Left Politics of Bangladesh: What Is To Be Thought?

Source: BdNews24.com

Source: BdNews24.com

What is to be thought? (after Lenin’s “What is to be done”)
by Irfanur Rahman, translated by Ilias Kamal Risat for alalodulal.org

There are some terrible misconceptions about the leftists of bangladesh, bred by some famous propaganda. Here are some examples: ‘Although the leftists have good ideas but they don’t work to implement them; They are divided into hundred factions’ — that’s why, in spite of having great potential , they couldn’t establish themselves as a mainstream political party in Bangladesh.

I am not saying that, there is no truth in these statements.

But much larger truth is that, these are not the prime problems of leftist politics in Bangladesh.

There is a common trend in Bangladesh’s left politics—and its a trend that is ‘popular’ –and that trend is to be in ‘the field’. But whose ‘field’ is this? If this field is not ours then what’s the gain in staying at that place? And what are the losses if we do not stay? Or if that place is others’ shall we try to make it into ours by staying there for a long time or should we merge with other camps while we are out there on the fields?

The practicians of this trend don’t want to confront these important questions. According to them, to think means to be alienated from the masses/people. That’s why they want to be ‘worry free’. But in reality, this ‘worry free’ attitude is nothing but a way to shirk responsibility. Their dedication to work is painstaking, no doubt, and from the heart—— but their failure to think critically over the issues has made it possible for other mainstream parties to reap the benefits of their hard hard work.

This ‘worry free’ attitude of being in the field is one of the main reasons why all these recent movements are being hijacked by crafty nationalists.

Another trend, this time not-so-popular, among leftists of Bangladesh is being ‘too theoretical’. To them, revolution is solely a theoretical matter. They do work, but to them, working or practising is not the prime concern, the prime concern to them is to think over the theories of revolution and they also think that they are very good at that. Then, what are those theories? Marx-Lenin-Mao, analyses of German-French-Chinese-Russian societies and economics are just like religious scriptures to them.

For Bangladeshi revolutionary politics, it is much more urgent to think critically in the context of Bangladesh society but this group of theoretical leftists uses Marx-Lenin-Mao in a literal sense in the same way as religion based politicians do. By ‘practicing theory’ what these people really mean is rote learning.

During British colonial period, leftist politicians established the proper ground for the ‘tebhaga’ movement. Many were put in jail – and had to face torture and death. During the 1940s the whole of British India was raging with the fire of revolution against colonial domination. When USSR was attacked by fascist Germany then Soviets were bound to have a strategic peace-pact with British Empire. This forced the revolutionary Indians to move away from the struggle against colonialism to tackle fascism.

‘Hindu-Muslim vai vai (brothers), Gandhi-Jinnah’r milon (unity) chai’ — leftists echoed this peculiar slogan and transferred their revolution to the Indian National Congress and the Muslim League! After the partition of India-Pakistan, they witnessed the religious atrocities and becoming foreigners in their own country. Realizing their mistakes they then loudly proclaimd
 ‘lakho insaan vukha hai, yeh azadi jhuta hai’ (millions of people are hungry, this freedom is a fake) but it was too late and the deed had been done.

Leftists started the language movement during post-47 neo-colonized East Pakistan. Thousands of leftist leaders and activists faced state torture before and after the banning of communist party in Pakistan. Then the East Pakistan communist party left the coalition alliance during 1954. After leaving the Awami-League, Maolana Abdul Hamid Khan Bhashani formed new left party NAP.  But other leftists failed to unite themselves in spite of the cordial support of Bhashani. All left politicians did unite under NAP in 1957, but it split in the 1960s–  Sino-Soviet split was a part of this. Communist party also became divided as a consequence of Moscow-Peking ideological conflicts in the 1960s. And this huge opportunity was taken by the newly middle class based party Awami-League.

