Anu Muhammad: Who’s prospering on whose labor?

Anu_M

© Shahidul Alam

“Cutting hills, building brick kilns or shrimp hatcheries by destroying agricultural land, and high rises by filling in water bodies, setting up business by filling up rivers, making furniture at the cost of forests and hills as well as the commodification of education and medical services, and the price hike of electricity and gas can all point to an increase in the growth of the GDP.” – Anu Muhammad

Who’s prospering on whose labor?
by Anu Muhammad, translated for AlalODulal.org by Nusrat Chowdhury

The growing size and allocation of a national budget is nothing out of the ordinary. The GDP is growing and so is the size of the economy. That the budget would also increase in size is expected. The income of a budget consists of the money owned by the people. Deficits are balanced by the help of local and foreign loans. Money from the people is generally taken in the form of tax and duty.

The main component of the budget is the earning and spending of revenue. One could think of the revenue paid to the government as people’s money given in the form of tax, duty, and other fees. What about the expenditure of this revenue? The answer is administration, that is, the expenses that support the establishment. It is the money of the people that pays for every governmental and semi-governmental car, building, air conditioner, meeting, transportation, food, luxury, waste, lifestyle, foreign travels, shopping, and so forth. Maybe people do not notice, but the bulldozer demolishing their homes, the RAB or police baton hitting their heads, the muscle-flexing of the ministers, MPs, and bureaucrats, and the pageantry, the new buildings, and the expensive cars are all made possible because of their money. The government leaves everyone indebted with its promises and resources, but the source of that money is neither governmental nor private. It is people’s money.

The government rarely fails to extract taxes, duties, VATs, etc. from the people. Ordinary people never decline to give whatever the government asks of them.  And yet, the gesture is rarely returned. The taxes that the people of Bangladesh pay to the government have doubled in the last four years. … And yet, the burden on the people has not been lessened. Due to misguided policies, harmful contracts, and corruption there has been an increase in annual subsidies into this area. To lessen the pressure of added subsidies, it is the people who have ended up paying for the increased price of oil, gas, and electricity throughout 2012. As always these remain outside the declaration of the budget. Besides the extra taxes and duties, the hike in electricity and gas prices has increased the cost of living. The production and transportation costs in the productive sectors, including agriculture and industry have also increased.

Those who own the majority of the wealth and income of the country are still outside the network of taxation. According to both governmental surveys and the words of the Finance Minister, a large amount of the government’s money is unaccounted for. In terms of number, this would be about Tk. 500,000-700,000 crores. In economics or regular parlance, one would call this “black money.” A small part of this may be valid income, but because no tax has been paid on this for various reasons, it has now been listed as “undisclosed” income. One can be certain that the right epithet for this is “illicit” wealth, earned by theft, looting, corruption, fraud, aggression, and terror. This includes bribery, investment fraud, commissions, the expropriation of governmental or public property, extortion, the sharing of funds allocated for unfinished development projects, over- and under-voicing, and so forth. It is obvious that only the powerful can do this and that too with the support and encouragement of the administration. This is precisely why we keep hearing about the whitening of “black money” during the tenure of each government, but rarely see any effort to stop its source. It is because the administration and the owners of black money are the one and the same.

Although not included in the calculation of national income, a large part of it is earned in measures that only reproduce violence, aggression, and terror. This amount of wealth is on the rise and remains beyond taxation. It is the result of the development paradigm of the last decades that has been supported by each government in power. When the Finance Minister proudly declares, “The pace of this development will continue,” we get scared. We sense that black money will only increase through the application of next year’s budget as well as the costs of various projects and “non-projects.”

Not only does this source of revenue evade governmental surveillance, it also gets converted into foreign currency and leaves the country. This is how a big chunk of foreign currency earned at the cost of the lives of local and migrant workers is made into fodder for the owners of illicit wealth. And the solution to balance the deficit is being sought in foreign loans that come at high costs.

Each year a significant part of the budget goes into the Annual Development Programme (ADP), which is a cluster of many projects. Even this year questions were raised about the implementation of these projects. What is generally meant by budget implementation is the expenditure of the allocated amount. By June every year about 80 to 90 percent of this money is used up, although only 40-50 percent is generally spent by April. Spending money and implementing projects are not the same thing. Many years of experience with the budget show that despite the money being spent, very few projects actually get realized. Therefore, the ADP for the following year starts off with incomplete projects from the past. The current Finance Minister had promised to change this trend in his first budget speech. And yet, the situation remains the same in the budget that he just presented four years later. By April, about fifty percent of the money has been spent, and we know that by June almost all of the amended budget will be used up. Most of these are projects from the last year, or even older, unfinished ones from before. Our Annual Development Programme thus starts with new and old unrealized projects.

