Sundarbans in Grave Danger and Our Government’s inaction

By Kallol Mustafa from Joymoni, Sundarbans
Translated by Tibra Ali for AlalODulal.org

Since the oil spill disaster started in the Sundarbans on the night of the 9th of December many ebbs and flows of the tide have come and gone. The thick and poisonous spilled oil reaches wherever the water reaches during the high tide, via the Shela river (where the disaster originated), Pasur and Baleshwari rivers, and the innumerable canals.

The sunken oil tanker Southern Star-7, moored at the Chadpai Range river port since its recovery from the depth of the Shela river, has been surrounded by oil containment rubber booms. Had this been done as soon as the accident had happened on the 9th of December, the spread of the oil spill over such a vast area of the Sundarbans could perhaps have been avoided. Further the clean-up of the oil would have been much easier. But instead the polycyclic aromatic hydrocarbon-rich heavy fuel oil (HFO), also known as furnace oil, has spread all over the Sundarbans via the waterways, reaching far into the forest through hundreds of canals. It is estimated that about 80 to 100 square kilometres of waterways and costal vegetation has been affected by the oil pollution, but there are no estimates available at this moment how much of the interior of the forest has also been affected by the pollution.

The rescued tanker surrounded by rubber boom.

The rescued tanker surrounded by rubber boom.

The layer of oil slick currently floating on the river is relatively thin, although sunlight and oxygen cannot penetrate even this thin layer and reach the water beneath. This is pushing all aquatic lifeforms, including aquatic vegetation and fish, to their demise. When the oil enters the still waters of the canals it is forming thick and impenetrable tar-like deposits, rising and lowering with the high- and low-tides. Even when the water goes down along the banks during the low-tide, the oil deposit is sticking to the slope of the mud-banks, and oily junk is gathering at the roots of the trees covering their breathing roots, trunks and leaves. It looks as if someone had taken a paint-brush dipped in black paint and coloured all the trees. In the words of the forest expert Razzak, ‘As if a venomous black snake had tightened its coil around the trees of the Sundarbans.’ According to another forest expert Baowali, some of the drinking holes used by the tigers, deers and other animals have also been polluted by oil reaching them during the high tide. The relatively higher parts of the forest that has so far been spared due to neap-tide will be inundated with pollution when the rip-tide comes if the layer of oil slick is not removed from the rivers and canals very soon.

The floating layer of oil is spreading via the river ways.

The floating layer of oil is spreading via the river ways.

The thick layer of oil stagnant in the canals.

The thick layer of oil stagnant in the canals.

The carcinogenic poly-aromatic hydrocarbon in the furnace oil is highly damaging to liver and skin. Apart from this the layer of oil prevents sunlight and oxygen from entering the water. It’s not be possible for life to exist in places where the oil is stagnating. The breather roots covered by oil will be of little use to the trees for the purposes of breathing.

A clump of trees steeped in a thick layer of oil.

A clump of trees steeped in a thick layer of oil.

Crabs, mudskippers and other invertebrates which make the oil-covered mud their home are now in danger. Except for one or two dead crabs no other life forms have been observed in the oil soaked mud during low tide.

A dead crab in the oil covered mud.

A dead crab in the oil covered mud.

This is the season when many varieties of fishes lay their eggs in the Sundarbans; The high and low tide-flooded sloping banks of the canals is where many fishes as well as shrimps lay their eggs and spawns. This is also the time for the keora and bain trees to bud and for their saplings to start growing. But it won’t be possible for these tiny plants to survive in the poisonous oil-filled muddy earth. Those young plants, whose roots are embedded in oil, will perish within a couple of weeks to a month. However, it’ll take longer for the effect of the oil on fully gown trees to become manifest. The big trees’ leaves may turn yellow or may even start falling off, and eventually they may even start dying in a few years. The oil pollution lowers the immune power of the mangrove trees, and as a result the incidence of the saline-water causing top-dying decease that has been inflicting the sundari trees may increase.

Oil drenched trees in oil covered mud.