And not only that, Awami-League properly utilized the left created political atmosphere and became the leadership party of Liberation War with the monitoring and help from India. Moscow-centred left faction participated in the war under the leadership of Awami-League, and some of the Peking centred leftists announced the Liberation War as ‘war between two dogs’. After this announcement of the Peking faction, many young activists opposed the party’s stance and participated in the Liberation War. It becomes relevant when describing the ‘East Bengal Sarbahara Party’. From the time of their establishment, this party announced the separation of East Pakistan and independence from West Pakistan domination — the same time that the Awami-League was struggling for self-rule. From 1970s, this Sarbahara Party waged a guerrilla war against government organizations of West Pakistan.

Because of factions and divisions within the leftists and the charismatic personality of Sheikh Mujibur Rahman, Awami-League popularized their six-point program and won the elections of 1970 with landslide majority. But Pakistani military regime betrayed the transfer of power to the Awami-League. At that time, on the 2nd march of 1971, Siraj Shikdar (leader of East Pakistan Sarbahara Party) proposed the full-fledged preparation of liberation war against West Pakistani domination. Sheikh Mujib declared on 7th of March historical speech to be prepared for the war with bamboo stick, but soon he realised on 25th of March that, his bamboo war spirit was not the proper counter against one of the toughest well-equipped armies of the world. The aftermath events are well known by all. A great leader like Tajuddin Ahmed dictated Mukti Bahini (Freedom Fighters) to fight against the West Pakistan army. And that’s the formation of nationalist history of Bangladesh Liberation War.

Siraj Shikdar’s East Bengal Sarbahara party fought with success in nine fronts against the Pakistan military and the highest number of female freedom fighter was in this party. The first designer of Bangladesh flag, Saifullah Azmi was also in this party. One very interesting information is that- Indian secret investigative organization RAW formed a party named Mujib Bahini (MF) which was trained by RAW and one of their prime jobs was to keep eye so that none of the leftist who went to India for training could enter the Mukti Bahini. The subsequent killings of Leftists by state forces throughout the 1970s is also well known.

So, it is clear that the core problem of Bangladeshi leftists is not ‘doing nothing’. In fact all the important movements of bangladesh like Farakka longmarch to Rampal long march was led by the left parties of bangladesh — so, real work was done by the left. Nacholer rani (queen of nachol) Ila Mitra, Charu Majumdar-Colonel Taher-Siraj Shikdar-leftist writer Kazi Nazrul Islam-Sukanta Bhatyachariya-Somen Chanda-Manik Bandopaddhay-Mahashewta Devi- Ahmad Sofa- Akhtaruzzaman Ilias, 1969 hero martyr Asad, anti-ershad revolutionary martyr Tajul Islam, Moin Hossain Razu, and a lot of leaders and activists made the history of bangladesh so colorfully that few rotten centrists misdeeds can’t erase the success of those greatest achievements of leftists. If these leftists didn’t work, then who did it?

You can talk about the divisions—-but please indicate one party that doesn’t have divisions, be it BNP, BAL, Islamic or others. Look at the student wings of Awami-League-BNP — there are clashes between the chairman and the secretary of a same organization! Religious parties clash among themselves about who will capture which mosque! So, it is also clear that, division is a problem but not the core problem. The core problem of Bangladeshi Leftists is to not thinking critically. One trend among them remain busy with only ground work, another is busy with only theory construction. In the mean time, Farhad Mazhar emerged with a leftism with religious patina in the name of ‘chintaa’ and Prothom Alo did the business of ‘protichintaa’ which is nurtured by the neo-liberal, neo-imperial agendas.

For the religious parties, all the money comes from the Middle East petro-dollar. for the nationalist politicians, state is the main source of all money. Those who serve nakedly to imperialist strategy (the group who says ‘I hate politics’, ‘politics sucks’) they are financed by UN-EU- World bank- WTO-IMF-Amnesty-Human Rights Watch-NGO-Corporate-Civil society-Corporate dominated print and electronic media etc. For the leftists, they have no other place except the door of the people—and these people have not that amount of money and they have nothing other than support to lend to the leftists.

