. This card can save you from the travails of your homeland. You will need another card too with which you will withdraw money to your heart’s extent. Surely a great mobile arrangement!

There’s profit all around. You are enjoying the benefits of citizenship in a first world country. At the same time, you are far from a Bangladesh riven by political and natural calamities. The money you are investing will be returned to you in some form of benefit. Canada, of course, has its own reasons for introducing the system. There’s a joke among Canandian-Bangladeshis which goes something like this: Why didn’t Canada face the same financial crisis as the US and Europe? The answer is, the “remittances” of expatriate Bangladeshis! One needs to know how many millions of dollars are being laundered to Canada by the Bangladeshi sahibs. According to the US-based Tax Justice Network, between 1976 and 2010, Tk. 1,97,600 crores were sent to Canada from Bangladesh (Prothom Alo). As per the UNDP, Bangladesh tops the list of countries that smuggle out currency. And, black money dictates 35.29 percent of Bangladesh’s national economy.

There is no reliable statistic about how many Bangladeshis are buying citizenship in this manner and in exchange of how many millions. It is not safe to keep money, earned and spent in illicit ways, within the country. Our politicians often blame each other for selling the country. Looting the national economy and buying foreign citizenship is the ultimate form of “selling the country.” Recently, a government officer has been alleged to have sold forty years of secret census data to foreigners. There are others like him. Where else would the profits of the share market, Hall Mark, Destiny, and Sonali Bank go? It is through such bribery, corruption, and cronyism that many are becoming “esteemed” citizens of foreign countries.

It is for them that the Malaysian government has started the “Malaysia My Second Home” program. Between 2002 and 2010, at least 1,862 Bangladeshis have bought Malaysian citizenship (The Daily Star, April 27, 2012). According to last year’s estimate, they have taken about Tk. 2,300 crores to Malaysia. The number of such “sellers” and the amount of money from selling the country are much higher now. This is the way in which many wealthy families of Bangladesh are becoming citizens of rich nations like Australia, New Zealand, and Singapore. It was especially after the anti-corruption drive of the last Emergency that many members of this corrupt, lumpenbourgeoisie have learned a lesson: you cannot keep money and family in the country. Their second homes are thus scattered across the globe. That it is during times of political crisis that the rate of money-laundering increases has been noted in past UNDP surveys.

While the seekers of the “second homes” are turning the country into Rana Plaza, the garment workers crushed under factory buildings and the migrant workers abroad are sacrificing their youth and their lives to produce billions of dollars in remittances and export revenues. It is they who have been building the country since the 1980’s; they are the architects of this nation. At a time when wealth is being siphoned off to the urban centers from rural areas, it is the members of these two professions who are sending an enormous amount of capital back to the villages. Wherever garment workers and migrant workers go for work, they look for employment opportunities for their relatives and neighbors. And wherever the “sellers” of our country go, they manage to destroy the wealth and potential of the nation.

One of the most obvious outcomes of the independence of Bangladesh has been the rise of a Bengali ruling and capitalist class. The characteristics of the majority of this class are the same as those of the colonial rulers. The British used to live here, but their wealth used to go to Britain. The Punjabi rulers followed the same trend. In the meantime the local landlords who became the owners of land across Bengal thanks to the British also used to send their wealth, children, and savings to the colonial city, Calcutta. The same trend continues to date though the current rulers are Bengali. It is our wealth that still helps enrich countries like Malaysia, Singapore, Britain or Canada. The ones who risk all and die are the peasants and their offspring – the garment workers.

The loved ones of the missing workers were crying as they put flowers on the barricades at the one-month anniversary of the Savar tragedy. They are the ones without a country even when living in it. Many of them are landless; the others are homeless like Ling Chao. These parents at least want their children’s corpses so as to give them a proper burial; all they want is a piece of the earth for the grave. They believe that their children should be buried where they were born. This land of birth and death is their only country. The peasants in Phulbari gave the same argument for not sacrificing their land for mines. This is the land where their ancestors are buried – “Ei mati hamra chharbek loy” [“We won’t give up this land”].

The owners of the “second homes,” however, do not need land. They need the opportunity to get rich by milking the country and its people. Most of the year, therefore, the sahibs of “Begam Para” spend time here like the erstwhile British, the zamindars, and the Punjabi rulers. They keep the money-machine running. And yet, this country is not their last address. They too will leave when done the same way the British and the Pakistanis had left before them. But it is absolutely imperative that those for whom this country is the first and last resort save it from the ones with two addresses. When the government and the opposition both boast being diehard nationalists, how come the ones under the turtle’s hard shell are still getting away with it?

