1971, Neither the Beginning nor the End

General Niazi surrendering to the Indian Army. Photo credit: Aftab Ahmed.

General Niazi surrendering to the Indian Army in 1971. Photo credit: Aftab Ahmed.

 1971:  Neither the Beginning nor the End of the Liberation War

by Anu Muhammad

Translated by Emon Sarwar for AlalODulal.org

1971 was neither the beginning of the war of liberation for the people of Bangladesh nor was it the end of it. 1971, the War of Independence, is a very important episode in the struggle for the liberation of the people of Bangladesh, or for that matter, the people of this region. How the people of Bangladesh- with what grit and strength, could face a military force, organized under the direct supervision of United States? Where did the people of this land gather the courage and strength? They were merely known to be the Rice-Eating Bengalis (ভেতো বাঙ্গালী). How did that Rice-Eating Bengali- the peasants, the labouers, men and women transformed themselves?

Such courage and strength of a population cannot be mastered within a particular time-frame. It’s rather the outcome of a continuous process. During the war of independence in 1971, we have heard people singing the song of Khudiram or telling the stories of Suriya Sen; the Anti British Movement, Tebhaga Movement, Telangana Movement- all these have given us the strength. It’s not that we have gathered our inspiration only from the tales of our own past. Stories of Vietnam, the experience of China from her protracted people’s war, the memorable incidents from the struggles of the peoples of different parts of India against the British rule, novels and stories, or from the slave mutiny of the ancient period to the French Revolution, even the myths and legends- everything have inspired us and provided us with the strength in one way or another. This correlation is very important.

The struggles that take place in a region, in an area, in a continuance and in a sequence, may remain in oblivion; but those are never wiped out. There are many fights that end unsuccessful. In fact, success is built on the failures.

Simon Bolivar, the revolutionary of Latin America, is synonymous for the “Bolivian Revolution”-which is a popular objective. On his deathbed, he said, “What have I done in my whole life?” Latin America, at that time, had just got liberated from the colonial powers of Europe, but the dreams of a new society had not yet been realized. It was him who led the people in this movement, but he died with a deep sense of unfulfillment. He said, “We have only achieved the independence- rest all, we’ve lost.” What an agonizing expression! On the face of his death he further said, “have I been cultivating water in the sea throughout my whole life?”

What does cultivation in the seawater or cultivation in the sea means? There is no point ploughing the water in the sea. Simon Bolivar died with such a pain of failure in heart! Did he end? No. Today, in Latin America, any struggle or revolutionary movement- whatever resistance that people are forming against the imperialism; Simon Bolivar remains as the prime source of inspiration for the people. If he had taken over the power and indulged in success and complacency, things would not be as it is today. But his success, revolutionary spirit along with the pain of his incompleteness- everything contributed in flourishing the yarn for the subsequent struggles within that society. So, at every level, every struggle in a society or locality, gives birth to a spirit, sets forth the legacy of a continuation that provide with the strength and courage for its fight against the injustice. That continuance paves the path for the people.

The liberation war that began with the lack of preparedness and decisiveness in March 1971, suffered from the dearth of Coordinated Directives throughout its tenure. Not only the dearth, there were conflicts. The conflict, mistrust and tension between the military and the political leadership kept on increasing. As a continuance, many of those are still on.

While discussing the Liberation War, we generally come across two major trends. One is, Liberation war means Awami League. Whatever Awami League shall decide must form the Spirit of Liberation War; Supporting Awami Leage means supporting the cause of Liberation War. Another trend is, to overexpose certain things, which are extraneous. The advocates of this trend preach that the leadership of the liberation war did to play their role well enough. That the creation Bangladesh was done through the fulfillment of interests of Soviet Union and India. I don’t agree with any of the two trends.

Well, this is a fact that, India had her interests, the Soviet Union too had various considerations. This is also true that, those who led the liberation war by virtue of their triumph in 1970’s election did not have any coordinated directives for the war or for the Independent Bangladesh. That is why they had tussles and conflicts amongst themselves. If we look into the history, we can realize as to how the war had been hanging on a thin wire. We find Tazuddin Ahmed as one of the protagonist who had worked with utmost sincerity to win the war. But he had to face numerous challenges and pressures. Even after the Independence, the loads of those pressures severed him. Being the prime organizer of the Liberation war, Tazuddin could not survive in Awami League- but Mushtak did.