But there is a way to have that support; that is to think critically. Of course there is no alternative other than to work tirelesslessly for the cherished revolution, but that work cannot be at the exclusion of critical thinking or through rote learning. Otherwise the benefit of that hard work will be reaped by others just it has been before. Thus by thinking critically they must turn their work into radicalism.

“The Leftists have differently worked in Bangladesh, the point is to change it through the radicalization of works by critical thinking!”

লেফট পলিটিকসঃ হোয়াট ইজ টু বি থট?
December 23, 2013 at 1:26pm
উৎসর্গ, এ. টি. এম গোলাম কিবরিয়া

“হৃদয়ের কথা বলিতে ব্যাকুল” একজন বিষন্নসুন্দর চিন্তক

বাংলাদেশের বামপন্থী রাজনীতির সমস্যাটা আসলে কোন জায়গায়?

প্রোপাগাণ্ডা চালানোর মাধ্যমে, কিছু কিছু ভুল ধারণা তৈরি করা হয়েছে। বামপন্থীরা ‘ভালো ভালো চিন্তা করলেও কাজ করে না, বামপন্থীরা গণবিচ্ছিন্ন থাকে, বামপন্থীরা শতভাগে বিভক্ত- এসব কারণেই নাকি বাংলাদেশে বামপন্থী রাজনীতি অনেক সম্ভাবনা সত্ত্বেও কখনো রাজনীতির ‘মেইন স্ট্রিম’ হিসেবে নিজেকে এস্টাবলিশ করতে পারে নি। এসব ধারণায় যে একেবারেই কোনো সত্য নেই, সেটা বলছি না, কিন্তু বামপন্থী রাজনীতির মৌলিক সমস্যা এসব নয়।

বামপন্থী রাজনীতির একটা প্রবণতা-এই প্রবণতাটা ‘জনপ্রিয়’- এমন একটা বিশ্বাস লালন করে যে বামপন্থী রাজনীতি মানে হচ্ছে ‘মাঠে থাকা।’ কিন্তু মাঠটা কার, মাঠটা যদি আমাদের না হয় তাহলে মাঠে থেকে লাভটা কি হচ্ছে আর না থাকলে ক্ষতি কি হত, বা মাঠটা অন্যদের হলেও মাঠে থেকে সেটাকে নিজেদের মাঠ বানানোর চেষ্টা করবো নাকি মাঠে থাকতে থাকতে অন্যদের শিবিরে ঢুকে যাবোঃ এসব চিন্তার মুখোমুখি হতে এই প্রবণতার ধারকরা পছন্দ করেন না। তাঁদের কাছে চিন্তা করা মানেই ‘সাধারণ মানুষের কাছ থেকে দূরে সরে যাওয়া।’ তাই ‘নিশ্চিন্ততা’ চান। আসলে এই ‘নিশ্চিন্ততা’ দায় এড়ানোরই অন্যনাম মাত্র। এঁরা যে কাজ করেন তাতে সন্দেহ নেই, হৃদয় দিয়ে আবেগের সাথে প্রচুর কাজ করেন, কিন্তু যে হৃদয় কথা বলিতে ব্যাকুল তাকে মগজের মাধ্যমে রক্ষা করতে না পারার কারণে তাঁদের কাজের ফসল তোলে অন্যরা। এই যে একটার পর একটা আন্দোলন হচ্ছে, আর তা জাতীয়তাবাদীদের ধূর্ত হাতে চলে যাচ্ছে, এর একটা কারণ ‘নিশ্চিন্তভাবে মাঠে থাকার’ প্রবণতা।

