Kallol Mustafa: Dissenting voices within the Bangladesh Government on Rampal

Letter from Ramsar Convention on Wetlands to the Ministry of Environments and Forests of the Government of Bangladesh.
Letter from Ramsar Convention on Wetlands to the Ministry of Environments and Forests of the Government of Bangladesh.

Kallol Mustafa: Dissenting voices within GoB on Rampal

Editor’s Note: This is a translation of a Facebook post published by Kallol Mustafa on the 23rd of June, 2013. The text of the original note, which is in Bengali, follows the translation.

A letter from the secretariat of the Ramsar Convention on Wetlands was sent to the Department of Environment and Forests of Bangladesh on the 22nd of June 2011. In that letter the Ramsar secretariat wanted to know more about the following three matters from the Ministry of Environment and Forests:

  1. Regarding the plan to build a coal-burning power-plant right next to the Sundarbans which is a Ramsar Site. Based on media reports, the Ramsar secretariat expressed concern that if the planned Bangladesh-India joint venture to build a power-plant at the ecologically critical area 1-2 kilometers away from the conserved forest of Sundarbans goes ahead then it would result in the emission of an excessive amount of carbon-dioxide as well as other other dust. This eventually could result in putting the animal and plant-life diversity in that region at grave risk. Therefore, the Ramsar secretariat asked for an EIA (environmental impact assessment) for a possible impact on the Sundarbans.
  2. Regarding the loading and unloading of coal at Akram point in the Sundarbans. The  Ramsar secretariat wanted to know, in relation to the Phulbari coal power-plant project, about the possible negative impact on the Sundarbans that would result from increased shipping traffic, the loading and unloading of coals, and the building of new physical infrastructure at Akram point.
  3. On the possible negative impact of building a ship-yard and silos within the Sundarbans conservation area.

After receiving this letter from the Ramsar secretariat, the Ministry of Environment and Forests sent out letters, soliciting opinions, to the Directorate of Forests,  Department of Electricity, Department of Fuel and Mineral Resources, Department of Shipping, Department of Industries and Department of Food. Of these, the Department of Food and Department of Industries refrained from expressing any opinion. The Department of Electricity and Department of Fuel and Mineral Resources extolled the virtues of the proposed project, avoiding the main question and offering hocus-pocus instead. However, what is noteworthy here is that in regards to this project that the government is in a hurry to carry forward without any proper environmental assessment, there are departments within the government, such as the Directorate of Forests and Environment, and the Department of Shipping, who have expressed strong objection to the construction of a coal-burning power-plant that might harm the Sundarbans.

Opinion of the Directorate of Forests: The chief conservationist Ishtiaque Uddin Khan, in a letter dated the 29th of September, 2011, told the Ministry of Forests:

“The Directorate of Forests is the Legal Custodian of the the Sundarbans of which the Ramsar Sundarbans Site is a part. It would not be wise to construct any industrial factory inside the Sundarbans and the Landscape Zone that might have a negative effect on the biodiversity of the Sundarbans and hence the Sundarbans Ramsar Site. The construction of a coal-based power-plant will threaten the Royal Bengal Tiger and all of the biodiversity of the Sundarbans. Since Bangladesh is a signatory of the Ramsar Conservation we are bound, even more so internationally, in preserving the biodiversity of the Sundarbans. The chief conservationist expresses the opinion that if a coal-based power-plant is constructed near the Sundarbans area of Khulna it will harm the biodiversity of the Sundarbans. The Ministry is thus requested to reconsider the construction a coal-based power plant on account of the importance of preserving the biodiversity of the Sundarbans Ramsar Site (World Heritage Site).”

It is not possible for a government department to object more strongly than this to the proposed power-plant at Rampal. One is curious to know if the Chief Conservationist has gotten anywhere in his efforts in obstructing the imperial interests of India which is an alley to the government.

Letter of dissent from the Directorate of Forestry to the Secretary of the Ministry of Environment and Forestry.

Letter of dissent from the Directorate of Forestry to the Secretary of the Ministry of Environment and Forests.