Faruk Wasif is a writer,  journalist and activist, and a graduate in Bengali from Jahangirnagar University. Translator Nusrat Chowdhury is Assistant Professor of Anthropology at Amherst College.

Related Link
http://www.second-citizenship.org/permanent-residence/investment-programs-in-comparison/

সেকেন্ড হোম: বেগম পাড়ার সাহেব ও দেশ বিক্রির কচ্ছপেরা

ফারুক ওয়াসিফ | তারিখ: ২৬-০৫-২০১৩
যদি বলি কোন প্রাণী নিজের ঘর পিঠে নিয়ে চলে? এর উত্তর হবে ১. কচ্ছপ, ২. এক চীনা কৃষক এবং ৩. কয়েক হাজার বাংলাদেশি বড়লোক। রূপকথার সেই কচ্ছপের গায়ে আদিতে কোনো খোল ছিল না। ঘরের বাইরে বের হলেই শিয়াল, কুকুর, ইগল খেয়ে ফেলত। সে দেখল, ঘরেই সে নিরাপদ। তাই সে কচ্ছপ দেবতার কাছে প্রার্থনা করল, তার শক্ত খোলের ঘরটা যেন সে সব সময় বইতে পারে। সে যুগে দেবতারা সত্যমনে আরজি জানালে পূরণ করতেন। তো, এক সকালে কচ্ছপ দেখল শক্ত খোলের ঘরটা তার পিঠে ও পেটে লেগে গেছে। সেই থেকে কচ্ছপ ঘরসহ নিরাপদে চলাচল করে।

চীনের ৩৮ বছর বয়সী লিউ লিংচাও খুবই গরিব। একে তো নিজস্ব ঘর নেই, তার ওপর ঘুরে বেড়ানোর খুব শখ। এক জবর বুদ্ধি বের করলেন তিনি। বাঁশ আর প্লাস্টিক দিয়ে ছোট্ট একটা বহনযোগ্য ঘর বানালেন। এর ওজন ৬০ কেজি এবং এর সুবিধা হলো, এটা ঘাড়ে নিয়ে হাঁটাচলা করা যায়। সেই থেকে লিংচাও ভ্রাম্যমাণ আছেন। তবে গৃহ কাঁধে চলতে গিয়ে তাঁর গতি হয়েছে একদম শামুকের মতোই। তিন মাসে মাত্র ২০ কিলোমিটার অগ্রসর হতে পেরেছেন। গতি নেই তো কী হয়েছে, নিজের একটা ঘর তো আছে তাঁর।

বাংলাদেশি বড়লোকদের গল্পটাই বেশি দারুণ। বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত এম সিরাজুল ইসলাম এই গল্পটা বলেছেন ব্রিটেনের ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকায়। কানাডার টরন্টোর একটি এলাকাকে স্থানীয় বাংলাদেশিরা ‘বেগম পাড়া’ ডাকে। এই বেগম পাড়ার বেগমদের সাহেবরা তাঁদের সঙ্গে থাকেন না। তাঁরা বাংলাদেশে থেকে কষ্ট করে টাকা বানান; টাকা বানাতে ক্লান্তি লাগলে পরে এসে সেখানে পরিবারের সঙ্গে ‘আরামের’ সময় কাটান। এই বাংলাদেশি ‘বেগম’দের আরাম-আয়েশ দেখলে মোগল বেগমরাও হিংসায় জ্বলতেন। তাঁদের অ্যাপার্টমেন্টগুলো বিলাসসামগ্রীতে ভরা। তাঁদের সন্তানেরা সে দেশের ভালো ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়ালেখা করে। ‘বেগম’দের একমাত্র কাজ হলো ছেলেমেয়েদের দেখাশোনা করা আর ‘আরাম’ করা। সারা কানাডায় এ রকম অনেকগুলো ‘বেগম পাড়া’ আছে।