In the ADP each ministry gets its own projects. From roads, bridges, and buildings to electricity plants, all are under this program. The decisions about these are made through the selection of tender and the various pilots and tests done by expert committees. When foreign loans are attached to these projects, even if that amount is a mere ten percent, the complexities, tests, and paperwork increase exponentially. Everything takes longer. The same project comes back every year – an incomplete bridge; an absent road; a half-made dam; stagnant water in dangerous dams; a hospital building without machinery; gas lines that start but never end; a research institute but no allocation for research, and so on and so forth. Every new speech of the Finance Minister on large allocations makes us feel that we are awashed by a new flood of development. Allocations have increased, which must mean that new projects are being added. What remains hidden from public view is the fact that new allocations have mostly gone into old projects. The list of expenditure has increased, new budgets for them have been approved, and once more they have been added to the new annual budget.

It is like that story of the fox and the crocodile. The crocodile brings seven of its babies to the “learned” fox to be educated. The mother crocodile comes each day to ask about them. At first all seems well. Soon the fox starts eating up the crocodile babies. But clever fox does not ravage all of them. When the crocodile comes, he shows the one remaining baby. The crocodile goes home happy, happy with what the fox has done. Our situation is a lot like the crocodile – dumb, inattentive, and credulous. Without any assessment, critique, or fear, all we are left with is blind faith. Our critical faculties stop working in the chaos of statistics and numbers.

Many would argue that implementation is the main problem with the budget. Is that so? Looked carefully one can see that the problem of implementation often arises from the very selection of projects. There is no dearth of unnecessary, redundant, and harmful projects, and this is so because they are being selected by the interests of party leaders, influential figures, and local and foreign groups. In most cases, decisions happen first and selection follows. At times there is conflict among the various interested parties which lengthens the process of selection.

Despite this history, the ADP for the 2013-24 fiscal year is Tk. 65,870 crores. In spite of what ordinary Bangladeshis have given back, and they have given as much as they could, there is a deficit of Tk. 55,032 crores. The main sources of this deficit are interests from loans. And to mitigate this deficit, there will be more loans from both local and foreign sources. We are now in a vicious cycle of debt. In his speech for the 2012-2013 budget, the Finance Minister had promised to lessen unnecessary expenses for the following year. But did that happen? Did the pomp and pageantry of the administration get curtailed? Has the buying of cars stopped? What about foreign travels? And the rising administrative costs in the name of outsourcing? Nothing changed. We have seen efforts to lessen “unnecessary costs” in former budgets as well. It seems whatever is in the interest of the people gets categorized as “unnecessary.” So we hear about a lack of funds when it comes to public education, medicine, national expertise building, educational and training institutes, research, and resources for public good, more broadly.

In the picture that has been presented in next year’s budget allocations, the most significant expenditure is in the payment of interests on loans. This is about Tk.27,443 crores, which is 12.5 percent of the budget. It is due to the loans of the last few years that a big portion of revenue is being given as interest. It is more than twenty percent of total revenue. The motives behind the increase in loans are not the wellbeing of the people.

Most subsidies in the last few years have gone into the electricity sector. In 2012 this amount was Tk. 32,000 crores. 28,000 cores out of that was spent on Quick Rental Power Plants. The large capital needed to buy electricity at a higher price from Quick Rental and the import of oil came from loans. The burden of these loans has fallen on the people. This is why paying interests comprises the largest expenditure right after administration in this year’s budget. However, a one-time expense of Tk. 1,000 crores could have given us the same amount of electricity if we had spent it on the renewal, repair, maintenance, and reform of the energy sector. We would not have to pay subsidies and increase the amount of loans every year. Neither would we be bound to import extra oil. The economy would not be under added pressure. The allocations make it seem like the government is privileging the energy sector, but in reality, the increased expenditure is to ensure good business for a few preferred groups. The result of this is the cycle of debt as well as the hike in costs of both electricity and oil.