Opinion of the Directorate of Environment: The Directorate of Environment, in a letter dated the 21st of July of 2011, while acknowledging that the Rampal coal power-plant falls under the Ministry of Electricity and Fuel, nevertheless expressed an opinion since the matter is connected to the environment:

“Department of Environment is concerned about the possible adverse impact on the biodiversity of Sundarbans particularly on rich biodiversities of Sundarbans Ramsar Site due to implementation of said project. Department of Environment has given positional clearance certificate for this project with various conditions related to environment… After going through the EIA report, if DoE finds that there will be adverse impacts on the biodiversities of Sundarbans Ramsar Site as well as other areas and the mitigations measures proposed to overcome the impacts is not adequate enough, then DoE will cancel the positional certificate and will not issue environmental clearance certificate in favor of this project.”

It should be noted here that a long time has passed since this letter was issued by the Environment Directorate, and in the meantime an EIA has been published, which has been rejected by experts in a public hearing, and the government, in violation to the conditions of the positional clearance certificate, have filled up the wet-lands even before the said EIA was issued. But the Directorate of Environment, contrary to its promise, has not cancelled the positional certificate, and hasn’t issued any official statement regarding the EIA. However, the Environment Directorate hasn’t yet issued a clearance certificate in favour of  the Rampal project.

Opinion from the Department of Environment
Opinion from the Department of Environment

Objections of the Shipping Ministry:

Examples of objections raised by the Shipping Ministry:

“1. The construction works for the offshore reloading facility at Akram point:

a) The construction work at the site will create noise pollution and have adverse effect on the serene nature of the Sundarbans and its biodiversity.

b) Carriage of construction materials through rivers and forests may cause environmental pollution.

2. The increased ship movement through water channels in the Sundarbans Reserved forest to transport the extracted coal.

a) The increased ship movement through water channels in the Sundarbans Reserved forest will disturb the serene environment of Sundarbans.

b) May cause oil pollution due to seepage, leakage, and pumping out of bilges from the ship into the forest rivers.

c) Oil once discharged may cover the breathing roots of the Sundari trees endangering their growth and ultimately leading towards depletion of the forest.

d) Garbages thrown, and Sewages discharged from ships into the rivers will affect the adjacent biological plants and animals in the river and forest and may lead to an ecological imbalance in the forest.

e) Engine emission with increased NO2 and SO2 will pollute air in and around the forest and may become an environmental hazard.”

Letter from the Ministry of Shipping expressing dissent.

Letter from the Ministry of Shipping expressing dissent.

Thus we can see that it not just the general people and members of the National Committee to Protect Oil Gas Mineral Resources Port and Power but also the various departments of the government have raised serious objections to the proposed coal power-plant at Rampal.

Kallol Mustafa is an engineer and an environmental activist who has written widely on Rampal. He was recently quoted in this Time article on the Sundarbans.

রামসার সচিবালয়ের চিঠি এবং সরকারের বিভিন্ন অধিদপ্তরের রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বিষয়ে আপত্তির নথি

Kallol Mustafa
June 23, 2013 at 5:24am

জলাভূমি সংরক্ষণ বিষয়ক রামসার কনভেনশনের সচিবালয় থেকে গত ২২ জুন ২০১১ তারিখে বাংলাদেশের বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় বরাবর একটি চিঠি প্রেরণ করা হয়। চিঠিতে রামসার সচিবালয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে নিম্নোক্ত তিনটি বিষয়ে জানতে চায়:

১) রামসার সাইট সুন্দরবনের পাশে পরিবেশগত সমীক্ষা ছাড়াই কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ব্যাপারে। এ বিষয়ে রামসার সচিবালয় সংবাত পত্রে প্রকাশিত খবরের সূত্র ধরে উদ্বেগ প্রকাশ করে যে, সুন্দরবনের সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ১-২ কিমি দূরে প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকায় বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপিত হলে প্রচুর কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন সহ অত্যাধিক ধূলা নির্গত হবে। ফলে ক্রমান্বয়ে ঐ এলাকার উদ্ভিদ ও প্রাণী তথা জীব-বৈচিত্রের উপর বিরুপ প্রভাবের আশংকা রয়েছে। তাই রামসার সচিবালয় সুন্দরবনের উপর সম্ভাব্য প্রভাবের জন্য ইআইএ সম্পর্কে জানতে চায়।

২) সুন্দরবনের আক্রাম পয়েন্টে কয়লা লোড আনলোডের পরিকল্পনা সম্পর্কে। রামসার কর্তৃপক্ষ এ ক্ষেত্রে ফুলবাড়ী প্রকল্পের আওতায় সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে কয়লা রপ্তানির জন্য আক্রাম পয়েন্টে কয়লা উঠা নামা করা এবং জাহাজ চলাচলের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া ও ভৌত অবকাঠামা নির্মাণের ফলে সুন্দরবনের উপর সম্ভাব্য ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে জানতে চায়।