Oil drenched trees in oil covered mud.

The oil line that forms when the trees are immersed in the oil rich water during high tide.

The oil line that forms when the trees are immersed in the oil rich water during high tide.

The site of the oil spill was the center of the world’s reservation of the endangered Irrawaddy dolphin species. Now that place has become a place of fear — not only for the dolphins but also for all other land and aquatic creatures. Since the oil spill no dolphin, crocodile, fish, fishing birds or any other animals has been spotted in the area. They have either perished or have moved elsewhere. They had taken shelter in this area as because it was the most suitable place to support them, but now that they’ve been forced to relocate it’s not certain how long they will survive. And the state of the human population that live off the forest is like that of the mangrove trees; They can’t just uproot themselves and relocate elsewhere. Especially those, whose livelihoods depend on fishing and crab-hunting, have been hit the most. Since the whole thing started it has not been possible use fishing nets or ropes. The oil destroys fishing nets, as well as the crab enclosures and traps. When in 2011 ships started plying through the Sundarbans the pollution caused the number of fishes in the river to drop. Now with the oil spill not a single fish can be caught any more. There is no saying when the oil slick will be removed from the water and when fish will again be found.  What will happen to the livelihoods of the fishermen in this situation? Who will feed their families? Nothing has been heard regarding relief efforts for these affected people. Who knows, perhaps the government is thinking that if it can keep the forest-dwellers starving in this manner more of them will be motivated to use their bare hands, and their kitchen pots and pans to extract the oil and sell 30 litres each to the Padma Oil Company!

Kids and youths are picking up the oil with their bare hands.

Kids and youths are picking up the oil with their bare hands.

Kids and youths are picking up the oil with their bare hands.

Kids and youths are picking up the oil with their bare hands.

However, the people didn’t get the idea of collecting the thick layer of oil this way from the government, instead witnessing the inaction of the government and motivated by the desire to save their beloved Sundarbans, they came up with this way of soaking up the oil themselves and storing it in polythene bags in the soil. On observing their efforts the governmental people then came up with the idea of paying them to clean up the oil in this way.

Now the question is: Is it possible to clean up the whole pollution of the Sundarbans by picking up the oil by hand in this way? Is this the only way of extracting the oil? Who is worrying about the health risks of the ones who are using their bare hands to extract the oil? Will the members of the Forestry Department, the Secretariat of Environment, the Coastguard and Navy be willing to extract the oil with their bare hands, eschewing the use of gloves and other protective body covers? What is the point of endangering the health of the people in order to save the health of the environment? If the oil is to be extracted in this manner, why are the people being used to do this job instead of using the various departments of the governments as well as the manpower of the armed forces?

Even if it turns out that, by taking advantage of this spontaneous effort by the people, we can extract the thick layer of oil that has collected on the banks of the waterways, what will happen to the thin layer of oil that is floating on the rivers and canals spread across an area of 80 to 100 square kilometres? Or how will the oil be extracted that has seeped into the muddy earth which is regularly flooded by high and low tide? There is talk of using a Chinese made oil dispersant spray called Lloyed-2. These chemicals are usually used to fight oil pollution on open seas. It’s not advisable to use such chemicals on mangrove wetlands without carefully considering their effects, as their application may cause more unforeseen harm than benefit.

We spoke to Sundarbans specialist Dr. Abdullah Harun from the Department of Environment at the University of Khulna about what steps should be taken to rid the Sundarbans of the oil. According to him —

First, the heavy oil that has collected in the canals have to be removed. But to achieve this we shouldn’t depend on the spontaneous efforts of the people, but rather employ the various governmental agencies and members of the armed forces in an organized way. And to extract the oil, sponges and other oil absorbent material and instruments should be used in addition to using hands.

Second, before deciding to use chemical sprays to remove the floating layer of oil we need to consider many things. One cannot afford to lose time reaching this decision however, and the work of extracting oil using sponges and other absorbent material and vacuum machinery by the governmental agencies and members of the armed forces must begin as soon as possible.