There is no shortage of hullabaloo over the growth of the GDP. What does this growth mean? One cannot equate the quality of life with the growth of the GDP. Growth cannot be the last word. What is significant is how the economy is growing and by what means. Cutting hills, building brick kilns or shrimp hatcheries by destroying agricultural land, and high rises by filling in water bodies, setting up business by filling up rivers, making furniture at the cost of forests and hills as well as the commodification of education and medical services, and the price hike of electricity and gas can all point to an increase in the growth of the GDP. Simultaneously, they help increase illicit wealth. The existing trend of development encourages an economy of cronyism, a society of fear, and a politics of violence and terror. What happens to those, then, the majority of people, who keep on nourishing this government in exchange of lakhs and crores?

Anu Muhammad is professor at Jahangirnagar University, Bangladesh, where he has taught economics since 1982 and taught anthropology from 1991 to 2005. Translator Nusrat Chowdhury is Assistant Professor of Anthropology at Amherst College, USA.

কার শ্রমে কার সমৃদ্ধি?

বাজেটের আকার এবং বরাদ্দ বৃদ্ধি অস্বাভাবিক কিছু নয়। জিডিপি বাড়ছে, অর্থনীতির আকার বাড়ছে। সুতরাং বাজেটও বাড়বে এটাই স্বাভাবিক। বাজেটের আয় তৈরি হয় প্রধানত জনগণের অর্থ দিয়ে। ঘাটতি তৈরি হলে সেটা মোটানো হয় দেশি-বিদেশি ঋণ দিয়ে। জনগণের কাছ থেকে অর্থ নেয়া হয় কর এবং শুল্ক হিসেবে।

বাজেটের প্রধান অংশ রাজস্ব আয় ও ব্যয়। সরকারের রাজস্ব আয় বলতে যা বোঝানো হয় তাকে আমরা অন্যদিক থেকে বলতে পারি কর শুল্ক ও ফিসহ নানাভাবে সরকারকে দেয়া জনগণের অর্থ। আর রাজস্ব ব্যয়? সেটি হল, সরকারি প্রশাসন- প্রতিষ্ঠান চালানোর খরচ। সরকারি আধাসরকারি প্রতিটি গাড়ি, প্রতিটি ভবন, এসি, সভা, চলাফেরা, খাওয়া-দাওয়া, বিলাস, অপচয়, জীবনযাপন, বিদেশ সফর, কেনাকাটা অতএব জনগণের অর্থেই পরিচালিত হয়। জনগণ হয়তো খেয়াল করেন না যে, তাদের ঘরের ওপর বুলডোজার, তাদের মাথায় পুলিশ বা র‌্যাবের লাঠি, তাদের সামনে মন্ত্রী এমপি আমলার চোটপাট কিংবা শানশওকত, নতুন নতুন ভবন, দামী গাড়ি সবই তাদের অর্থেই হয়। সরকার প্রতিশ্রুতি আর টাকা দিয়ে সবাইকে কৃতার্থ করেন। অথচ ঐ টাকা তো সরকারের কারও ব্যক্তিগত নয়, তা মানুষেরই।

জনগণের কাছ থেকে কর শুল্ক সারচার্জ বা বর্ধিত দাম আদায়ের ক্ষেত্রে সরকারের সাধারণত কোনো ব্যর্থতা দেখা যায় না। সরকার জনগণের কাছ থেকে যা চেয়েছে তা দিতে তারা কখনও আপত্তি করেনি। কিন্তু জনগণের পাওনা পরিশোধ করেনি কোনো সরকারই। বাংলাদেশের মানুষ সরকারকে যে কর শুল্ক দেয় তা গত ৪ বছরে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। ২০০৮-৯ অর্থবছরে রাজস্ব বোর্ড – এর আদায়কৃত কর ও শুল্কের পরিমাণ ছিল ৫০ হাজার ২১৬ কোটি টাকা। ২০১১-১২ পর্যন্ত এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯২ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। অন্যান্য রাজস্ব মিলিয়ে এর পরিমাণ দাঁড়ায় যথাক্রমে ৬৪ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকা এবং ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৩৮৫ কোটি টাকা। ২০১২-১৩ অর্থবছরে কর রাজস্ব ২০ হাজার কোটি টাকাসহ অতিরিক্ত আরও ২৫ হাজার কোটি টাকা বৃদ্ধি করে রাজস্ব আয় ধরা হয়েছিলো ১ লক্ষ ৩৯ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা। এবছরের মার্চ পর্যন্ত আদায় হয়েছে ৯২ হাজার টাকা। বাকি টাকাও নিশ্চয়ই আদায় হবে। এবছর ২৩ হাজার ৮৩১ কোটি টাকা বাড়তি কর যোগ হচ্ছে, আর মোট রাজস্ব আয় বাড়ছে ২৭ হাজার ৭৮৯ কোটি টাকা।