The importance of the aspiration, courage, dreams, spirit and the power of the people against a barbaric military onslaught must not be demeaned, for the individual positions or stands of the political leaders or the equations of the international powers. That’s why, time and again, I say that the war of 1971 is nothing but a continuation of the struggle for the liberation. In the war of 71, different walks of life have contributed in many different ways. One spirit, “There will be an independent state which will be unlike Pakistan”, had the highest preference. A new Pakistan will not be created; it will be a state of a new sort. It is of paramount importance, as to how a new aspiration and hope was generated into the landless poor, the laborers, middle-class and the students, through the spirit of liberation war. “We want a state, that means a new system”. This new society must bring to an end to the system that discriminated on the basis of nationality-ethnicity-caste-religion and classes. That will be a glorious society.

If we talk about the spirit of Liberation war, we have to accept that a major part of that spirit was to establish a new state. Except for a particular quarter that collaborated the Pakistan Military, everyone was unanimous on the ideal, that Bangladesh would be a secular and democratic state. Now the state is established. Only this much. But we can’t say that we have established a secular state. Neither we can claim that we could form a state that is free from the discrimination based on religion, ethnicity and class. The state that we see now is not the one people of Bangladesh fought for.

As theses things were not achieved, if someone draws a deduction like, what was the benefit of fighting the liberation war? I am not aligned with this as well. We have to say that the continuation of the liberation war is still on. We are very much in the liberation war. Whatever fights that we have today- the fight for the freedom of our people, the fight against the domination of the imperialists, against grabbing, possession, trafficking, or to establish the ownership of the people over the natural recourses of the state, the fight against oppressions, against communalism, or for that matter the fight for the trial of the war criminals, everything is a sequel of our war of liberation war.

In future, no major struggle will proceed in Bangladesh without having taken the 1971 into consideration. No fight for the liberation of the people of Bangladesh can be undertaken without being touched by the spirit, belief and the courage of the liberation war of 1971. On the other hand, Speaking of the Liberation war with the endorsement of any anti-people political ideology will be a sheer deception against the spirits of democratic-secularism, impartiality and equality, on which the idea of a populist society was envisaged.

Confinement of the struggle of liberation in 1971, as an ornament, within the time frame of that particular year, will be nothing but a betrayal with the spirit of our liberation war. What we see, on one hand, there is a perpetual effort of using the liberation war as a shield to protect the anti people politics and on the other hand they deal in the spirit of 1971. It is our duty these days to fight this trend by playing our proper roles in the continuation of the struggle for liberation of the people.

Anu Muhammad is professor at Jahangirnagar University, Bangladesh, where he has taught economics since 1982 and taught anthropology from 1991 to 2005.

The original Bengali was published in Banik Barta on the 16th of December, 2013.

১৯৭১, মুক্তিযুদ্ধের শুরুও না, শেষও না

আনু মুহাম্মদ

১৯৭১ সাল মুক্তিযুদ্ধের শুরুও নয়, ১৯৭১ সাল বাংলাদেশের মানুষের মুক্তিযুদ্ধের শেষও নয়। বাংলাদেশের কিংবা এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের মুক্তির যুদ্ধের একটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় হলো ১৯৭১, স্বাধীনতা যুদ্ধ। বাংলাদেশের মানুষ কী করে, কোন সাহসে, কোন বলে, কোন শক্তিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে সংগঠিত ভয়ঙ্কর একটি সেনাবাহিনীকে মোকাবেলা করল? এত সাহস ও শক্তি কোথায় পেল এ অঞ্চলের মানুষ? ‘ভেতো বাঙ্গালী’ হিসেবেই ছিল তার পরিচয়। সেই ভেতো বাঙ্গালী, কৃষক, শ্রমিক, নারী-পুরুষ কী করে এ রকম বদলে গেল?