বামপন্থী রাজনীতির আরেকটা প্রবণতা-অতোটা ‘জনপ্রিয়’ না- এমন আরেকটি বিশ্বাস লালন করে যে বামপন্থী রাজনীতি হচ্ছে ‘তত্ত্বচর্চা।’ এঁই প্রবণতার ধারকদের কাছে বিপ্লব একটা তাত্ত্বিক ব্যাপার। এঁরাও কাজ করেন, কিন্তু এঁদের ধারণা কাজ করাটা আসল না, মুখ যাই বলুন এঁদের কাছে আসল হচ্ছে ‘তত্ত্বচর্চা’ এবং এঁদের ধারণা এঁরা তাতে অত্যন্ত অগ্রসর। তা, কি সেই ‘তত্ত্বচর্চা?’ মার্কস-লেনিন-মাও জার্মান, রাশান, চীনা সমাজের ইতিহাসনির্দিষ্ট বাস্তবতায়, তাঁদের সক্রিয় রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার আলোকে যেসব তত্ত্ব-অনুসিদ্ধান্ত-সূত্র দাঁড় করিয়েছেন, সেগুলো এঁদের কাছে অনেকটা আসমানি কিতাবের আয়াতের মতো। যেখানে বিপ্লবের জন্য বাংলাদেশী সমাজের ক্রিটিকাল এনালিসিসের ক্ষেত্রে এসব তত্ত্ব-অনুসিদ্ধান্ত-সূত্র সৃষ্টিশীলতার সাথে ব্যবহার করাটাই হতো প্রকৃত তত্ত্ব চর্চা, সেখানে এঁরা ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতিকদের মতোই এগুলোকে ‘আয়াত’ বানিয়ে ফেলেন এবং এগুলোর ভিত্তিতে কোনটা ঠিক কোনটা ভুল সেটা নির্ধারণ করতে থাকেন। ‘তত্ত্বচর্চা’ বলতে তাঁরা আসলে এই মুখস্তবিদ্যাই বোঝেন।