তবে জনগণের বোঝা শুধু বাড়তি কর আর শুল্ক দিয়েই শেষ হয়নি। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে সরকারি ভুল নীতি, ক্ষতিকর চুক্তি ও দুর্নীতির কারণে প্রতিবছর যে বিপুল ভর্তুকি দিতে হচ্ছে তার চাপ কমাতে তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের দামবৃদ্ধির ঘটনা ২০১২ সাল জুড়েই ঘটেছে। বরাবরের মতো এগুলো সবসময়ই বাজেট ঘোষণার বাইরে। বাড়তি কর শুল্কের চাইতেও গ্যাস ও বিদ্যুতের দামবৃদ্ধি জনগণের জীবনযাত্রার ব্যয়কে বাড়িয়েছে অনেক বেশি। শিল্পকৃষি সহ সকল উৎপাদনশীল খাতে উৎপাদন ও পরিবহণ ব্যয় আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।

যাদের হাতে দেশের আয় ও সম্পদের বৃহদাংশ তারা কিন্তু এখনও করজালের বাইরে। সরকারের সমীক্ষা ও অর্থমন্ত্রীর ভাষ্যেই বলা হয়েছে, বাংলাদেশের বিশাল অংশের অর্থ সরকারের হিসাবে নাই। টাকার অংকে এটা হবে প্রায় ৫ লাখ থেকে ৭ লাখ কোটি টাকা। এই আয়ের নাম দেয়া হয়েছে ‘অপ্রদর্শিত আয়’, অর্থশাস্ত্রে বা সাধারণ পরিচয়ে এর আরেকটি নাম, ‘কালো টাকা’। এর মধ্যে একটি ক্ষুদ্র অংশ হতে পারে পরিশ্রমলব্ধ বৈধ আয়, বিভিন্ন কারণে কর না দেওয়ার কারণে তা এখন ‘অপ্রদর্শিত’ তালিকাভুক্ত। তবে এটা নিশ্চিত বলা যায় যে, এই টাকার বড় অংশের যথার্থ নাম হবে ‘চোরাই টাকা’ যা চুরি, ডাকাতি, লুন্ঠন, ক্ষমতা প্রয়োগ, জালিয়াতি, দখল ও সন্ত্রাসের মাধ্যমে অর্জিত। এগুলোর মধ্যে আছে ঘুষ, নিয়োগবাণিজ্য, কমিশন, রাষ্ট্রীয় বা সর্বজন সম্পদ আতœসাৎ, উর্দিপরা ও উর্দিছাড়াদের চাঁদাবাজি, কাজ না করে উন্নয়ন প্রকল্প বরাদ্দ ভাগাভাগি, বাণিজ্যে ওভার-আন্ডার ইনভয়েসিং ইত্যাদি। সবাই জানেন, এসব কাজ ক্ষমতাবানদের পক্ষেই করা সম্ভব, রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের আশ্রয় প্রশ্রয় ছাড়া এগুলো টিকতে পারে না। তাই সব সরকারের আমলেই আমরা ‘কালো টাকা’ সাদা করার নানাকথা শুনি, কিন্তু এর উৎস বন্ধ করার কোনো উদ্যোগ দেখা যায় না। কারণ চোরাই টাকার মালিক আর সরকারি প্রশাসন বস্তুত একাকার।

বাংলাদেশের জাতীয় আয়ের হিসাবে না থাকলেও তার বিরাট অংশের টাকা যেভাবে উপার্জিত হয়, তাতে সন্ত্রাস, দখলদারিত্ব, আর সন্ত্রাসী বাহিনীর পুনরুৎপাদনই স্বাভাবিক। এই বিশাল সম্পদ ও অর্থ করদানের আওতার বাইরে এবং তা অব্যাহতভাবে ক্রমবর্ধমান। গত কয়েক দশকে যে উন্নয়ন গতিধারা সরকার নির্বিশেষে পুষ্ট হচ্ছে – এটা তারই ফল। অর্থমন্ত্রী গর্বের সঙ্গে যখন বলেন, ‘এই উন্নয়ন গতিধারা অব্যাহত থাকবে’, তখন তাই আমরা আতংকিত হই। বুঝি সামনের বছর বাজেট বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে, প্রকল্প-অপ্রকল্প ব্যয়ের মধ্যে দিয়ে চোরাই টাকার পরিমাণ আরও বাড়বে।