বেগমদের সাহেবরা তো ধনীই হবেন; উপরন্তু বিদেশে তাঁরা ‘সেকেন্ড হোম’ বানিয়েছেন বিনিয়োগকারী কোটায়। খরচ বেশি নয়; মাত্র দেড় লাখ কানাডীয় ডলার অর্থাৎ এক কোটি ১০ লাখ টাকা জমা দিলেই কানাডা আপনাকে নাগরিকত্ব দেবে। বেগমদেরও এই পরিমাণ টাকা দিতে হয়েছে। বিনিময়ে তাঁরা পেয়েছেন প্রবাসে নিরাপদ ঘর। এই ঘর কচ্ছপের বহন করা ঘরের থেকেও শক্তিশালী, চীনা লিংচাওয়ের ঘরের থেকেও হালকা। যখন আরাম চাইবেন, যখন বিপদের দিনে দেশ থেকে পালাতে চাইবেন; তখন সব সুবিধা আর নিরাপত্তা নিয়ে এই ঘর ‘বেগম সাহেবা’সহ অপেক্ষা করবে। এটা বয়ে বেড়াতে হয় না, বয়ে বেড়াতে হয় কেবল দেড় লাখ ডলার দিয়ে কেনা নাগরিকত্বের কার্ডটা। এই কার্ডটাই আপনাকে আপনার মাতৃভূমির বালা-মুসিবত থেকে রক্ষা করবে। সঙ্গে থাকতে হবে আরেকটি কার্ড, যা দিয়ে আপনি ব্যাংক থেকে খুশিমতো টাকা তুলবেন। একেবারে মোবাইল ব্যবস্থা।

দুদিকেই লাভ। উন্নত বিশ্বের সব নাগরিক সুবিধাও পাচ্ছেন, রাজনৈতিক ও প্রাকৃতিক দুর্যোগময় বাংলাদেশ থেকে সুরক্ষাও মিলছে। সুতরাং যে টাকা বিনিয়োগ করছেন, তা কোনো না-কোনোভাবে সুবিধা আকারে ফেরত পাবেন। আপনার খাতিরে নয়, এই ব্যবস্থা চালু করার পেছনে কানাডার নিজস্ব স্বার্থ আছে। কানাডীয় বাংলাদেশি সমাজে চালু একটা কৌতুক এমন যে, কানাডা ইউরোপ-আমেরিকার মতো অর্থনৈতিক ধসের স্বীকার হয়নি কেন? উত্তর হলো বাংলাদেশিদের ‘রেমিট্যান্স’। সত্যিই বাংলাদেশি সাহেবরা কত শত-হাজার কোটি টাকা কানাডায় পাচার করছেন, তা জানা দরকার। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ট্যাক্স জাস্টিস নেটওয়ার্ক জানাচ্ছে, ১৯৭৬ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে এক লাখ ৯৭ হাজার ৬০০ কোটি টাকা বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হয়েছে (প্রথম আলো)। ইউএনডিপি জানাচ্ছে, অবৈধ পুঁজি পাচারে বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষে। তারা আরও বলছে, কালোটাকাই এ দেশের অর্থনীতির ৩৫ দশমিক ২৯ শতাংশের চালক।

ঠিক কতজন বাংলাদেশি কত শত-হাজার কোটি টাকায় এভাবে নাগরিকত্ব কিনছেন, তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান জানা যায়নি। অবৈধ পথে ব্যয়িত অর্থও অবৈধভাবেই অর্জিত বলেই টাকাটা তাঁরা দেশে রাখা নিরাপদ মনে করেননি। রাজনীতিবিদেরা হরহামেশাই পরস্পরের বিরুদ্ধে দেশ বিক্রির অভিযোগ করেন। দেশের অর্থনীতিকে লুট করে বিদেশের নাগরিকত্ব কেনার এই ব্যবসাই হলো ‘দেশ বিক্রির’ আসল ব্যবসা। সম্প্রতি একজন সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গত ৪০ বছরের আদমশুমারির গোপনীয় ‘র-ডাটা’ বিদেশিদের কাছে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাঁর মতো অনেকেই আছেন। শেয়ার মার্কেট, হল-মার্ক, ডেসটিনি, সোনালী ব্যাংকের টাকা আর কোথায় যাবে? এভাবে স্বদেশে ঘুষ-দুর্নীতি-দখলবাজি করে অনেকেই বনে যাচ্ছেন বিদেশের ‘সম্মানিত’ নাগরিক।