Third, steps must be taken to extract the oil from the layer of mud that is regularly flooded by the tides, if necessary 4-5 cm of soil must be extracted to achieve this.

Fourth, the oil that has collected at the base of the trees must be removed. If bare hands are used to clean the oil stuck at the base or the breathers it may cause much damage.

The scale of danger that is facing the Sundarbans will not become apparent right away, as we have seen from incidents of oil spills in mangrove forests in other countries in the past, it takes several weeks or even several years for the effects of the pollution to become fully manifest. It may take a mangrove forest several decades or even half a century before it recovers. What the Sundarbans will look like in the near future depends on the number of trees and animals that have fallen victims to the oil pollution, and also on how much of it has been affected and to what extent, and lastly on what remedial steps are being taken. However, the recent (lack of) actions by the government doesn’t give us any reason to be hopeful. A government which has turned deaf ears to repeated requests to stop all traffic of ships carrying dangerous cargo through the Sundarbans, who, despite strong protests, is planning to build two coal based power plants in the vicinity of the Sundarbans, the future of the Sundarbans is by no means safe in such a government’s hands. In the face of this the only way to free the Sundarbans of the oil, and to ensure that the passage of ships through the forest is banned in the future, and to halt so-called development projects such as the NTPC and Orion Coal Power Plant next to the Sundarbans, is to build strong public pressure on the government to do so.

Kallol Mustafa is an environmental activist and an engineer.

[This article was first published in Bengali in http://www.amaderbudhbar.com ]

সুন্দরবনের মহাবিপর্যয় :: সরকারের নিস্ক্রিয়তা

কল্লোল মোস্তফা, জয়মণি, সুন্দরবন।

তেল বিপর্যয় শুরুর পর থেকে অনেকগুলো জোয়ার ভাটা পার করেছে সুন্দরবন। জোয়ারের সময় পানি সুন্দরবনের যতদূর ভেতরে প্রবেশ করে, শেলা নদী থেকে পশুর, বলেশ্বর নদী ও অসংখ্য খালের মাধ্যমে ভারী বিষাক্ত ফার্নেস তেল ততদূর প্রবেশ করেছে। দুর্ঘটনা কবলিত তেলের ট্যাংকার সাউদার্ন স্টার-৭ কে উদ্ধার করার পর চাদপাই রেঞ্জের ঘাটে এখন যেভাবে রাবারের ভাসমান বুম দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে, ৯ ডিসেম্বর ট্যাংকার দুর্ঘটনার সাথে সাথে যদি তা করা হতো তাহলে এই তেল সুন্দরবনের এত বিস্তৃত এলাকায় ছড়ানোর সুযোগ পেত না, ভারী ফার্নেস তেলকে দুর্ঘটনাস্থলেই আটকে রেখে সহজে নি:সরণ করা যেত। এখন বিষাক্ত পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন সমৃদ্ধ হেভি ফুয়েল ওয়েল(এইচএফও)বা ফার্নেস অয়েল নদী পথে গোটা সুন্দরবন ছড়িয়ে পড়েছে, শত শত খাল হয়ে সুন্দরবনের দূরতম প্রান্ত পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে। এভাবে এখন পর্যন্ত প্রায় ৮০ থেকে ১০০ বর্গ কিমি এলাকার নদী-খাল ও তীরবর্তী ভূমির বৃক্ষ-লতা-গুল্ম তেল দূষণে আক্রান্ত হলেও তেল দূষণ বনভূমির স্থলভাগের ভেতরে ঠিক কতটা প্রবেশ করেছে তার কোন হিসেব এখনও পাওয়া যায় নি।