একটি জনগোষ্ঠীর এই সাহস বা শক্তি একটা নির্দিষ্ট সময়ে তৈরি হয় না, তার একটা ধারাবাহিকতা থাকে। ১৯৭১ সালে যখন যুদ্ধ হচ্ছে, আমরা তখন মানুষের মুখে ক্ষুদিরামের গান কিংবা সূর্যসেনের গল্প শুনি; ব্রিটিশবিরোধী লড়াই, তেভাগা আন্দোলন, তেলেঙ্গানা আন্দোলন তাকে শক্তি দেয়। শুধুমাত্র দেশের অতীত থেকে শুনি তা না, ভিয়েতনামের গল্প আসে, চীনের দীর্ঘস্থায়ী জনযুদ্ধের অভিজ্ঞতা, ব্রিটিশবিরোধী ভারতের অন্যান্য অঞ্চলের যারা স্মরণীয় তাদের কথা আসে, গল্প আসে, উপন্যাস আসে, এমনকি প্রাচীনকালের দাস বিদ্রোহ থেকে শুরু করে ফরাসি বিপ্লব, ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা মিথ সবকিছুই আমাদের কোনো না কোনোভাবে উত্সাহিত করে, শক্তিদান করে। এই যোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

একটা অঞ্চলে, একটা এলাকায়, একটা ধারাবাহিকতায়, একটা পরম্পরায় যে লড়াইগুলো হয়, সেই লড়াইগুলো অচেতনে থেকেই যায়; নিঃশেষ হয়ে যায় না। অনেক লড়াই আছে, যা ব্যর্থ হয়। প্রকৃতপক্ষে, অনেক ব্যর্থতার উপরেই সাফল্য দাঁড়ায়।

সাইমন বলিভার লাতিন আমেরিকান বিপ্লবী, তার নামেই সে অঞ্চলে এখন ‘বলিভারিয়ান রেভলিউশন’ একটি লক্ষ্য হিসেবে জনপ্রিয়। তিনি মৃত্যুর সময় বলেছিলেন, ‘কী করলাম আমি সারা জীবন?’ লাতিন আমেরিকা তখন ইউরোপীয় ঔপনিবেশিক শক্তির হাত থেকে মুক্ত হয়েছে, কিন্তু নতুন সমাজের স্বপ্ন পূরণ হয়নি। সেই লড়াইয়ে তিনিই নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, কিন্তু মৃত্যুবরণ করছেন গভীর অতৃপ্তি নিয়ে। বলছেন, ‘একমাত্র স্বাধীনতাটাই আমরা পেলাম আর সব কিছুই হারালাম।’ কী মর্মান্তিক উচ্চারণ! মৃত্যুর মুখে এসে তিনি গভীর বেদনায় আরো বলছেন, ‘আমি কি সারা জীবন সমুদ্রের পানিতে চাষ করলাম?’

সমুদ্রের পানিতে চাষ, সমুদ্রে চাষ মানে কী? সমুদ্রের পানিতে লাঙল দিয়ে চাষ করার কোনো অর্থ নেই। সাইমন বলিভার এ রকম একটা ব্যর্থতার যন্ত্রণা নিয়ে মারা গেলেন। শেষ হয়ে গেলেন? না। এখন পুরো লাতিন আমেরিকায় বিপ্লবী যত ধরনের তত্পরতা বা লড়াই হচ্ছে, সাম্রাজ্যবাদকে মোকাবেলার যত রকম যা কিছু লড়াই হচ্ছে, সেখানে সাইমন বলিভার হচ্ছেন অন্যতম প্রধান প্রেরণার উত্স। যদি এ রকম হতো— ক্ষমতায় এসে তিনি সাফল্যে, সন্তুষ্টিতে ডুবে থাকতেন তাহলে হয়তো এ রকম প্রেরণার উত্স হতে পারতেন, না। কিন্তু তার সাফল্য, বিপ্লবী চেতনা এবং সেই সঙ্গে অসম্পূর্ণতার যে বেদনা সব কিছুই পরবর্তী আরো লড়াই বিকশিত করার তাগিদ ওই সমাজেই তৈরি করেছে। সুতরাং প্রত্যেক পর্যায়, প্রতিটি লড়াই আসলে একেকটা সমাজে বা একেকটা জনপদে অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামের চেতনার ধারাবাহিকতা তৈরি করে, তার স্পিরিট তৈরি করে, তার সাহস তৈরি করে, শক্তি তৈরি করে। সেই ধারাবাহিকতায়ই তৈরি হয় মানুষের পথ।