তাঁদের জন্যই মালয়েশীয় সরকার ২০০২ সাল থেকে ‘সেকেন্ড হোম’ কর্মসূচি চালু করেছে। ২০০২ থেকে ২০১০ সাল অবধি কমপক্ষে এক হাজার ৮৬২ জন বাংলাদেশি মালয়েশিয়ায় নাগরিকত্ব কিনেছেন (ডেইলি স্টার, ২৭ এপ্রিল, ২০১২)। গত বছরের হিসাবে তাঁরা প্রায় দুই হাজার ৩০০ কোটি টাকা মালয়েশিয়ায় নিয়ে গেছেন। বর্তমানে এসব ‘দেশ বিক্রেতা’র সংখ্যা এবং তাঁদের দেশ বিক্রির টাকার পরিমাণ আরও অনেক বেশিই হবে। এভাবে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুরসহ ধনী বিশ্বের অংশ হয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশের অনেক ধনী পরিবার। বিশেষত, বিগত জরুরি অবস্থার সময়ে চলা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর দুর্নীতিবাজ ও লুটেরা ধনিকশ্রেণীর অনেকে একটা শিক্ষা নিয়েছেন: টাকা আর পরিবার দেশে রাখা যাবে না। বিশ্বের বহু দেশেই এভাবে ছড়িয়ে আছে তাঁদের সেকেন্ড হোম। বিশেষ করে, রাজনৈতিক অস্থিরতার সময়ই টাকা পাচার বেড়ে যায় বলে ইউএনডিপির পূর্বোক্ত সমীক্ষায় দেখা গেছে।

‘সেকেন্ড হোম’ সন্ধানীরা যখন অর্থনীতিকে রানা প্লাজা বানিয়ে ফেলছেন, তখন ওই সব রানা প্লাজার তলে চাপা পড়া পোশাকশ্রমিক আর প্রবাসী শ্রমিকেরা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স আর রপ্তানি-আয় জোগাতে জীবন-যৌবন উৎসর্গ করে চলেছেন। তাঁরাই আশির দশক থেকে বাংলাদেশকে গঠন করছেন, তাঁরাই জাতি গঠন প্রকল্পের প্রধান কারিগর। যখন গ্রাম থেকে সম্পদ ও টাকা শহরে চলে আসার হিড়িক লেগেছে, তখন এই দুই পেশার শ্রমিকেরাই গ্রামে বিপুল পরিমাণ পুঁজির জোগান দিয়ে চলেছেন। পোশাকশ্রমিক বা প্রবাসী শ্রমিক যেখানেই যান নিজের আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর কর্মসংস্থানের চেষ্টা করেন। আর একজন ‘দেশ বিক্রেতা’ যেখানেই যান, দেশের সম্পদ ও সম্ভাবনার সর্বনাশ ঘটান।

বাংলাদেশের স্বাধীনতাপ্রাপ্তির সবচেয়ে দৃষ্টিগোচর অবদান হলো বাঙালি শাসক ও বাঙালি পুঁজিপতি ধনিকশ্রেণীর উত্থান। কিন্তু এই শাসক পুঁজিপতি শ্রেণীর বড় অংশের আচরণ ঔপনিবেশিক শাসকদের মতোই। ইংরেজরা থাকত এখানে, কিন্তু সম্পদ যেত ব্রিটেনে। পাঞ্জাবি শাসকেরাও সেই ধারা অব্যাহত রেখেছিল। মধ্যকালে যেসব দেশীয় জমিদার ইংরেজের সুবাদে বাংলার যাবতীয় ভূমির মালিক হয়েছিলেন, তাঁরাও তাঁদের ঘরবিলাস, সন্তান-সঞ্চয় পাঠাতেন ঔপনিবেশিক নগর কলকাতায়। শাসক বাঙালি হলেও এখনো এই ধারা অব্যাহতই আছে। এখনো আমাদের সম্পদে মালয়েশিয়া থেকে সিঙ্গাপুর, ব্রিটেন থেকে কানাডা লাভবান হয়। কেবল নিঃস্ব ও নিহত হন বাংলার কৃষক আর তাঁদের বংশধর পোশাকশ্রমিকেরা।