নদীতে স্রোত থাকায় নদী পথে ভাসতে থাকা তেলের স্তর অপেক্ষাকৃত হালকা, যদিও এই অপক্ষোকৃত হালকা তেলের স্তর ভেদ করে সূর্যের আলো ও অক্সিজেন নদীর পানিতে প্রবেশ করতে পারছে না, যা নদীর জলজ উদ্ভিদ ও মাছ সহ জলজ প্রাণীকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আর স্রোতহীন খালের ভেতরে প্রবেশ করে সেই তেল ভারী থিকথিকে আলকাতার মতো অভেদ্য স্তর হয়ে জমে আছে, জোয়ারের পানির সাথে ভাসতে ভাসতে আসা তেল ভাটার সময় নেমে যাচ্ছে না। ভাটির পানি নেমে গেলেও তেল লেপ্টে থাকে বনের ঢালে কাদামাটিতে, ময়লা আবর্জনা ঝোপঝাড়ে, গাছের গোড়ায়, শ্বাসমূলে কিংবা গাছের পাতায় ও কান্ডে। দেখলে মনে হয় যেন ঘন কালো ব্রাশ দিয়ে গাছগুলোকে রং করে দিয়ে গেছে কেউ, বনজীবি রাজ্জাকের ভাষায়- ভয়াল কালো সাপ যেন বুক পর্যন্ত পেচিয়ে ধরেছে সুন্দরবনের গাছগুলোকে। তেলদূষণ কোথাও কোথাও জোয়ারের সময় তেল মিশ্রিত পানি বনভূমির ভেতরে বাঘ হরিণ বানর সহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর পানি খাওয়ার স্থানগুলোকেও দূষিত করেছে বলে জানিয়েছেন বনজীবি বাওয়ালীরা। মরাকাটাল থাকায় দূষিত পানি বনের যেসব অপেক্ষাকৃত উচু অঞ্চলে এখনও প্রবেশ করেনি, নদী ও খাল থেকে তেলের স্তর দ্রুত না সরানো হলে সামনের ভরা কাটালের সময় ৩-৪ ফুট বেশি উচু জোয়ারের পানির সাথে সেসব স্থানেও তেল প্রবেশ করবে।

ফার্নেস তেলের মধ্যে থাকা বিভিণ্ন পলি অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন কারসিনোজেনিক (ক্যানসার সৃষ্টি কারী), লিভারের ও চামড়ার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তাছাড়া তেলের আস্তরণ যেখানে থাকে সুর্যের আলো ও অক্সিজেন সেখানে প্রবেশ করতে পারে না। খালে জমে থাকা থিকথিকে তেলের মধ্যে জীবনের কোন চিহ্ন থাকার কথা না। যেসব শ্বাসমূল তেলে ঢেকে গেছে, সেগুলো দিয়ে গাছ শ্বাস প্রশ্বাসের কাজ চালাতে পারবে না।

যে কাদমাটিতে তেলের আস্তরণ পড়েছে কিংবা তেল ভেতরে ঢুকে গেছে সেখানে কাকড়া, মাডস্কিপার সহ যেসব অমেরুদন্ডী প্রাণীর বসবাস সেগুলো এখন বিপদাপন্ন। ভাটার সময় গিয়ে তেল চুপচুপে কাদামাটিতে প্রাণের কোন চিহ্ন দেখা যায়নি, একটা দুটো করে কাকড়া মরে থাকতে দেখা গেছে।

এখন সুন্দরবনের বহু মাছের ডিম পাড়ার সময়, চিংড়ী সহ অনেক মাছের ডিম ও রেণু পোনা ছাড়ার জায়গা হলো সুন্দরবনের জোয়ার ভাটা প্লাবিত খাল ও কাদামাটির ঢালগুলোতে। কেওরা বাইন সহ বিভিন্ন গাছের অঙ্কুরোদগম ও চারাগাছের বেড়ে উঠারও সময় এখন। কিন্তু তেলে বিষাক্ত কাদামাটিতে এ সবের বেচে থাকা বা টিকে থাকা সম্ভব হবে না। যেসব ছোট গাছের গোড়া তেলে ডুবে আছে সেসব গাছও বাচবে না, দুই সপ্তাহ বা মাসখানেকের মধ্যেই সেগুলো মারা পড়বে। আর বড় গাছগুলোর উপর তেলের ক্ষতিকর প্রভাব দৃশ্যমান হতে সময় লাগবে। তেল দূষণের কারণে সাধারণত বড় গাছ গুলো পাতা হলুদ হয়ে যাওয়া কিংবা পাতা পতন রোগে আক্রান্ত হতে পারে, এমনকি কয়েক বছরের মধ্যে গাছগুলো মারাও যেতে পারে। তেল দূষণের শিকার ম্যানগ্রোভ বৃক্ষের প্রতিরোধ ক্ষমতাও স্বাভাবিকের তুলনায় হ্রাস পায় যে কারণে লবণাক্ততায় আক্রান্ত সুন্দরী গাছের আগামরা রোগও হয়তো বাড়বে।