রাজস্ব আয়ের এই সম্ভাব্য বিশাল উৎস শুধু যে সরকারি ধরাছোঁয়ার বাইরেই থাকে তা নয়, উল্টো এই অর্থ বিভিন্নভাবে বৈদেশিক মুদ্রায় রূপান্তরিত হয়ে বিদেশে পাচার হয়। এভাবে দেশি ও প্রবাসী শ্রমিকদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তৈরি করা বিদেশি মুদ্রার মজুতের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ খোরাক হচ্ছে চোরাই টাকার মালিকদের। তারপর এর ঘাটতি পূরণ করতে নেয়া হচ্ছে কঠিন শর্তের বৈদেশিক ঋণ।

প্রতিবছর বাজেটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে আসে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি, অনেক প্রকল্পের সমাবেশ। এগুলোর বাস্তবায়ন নিয়ে এবারও অনেক প্রশ্ন ওঠেছে। বাজেট বাস্তবায়ন বলতে যে আলোচনা করা হয় তাতে বরাদ্দকৃত টাকা খরচই সাধারণত বোঝানো হয়। প্রতি বছরেই জুন মাসের মধ্যে বরাদ্দ টাকার শতকরা ৮০/৯০ ভাগ সম্পন্ন হয়, যদিও এপ্রিল মাস নাগাদ শতকরা ৪০ থেকে ৫০ ভাগ খরচ হয়। খরচ সম্পন্ন হওয়া আর প্রকল্প সম্পন্ন হওয়া এক কথা নয়। বহুবছরের বাজেটের অভিজ্ঞতায় দেখা যায়, খুব কম প্রকল্পই বাস্তবায়িত হচ্ছে, যদিও খরচ হয় পুরোটাই। এর ফলে পরবর্তী বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসুচি পূর্ণ হয় পূর্ববতী বছরের অসমাপ্ত প্রকল্প দিয়ে। বর্তমান অর্থমন্ত্রী তার প্রথম বাজেট বক্তৃতায় এই অবস্থার পরিবর্তনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু চার বছর পর সর্বশেষ তিনি যে বাজেট উপহার দিলেন সেখানে পরিস্থিতি একইরকম আছে। এপ্রিল পর্যন্ত খরচ হয়েছে শতকরা ৫০ ভাগের একটু বেশি, আমরা জানি জুন পর্যন্ত সংশোধিত বাজেটের পুরোটা খরচ হবে, কিন্তু এগুলোর মধ্যে বেশিরভাগ এই বছরের কিংবা আরও পুরনো অসমাপ্ত প্রকল্প। নতুনের সাথে অনেকগুলো অসমাপ্ত প্রকল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে সামনের বছরের ‘বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি’।

অথচ গত বেশ কয়েক বছরে প্রকল্প বাস্তবায়ন, অর্থবরাদ্দ নিয়ে নানাবিধ নীতি, নিয়ম, প্রতিষ্ঠান তৈরি হয়েছে। ‘দাতাসংস্থা’ বলে পরিচিত আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহের ‘নজরদারি’র নানা শাখাপ্রশাখা তৈরি হয়েছে, বিশ্বব্যাংকের ‘ক্রয় সংক্রান্ত বিধিনিষেধ’ জারি হয়েছে, সরকারি নানা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য দেশে বিদেশে নানা কর্মসূচি নেয়া হয়েছে, এগুলোতেও বছর বছর বিদেশি ঋণসহ বরাদ্দ কম দেয়া হয়নি। ক্যাপাসিটি বিল্ডিং, টেকনিক্যাল এসিস্ট্যান্স নামে বিদেশি ঋণ অনুদান, সেমিনার- ওয়ার্কশপ, বিদেশি কনসালট্যান্ট আনা, গাড়িকেনা, বিদেশ সফর, সবই হয়েছে। এতসব প্রহরী, এতসব পরীক্ষা, তারপরও অর্থ খরচ হয়, যার যার ভাগও চলে যায়, কিন্তু প্রকল্প শেষ হয় না। আমাদের জানানো হয় ‘বজ্র আটুনি ’ কিন্তু বাস্তবে আমরা দেখি ‘ফস্কা গেরো’। পাহারার খরচই কেবল বাড়লো, ফলাফল অনুল্লেখ্য কিংবা কোন কোন ক্ষেত্রে তার অধপতনের চিহ্ন!