ব্রিটিশ উপনিবেশিক ভারতবর্ষে তেভাগা আন্দোলনের জন্য জমিন তৈরি করেছেন বামপন্থীরা। জেল-জুলুম সহ্য করা থেকে প্রাণ পর্যন্ত দিয়েছেন। ৪০এর দশকে সারা ভারতবর্ষ জ্বলছিলো বিপ্লবের আগুনে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে পরে ফ্যাসিস্ট জার্মানি দ্বারা আক্রান্ত সোভিয়েত ইউনিয়ন নিজ অস্তিত্ব রক্ষার কারণে বাধ্য হয়ে ইংল্যান্ডের সাথে কৌশলগত মৈত্রীতে গেলো, আর অমনি অবিভক্ত ভারতবর্ষের কমিউনিস্ট পার্টি ‘সমাজতন্ত্রের পিতৃভূমি আক্রান্ত’ শ্লোগান তুলে ও ফ্যাসিজম ঠেকানোর নামে ব্রিটিশ উপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে বিপ্লবী অবস্থান থেকে সরে আসলো। ‘হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই/ গান্ধী জিন্নার মিলন চাই’- এই বিচিত্র শ্লোগান তুলে ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস আর মুসলিম লীগের হাতে ভারত আর পাকিস্তানের ‘আজাদির’ ভার তুলে দিলো। ধর্মের দোহাইয়ে খুন-ধর্ষণের নৃশংস উন্মত্ততা ও কোটি কোটি মানুষের নিজভূমে পরবাসী হওয়ার ‘আজাদি’ পাওয়ার পর নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে দুই রাষ্ট্রের কমিউনিস্ট পার্টিই ‘লাখো ইনসান ভুখা হ্যায়/ ইয়ে আজাদি ঝুটা হ্যায়’ শ্লোগান তুললেও চোর পালালে বুদ্ধি বেড়ে লাভটা কি? ৪৭-পরবর্তী নয়া-উপনিবেশিক রাষ্ট্র পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলে ভাষা আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটালেন সেই বামপন্থীরা। আইন করে কমিউনিস্ট পার্টিকে ব্যান করে দেওয়ার আগে ও পরে হাজার হাজার নেতাকর্মী রাষ্ট্রীয় হিংস্রতার শিকার হলেন। তারপর নেজামে ইসলামের মতো দলের দাবীতে (এরা পরে ১৯৭১এ পাকিস্তান আর্মির জুতা চেটেছে) পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টি যুক্তফ্রন্ট থেকে সরে আসলো! তারও পরে মস্কো আর পিকিং-য়ের মধ্যে যে মতাদর্শিক মহাবিতর্ক শুরু হলে তার প্রভাবে পার্টি ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে গেলো। মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে এসে ন্যাপ গঠন করলে ন্যাপের ভেতরে ঢুকে কাজ করলেও বামপন্থীদের প্রতি ভাসানীর যে সমর্থন ছিলো সেটা নিজেদের ঐক্যবদ্ধ করার কাজে ব্যবহার করতে পারলেন না বামপন্থীরা। যার সুযোগ নিলো পূর্ব পাকিস্তানের উঠতি বাঙালি মধ্যবিত্ত স্বার্থের প্রতিনিধিত্বকারী দল আওয়ামী লীগ। এবং বামপন্থীদের তৈরি করা রাজনৈতিক পরিবেশ নিজেদের আয়ত্ত্বে নিয়ে ভারতের প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিলো আওয়ামী লীগ। সেই মুক্তিযুদ্ধে বামপন্থীদের মস্কোপন্থী অংশটা আওয়ামী লীগের অধীনে থেকে যুদ্ধ করলেন, অধিকতর বিভক্ত চীনপন্থীদের মধ্যে একটা ক্ষুদ্র অংশ সাময়িকভাবে মুক্তিযুদ্ধকে ‘দুই কুকুরের যুদ্ধ’ বললেও (এই বক্তব্যের বিরোধিতা করে অংশটির অনেক তরুণ কর্মী পার্টি থেকে বের হয়ে আসেন এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।) অধিকাংশই আওয়ামী বলয়ের বাইরে থেকে যুদ্ধ করেছেন। বিশেষভাবে বলতে হয় পূর্ববাংলা সর্বহারা পার্টির কথা। ১৯৬৮তে গঠিত হওয়া এই দলটিই (পূর্ববাংলা শ্রমিক আন্দোলন নামে গঠিত, পরবর্তীতে, নাম পরিবর্তন করে পূর্ববাংলা সর্বহারা পার্টি হয়) প্রথম পাকিস্তান থেকে সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীনতা অর্জনের কথা বলেছিলো তাদের থিসিসে, সেই ১৯৬৮ সালে, যখন আওয়ামী লীগ ‘স্বায়ত্তশাসনের’ দাবীতে আন্দোলন করছিলো। ১৯৭০ সাল থেকেই এরা পশ্চিম পাকিস্তানের নানা সরকারি প্রতিষ্ঠানে গেরিলা আক্রমণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকে। বামপন্থীদের দ্বিধাবিভক্তির কারণে ও নিজের ক্যারিজমাটিক ব্যাক্তিত্বের কারণে ইতিমধ্যেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠা শেখ মুজিবের ছয় দফার ভিত্তিতে সত্তরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় জেতার পরও পাকিস্তান সামরিক জান্তা ক্ষমতা হস্তান্তরে অস্বীকার করলে ১৯৭১এর ২রা মার্চ সিরাজ সিকদার শেখ মুজিব ও আওয়ামী লীগের কাছে একটা চিঠি পাঠান যেখানে জরুরি ভিত্তিতে একটি যুক্ত ফ্রন্ট গঠন করে সেখানে পাকিস্তানের নয়া উপনিবেশিক শাসনের বিরোধী সকল পার্টিকে যুক্ত করে একটি ঐক্যবদ্ধ মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান জানানো হয়। ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে শেখ মুজিব বাঁশের লাঠি দিয়ে ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোলার আবেগদীপ্ত আহবান জানালেও পৃথিবীর হিংস্রতম সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যে বাঁশের লাঠি দিয়ে যুদ্ধ করা যায় না সেটা ২৫ই মার্চের কালরাত্রিতেই প্রমাণ হয়ে যায়। পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ সবাই জানেন। কিভাবে জাতীয়তাবাদীদের মধ্যে একজন সত্যিকার দেশপ্রেমিক নেতা তাজউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে মুক্তি বাহিনী (এফ এফ) গড়ে উঠলো সেই সব মুক্তিযুদ্ধের জাতীয়তাবাদী ধারার ইতিহাস। সিরাজ সিকদারের পূর্ববাংলা সর্বহারা পার্টি প্রায় নয়টি গেরিলা ফ্রন্টে বীরত্বের সাথে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে, এবং, এই পার্টিতেই নারী মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা অনেক বেশি ছিলো। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার প্রথম ডিজাইনও করেছিলেন এই পার্টিরই একজন কমরেড, নাম সাইফুল্লাহ আজমি, এই বিহারি মুক্তিযোদ্ধার ডিজাইন করা পতাকারই রূপান্তর আজকের জাতীয় পতাকা। একটা ইন্টারেস্টিং তথ্য, ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ এন্ড এনালাইসিস উইং-র’এর সরাসরি তত্ত্বাবধানে তৈরি করা হয়েছিলো মুজিব বাহিনী (এম এফ) নামের একটি বিশেষ বাহিনী, যার কাজ ছিলো ভারতে ট্রেনিং নিতে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে কোনো বামপন্থী যাতে না ঢুকতে পারে সেদিকে সতর্ক নজর রাখা| ১৯৭০ ও পরবর্তী সময়ে, পুরো ৭০ দশক,  রাষ্ট্রযন্ত্র বামপন্থীদেরকে হত্যা করেছে।