৩) সুন্দরবনের সংরক্ষিত বনাঞ্চলের সীমার মধ্যে একটি শীপ ইয়ার্ড ও সাইলো নির্মাণের সম্ভাব্য ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে।

রামসারের চিঠি পাওয়ার পর পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে মতামতের জন্য বন অধিদপ্তর, বিদ্যুৎ বিভাগ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয় এবং খাদ্য বিভাগের কাছে চিঠি প্রদান করা হয়। এর মধ্যে খাদ্য বিভাগ ও শিল্প মন্ত্রণালয় কোন মতামত প্রদান থেকে বিরত থাকে। বিদ্যুৎ বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে প্রকল্পের পক্ষে সাফাই গাওয়া হয়, মূল প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়ে গোজামিল দেয়ার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু লক্ষণীয় বিষয় হলো, সরকার পরিবেশ সমীক্ষার অনুমোদন ছাড়াই যে প্রকল্প এগিয়ে নিতে মরিয়া, সেই প্রকল্প বিষয়ে এই সরকারেরই অন্যান্য দপ্তর যেমন: বন অধিদপ্তর, পরিবেশ অধিদপ্তর এবং নৌ পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সুন্দরবনের ক্ষতি করে রামপালে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ব্যাপারে তীব্র আপত্তি প্রকাশ করা হয়।

বন অধিদপ্তরের আপত্তি: প্রধান  সংরক্ষক ইশতিয়াক উদ্দীন আহমদ গত ২৯ সেপ্টম্বর ২০১১ তারিখে পরিবেশ ও বনমন্ত্রালয় বরাবর চিঠি দিয়ে জানায়:

“Sundarbans Ramsar Site সুন্দরবনের অংশ যার Legal Custodian বন অধিদপ্তর। সুন্দরবনের অভ্যন্তরে এবং Landscape Zone এ এমন কোন শিল্প কারখানা স্থাপনা করা যুক্তিযুক্ত হবে না যা সুন্দরবন তথা Sundarbans Ramsar Site এর জীববৈচিত্রের উপর ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলবে। কয়লা ভিত্তিক পাওয়ার প্ল্যান্ট স্থাপন করা হলে সুন্দরবনের Royal Bengal Tiger  তথা সমগ্র সুন্দরবনের জীববৈচিত্র হুমকির সম্মুখীন হবে। বাংলাদেশ Ramsar Conservation এর Signatory থাকায় সুন্দরবনের জীববৈচিত্র রক্ষার বাধ্যবাধকতা আন্তর্জাতিক ভাবেওআরও বেশি দ্বায়িত্বশীল করে। বন সংরক্ষক, খুলন অঞ্চল সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় কয়লা ভত্তিক Power Plant স্থাপন করা হলে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। Sundarbans Ramsar Site(World Heritage Site ) বিধায় কয়লা ভিত্তিক  Power Plant প্রকল্প গ্রহণের বিষয়টি জীববৈচিত্র সংরক্ষণকে গুরুত্ব দিয়ে পুন:বিবেচনা করার জন্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হলো।“

এর চেয়ে স্পষ্ট ভাবে সরকারের একটা অধিদপ্তরের পক্ষে রামপাল কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিরোধীতা করা সম্ভব নয়। জানতে আগ্রহ হচ্ছে, সরকারের বন্ধুপ্রতীম ভারতীয় সাম্রজ্যবাদের স্বার্থে এভাবে বাগড়া দেয়ার পায়তারা করায় প্রধান বন সংরক্ষককের কি গতি হয়েছে!