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসুচিতে বিভিন্ন মন্ত্রনালয়ের নামে বিভিন্ন প্রকল্প যুক্ত থাকে। সড়ক, সেতু, ভবন নির্মাণ থেকে বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট পর্যন্ত সবই এই কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত। দরপত্র বাছাই, নানা কমিটির পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইত্যাদি বহুক্ষেত্রে এগুলো সম্পর্কে সিদ্ধান্ত হয়। বিদেশি ঋণ যদি প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত থাকে, যদি এর অনুপাত ১০ ভাগও হয় তাহলেও জটিলতা, পরীক্ষা নিরীক্ষা, নানাবিধ কাগজপত্র তৈরির বাধ্যবাধকতা অনেক বেশি থাকে, দীর্ঘসূত্রিতা বাড়ে। বছরের পর বছর একই প্রকল্প বারবার আসে। সেতু অসমাপ্ত, রাস্তার খবর নাই, বাঁধ একটু হয়ে পড়ে আছে, ক্ষতিকর বাঁধে জলাবদ্ধতা স্থায়ী, হাসপাতালের ভবন একটু খাড়া কিন্তু যন্ত্রপাতি নাই, গ্যাসের লাইন শুরু কিন্তু শেষ নাই, গবেষণার ভবন আছে গবেষণার বরাদ্দ নাই ইত্যাদি ইত্যাদি। নতুন নতুন বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রীর বক্তৃতা ও বিরাট বিরাট বরাদ্দ শুনে সবই ভাবে, এবারে বোধহয় উন্নয়নের নতুন একটি জোয়ার সৃষ্টি হবে, বরাদ্দ বেড়েছে, নতুন অনেক প্রকল্প মনে হয় যোগ হচ্ছে। কিন্তু যা আড়াল থাকে, জনগণের যা জানা হয় না তা হল নতুন বরাদ্দে বেশির ভাগ টাকা পুরনো প্রকল্পের জন্যই গেছে। খরচের ফিরিস্তি বেড়েছে, সেগুলোর নতুন বাজেট পাশ হয়েছে, নতুন ভাবে তা যুক্ত হয়েছে নতুন বছরের বাজেটের সাথে।

এ যেনো সেই কুমির আর শিয়ালের গল্প। ‘পন্ডিত’ শিয়ালের কাছে কুমির তার ৭ বাচ্চাকে লেখাপড়া করতে দিয়ে গেল। মা কুমির প্রতিদিন একবার বাচ্চাদের খোঁজ নিয়ে যায়। প্রথম কিছুদিন সব ঠিকঠাক ছিল। তারপর ক্রমান্বয়ে ১টি করে বাচ্চা শিয়ালের খাদ্য হতে থাকে। চতুর শিয়াল সব শেষ করে না, রেখে দেয় ১টা। কুমির যখনই আসে, শিয়াল ঐ ১টি বাচ্চাই বারবার দেখায়, বলে এই তোমার বাচ্চা। কুমিরও খুশি মনে ফিরে যায়। শিয়ালের কাজে সে খুবই খুশি। আমাদের দশা সেই বোকা, অমনোযোগী, বিশ্বাসী কুমিরের মতো। কোন প্রশ্ন পর্যালোচনা, সংশয় নাই, আছে বোকা বিশ্বাস; পরিসংখ্যানের হৈ চৈ এ মাথায় কোনকিছুই কাজ করে না।

অনেকেই বলছেন বাস্তবায়নই হচ্ছে বাজেটের আসল সমস্যা। আসলেই কী তাই? অনুসন্ধানে দেখা যাবে বাস্তবায়নের সমস্যার অনেকখানি তৈরি হয় প্রকল্প নির্বাচন বা বাছাইয়ের মধ্যেই। ভুল, অপ্রয়োজনীয় বা ক্ষতিকর প্রকল্পের ভিড়। কারণ দলীয় নেতা, প্রভাবশালী ব্যক্তি কিংবা দেশি বিদেশি নানা গোষ্ঠীর ইচ্ছায় প্রকল্প নির্বাচিত হচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সিদ্ধান্ত আগে, বাছাই প্রক্রিয়া পরে। মাঝেমধ্যে এ নিয়ে ভাগীদারদের মধ্যে বিরোধও হয়, হলে প্রকল্প বাছাই দীর্ঘায়িত হয়।