তেল নি:সরণের কেন্দ্রস্থলটি ছিলো বিশ্বের মধ্যে বিলুপ্ত প্রায় ইরাবতি ডলফিনের অভয়রাণ্য। এখন সে অঞ্চলটি স্রেফ ভয়ারণ্য- শুধু ডলফিনের জন্যই না, ঐ স্থানে থাকা সমস্থ জলজ ও স্থলজ প্রাণীর জন্য। তেল নি:সরণের পর থেকে আক্রান্ত অঞ্চলের কোথাও কোন ডলফিন, কুমির, মাছ শিকারি পাখি বা অন্য কোন বণ্যপ্রাণীর দেখা পাওয়া যায় নি। এগুলো হয় মরেছে অথবা অন্যত্র সরে গেছে। এ স্থানটি তাদের বেচে থাকার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত স্থান ছিল বলেই তারা এ স্থানে আশ্রয় নিয়েছিলো, এখন বাধ্য হয়ে অন্যত্র গেলেও সর্বব্যাপি দুষণের মধ্যে কতদিন টিকতে পারবে সেটা একটা প্রশ্ন। আর বনজীবি জলজীবি মানুষের অবস্থা অনেকটা ম্যানগ্রোভ গাছগুলোর মতো, চাইলেই তো মাটি থেকে শেকড় উঠিয়ে এ অঞ্চল তাদের পক্ষে ছেড়ে যাওয়া সম্ভব হবে না। বিশেষ করে মৎসজীবি জেলে ও কাকড়া শিকারিদের দুর্দশার শেষ নেই। ঘটনার পর থেকে মাছের জাল আর কাকড়া শিকারের দড়ি ফেলা যাচ্ছে না। তেলে মাছের জাল নষ্ট হয়ে যায়, কাকড়ার আধার বা টোপ নষ্ট হয়ে যায়। এমনিতেই ২০১১ সাল থেকে সুন্দরবনের ভেতর দিয়ে জাহাজ চলাচল শুরুর পর থেকে মাছের পরিমাণ কমে গেছে আর এখন তো তেল দূষণের কারণে পানিতে একটা মাছও নেই। কবে পানি থেকে ভাসমান তেল অপসারিত হবে এবং আগের মতো মাছ আদৌ পাওয়া যাবে কিনা তার কোন ঠিক নেই। এ পরিস্থিতিতে জেলেদের জীবিকার কি হবে? তাদের পেট চলবে কি করে? এদের জন্য কোন ক্ষতিপূরণ বা ত্রাণ তৎপরতার কোন কথা শোনা যায় নি। কে জানে, সরকার হয়তো ভাবছে বনজীবিদের এভাবে না খাইয়ে রাখলে হয়তো নদী-খাল থেকে দূষিত তেল খালি হাত ও থালা-বাটি-চট ব্যবহার করে তুলে পদ্মা অয়েল কোম্পানির কাছে ৩০ লিটার ধরে বিক্রি করার লোক বেশি পাওয়া যাবে!