১৯৭১ সালে মার্চে প্রস্তুতির অভাব এবং সিদ্ধান্তহীনতা দিয়ে যার শুরু, সেই মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পুরোটা সময়জুড়েই ছিল সমন্বিত দিকনির্দেশনার অভাব। শুধু অভাব নয়, সংঘাতও ছিল। সেনাবাহিনী ও রাজনীতিবিদদের মধ্যেও বিরোধ, অনাস্থা ও টেনশন ক্রমে বাড়তে থাকে। এসবের অনেক কিছুর ধারাবাহিকতা স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত নানাভাবে অব্যাহত আছে।

মুক্তিযুদ্ধের বিষয় আলোচনায় সাধারণভাবে প্রধান দুটি প্রবণতা দেখা যায়। একটি হলো, মুক্তিযুদ্ধ মানে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ যেটা নির্ধারণ করবে, সেটাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা; আওয়ামী লীগ সমর্থন মানেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ। আরেকটা প্রবণতা হলো, এর মধ্যে নানা বহিঃস্থ বিষয়কে প্রধান করে তোলা। এ ধারার বক্তব্য, মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব যথাযথ ভূমিকা পালন করেনি। ভারত কিংবা সোভিয়েত ইউনিয়নের স্বার্থসিদ্ধির মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এ দুটো চিন্তাধারার সঙ্গে আমি কোনোভাবেইএকমত নই।

এটা ঠিক যে, এখানে ভারতের নানা রকম হিসাব-নিকাশ ছিল, সোভিয়েত ইউনিয়নেরও নানা বিবেচনা ছিল। এটাও ঠিক যে, ১৯৭০ সালের নির্বাচনের বলে যুদ্ধে যারা রাজনৈতিক নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাদের যুদ্ধ কিংবা স্বাধীন বাংলাদেশ সম্পর্কে কোনো সমন্বিত দিকনির্দেশনা ছিল না সে কারণে তাদের মধ্যে অনেক রকম দ্বন্দ্ব-সংঘাতও ছিল। ইতিহাস অনুসন্ধান করলে দেখা যাবে, কী রকম একটা খুবই সূক্ষ্ম তারের ওপর পুরো যুদ্ধটি সংঘটিত হয়েছে। তাজউদ্দীন আহমদকে পাই এমন একটি চরিত্র হিসেবে, যিনি স্বাধীনতা যুদ্ধকে সফল করার জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করেছেন। কিন্তু অনেক ধরনের চাপ ও বৈরিতা তাকে মোকাবেলা করতে হয়েছে। স্বাধীনতার পরও তাকে সেসবের চাপ বহন করতে গিয়ে ক্ষতবিক্ষত হতে হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সংগঠক হয়েও তাজউদ্দীন আহমদ আওয়ামী লীগ সরকারে টিকতে পারেননি, মুশতাক পেরেছিলেন।