পরিবেশ অধিদপ্তরের মতামত: পরিবেশ অধিদপ্তর তার ২১ জুলাই ২০১১ এর চিঠিতে প্রথমে রামপাল কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের বিষয়টি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বলে উল্ল্যেখ করলেও যেহেতু এর সাথে পরিবেশের বিষয়যুক্ত আছে সেজন্য মতামত প্রকাশ করে বলে:

“পরিবেশ অধিদপ্তর এই প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে সুন্দরবনের জৈববৈচিত্র বিশেষত সুন্দরবন রামসার সাইটের গুরুত্বপূর্ণ জৈববৈচিত্রের উপর সম্ভাব্য ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে  উদ্বিগ্ন। পরিবেশ অধিদপ্তর এই প্রকল্পের ব্যাপারে অবস্থানগত ছাড়পত্র দিলেও সেই ছাড়পত্র পরিবেশ বিষয়ক কতগুলো শর্তের অধীন। বিস্তারিত পরিবেশ সমীক্ষা ছাড়া পরিবেশ অধিদপ্তর এই প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে সুন্দরবনের উপর কি প্রভাব পড়বে সে বিষয়ে কোন মতামত ব্যাক্ত করতে পারে না। তাই পরিবেশ অধিদপ্তর প্রকল্প কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বিস্তারিত পরিবেশ সমীক্ষা রিপোর্ট আহবান করছে। ইআইএ রিপোর্ট থেকে যদি দেখা যায়, এই প্রকল্পের ফলে সুন্দরবনের জৈববৈচিত্রের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে এবং এর নিরাময়ের জন্য প্রস্তাবিত পদক্ষেপগুলো ক্ষতিদূর করার জন্য যথেষ্ট নয়, তাহলে পরিবেশ অধিদপ্তর অবস্থানগত ছাড়পত্র প্রত্যাহার করে নেবে এবং প্রকল্পের পক্ষে কোন পরিবেশ ছাড়পত্র ইস্যু করবে না।“

উল্ল্যেখ করা দরকার, পরিবেশ অধিদপ্তর এই চিঠি দেয়ার পর বহুদিন পার হয়েছে, ইতিমধ্যে ইআইএ রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে, বিশেষজ্ঞদের দ্বারা গণশুনানিতে প্রত্যাখ্যাত  হয়েছে, সরকার অবস্থনগত ছাড়পত্রে দেয়া শর্ত ভঙ্গ করে ইআইএ অনুমোদনের আগেই জলাভূমি ভরাট করছে। কিন্তু পরিবেশ অধিদপ্তর তার প্রতিশ্রুতি মোতাবেক অবস্থানগত ছাড়পত্র প্রত্যাহার করে নি, ইআইএ’র ব্যাপারেও আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য দেয় নি। যদিও পরিবেশ অধিদপ্তর এখনও পর্যন্ত রামপাল প্রকল্পের পক্ষে পরিবেশ ছাড়পত্রও প্রদান করে নি।

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের আপত্তি:

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের তোলা আপত্তির উদাহরণ:

১) আকরাম পয়েন্টে কয়লা লোড আনলোড কেন্দ্র নির্মাণ প্রসঙ্গে :

ক) এর ফলে শব্দ দূষণ ঘটবে এবং সুন্দরবনের শান্ত পরিবেশের এবং এর জৈববৈচিত্রের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে।

খ) নির্মাণ কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট যানবাহন বন এবং নদী পথে চলাচলের ফলে পরিবেশ দূষণ ঘটতে পারে।

২) সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে কয়লা পরিবহন বিষয়ে :

ক) সুন্দরবনের সংরক্ষিত বনাঞ্চলের নদী পথে বাড়তি জাহাজ চলাচল সুন্দরবনের শান্ত পরিবেশে বিঘ্ন সৃষ্টি করবে।

খ) জাহাজ থেকে তেল চুইয়ে, তেল লিকেজ হয়ে বনের নদী দূষণ করতে পারে।

গ) জাহাজ থেকে নির্গত ময়লা আবর্জনা ও সুয়ারেজের মাধ্যমে সংলগ্ন এলাকার গাছপালা ও প্রাণীর উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে। যার ফলে সুন্দরবনের জৈব ভারসাম্য নষ্ট হবে।

ঘ) ইঞ্জিন থেকে নির্গত নাইট্রোজেন্ ও সালফারের বিভন্ন অক্সাইড গ্যাস সুন্দরবনের বায়ু দূষণ করবে ।

ফলে দেখা যাচ্ছে ,শুধু রামপালের জনগণ বা তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি সহ বিভিন্ন বিশেষজ্ঞই নয়, খোদ সরকারেরই বিভিন্ন দপ্তর থেকে সুন্দরবনের পাশে রামপাল কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যাপারে তীব্র আপত্তি উঠেছে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s