অথচ সুন্দরবনের খাল ও নদীর কিনারে জমে থাকা ভারী থকথকে তেল এভাবে তোলার আইডিয়াটা সরকার তাদেরকে দেয় নি, সরকারের নিস্ক্রিয়তা দেখে প্রিয় সুন্দরবন ও নদীকে দ্রুত দূষণমুক্ত করতে তারা নিজেরাই এই উপায়ে তেল তুলতে শুরু করেন এবং উত্তোলিত তেল মাটিতে গর্ত করে পলিথিনের মধ্যে সংরক্ষণ করতে থাকেন। তাদের এই উদ্যোগ দেখেই সরকারি লোকজনের মাথায় টাকা দিয়ে তাদের কাছ থেকে তেল কেনার আইডিয়াটা আসে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো এভাবে হাত দিয়ে তেল তুলে কি গোটা সুন্দরবন দূষণ মুক্ত করা যাবে? এটাই কি তেল তোলার একমাত্র পদ্ধতি? যারা হাত দিয়ে তেল তুলছে তাদের স্বাস্থ্য ঝুকির কথাটি কেউ বিবেচনা করছেন? বনবিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, কোষ্টগার্ড নৌবাহিনীর কর্মীরা কি এভাবে খালি হাতে, গ্লাভস না পড়ে, শরীর না ঢেকে এভাবে তেল তুলতে রাজী হবেন? পরিবেশ ঝুকিমুক্ত করতে গিয়ে জনস্বাস্থ্য ঝুকির মধ্যে ফেলার কি অর্থ? জমে থাকা তেল যদি এভাবে তুলতেই হয়ে তাহলে কেবল সাধারণ জনগণ কেন, সরকারি বিভিন্ন বিভাগ ও বাহিনীর লোকজনকে কেন এ কাজে নিয়োজিত করা হচ্ছে না?

মানুষের স্বত:স্ফুর্ততার উপর নির্ভর করে এভাবে খালি হাতে খোলা শরীরে বিভিন্ন খাল ও নদীর কিনারে জমে থাকা ঘন থকথকে তেল তোলা যদি সম্ভবও হয়, তাহলেও প্রশ্ন থাকে- ৮০ থেকে ১০০ কিমি এলাকা জুড়ে নদী ও খালের পানিতে ভাসতে থাকা অপেক্ষাকৃত পাতলা তেলের স্তরের কি হবে? কিংবা বনের জোয়ারভাটা প্লাবিত কাদামাটিতে জমে থাকা তেলই বা কিভাবে অপসারণ করা হবে? নদীতে ভাসমান তেল অপসারণের জন্য লয়েড-২ নামের চীনের তৈরী স্পিল অয়েল ডিসপারসেন্ট কেমিক্যাল স্প্রে করা বিষয়ে আলোচনা চলছে। এইসব ডিসপারসেন্ট কেমিক্যাল সাধারণত খোলা সাগরের তেল দূষণ দূর করার কাজে ব্যবহার করা হয়। ম্যানগ্রোভ বনভূমি অঞ্চলে এই ধরণের রাসায়নিক স্প্রে কতটা উপকার করবে আর কতটা নতুন বিপদে পরিণত হবে সে বিষয়টা বিবেচনা না করে হুট করে ম্যানগ্রোভ জলাভূমিতে ব্যবহার করাটা ঠিক হবে না।

তেল দুষণ মুক্ত করার জন্য কি ধরণের পদক্ষেপ নেয়া নেয়া উচিত এ বিষয়টি জানতে আমরা সুন্দরবন বিশেষজ্ঞ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানের অধ্যাপক ড.আব্দুল্লাহ হারুণের সাথে কথা বলেছি। তার মত অনুসারে-

প্রথমত, খালে জমে থাকা ভারী তেল দ্রুত অপসারণ করতে হবে। এর জন্য স্রেফ জনগণের স্বত:স্ফর্তুতার উপর নির্ভর না করে, সরকারের বিভিন্ন বিভাগ ও বাহিনীর কর্মীদেরকে পরিকল্পিত ভাবে কাজে লাগাতে হবে এবং তেল তোলার কাজে খালি হাত নয় ফোম, স্পঞ্জ সহ বিভিন্ন তেল শোষণকারী সরবেন্ট ম্যাটেরিয়াল ও যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে হবে।