সাভার ট্র্যাজেডির মাসপূর্তিতে সেখানকার কাঁটাতারের বেড়ায় ফুল গুঁজে কাঁদছিল নিখোঁজ শ্রমিকদের স্বজনেরা। তারা দেশে থেকেও দেশহীন। এরা অনেকেই ভূমিহীন, অনেকেই চীনা লিংচাওয়ের মতো ঘরহীন। এসব মায়েরা-বাবারা তাঁদের সন্তানদের কবরে শোয়ানোর জন্য লাশ চান, গোরের মাটি চান। তাঁদের বিশ্বাস, যেখানে জন্ম সেখানেই কবর হওয়া উচিত। জন্মমৃত্যুর সেই ভূমিই তাঁদের দেশ। ফুলবাড়ীর কৃষকদেরও খনির জন্য জমি ছাড়তে না চাওয়ার বড় যুক্তি ছিল, এই মাটিতেই বাপ-দাদার কবর আর শ্মশান; ‘এই মাটি হামরা ছাড়বেক লয়’। কিন্তু সেকেন্ড হোমওয়ালাদের মাটির দরকার নাই, তাঁদের দরকার দেশ ও মানুষকে লুটে বড়লোক হওয়ার সুযোগ। বেগম পাড়ার সাহেবরা তাই বছরের বেশির ভাগটা সাবেক ব্রিটিশদের মতো, সাবেক জমিদারদের মতো, সাবেক পাঞ্জাবি শাসকদের মতো দেশেই কাটান। টাকা বানাবার মেশিন চালু রাখেন। তাহলেও এই দেশ এখন আর তাঁদের শেষ ঠিকানা নয়, প্রয়োজন ফুরোলে তাঁরাও চলে যাবেন, যেমন চলে গেছে ব্রিটিশ আর পাকিস্তানিরা।

কিন্তু এই দেশ যাঁদের প্রথম ও শেষ ঠিকানা, দ্বিতীয়ঠিকানাধারীদের কবল থেকে দেশ বাঁচানো তাঁদের জন্যফরজ। সরকার ও বিরোধীদল উভয়ই যখন বিরাট জাতীয়তাবাদী, তখন শক্ত খোলের মধ্যে থাকা সুবিধাবাদী কচ্ছপেরা লাই পাচ্ছে কেন?

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-05-26/news/355133

5 thoughts on “Faruk Wasif: The Sahibs of Begum Para and the turtles that sell the country

  1. I feel this article falls short of AOD (and perhaps Prothom Alo) standards. The only factual basis here seems a wishy-washy article that heavily relies on hearsay and anecdotal evidence. The rest of the data is dubious too. Case in point: source of data for Malaysian immigration is cited, but the remittance figure of BDT 2300 crore is ‘last year’s estimation’. Needless to say, it is the latter that could’ve served as a starting point for building a case against smugglers.

    The sentimental attempt to portray second-home seekers as some sort of traitors to the motherland, while surely admirable to some, is not based on any ‘journalistic’ work or research. Neither is the attempt to paint them as the ‘Hallmark-Destiny-Ranaplaza’ types. As pointed out above: it is not ‘having a second-home’ situation that needs remedying, but illegal financing of such homes. The former cannot, does not serve as a proxy indicator for the latter.

    P.S. the inconsistent spelling of ‘Begum’ can be distracting to some readers. Just a suggestion.

    • Disagree with Adnan R Amin. If anything, Wasif has not fully encompassed the scope of the damage of capital flight. This is in today’s paper.