দেখা যাচ্ছে যে, বাংলাদেশের বামপন্থী রাজনীতির মৌলিক সমস্যাটা আসলে, ‘কাজ না-করা’ না। ফারাক্কা লংমার্চের কাল থেকে রামপাল লংমার্চের কাল পর্যন্ত জনগণের পক্ষের প্রতিটি লড়াইয়ে বামপন্থীরা সামনের সারিতেই থাকে, অর্থাৎ কাজ বলতে যা বোঝানো উচিত সেটা বামপন্থীরাই করে। ‘নাচোলের রাণীমা’ খ্যাত ইলা মিত্র, চারু মজুমদার-কর্নেল তাহের-সিরাজ সিকদার, সেসব আশ্চর্য বামপন্থী সাহিত্যিক কাজী নজরুল ইসলাম-সুকান্ত ভট্টাচার্য-সোমেন চন্দ-মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়-মহাশ্বেতা দেবী-আহমদ ছফা-আখতারুজ্জামান ইলিয়াস (এঁদের মধ্যে সুকান্ত সোমেন মানিক পার্টিজান ছিলেন, অন্যরা পার্টিজান না হলেও বিভিন্নভাবে সমর্থন করেছেন), ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান যাঁর রক্তে ভেজা শার্ট থেকেই জ্বলে উঠেছিলো সেই শহিদ আসাদুজ্জামান, এরশাদবিরোধী আন্দোলনে শহীদ তাজুল ইসলাম, রাজুভাস্কর্য যার নামে সেই মঈন হোসেন রাজু- এতো অসংখ্য নিষ্ঠ নেতা ও কর্মী এই উপমহাদেশের বামপন্থী রাজনীতিতে ছিলেন ও আছেন যে হাতে গোণা রাজনীতিকে কালিমালিপ্ত করার জন্য যথেষ্ট নয়। এরা কাজ করেনি, তো, কারা কাজ করেছে?