দ্বিতীয়ত, নদীতে ভাসমান তেলের স্তর অপসারণের জন্য রাসায়নিক স্প্রে ব্যবহার করা সিদ্ধান্তটি নেয়ার আগে যথেষ্ট বিচার বিবেচনার প্রয়োজন আছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে পৌছতে দেরী হলে তার জন্য সময় নষ্ট করা যাবে না, সরকারের বিভিন্ন বিভাগ ও বাহিনীর কর্মীদেরকে ফোম, স্পঞ্জ সহ বিভিন্ন তেল শোষণকারী সরবেন্ট ম্যাটেরিয়াল ও ভ্যাকুয়ামিং যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে নদী থেকে তেল তোলার কাজ দ্রুত শুরু করতে হবে।

তৃতীয়ত, জোয়ার ভাটা প্লাবিত কাদামাটির স্তর থেকেও তেল শোষণের উদ্যোগ নিতে হবে, প্রয়োজনে উপরের ৪/৫ সেমি পুরু কাদামাটির স্তর অপসারণ করে হলেও এ কাজটি করতে হবে।

চতুর্থত, বনের গাছের গোড়ায় তেল জমে থাকলে সেটা অপসারণ করতে হবে। গাছের গোড়ায় বা শ্বাসমূলে লেগে থাকা তেল হাত দিয়ে সরাতে গেলে ক্ষতি বেশি হবে।

সুন্দরবন যে কত বড় বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে তার পুরো চেহারাটা এখনই বোঝা যাবে না, কারণ ইতিপূর্বে বিভিন্ন দেশের ম্যানগ্রোভ বনে তেল দূষণের ঘটনা থেকে দেখা গেছে দূষণের ফলাফল চোখে পড়তে কয়েক সপ্তাহ থেকে শুরু করে কয়েক বছর পর্যন্ত লেগে যেতে পারে। দুষণ কাটিয়ে উঠতে ম্যানগ্রোভ বনের কয়েক দশক থেকে শুরু করে এমনকি অর্ধ শতাব্দি পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। ঠিক কি পরিমাণ গাছ ও প্রাণী সরাসরি তেল দূষণের শিকার হয়েছে, কি পরিমাণ আংশিক ও পরোক্ষ দূষণের শিকার হয়েছে ও হবে এবং কি ধরণের প্রতিকার ও প্রতিরোধ মূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে তার উপর নির্ভর করছে কিছু দিন পর সুন্দরবনের চেহারা কি দাড়াবে। তবে ইতিমধ্যে সরকারের তৎপরতার (কিংবা তৎপরতাহীনতা) বহর দেখে আশাবাদী হওয়ার কোন সুযোগ থাকছে না। যে শাসকরা বার বার বলার পরও সুন্দরবনের মধ্যে বিপদজনক কার্গো জাহাজ চলাচল বন্ধ করেনি, উল্টো দেশব্যাপি প্রতিবাদ স্বত্ত্বেও সুন্দরবনের পাশে দুটি কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরী ও কয়লার জন্য সুন্দরবনের মধ্যে দিয়ে আরো বড় বড় জাহাজ চলাচলের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে, সেই শাসকদের হাতে সুন্দরবনের বর্তমান ও ভবিষ্যত কোনভাবেই নিরাপদ নয়। এ ক্ষেত্রে সুন্দরবনকে দ্রুত তেল দূষণ মুক্ত করা এবং ভবিষ্যতে সুন্দরবনের মধ্যে দিয়ে জাহাজ চলাচল বন্ধ ও সুন্দরবনের পাশে এনটিপিসি ও অরিয়নের কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র সহ সকল ধরণের দূষণকারী তথাকথিত উন্নয়ণ কর্মকান্ড বন্ধ করার জন্য জনগণের পক্ষ থেকে সরকারের উপর ব্যাপক চাপ প্রয়োগ ছাড়া সুন্দরবনকে রক্ষা করা যাবে না।।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s