      Bangladeshis have 1908 Crore Franc in Swiss Banks

      http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-06-24/news/362774

      সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের অন্তত ২২ কোটি ৯০ লাখ সুইস ফ্রাঁ গচ্ছিত আছে। এ অর্থ প্রায় ২৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার বা এক হাজার ৯০৮ কোটি টাকার সমান। এটি সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন ব্যাংকে যে অর্থ গচ্ছিত রাখা হয়েছে, তার মোট পরিমাণ।
      সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) কর্তৃক প্রকাশিত ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১২’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। সম্প্রতি এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।
      এতে দেখা যায়, ২০১২ সালের শেষে এসে সুইস ব্যাংকগুলোয় সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের এক লাখ ৪০ হাজার কোটি সুইস ফ্রাঁ বা প্রায় এক লাখ ৫২ হাজার কোটি ডলার গচ্ছিত আছে। সে হিসাবে সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থ খুবই নগণ্য। অবশ্য বাংলাদেশি বা অন্য কোনো দেশের নাগরিক বা প্রতিষ্ঠান নিজের বদলে অন্যের নামে কোনো অর্থ গচ্ছিত রেখে থাকলে তা এ হিসাবের মধ্যে আসেনি। একইভাবে গচ্ছিত রাখা মূল্যবান শিল্পকর্ম, স্বর্ণ বা দুর্লভ সামগ্রীর আর্থিক মূল্যমান হিসাব করে এখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।
      তবে গত ছয় বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থ গচ্ছিত ছিল ২০০৭ সালে। এ বছর সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ ছিল ২৪ কোটি ৩০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা দুই হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি। এ বছরই সুইস ব্যাংকগুলোর বৈশ্বিক গ্রাহকেরা সর্বোচ্চ দুই লাখ ৬০ হাজার কোটি সুইস ফ্রাঁ বা প্রায় ২১৭ লাখ কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ গচ্ছিত রেখেছিল।
      ২০০৮ সালে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ নেমে আসে ১০ কোটি ৭০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা ৮৯২ কোটি টাকায়। ২০০৯ সালে এটি কিছুটা বেড়ে হয় ১৪ কোটি ৯০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা এক হাজার ২৪১ কোটি টাকায়। ২০১০ সালে তা আরও বেড়ে হয় ২৩ কোটি ৬০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা এক হাজার ৯৬৮ কোটি টাকা।
      এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, সুইস ব্যাংকে গচ্ছিত সব অর্থই পাচারকৃত বা অবৈধ তা বলা যাবে না। যাঁরা জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থায় দীর্ঘদিন কাজ করেছেন, তাঁরা অনেকেই সুইস ব্যাংকে অর্থ রেখেছেন। এটা বিভিন্ন দেশের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। আর বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থ খুবই কম।
      সালেহউদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, তবে সরকার যদি গচ্ছিত অর্থ সম্পর্কে জানতে চায়, তাহলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মাধ্যমে সমঝোতা স্মারক বা তথ্যবিনিময় চুক্তি স্বাক্ষর করতে পারে। আর বাংলাদেশ যেহেতু এগমন্ট গ্রুপের সদস্য হতে যাচ্ছে, সেহেতু আগামী দিনে অর্থ পাচার বা স্থানান্তরসংক্রান্ত তথ্য পাওয়ার সুযোগ তৈরি হবে।
      বৈশ্বিক চিত্র: প্রাপ্ত তথ্য থেকে দেখা যায়, গত বছরের শেষ নাগাদ গচ্ছিত মোট অর্থের প্রায় ২২ শতাংশই এসেছে যুক্তরাজ্য থেকে, যার পরিমাণ ২৯ হাজার ৫০০ কোটি সুইস ফ্রাঁ বা প্রায় ৩১ হাজার ৬০ কোটি ডলার। অর্থ গচ্ছিত রাখার শীর্ষ দশের মধ্যে এরপর যথাক্রমে আছে যুক্তরাষ্ট্র, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জার্সি, গুয়েরনসে, জার্মানি, ফ্রান্স, বাহামা, কেম্যান দ্বীপপুঞ্জ ও হংকং। জার্সি ও গুয়েরনসে ইংলিশ চ্যানেলে অবস্থিত ব্রিটিশ রাজের ওপর নির্ভরশীল দুটি দ্বীপ, সার্বভৌম রাষ্ট্র নয়।
      এতে আরও দেখা যায়, প্রতিবেশী ভারতের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩৪ কোটি সুইস ফ্রাঁ বা ১৪৩ কোটি ডলার। এটি ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি রুপি। এর বাইরে গত বছর ভারতীয়দের সাত কোটি ৭০ লাখ সুইস ফ্রাঁ গচ্ছিত রাখা হয়েছে বিভিন্ন তহবিল ব্যবস্থাপকের মাধ্যমে। তবে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এ ধরনের কোনো অর্থ গচ্ছিত রাখার তথ্য নেই।
      তবে সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বজুড়ে সুইস ব্যাংকগুলোয় গচ্ছিত অর্থ-সম্পদের তথ্য প্রকাশ করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ থেকে সুইজারল্যান্ডের ওপর চাপ তৈরি করা হয়েছে। বিশ্লেষকেরা বলছেন, এ কারণেই দু-তিন বছর ধরে তথ্য প্রকাশ ও বিনিময়ের চাপ তৈরি হওয়ায় কোনো কোনো দেশ থেকে সুইস ব্যাংকগুলোয় অর্থ গচ্ছিত রাখার প্রবণতা কমেও এসেছে। এসব অর্থ বরং অন্যত্র স্থানান্তরিত হয়েছে।

      • Thanks Khujeci. Very worrying news – though I don’t see how that relates to my comment or where you disagree. I was pointing out problems I perceived in a) citing the Sirajul Islam article as a source and b) the attempt to link second-home seekers and Destiny-Hallmark scale corruption.

        Also, let’s not misunderstand my intentions or stance. Capital flight is real: I only want to help make stronger the case against it and its perpetrators. My comment means this article, IMHO, didn’t make a really strong case.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s