প্রকল্প নিয়ে এসব অভিজ্ঞতার পরও ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসুচি ৬৫ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা। জনগণের সাধ্যমতো সবকিছু দেবার পরও এর ৫৫ হাজার ৩২ কোটি টাকাই ঘাটতি। ঘাটতির প্রধান কারণ ঋণের সুদ, এই ঘাটতির জন্য আবার ঋণ হবে, দেশি ও বিদেশি উৎস থেকে। আমরা এখন ঋণগ্রস্ততার দুষ্টচক্রের মধ্যে। ২০১২-১৩ বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, পরের অর্থবছরে অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাবেন। কোথায় কমেছে? প্রশাসনের শান শওকত কমেছে? গাড়ি কেনা কমলো? বিদেশ সফর কমলো? আউটসোর্সিংএর নামে প্রশাসনিক ব্যয়বৃদ্ধি কমলো? না এগুলোর কোনটাই কমে নাই। ‘অপ্রয়োজনীয় খরচ’ কমানোর চেষ্টা আমরা আগের বাজেটগুলোতেও দেখি। যেসব কাজ জনগণের প্রযোজন সেগুলোই যেনো অপ্রয়োজনীয় খরচ! তাই টাকার অভাব দেখা যায় সর্বজনের (পাবলিক) শিক্ষা ও চিকিৎসার বিকাশে, দেখা যায় জাতীয় সক্ষমতা বিকাশে, প্রয়োজনীয় শিক্ষা-প্রশিক্ষণ-প্রতিষ্ঠান বিকাশে, দেখা যায় গবেষণায়, দেখা যায় জনস্বার্থ রক্ষার জনবল বিকাশে।

২০১১-১২ অর্থবছরে উন্নয়ন বাজেটে ব্যয় হ্রাসের চিত্র দেখলে বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে। এই সময়ে মূল বাজেট থেকে সংশোধিত বাজেটে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা খাতে কমানো হয়েছে ১ হাজার কোটি টাকারও বেশি, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে কমানো হয়েছে ৫০০ কোটি টাকা, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিভাগে কমানো হয়েছে ৪০০ কোটি টাকা। অন্যদিকে সমগ্র বাজেট হিসাবে প্রশাসনের খরচ বেড়েছে ১০৬ কোটি টাকা। ২০১২-১৩ অর্থবছরের মূল বাজেট থেকে সংশোধিত বাজেটে যেসব খাতে বরাদ্দ কমেছে সেগুলো হল: প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় (৪৬৬ কোটি টাকা), স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ (২০২ কোটি টাকা), শিক্ষা (৩০১ কোটি টাকা), পানি সম্পদ (৪০৭ কোটি টাকা), কৃষি (৯০ কোটি টাকা)। রেন্টাল কৃইক রেন্টালের কারণে বিদ্যুতে বেড়েছে ৬৭১ কোটি টাকা, কিন্তু খনিজসম্পদ বিভাগে কমেছে ২২২ কোটি টাকা। যোগাযোগ ক্ষেত্রে সড়ক বিভাগে বেড়েছে ৯৮৩ কোটি টাকা, কিন্তু রেলপথে কমেছে ২৮৮ কোটি টাকা (বাজেট বক্তৃতা, ৭ জুন, ২০১৩)।

সামনের বছরের জন্য সমগ্র বাজেটের সম্পদের ব্যবহারের যে চিত্র বাজেট বক্তৃতায় উপস্থিত করা হয়েছে তাতে দেখা যায় সবচাইতে বেশি খরচ হচ্ছে ঋণের সুদ বাবদ, প্রায় ২৭,৪৪৩ কোটি টাকা (১২.৫%)। গত কয়েক বছরে ঋণজর্জরিত হয়ে গেছে বাজেট, তার কারণে সুদ দিতে হচ্ছে মোট আয়ের একটি বড় অংশ, রাজস্ব আয়ের বিচারে শতকরা ২০ ভাগের বেশি। এই ঋণবৃদ্ধির কারণ জনগণের প্রয়োজন মেটানো নয়।