বিভক্তির কথা বলবেন? বাংলাদেশে বাম, ধর্মাশ্রয়ী বা মধ্য এমন কোনো দল আছে যার মধ্যে বিভক্তি নেই? আওয়ামী লীগ বিএনপির ছাত্রসংগঠনগুলো দ্যাখেন, একই সংগঠনের একই শাখার সভাপতি গ্রুপ আর সেক্রেটারি গ্রুপ মারামারি করে, ধর্মাশ্রয়ীদের অবস্থা এতোটা খারাপ না হলেও তাদের মধ্যেও লড়াই হয় কে কোন মসজিদ দখল করবে সেটা নিয়ে। ফলে, বিভক্তি একটা সমস্যা, কিন্তু মৌলিক সমস্যা না। বাংলাদেশের বামপন্থী রাজনীতির মৌলিক সমস্যা ‘ক্রিটিকালি চিন্তা না-করা।‘ বামপন্থীদের এক প্রবণতার ধারকগণ মাঠে থাকার নামে নিশ্চিন্ত থাকেন, আরেক প্রবণতার ধারকগণ তত্ত্ব চর্চার নামে মুখস্তবিদ্যার চর্চা করেন। ক্রিটিকালি ‘চিন্তা’ করা থেকে উভয় প্রবণতার ধারকরাই সমান দূরত্বে থাকেন। ইন দা মিন টাইম ফরহাদ মজহাররা ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতির বিশেষ ধারাকে বামপন্থী লেবাস পরিয়ে প্রতিক্রিয়াশীলতাকে বিপ্লবের নামে চালানোর ‘চিন্তা’ করেন আর মতিউর রহমানরা সাম্রাজ্যবাদের সেবাদাসত্বে ‘প্রতিচিন্তা’ করেন (এবং এভাবেই ‘ওয়ার অন টেররের’ ফিল্ড তৈরি করেন), এইদেশে শুধু বামপন্থীরাই, হয় নিশ্চিন্তায় থাকে নয় মুখস্তবিদ্যার ‘তত্ত্বচর্চা’ করে।

ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতির জন্য পেট্রোডলার আসে মধ্যপ্রাচ্য থেকে। জাতীয়তাবাদী রাজনীতির জন্য রাষ্ট্রক্ষমতাই সকল অর্থের উৎস। সাম্রাজ্যবাদের সেবাদাসত্বের রাজনীতির (পলিটিকস সাকজ, আই হেইট পলিটিকস, ইত্যাদি ‘এপলিটিকাল’ রেটোরিকে) ফিন্যান্সার জাতিসংঘ-ইইউ-ওয়ার্ল্ড ব্যাংক-ডব্লিউটিও-আইএমএফ-এমেনেস্টি-হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, এনজিও-কর্পোরেট-সিভিল সোসাইটি, কর্পোরেটাইজড বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া প্রভৃতি। বামপন্থীদের জনগণ ছাড়া যাওয়ার আর জায়গা নেই, জনগণের অর্থ নেই, সমর্থন ছাড়া দেয়ার মতো আর কিছু নেই। সেই সমর্থন অর্জন করার একটাই উপায় আছে, আর তা হচ্ছে, ক্রিটিকালি চিন্তা করা। অবশ্যই বিপ্লবের জন্য ‘কাজ করে যাওয়ার’ কোনো বিকল্প নেই, কিন্তু নিশ্চিন্তা বা মুখস্তবিদ্যা নিয়ে ‘কাজ করে গেলে’ সেই কাজের ফসল অতীতের মতো ভবিষ্যতেও অন্যরাই তুলবে, তাই কাজকে ক্রিটিকালি চিন্তা করার মাধ্যমেই র্যাডিকাল করে তুলতে হবে। The Leftists have differently worked in Bangladesh, the point is to change it through the radicalization of works by critical thinking!

দ্রষ্টব্যঃ তালুকদার মনিরুজ্জামানের ‘বামপন্থী রাজনীতি ও বাংলাদেশের অভ্যুদয়’, আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘সংস্কৃতির ভাঙা সেতু’, আহমদ ছফার ‘অলাতচক্র’, রইসউদ্দিন আরিফের ‘বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিকথা’, মঈদুল হাসানের মূলধারা ৭১, মইদুল হাসান-এ কে খন্দকার-এস আর মীর্জার কথোপকথন ‘মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাপর।’

One thought on “Left Politics of Bangladesh: What Is To Be Thought?

  1. Very constructive article. The leftists are the true ‘people’s force”. It would have been even better if you empahsized on the various other propagandas against the leftist such as terming all their activities against religion and others. I do agree that the leftists are becoming theoty based and need to come out of that. As the story goes of the common man wrongly hearing the slogans of “Marz bad” as “mach (fish)bhaat”, the leftist much implement theri ideology.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s