কিন্তু নেতৃত্বের অবস্থা ও অবস্থানের জন্য, আন্তর্জাতিক শক্তিগুলোর নিজস্ব সমীকরণের জন্য, একটা বর্বর সেনাবাহিনীর আক্রমণ মোকাবেলা করতে গিয়ে বাংলাদেশের জনগণের যে শক্তি, সাহস, তার চেতনা, প্রত্যাশা ও স্বপ্ন তা ছোট হয় না, এগুলোর গুরুত্ব কোনোভাবেই খর্ব হয় না। সেজন্যই আমি বারবার বলতে চাই যে, ’৭১ সালের যুদ্ধ মুক্তিযুদ্ধের ধারাবাহিকতার একটি অংশ। ’৭১-এর যুদ্ধে সমাজের বিভিন্ন অংশ বিভিন্নভাবে অংশগ্রহণ করেছে। একটি চেতনাই তখন প্রাধান্যে ছিল যে, এমন একটি দেশ হবে, যা পাকিস্তানের মতো হবে না। নতুন কোনো পাকিস্তান আর হবে না, একটা নতুন ধরনের দেশ হবে। মানুষের মধ্যে, ভূমিহীন, শ্রমিক, মধ্যবিত্ত কিংবা শিক্ষার্থীদের মধ্যে কীভাবে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে নতুন আশা-আকাঙ্খা তৈরি হয়েছিল, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্র চাই নতুন রাষ্ট্র, মানে নতুন ব্যবস্থা চাই। এই নতুন সমাজে পাকিস্তানের মতো জাতি-বর্ণ-ধর্ম-শ্রেণীবৈষম্যমূলক যে ব্যবস্থা তার অবসান ঘটবে। সেটা একটা সমৃদ্ধ সমাজ হবে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যদি আমরা বলি, তাহলে চেতনার একটা দিক তো ছিল বটেই, একটা নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। পাক বাহিনীর কতিপয় সহযোগী বাদে সবাই একমত ছিলেন যে, বাংলাদেশ হবে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। এখন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এই এতটুকুই। কিন্তু অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হয়েছে, সেটা আমরা বলতে পারি না। শ্রেণী, বর্ণ, ধর্ম, জাতিবৈষম্য থেকে মুক্ত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হয়েছে, সেটাও বলতে পারি না। যে রাষ্ট্র এখন দেখছি, এর জন্য বাংলাদেশের মানুষ লড়াই করেনি।

এগুলো হয়নি বলে যদি কেউ আবার এ রকম সিদ্ধান্ত টানেন যে, তাহলে মুক্তিযুদ্ধ বা লড়াই করে কী লাভ হলো? এটার সঙ্গেও আমি একমত নই। আমাদের বলতে হবে মুক্তিযুদ্ধের ধারাবাহিকতা এখন পর্যন্ত চলছে। আমরা মুক্তির যুদ্ধের মধ্যেই আছি। এখন যত ধরনের লড়াই হচ্ছে— বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির লড়াই, সাম্রাজ্যবাদের আধিপত্য কিংবা লুণ্ঠন, দখল, পাচারবিরোধী লড়াই কিংবা মানুষের নতুন সমাজের জন্য লড়াই, দেশ ও দেশের সম্পদের ওপর জনগণের মালিকানার লড়াই, নিপীড়নবিরোধী লড়াই, সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী লড়াই, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি যতভাবেই লড়াই হচ্ছে সবগুলো লড়াই মুক্তিযুদ্ধের ধাবাবাহিকতার অংশ।

বাংলাদেশে ভবিষ্যতে কোনো বড় ধরনের লড়াই অগ্রসর হবে না ১৯৭১কে হিসাবের মধ্যে না নিয়ে, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের যে স্পিরিট সাহস বা চেতনা তাকে স্পর্শ না করে বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির লড়াই দাঁড় করানো যাবে না। আবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মধ্যে গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক, বৈষম্যহীন কিংবা জনকর্তৃত্বের যে চেতনাগুলো তৈরি হয়েছিল, সেগুলো অস্বীকার করে জনবিরোধী রাজনীতিকে বৈধতা দেয়ার জন্য মুক্তিযুদ্ধের কথা হবে প্রতারণা, ১৯৭১-এর লড়াইকে সেই সালের মধ্যেই আটকে তাকে একটা অলঙ্কার বানানো, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা। একদিকে বাণিজ্য, অন্যদিকে জনবিরোধী রাজনীতির বর্ম হিসেবে মুক্তিযুদ্ধকে ব্যবহারের চেষ্টাই জোরদার। এর বিপরীতে মানুষের মুক্তির যুদ্ধকে অব্যাহত রাখায় নিজ নিজ ভূমিকা পালনই আমাদের এ সময়ের দায়িত্ব।

One thought on “1971, Neither the Beginning nor the End

  1. I think there is something in the article that are not usually included in discussion on 1971. The inspiration from earlier times and outside liberation struggles and political movement such as china and Vietnam were ever present. I remember as a young boy young men carrying Mao’s red book in Bangladesh villages and talking about how small sized people in Vietnam were fighting bravely against the mighty powers of America the most powerful country in the world.

    Other than this interesting dimension the rest clearly lacks analytical rigour and clarity and seems to be personal desires and wishful thinking.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s