গত কয়েক বছরে বেশি ভর্তুকি দেয়া হচ্ছে বিদ্যুৎ খাতে। ২০১২ সালে মোট ভর্তুকি ছিল ৩২ হাজার কোটি টাকা। তার মধ্যে ২৮ হাজার কোটি টাকাই ছিল রেন্টাল কুইক। রেন্টাল থেকে বেশি দামে বিদ্যুৎ কেনা ও তাদের জন্য বর্ধিত তেল আমদানির ব্যয় বাবদ এই বিপুল পরিমাণ টাকা সরকার জোগাড় করেছে ঋণ করে। এই ঋণের বোঝাটা শেষ পর্যন্ত জনগণের ওপরই পড়েছে। এর কারণে এই বছরের বাজেটে সুদ পরিশোধটাই হচ্ছে প্রশাসনের পরে সবচেয়ে বড় খাত। অথচ এককালীন সর্বোচ্চ ১ হাজার কোটি টাকা খরচ করে গ্যাস ও বিদ্যুৎ খাতের নবায়ন, মেরামত ও সংস্কার করলে সমপরিমাণ বিদ্যুৎ পাওয়া যেত। তাতে বছর বছর এই ভর্তুকির বোঝা বাড়ত না, ঋণ বাড়ত না। বাড়তি তেল আমদানির বাধ্যবাধকতা তৈরি হতো না। অর্থনীতির ওপর চাপ তৈরি হতো না। বরাদ্দ দেখে মনে হবে বিদ্যুৎএ সরকার বিশেষ অগ্রাধিকার দিচ্ছে, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কিছু গোষ্ঠীকে ব্যবসা দিতে গিয়ে এই ব্যয়বৃদ্ধি। যার ফল ঋণের ফাঁদ, আর কিছুদিন পরপর বিদ্যুৎ ও তেলের দামবৃদ্ধি।

জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে চিৎকার ও বিতর্ক কম হয় না। কিন্তু এই প্রবৃদ্ধির অর্থ কী? জিডিপির হিসাব দিয়ে জনগণের জীবনের গুণগত মান পরিমাপ করা যায় না। প্রবৃদ্ধিই শেষ কথা নয়, কী কাজ করে অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হচ্ছে সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। পাহাড় কেটে ঘরবাড়ি, কৃষিজমি নষ্ট করে ইটখোলা বা চিংড়ি ঘের, জলাভূমি ভরাট করে বহুতল ভবন, নদী দখল করে বাণিজ্য, পাহাড় উজাড় করে ফার্ণিচার, শিক্ষা ও চিকিৎসাকে ক্রমান্বয়ে আরও বেশি বেশি বাণিজ্যিকীকরণ, গ্যাস বিদ্যুতের দামবৃদ্ধি এর সবই জিডিপির প্রবৃদ্ধি বাড়াতে পারে। এগুলো আবার চোরাই টাকার আয়তনও বাড়ায়। দখলদারী অর্থনীতি, আতংকের সমাজ, আর সন্ত্রাসের রাজনীতি সবই পুষ্ট হয় উন্নয়নের এই ধারায়। সরকারকে যারা বছরে লক্ষ কোটি দিয়ে পালেন, সেই সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের তাহলে প্রাপ্তি কী?

http://amaderbudhbar.com/?p=981

Anu Muhammad is professor of Economics at Jahangirnagar University, Bangladesh; Translator: Nusrat S Chowdhury teaches Anthropology at Amherst College, USA.

2 thoughts on “Anu Muhammad: Who’s prospering on whose labor?

  1. Cutting hills, building brick kilns or shrimp hatcheries by destroying agricultural land, and high rises by filling in water bodies, setting up business by filling up rivers, making furniture at the cost of forests and hills as well as the commodification of education and medical services, and the price hike of electricity and gas can all point to an increase in the growth of the GDP. Simultaneously, they help increase illicit wealth. The existing trend of development encourages an economy of cronyism, a society of fear, and a politics of violence and terror. Really an alarming Event to think about. What’s about are preparation? I think nothing. I like to thank Anu Muhammad Sir for drawing attention on this topic.

  2. Pingback: Tax System in Bangladesh: Efficiency and Fairness | Excluded Voices

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s